ফজলুর রহমান ফারুক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ফজলুর রহমান খান ফারুক
Fazlur Rahman Khan Faruk.jpg
টাঙ্গাইল-৭ আসনের সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
৭ মার্চ ১৯৭৩ – ৬ নভেম্বর ১৯৭৬
পূর্বসূরীআসন শুরু
উত্তরসূরীমোরশেদ আলী খান পন্নী
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১২ অক্টোবর ১৯৪৪
মির্জাপুর, টাঙ্গাইল, বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ভারত
(বর্তমান বাংলাদেশ)
জাতীয়তাব্রিটিশ ভারত (১৯৪৭ সাল পর্যন্ত)
পাকিস্তান (১৯৭১ সালের পূর্বে)
বাংলাদেশ
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
দাম্পত্য সঙ্গীসুরাইয়া বেগম
প্রাক্তন শিক্ষার্থীঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
পুরস্কারএকুশে পদক ২০২১

ফজলুর রহমান খান ফারুক বাংলাদেশের টাঙ্গাইল জেলার রাজনীতিবিদ ও মুক্তিযোদ্ধা যিনি পাকিস্তান গণপরিষদ সদস্য এবং টাঙ্গাইল-৭ আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন। মুক্তিযোদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার তাকে ২০২১ সালে একুশে পদক প্রদান করেন।[১]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

ফজলুর রহমান ফারুক ১২ অক্টোবর ১৯৪৪ সালে টাঙ্গাইলের [[মির্জাপুর উপজেলা উয়ার্শী ইউনিয়নের কহেলা গ্রামে জন্মগ্রহণ। তিনি আব্দুল হালিম খান ও মা ইয়াকুতুন্নেছা খানমের আট সন্তানের মধ্যে তিনি তৃতীয়। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞান বিভাগে মাষ্টার্স পাস করেন। তার স্ত্রী সুরাইয়া বেগম।

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

ফারুক ১৯৬০ সালে ছাত্রলীগের রাজনীতি শুরু করেন। ১৯৬২ সালে টাঙ্গাইল মহকুমা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ৬৫ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭০ সালে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন।

তিনি ১৯৭০ সালের গণ পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ৬ দফা আন্দোলনবাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণসহ তৎকালীন সকল রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন।

১৯৭৩ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসাবে টাঙ্গাইল-৭ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[২] ১৯৭৪ সালে বাকশাল গঠিত হলে টাঙ্গাইল জেলা বাকশাল এর যুগ্ম সম্পাদক নির্বাচিত হন।

১৯৮৪ সাল থেকে ২০১৫ সালের ১৭ আক্টাবর পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের টাঙ্গাইল জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।[৩] ২০১৭ সালে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের টাঙ্গাইল জেলা শাখার সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।[৪] তিনি বর্তমানে টাঙ্গাইল জেলা পরিষদের প্রশাসক।[৫]

১৯৮৬ সালের তৃতীয় ও ১৯৯১ সালের পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে টাঙ্গাইল-৭ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হয়ে ছিলেন।

সাংবাদিকতা[সম্পাদনা]

ফজলুর রহমান ফারুক ১৯৬২ সাল থেকে ১৯৬৫ সাল পর্যন্ত দৈনিক ইত্তেফাকের টাঙ্গাইল প্রতিনিধি, টাঙ্গাইল মহকুমা প্রেসক্লাব এবং টাঙ্গাইল মহকুমা মফস্বল সংবাদদাতা সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

সম্মাননা[সম্পাদনা]

ফজলুর রহমান ফারুক বিভিন্ন পুরস্কার ও সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন:

  • ২০২১ সালে মুক্তিযোদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য একুশে পদক লাভ।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. নিজস্ব প্রতিবেদক (৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১)। "একুশে পদক পাচ্ছেন ২১ বিশিষ্টজন"দৈনিক প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  2. "List of 1st Parliament members" (PDF)parliament.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  3. "Nation wants return to democracy"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ৫ এপ্রিল ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  4. "SP Park opens in Tangail"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ৫ ডিসেম্বর ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  5. "Five lions clubs of Tangail district jointly accorded a reception"observerbd.com। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০১৯