প্রোফেসর শঙ্কুর অভিযানসমূহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

প্রোফেসর শঙ্কুর অভিযানসমূহের তালিকায় সত্যজিৎ রায়ের লেখা প্রোফেসর শঙ্কু অ্যাডভেঞ্চারের ৩৮টি গল্প রয়েছে। প্রথম শঙ্কুর অভিযানের গল্প ব্যোমযাত্রীর ডায়রি ১৯৬৫ খ্রিস্টাব্দে সন্দেশ পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছিল।[১][২] এই গল্পে প্রোফেসর শঙ্কুর মহাকাশ ভ্রমণের দীর্ঘ বর্ণনা আছে। শেষ শঙ্কুর অভিযান ইন্টিলেকট্রন সত্যজিৎ রায়ের মৃত্যুর পরে অসম্পূর্ণ রয়ে যায়।[২]

১ – ১০[সম্পাদনা]

গল্পসমূহ সম্পর্কিত বিষয় বিষয় সংক্ষেপ ঘটনাস্থল চরিত্র
অবিনাশ মজুমদার নাকুরচন্দ্র বিশ্বাস নিউটন

(বিড়াল)

প্রহ্লাদ জেরেমি স্যান্ডার্স উইলহেম ক্রোল জন সামারভিল
ব্যোমযাত্রীর ডায়রি
00Galaxy NGC1300.jpg
মহাকাশ ভ্রমণ
প্রোফেসর শঙ্কু তার চাকর প্রহ্লাদ, পোষা বেড়াল নিউটন ও আবিষ্কৃত রোবট বিধুশেখরকে নিয়ে মঙ্গল গ্রহে যাত্রা করেন। মঙ্গলে তারা কিছু ভয়ানক প্রাণীর মুখোমুখি হয়। অবশেষে প্রফেসর শঙ্কুর আবিস্কৃত রকেটে করে তারা টাফা নামক এক গ্রহে আসে। টাফা গ্রহের নিম্ন সভ্য এবং অ-বুদ্ধিমান প্রাণীরা নিজেদেরকে আধুনিক ও রোবট বিধুশেখরের চেয়েও বুদ্ধিমান বলে দাবি করে। সৌরমণ্ডল হ্যাঁ না হ্যাঁ হ্যাঁ না না না
প্রোফেসর শঙ্কু ও ঈজিপ্সীয় আতঙ্ক
Egyptian - Mummy and Painted Cartonnage of an Unknown Woman - Walters 791 - Color Reconstruction.jpg
ঈজিপ্সীয় মমি
ব্রিটিশ প্রত্নতাত্ত্বিক জেমস সামার্টন মিশরীয় শহর বুবাস্টিসে ৩০টিরও বেশি মমি খুঁজে পান। প্রোফেসর শঙ্কু মিশরে গিয়ে সামারটনের দলে যোগ দেন। একই সময়ে, একটি মিশরীয় ব্যক্তি শঙ্কুকে হুমকি দেয় এবং খনন বন্ধ করতে বলে। শঙ্কু সতর্কবাণী উপেক্ষা করে। খননকালে সামারটন শঙ্কুকে একটি মমি উপহার দিলে সেটি নিয়ে শঙ্কু ভারতের গিরিডিতে নিয়ে আসেন। মিশরীয় ব্যক্তি যিনি অধ্যাপক শঙ্কুকে সতর্ক করেছিলেন, তিনি গিরিডি অবধি এসে শঙ্কুকে আক্রমণ করে এবং মৃত ব্যক্তির বংশধর হিসাবে নিজেকে দাবী করেন। সাইদ বন্দর, বুবাস্টিস, মিশর
গিরিডি, ভারত
না না হ্যাঁ হ্যাঁ না না না
প্রোফেসর শঙ্কু ও হাড়
T-Rex.jpg
ক) টাইর‍্যানোসরাস (কঙ্কাল)
খ) ভারতীয় যোগীর যাদুকরী শক্তি
প্রোফেসর শঙ্কু নীলগিরি পর্বতমালার নিকটে একটি টাইর‍্যানোসরাসের কঙ্কাল খুঁজে পান। তিনি গিরিডিতে ফিরে এসে গবেষণা শুরু করেন। একই সময়ে একজন সাধু গিরিডিতে আসেন, যিনি যাদুবিদ্যার শক্তি ব্যবহার করে মৃত প্রাণীদের হাড়কে জীবন্ত প্রাণিতে রূপান্তর করতে পারেন। নীলগিরি পাহাড়, গিরিডি হ্যাঁ না না না না না না
প্রোফেসর শঙ্কু ও ম্যাকাও
Macaw peering.jpg
ক) অদৃশ্য হওয়ার তত্ত্ব
খ) ম্যাকাও পাখি
প্রোফেসর শঙ্কু একটি মৌখিক ড্রাগ আবিষ্কার করেন, যার মাধ্যমে যে কেউ অদৃশ্য হয়ে যেতে পারে। শঙ্কুর প্রতিদ্বন্দ্বী গবেষক গজানন তরফদার ফর্মুলাটি চুরি করার চেষ্টা করে। সেই সময় শঙ্কুর বাগানে কথা বলতে পারে একটি ম্যাকাও পাখি আসে। প্রোফেসর শঙ্কু বাড়িতে পাখিটিকে আশ্রয় দেন। কিছুদিন পর প্রোফেসর শঙ্কুর ফর্মুলাটি চুরি হয়ে যায় এবং একই সাথে পাখিটিও হারিয়ে যায়। গিরিডি হ্যাঁ না হ্যাঁ না না না না
প্রোফেসর শঙ্কু ও আশ্চর্য পুতুল
Doll, made in Germany.jpg
সন্দেহজনক হিউম্যানয়েড ভাস্কর্য
প্রোফেসর শঙ্কু সুইডিশ একাডেমি অফ সায়েন্সেস থেকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি নিতে সুইডেন যান। সেখানে গ্রেগর লিন্ডকুইস্ট নামে এক ব্যক্তির সাথে তাঁর দেখা হয়। গ্রেগর তাকে জানায় যে তিনি একটি পুতুল প্রস্তুতকারক এবং তাঁর সৃষ্টিগুলো দেখার জন্য তাকে আমন্ত্রণ জানায়। প্রোফেসর শঙ্কু আমন্ত্রণটি গ্রহণ করেন। কিন্তু, তিনি কিছু চমকপ্রদ এবং অপ্রীতিকর সত্য খুঁজে পান। এছাড়া সেখানে তিনি বিপদেও পড়েন। সুইডেন না না না না না না না
প্রোফেসর শঙ্কু ও গোলক-রহস্য
Mars Opposition and Equinox.jpg
সৌরজগতের ক্ষুদ্রতম গ্রহ, বহির্জাগতিক প্রাণ
অবিনাশ মজুমদার উসরি নদীর কাছে একটি গোলকীয় বস্তু পেয়েছেন। খুব শীঘ্রই তিনি বস্তুটির অদ্ভুত বৈশিষ্ট্যগুলি লক্ষ্য করেন, যেমন প্রতি কয়েক ঘণ্টা সেটির রঙ পরিবর্তিত হয়, কখনও কখনও এটি ভিজে যায় এবং অন্য সময় এটি তুষারের মতো শীতল হয়ে যায়। অবিনাশ মজুমদার প্রোফেসর শঙ্কুকে তা জানান। কিছুদিন পর অবিনাশ মজুমদার বলটি প্রোফেসর শঙ্কুকে দেন। প্রোফেসর শঙ্কু আবিষ্কার করেন যে বলটি ("গোলাকার বস্তু") আসলে একটি ছোট গ্রহ। গিরিডি হ্যাঁ না হ্যাঁ না না না না
প্রোফেসর শঙ্কু ও চী-চিং
Magician artwork.jpg
সম্মোহন
চীনের এক জাদুকর চি চিং শঙ্কুকে মঞ্চে ডেকে তার উপর ৩০মিনিট ধরে সম্মোহনবাদ প্রয়োগ করার চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হয়। কোবে, গিরিডি না না হ্যাঁ হ্যাঁ না না না
প্রোফেসর শঙ্কু ও খোকা
NIA human brain drawing.jpg
মানব মস্তিষ্কের সুপ্ত শক্তি
ঝাঝার পোস্ট অফিসের কর্মচারীর সাড়ে চার বছরের ছেলে অমূল্য ওরফে খোকা মাথায় চোট পেয়ে অতিলৌকিক জ্ঞান ও দৃষ্টিশক্তির অধিকারী হয়ে ওঠে। শঙ্কু ছেলেটিকে কিছুদিন নিজের কাছে এনে রাখেন। কিছুদিন পরে শঙ্কুর ল্যাবরেটরিতে সে নিজেই নিজের চিকিৎসা করে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যায়। গিরিডি হ্যাঁ না না হ্যাঁ না না না
প্রোফেসর শঙ্কু ও ভূত
Ghost.jpg
ভূত, মানব আত্মা
প্রোফেসর শঙ্কু নিও-স্পেকট্রোস্কোপ নামে একটি যন্ত্র আবিষ্কার করেন, যা মৃত মানুষের আত্মার সাথে যোগাযোগ করতে পারে। একই সময়ে অবিনাশ মজুমদার সহ কিছু লোক প্রোফেসর শঙ্কুকে বলেন যে তারা তাকে গিরিডির কিছু জায়গায় দেখেছেন এবং তারা যখন তাকে ডেকেছিলেন, তখন তিনি কোনও মনোযোগ দেননি। এখন, শঙ্কু বুঝতে পারেন যে ব্যক্তিটি তিনি ছিলেন না। গল্পের শেষে শঙ্কুর অতি বৃদ্ধ প্রপিতামহো, বটুকেশ্বর শঙ্কু এসে উপস্থিত হন। গিরিডি হ্যাঁ না হ্যাঁ হ্যাঁ না না না
প্রোফেসর শঙ্কু ও রোবু
Animation2.gif
রোবট
কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা
গিরিডির প্রোফেসর শঙ্কু একটি রোবট তৈরি করেন এবং নাম রাখেন রবু। রবুর একটি অনন্য বৈশিষ্ট্য হ'ল তিনি কঠিন গাণিতিক সমস্যাগুলি সমাধান করতে পারেন। জার্মানি থেকে আসা অধ্যাপক পামার প্রোফেসর শঙ্কুর কাছে একটি চিঠি পাঠান, তাঁর কাজটি (অর্থাৎ রোবটটি) দেখতে চান এবং তাকে জার্মানিতে আমন্ত্রণ জানান। অধ্যাপক শঙ্কু আমন্ত্রণটি গ্রহণ করে জার্মানির হাইডেলবার্গে পৌঁছান। হাইডেলবার্গে, রবু তার বুদ্ধি এবং গাণিতিক সমীকরণগুলি সমাধান করার ক্ষমতা দ্বারা অধ্যাপক পামারকে অবাক করে দেয়। সেখানকার রোবোটিক্স গবেষক প্রোফেসর বর্গল্ট শঙ্কুর আবিষ্কৃত রোবটটি কেনার প্রস্তাব দিলে শঙ্কু তা প্রত্যাখ্যান করেন। প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় অধ্যাপক বর্গল্ট তাকে হত্যার চেষ্টা করে। কিন্তু অলৌকিক ভাবে রোবটটি শঙ্কুকে রক্ষা করে। গিরিডি, ভারত
হাইডেলবার্গ, জার্মানি
হ্যাঁ না হ্যাঁ না না না না

১১ – ২০[সম্পাদনা]

গল্পসমূহ সম্পর্কিত বিষয় বিষয় সংক্ষেপ ঘটনাস্থল চরিত্র
অবিনাশ মজুমদার নাকুরচন্দ্র বিশ্বাস নিউটন

(বিড়াল)

প্রহ্লাদ জেরেমি স্যান্ডার্স উইলহেম ক্রোল জন সামারভিল
প্রোফেসর শঙ্কু ও রক্তমৎস্য রহস্য সমুদ্রগর্ভে রহস্য প্রোফেসর শঙ্কু লিঙ্গুয়াগ্রাফ নামে একটি যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন যা পশুর ভাষা (শব্দ) সহ পৃথিবীর যে কোনও ভাষা অনুবাদ করতে পারে। এই সময় শঙ্কু স্থানীয় সংবাদপত্র ও দ্য স্টেটসম্যান থেকে জানতে পারেন যে, নদিয়ার গোপালপুরে এক বিশেষ প্রকারের লাল মাছ দেখা গেছে এবং নরওয়েজিয়ান এক যুবক সমুদ্রে স্নান করার সময় কিছু অজানা লাল মাছ দ্বারা আক্রমণের শিকার হয় ও মারা যায়। প্রফেসর শঙ্কু সিদ্ধান্ত নিলেন গোপালপুরে বিষয়টি তদন্ত করতে যাবেন। তার সাথে যায় অবিনাশ মজুমদার। গোপালপুরে তারা জাপানের দুই সামুদ্রিক প্রাণীবিদ হামাকুরা এবং তনাকার সাথে দেখা করেন। জাপানি বিজ্ঞানী হামাকুরা ও তানাকার সঙ্গে শঙ্কু ও অবিনাশবাবু সমুদ্রের তলদেশে অদ্ভুত এক লাল মাছের সন্ধানে অভিযান চালান। গিরিডি, গোপালপুর, ওড়িশা, সমুদ্রগর্ভ হ্যাঁ না হ্যাঁ না না না না
প্রোফেসর শঙ্কু ও কোচাবাম্বার গুহা আদিম মানুষ দক্ষিণ আমেরিকার বোলিভিয়ায় মার্কিন বিজ্ঞানী ডাম্‌বার্টনের সঙ্গে একটি সদ্য-আবিষ্কৃত প্রাগৈতিহাসিক গুহা নিয়ে গবেষণা করতে গিয়ে শঙ্কু সেই গুহায় এক পঞ্চাশ হাজার বছর বয়সী গুহামানব এবং বেশ কিছু প্রাগৈতিহাসিক প্রাণীর সন্ধান পান। কিন্তু তাদের চোখের সামনেই একটি প্রচণ্ড ভূমিকম্পে সেগুলি মাটির তলায় বিলীন হয়ে যায়। কোচাবাম্বা, বলিভিয়া না না না না না না না
প্রোফেসর শঙ্কু ও গোরিলা গরিলা ব্রিটিশ প্রাণিবিজ্ঞানী জেমস ম্যাসিংহাম গরিলা নিয়ে গবেষণার জন্য কঙ্গো যান এবং কিছুদিন পর নিখোঁজ হন। তাকে উদ্ধার করা জন্য প্রোফেসর শঙ্কু তার বিজ্ঞানী বন্ধু গ্রেগরিকে নিয়ে আফ্রিকার জঙ্গলে চলে যান, সাথে নেন তার প্রতিবেশী অবিনাশকে। কঙ্গোর কালেহে অঞ্চলে পৌঁছে ম্যাসিংহামের সন্ধানে জঙ্গলে যাত্রা করলে তারা এক গরিলার মুখোমুখি হয়। শঙ্কু লক্ষ্য করে যে গরিলাটি যন্ত্রের মতো অস্বাভাবিক আচরণ করছে। গল্পে দেখা যায়, প্রোফেসর জেমস ম্যাসিংহাম তার বৈজ্ঞানিক উদ্ভাবন দিয়ে গরিলাদের নিজের আনুগত করে নেয়। এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে তিনি প্রোফেসর গ্রেগরি ও প্রোফেসর শঙ্কুকে বন্দি করেন। কিন্তু ক্যাবলা ও অবিনাশ সাহসিকতা দেখিয়ে প্রোফেসর ম্যাসিংহামকে বন্দি করে প্রোফেসর গ্রেগরি ও প্রোফেসর শঙ্কুকে উদ্ধার করেন। কঙ্গো হ্যাঁ না না না না না না
প্রোফেসর শঙ্কু ও বাগদাদের বাক্স প্রাচীন ইরাকের এক অসাধারণ উদ্ভাবন প্রোফেসর শঙ্কু আন্তর্জাতিক আবিষ্কারক সম্মেলনে যোগ দিতে ইরাকের বাগদাদে যান। সেখানে তিনি অধ্যাপক গোল্ডস্টেইন এবং অধ্যাপক পেট্রুসির সাথে সাক্ষাত করেন এবং তারা প্রাচীন সুমেরীয় সভ্যতার গৌরব নিয়ে আলোচনা করে। সেখানে তারা হাসান আল-হুবল নামে একজন ওড়াকীর সাথে সাক্ষাৎ করেন। আল-হাব্বল তাদের একটি পুরানো বাক্স দেখায় এবং তাদের জানায় যে বাক্সটিতে খুব অসাধারণ কিছু রয়েছে। শঙ্কু এবং অন্য দুজন অধ্যাপক জানতে পেরেছিলেন যে বাক্সটিতে একটি গ্যাজেট / সরঞ্জাম রয়েছে যা তাদের সময়ে এমনকি কল্পনাও করা খুব কঠিন, তবে এটি প্রাচীন ইরাকে তৈরি হয়েছিল। গোল্ডস্টিন লোভী হয়ে যায় এবং এটি চুরি করার চেষ্টা করে। বাগদাদ না না না না না না না
স্বপ্নদ্বীপ রহস্যময় দ্বীপ প্রোফেসর শঙ্কু স্বপ্নে এক দ্বীপের দেখা পান। সেই দ্বীপে যাওয়ার জন্য তিনি তার প্রতিবেশী অবিনাশ বাবুকে নিয়ে যাত্রা করেন। কিন্তু সে দ্বীপটি ছিল একটি জীবিত প্রাণী যা জ্ঞান ভক্ষণ করে বেঁচে থাকে ও জ্ঞানী মানুষদের কাছে আসতে প্ররোচিত করে। সে দ্বীপটি প্রফেসর শঙ্কু ও তার মতো সাতজন প্রবীন বিজ্ঞানীদের সারা জীবনের জ্ঞান ভক্ষণ করে শিশুর ন্যায় বানিয়ে দেয়। অবিনাশ বাবুর কল্যাণে তারা রক্ষা পান। ১৬° উত্তর ১৩৬° পূর্ব / ১৬° উত্তর ১৩৬° পূর্ব / 16; 136 (incident site) হ্যাঁ না হ্যাঁ না না না না
আশ্চর্য প্রাণী ক্ষুদ্রাকার বিবর্তন সুইজারল্যান্ডের সেন্ট গ্যালেনের একটি পরীক্ষাগারে জৈব-বিজ্ঞানী কর্নেলিয়াস হাম্বল্ট এবং প্রোফেসর শঙ্কু একটি ক্ষুদ্রতর বিবর্তন তৈরি করেছেন এবং সেখানে একটি ফ্লাস্কে তারা কৃত্রিম জীবন তৈরি করে। ফ্লাস্কে, বিবর্তনের স্তরগুলি খুব দ্রুত অতিবাহিত হয় এবং কয়েক দিনের মধ্যেই এককোষী প্রাণীটি একটি ক্ষুদ্রাকৃতির মানুষ হয়ে যায়। প্রোফেসর হাম্বল্ট যখন দেখেন যে ফ্লাস্কের ক্ষুদ্রাকার মানুষটি প্রোফেসর শঙ্কুর মতো দেখাচ্ছে, তখন তিনি "আসল" শঙ্কুকে হত্যা করার চেষ্টা করেছিলেন। সেন্ট গ্যালেন, সুইজারল্যান্ড না না না না না না হ্যাঁ
মরুরহস্য নিখোঁজ বিজ্ঞানী ডেমেট্রিয়াস নামে এক বিজ্ঞানী, যাকে শঙ্কু জানতেন, একদিন হঠাৎ হারিয়ে গেলেন। শঙ্কু তার বন্ধু সামারভিলকে নিয়ে ডেমেট্রিয়াসের সন্ধানে রওনা হয়। ঘটনাক্রমে তারা সাহারা মরুভূমিতে পৌঁছায়, যেখানে তারা ডেমিট্রিয়াস এবং তার নতুন আবিষ্কার সম্পর্কে একটি উদ্বেগজনক সত্য আবিষ্কার করে। তারা জানতে পারে ডেমিট্রিয়াস অন্তর্ধানের আগে নিজের উপর পরীক্ষা করেছিলেন। গ্রিস, সাহারা মরুভূমি না না না না না না হ্যাঁ
কর্ভাস পাখির আই.কিউ. শঙ্কু পাখার বুদ্ধিমত্তা বৃদ্ধির জন্য অরনিথন নামে একটি যন্ত্র আবিষ্কার করেন। ঘটনাক্রমে সেই যন্ত্রের সাহায্যে তিনি একটি কাকের বুদ্ধি বৃদ্ধি করেন, এবং কাকটির নাম দেন কর্ভাস। সেই পাখিটি আবার শঙ্কুর সাথে রওনা দেয় সানতিয়াগো-এর পক্ষী সম্মেলনে। সেখানে লোভী যাদুকর আর্গাস কর্ভাসকে চুরি করলেও কর্ভাস নিজেই নিজের রক্ষা করে অসম সাহস ও বুদ্ধির পরিচয় দেয়। সান্তিয়াগো না না না না না না না
শঙ্কু ও ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইন মৃত্যু থেকে উদ্দীপনা প্রোফেসর শঙ্কু সাউন্ডার্স এবং ক্রোলের সাথে জার্মান শহর ইংলস্টাডেটের ফ্র্যাঙ্কেনস্টেইন দুর্গ পরিদর্শন করেন। সেখানে তিনি ভিক্টর ফ্রাঙ্কেনস্টেইনের মহান নাতি জুলিয়াস ফ্রাঙ্কেনস্টিনের সাথে দেখা করেছিলেন। সেখানে শঙ্কু মৃত মানুষকে পুনরুদ্ধারের নিষিদ্ধ সূত্রটি শিখেছিলেন। নাৎসি অনুসারী হান্স রেডেলের হুমকির কথাও জানতে পেরেছিলেন, যিনি হিটলারের মৃত্যুর পরে তাঁর ধারণাগুলি প্রচার করেছিলেন এবং বর্তমানে জুলিয়াসহ ইনগলস্ট্যাটে সমস্ত ইহুদীদের উপর অত্যাচার করে। রেডলের মৃত্যুর পর তার অনুগামীরা রেডেলকে পুনর্জীবিত করার জন্য শঙ্কুকে হুমকি দিতে থাকে। ইংলস্ট্যাড না না হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ না
নকুড়বাবু ও এল ডোরাডো পৌরাণিক শহর এল ডোরাডো এটি কাল্পনিক প্রতিভাবান বিজ্ঞানী এবং উদ্ভাবক প্রোফেসর শঙ্কুর এল ডোরাডো নামে এক পৌরাণিক শহরের সন্ধানে অ্যামাজন অরণ্যের গভীরে ঘুরে দেখার এক সাহসিক কাহিনী। একদিন একজন সাধারণ বাঙালি ভদ্রলোক নকুরচন্দ্র বিশ্বাস ওরফে নকুর বাবু গিরিডিতে শঙ্কুর বাড়িতে দেখা করতে আসেন।শঙ্কু বুঝতে পারে যে নকুর বাবুর অন্যের মন পড়ার এবং ভবিষ্যৎ দেখার অতিপ্রাকৃত ক্ষমতা রয়েছে। নকুর বাবু তাকে সাও পাওলো-এর আসন্ন ঘটনা সম্পর্কে সতর্ক করেছিলেন। তাঁর বাহ্যিক শক্তি দেখে বিস্মিত শঙ্কু নকুর বাবুকে নিয়ে একটি বিজ্ঞান সম্মেলনে যোগ দিতে ব্রাজিল যান এবং ব্রাজিলিয়ান অ্যামাজনের গভীরে এল ডোরাডো শহরের রহস্য সমাধানে ব্রতী হন। এল ডোরাডো না হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ না

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসমূহ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Robinson, Andrew (২০০৪)। Satyajit Ray: The Inner Eye: The Biography of a Master Film-Maker (ইংরেজি ভাষায়)। Bloomsbury Academic। পৃষ্ঠা ৪০২। আইএসবিএন 978-1-86064-965-3 
  2. "Professor Shonku"। Satyajit Roy official website। ৬ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০১৩ 

গ্রন্থ[সম্পাদনা]

  • রায়, সত্যজিৎ (২০০২)। Sakuṃsamagra (১ সংস্করণ)। কলকাতা: আনন্দ পাবলিশার্স। পৃষ্ঠা সমগ্র পুস্তক। আইএসবিএন 81-7756-232-0