প্রথম বিশ্বযুদ্ধকালে জাপান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

জাপান প্রথম বিশ্বযুদ্ধ তে অংশ নিয়েছিল ১৯১৪ থেকে ১৯১৮ সাল পর্যন্ত এন্টেতে পাওয়ারস এর জোটভুক্ত হয়ে এবং মিত্রদের সদস্য হিসাবে জার্মান নৌবাহিনী এর বিরুদ্ধে সমুদ্র সুরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল এবং ভারত মহাসাগরে। রাজনৈতিকভাবে, জাপান চীন এর ওপর নিজের প্রভাব বিস্তারেরক সুযোগটি লুফে নিয়েছিলো বিশ্বযুদ্ধোত্তর পৃথিবীতে পরাশক্তির মর্যাদা লাভের লক্ষে। জাপানের সামরিক বাহিনী, সুবিশাল দূরত্বের সুযোগ নিয়ে এবং ইউরোপ এর যুদ্ধে জার্মানির ব্যস্ততার সুযোগ নিয়ে প্রশান্ত মহাসাগরীয় এবং পূর্ব এশিয়ায় জার্মান সম্পত্তি দখল করেছিল, তবে সেখানে বড় আকারের অর্থনৈতিক লাভ ছিল না।[১]  পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্যাটো টাকাাকি এবং প্রধানমন্ত্রী আকুমা শিগেনোবু সুযোগটি চীনে জাপানি প্রভাব বিস্তারের জন্য ব্যবহার করতে চেয়েছিলেন। তারা সান ইয়াত-সেন (১৮৬৬––-১৯২৫) তালিকাভুক্ত করেছিল, সেসময়ে যে জাপানে নির্বাসিত ছিল, তবে তাতে তেমন সাফল্য পাওয়া যায়নি। [২]

প্রায় স্বায়ত্তশাসিত আমলাতান্ত্রিক সংস্থা, ইম্পেরিয়াল জাপানি নৌবাহিনী প্রশান্ত মহাসাগরে সম্প্রসারণের নিজস্ব সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। এটি নিরক্ষীয় অঞ্চলের উত্তরে জার্মানির মাইক্রোনেশীয় অঞ্চল দখল করে এবং ১৯১২ সালে স্থানীয় নাগরিক নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত দ্বীপপুঞ্জগুলিতে রাজত্ব করেছিল। এই অভিযান নৌবাহিনীকে সেনাবাহিনী বাজেটের দ্বিগুণ বাজেট করার এবং বহর সম্প্রসারিত করার যোগ্যতা দিয়েছিল। জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক বিষয়গুলির উপরে নৌবাহিনী উল্লেখযোগ্য রাজনৈতিক প্রভাব অর্জন করেছিল। .[৩]

১৯১৪ এর ঘটনা প্রবাহ[সম্পাদনা]

জাপানের সিপ্লেন ক্যারিয়র "ওয়াকামিয়া"”১৯১৩
জাপানি সেনারা সিংগাওয়ের অবরোধের সময়: টিসিংটাও এর কাছে অবতরণ করছে।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধএর প্রথম সপ্তাহে জাপান ইঙ্গো-জাপানি জোটকে প্রস্তাব দিয়েছিল, জাপান যদি প্যাসিফিক জার্মান অঞ্চলগুলিকে নিতে পারে তবে যুদ্ধে প্রবেশ করবে।[৪] ১৯১৪ সালের আগস্টে ব্রিটিশ সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে জাপানকে চীনা জলে ও তার আশেপাশের ইম্পেরিয়াল জার্মান নেভির আক্রমণকারীদের ধ্বংস করতে সহায়তা চেয়েছিল। ১৯১৪ সালের ১৫ ই আগস্ট জাপান জার্মানিকে একটি আলটিমেটাম প্রেরণ করে, যা উত্তরহীন ছিলো; এরপরে জাপান জার্মানি এর বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিকভাবে যুদ্ধ ঘোষণা করেছিল ১৯১৪ সালের ২৩ আগস্ট সম্রাট তাইশ এর নামে।[৫] ভিয়েনা কিংডাও থেকে অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান ক্রুজার এসএমএস কায়সারিন এলিজাবেথ প্রত্যাহার করতে অস্বীকৃতি জানায়,ফলে জাপান অস্ট্রিয়া-হাঙ্গেরির বিরুদ্ধেও যুদ্ধ ঘোষণা করেছিল, ১৯১৪ সালের ২৫ আগস্ট।[৬]

জাপানি সেনারা দ্রুত পূর্ব জার্মান-লিজড অঞ্চলগুলি দখল করেছিল। ১৯১৪ সালের ২ সেপ্টেম্বর জাপানি বাহিনী চীনের শানডং প্রদেশে অবতরণ করে এবং তিসিংটাও (কিংডাও) -তে জার্মান বসতি ঘিরে ফেলে। অক্টোবরের সময়, নাগরিক সরকারের কার্যত স্বাধীনভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করে, ইম্পেরিয়াল জাপানি নৌবাহিনী প্রশান্ত মহাসাগরে জার্মানির বেশ কয়েকটি উপনিবেশ - মারিয়ানা, ক্যারোলিন এবং মার্শাল দ্বীপপুঞ্জ - কার্যত কোনও প্রতিরোধ ছাড়াই দখল করে। জাপানী নৌবাহিনী শানডং প্রদেশে জার্মান-অধীনে স্থল লক্ষ্যবস্তু এবং জাপানী  বিমানবাহী ওয়াকামিয়া রণতরী থেকে কিয়াওঝৌ উপসাগরীয় জাহাজগুলির বিরুদ্ধে বিশ্বের প্রথম বিমানবাহী থেকে বিমান আক্রমণ পরিচালনা করেছিল। ১৯১৪ সালের সেপ্টেম্বরে ওয়াকামিয়া দ্বারা চালিত একটি সমুদ্র বিমান অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান ক্রুজার কাইসারিন এলিজাবেথ এবং জার্মান গানবোট জাগুয়ার কে বোমা দিয়ে আক্রমণ করে। [৭]

সিংগাও অবরোধ১৯১৪ সালের ৭ নভেম্বর জার্মান উপনিবেশিক বাহিনীর আত্মসমর্পণের মাধ্যমে শেষ হয়।

১৯১৪ সালের সেপ্টেম্বরে, ইম্পেরিয়াল জাপানি সেনাবাহিনীর অনুরোধে, জাপানীস রেড ক্রস সোসাইটি তিনটি দল গঠন করেছিল, যাদের একজন করে সার্জন ও বিশ নার্সের সমন্বয়ে পাঁচ মাসের কার্যভার দিয়ে ইউরোপে প্রেরণ করা হয়েছিল। দলগুলি ১৯১৪ সালের অক্টোবর থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে জাপান ছেড়েছিল এবং তাদের পেট্রোগ্রাদ, প্যারিস এবং সাউদাম্পটন এ দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। এই নার্সদের আগমনটি ব্যাপক প্রেস কভারেজ পেয়েছিল এবং তাদের হোস্ট দেশগুলি পরবর্তীকালে এই দলগুলিকে তাদের নিয়োগের কাজটি পনের মাসের মধ্যে বাড়ানোর জন্য বলেছিল।[৮]

১৯১৫-১৯১৬ এর ঘটনা প্রবাহ[সম্পাদনা]

১৯১৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে সিঙ্গাপুর ভিত্তিক ইম্পেরিয়াল জাপানিজ নেভির জাহাজের নাবিকেরা  ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে ভারতীয় সেনাদের বিদ্রোহ দমন করতে সহায়তা করেছিল। জাপানের ইউরোপীয় মিত্ররা ইউরোপের যুদ্ধে ব্যাপকভাবে জড়িত থাকার সাথে সাথে জাপান ১৯১৫ সালের জানুয়ারিতে চীনা রাষ্ট্রপতি ইউয়ান শিকাই এর কাছে একু্শ দাবি উপস্থাপন করে চীনে তার অবস্থান সুদৃঢ় করার জন্য আরও চেষ্টা করেছিল। একটি দাবি চীনকে মূলত একটি জাপানি অধিরাজ্য বানিয়ে ফেলতো ইউরোপীয় শক্তিগুলির চীনের মধ্যে তাদের প্রভাবের ক্ষেত্রগুলির বিনিময়ে । চীন সরকারের সাথে ধীর আলোচনার কারণে, জাপানবিরোধী মতবাদের বিস্তৃতি এবং ক্রমবর্ধমান আন্তর্জাতিক নিন্দা (বিশেষত আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র থেকে), জাপান দাবির চূড়ান্ত দফা প্রত্যাহার করে নিয়েছিল, এবং চীন একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে ২৫ মে ১৯১৫ তারিখে।

১৯১৫-১৬ জুড়ে জাপানের সাথে পৃথক শান্তি আলোচনার জার্মান প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছিল। ১৯১৬  সালের ৩ জুলাই জাপান ও রাশিয়া একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করে যার মাধ্যমে প্রত্যেকে জার্মানির সাথে পৃথক শান্তি না করার প্রতিশ্রুতি দেয় এবং চীনে প্রত্যেকের অঞ্চল বা স্বার্থকে বাইরের তৃতীয় পক্ষের দ্বারা হুমকী দেওয়া হলে পরামর্শ ও সাধারণ পদক্ষেপে সম্মত হয়। যদিও কিখাতা এবং অন্যান্য চুক্তি দ্বারা রাশিয়ার চীনা ভূখণ্ডের দাবি ছিল, জাপান রাশিয়াকে হেইলংজিয়াং এর অধিগ্রহণ থেকে নিরুৎসাহিত করেছিল এবং জার্মানদের (একবিংশ দাবিসমূহ এ ১৯১৫সালে) মতো ধীরে ধীরে অন্যান্য শক্তিগুলিকে সরিয়ে দিতে শুরু করেছিল। চীনের ওপর প্রভাববলয়ে রাশিয়ান (উত্তর) এবং জাপানিজ (দক্ষিণ) বিভক্ত রেখাটি ছিল চীনা পূর্ব রেলপথ[৯]

১৯১৭ এর ঘটনা প্রবাহ[সম্পাদনা]

১৯১৬ সালের ১৮ ডিসেম্বর ব্রিটিশ অ্যাডমিরালটি আবার জাপানের কাছ থেকে নৌ সহায়তার জন্য অনুরোধ করে। প্রধানমন্ত্রী তেরোচি মাসাতাকে এর অধীনে নতুন জাপানি মন্ত্রিসভা সামরিক সহায়তা দেওয়ার অধিকতর পক্ষে ছিলো, কিন্তু ব্রিটিশ সরকার দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় এবং শানডংয়ে নতুন অর্জিত জার্মান সম্পত্তির প্রতি জাপানের আঞ্চলিক দাবি প্রত্যাখ্যান করে। ১৯১৭ সালের ১ ফেব্রুয়ারি জার্মানি যখন সাবমেরিন যুদ্ধ পুনরায় চালু করার ঘোষণা দেয়, ব্রিটিশ সরকার তাতে সম্মত হয়।[১০]

সিঙ্গাপুরে প্রথম বিশেষ স্কোয়াড্রনের চার ক্রুজারের মধ্যে দুটিকে কেপটাউন, দক্ষিণ আফ্রিকা পাঠানো হয়েছিল, এবং চারটি ধ্বংসকারীকে সদরের সদর দফতর মাল্টা থেকে বের ভূমধ্যসাগরে পাঠানো হয়েছিল। রয়েল নেভির ভূমধ্যসাগরীয় নৌবহরের রিয়ার-অ্যাডমিরাল কাজো স্যাটি ক্রুজার

এবং ১০ ও ১১ তম ডেসট্রয়ার ইউনিট (আটটি ডেস্ট্রয়ার) নিয়ে ১৩ এপ্রিল ১৯১৭ সালে মাল্টায় পৌঁছেছিল কলম্বো এবং পোর্ট সইড হয়ে। অবশেষে এই দ্বিতীয় বিশেষ স্কোয়াড্রন মোট তিনটি ক্রুজার (আকাশী ,আইজুমো , নিশিন) ১৪টি ডেস্ট্রয়ার (৮ টি কাবা-ক্লাস ডেস্ট্রয়ার, ৪টি মোমো -ক্লাস ডেস্ট্রয়ার , ২য়ি প্রাক্তন ব্রিটিশ আকর্ণ - ক্লাস), ২টি স্লুপ, ১টি টিমেন্ডার ( কান্ট )নিয়ে গঠিত হয়েছিলো।

দ্বিতীয় স্পেশাল স্কোয়াড্রনের ১ টি জাহাজ জার্মান ও অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান আক্রমণের বিরুদ্ধে কনস্টান্টিনোপল থেকে পূর্ব অ্যাড্রিয়াটিক, ইজিয়ান সাগর -এর বেস হয়ে সাবমেরিনের বিরুদ্ধে ট্রুপ ট্রান্সপোর্ট এবং সাবমেরিন বিরোধী অভিযানের জন্য এসকর্ট দায়িত্ব পালন করেছিল, এভাবে ফ্রান্সের সুয়েজ খাল এবং মার্সেইলিস এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমধ্যসাগরীয় সমুদ্রপথ সুরক্ষিত করে।

জাপানি স্কোয়াড্রন মাল্টা থেকে মোট ৩৪৮ এসকর্ট সম্পন্ন করেছিল, প্রায় ৭০০,০০০ সেনা সমন্বিত ৭৮৮ টি জাহাজের এসকর্ট করেছিল, বিনিময়ে মোট ৮২ জন জাপানী নাবিকের যুদ্ধখেত্রে মৃত্যুর হয়।এভাবে জাপানি নৌবহরের যুদ্ধের প্রচেষ্টায় ব্যাপক অবদান ছিল। জাপানিরা মোট ৭০৭৫ জনকে ক্ষতিগ্রস্থ এবং ডুবে যাওয়া জাহাজ থেকে উদ্ধার করেছিল। এর মধ্যে ধ্বংসাত্মক 'মাতসু' এবং 'সাকাকি’ দ্বারা এসএস |ট্রান্সিলভেনিয়ার  সৈন্যবাহিনী মধ্যে প্রায় ৩০০০ ব্যক্তির উদ্ধার অন্তর্ভুক্ত ছিল , যা ১৯১৭ সালের ৪ মে জার্মানির টর্পেডোর আঘাতে হয়েছিলো।মোতায়েনের সময় জাপান কোন জাহাজ হারেনি, তবে ১১ জুন ১৯১৭-এতে 'সাকাকি' অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান সাবমেরিন,এসএম ইউ -27 এর একটি টর্পেডো দ্বারা আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছিলো;এতে ৫৯ জন জাপানী নাবিক মারা যান।

১৯১৭ সালের ৬ এপ্রিলে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে আমেরিকার প্রবেশ এর সাথে চীন সম্পর্কে ক্রমবর্ধমান দ্বিমত এবং প্রশান্ত মহাসাগরে প্রভাবের প্রতিযোগিতা সত্ত্বেও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং জাপান নিজেদেরকে একই পক্ষে পেয়েছিল। এর ফলে উত্তেজনা হ্রাস করতে ১৯১৭ সালের ২ নভেম্বর ল্যানসিং – ইশিই চুক্তি হয়েছিল।

9 ই জুলাই, কমান্ডার কিউসুক ইটো, রয়্যাল নেভী এর সামরিক এটাচে, টেমপ্লেট:এইচএমএস বিপর্যয়ে মারা গিয়েছিলেন।

১৯১৭ সালের শেষের দিকে, জাপান ১২টি আরব-ক্লাস ডেস্ট্রয়ার, কাবা - ক্লাস নকশার ভিত্তিতে ফ্রান্সে রফতানি করে।

অ্যাডমিরাল জর্জ আলেকজান্ডার বালার্ড এর অধীনে ব্রিটিশরা জাপানি স্কোয়াড্রনের উচ্চমানের ভিযানের তীব্র প্রশংসা করেছিল এবং সমস্ত ব্রিটিশ অনুরোধের তাত্ক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিল। বিনিময়ে, জাপানিরা ব্রিটিশদের সাবমেরিন বিরোধী যুদ্ধবিগ্রহ কৌশল এবং প্রযুক্তি গ্রহণ করে এবং অমূল্য অভিজ্ঞতা অর্জন করে। যুদ্ধ শেষ হওয়ার পরে, জাপানি নৌবাহিনী সাতটি জার্মান সাবমেরিনকে যুদ্ধের পুরস্কার হিসাবে ফিরিয়ে আনল, যা ভবিষ্যতের জাপানি সাবমেরিন ডিজাইন এবং উন্নয়নে ব্যাপক অবদান রেখেছিল।

১৯১৮ এর ঘটনা প্রবাহ[সম্পাদনা]

১৯১৮ সালে, জাপান নিশিহারা ঋণ এর মাধ্যমে চীনে তার প্রভাব এবং সুযোগ সুবিধাগুলি বাড়িয়ে নেয়।বলশেভিক বিপ্লব এর পরে রাশিয়া, জাপান এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯১৮ সালে সাদা আন্দোলন নেতা অ্যাডমিরাল আলেকজান্ডার কোলচাক এর সেনাবাহিনীকে শক্তিশালী করার জন্য সাইবেরিয়া সেনা পাঠিয়েছিল, বলশেভিক রেড আর্মির বিরুদ্ধে। এই সাইবেরিয়ান হস্তক্ষেপ এ, ইম্পেরিয়াল জাপানী সেনাবাহিনী প্রথমদিকে বাইকাল লেক পর্যন্ত পশ্চিমে সাইবেরিয়া দখল করতে ৭০,০০০ এরও বেশি সেনা প্রেরণের পরিকল্পনা করেছিল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরোধিতার কারণে এই পরিকল্পনা থেকে জাপান ফিরে এসেছিল [১১]

যুদ্ধের সমাপ্তির দিকে, জাপান তার ইউরোপীয় মিত্রদের জন্য প্রয়োজনীয় যুদ্ধ সামগ্রীর ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণ করেছে। যুদ্ধকালীন অগ্রগতি দেশের শিল্পকে বৈচিত্র্যময় করতে, এর রফতানি বাড়াতে এবং প্রথমবারের মতো জাপান ঋণখেলাপী থেকে ঋণদাতাদের দেশে রূপান্তরিত হয়।১৯১৩ থেকে ১৯১৮ সাল পর্যন্ত রফতানি চারগুণ বেড়ে যায়। জাপানে ব্যাপক মূলধনের প্রবৃদ্ধি এবং পরবর্তীকালে শিল্পের উত্থান দ্রুত মুদ্রাস্ফীতিতে পরিচালিত করে। ১৯১৮ সালের আগস্টে, এই মুদ্রাস্ফীতিজনিত ধানের দাঙ্গা পুরো জাপানের মফস্বল ও শহরগুলিতে শুরু হয়েছিল।[১২]

১৯১৯ এর ঘটনা প্রবাহ[সম্পাদনা]

১৯১৯ সাল জাপানের প্রতিনিধি সাইওনজি কিনমোচি এর "বিগ ফোর" "[[লয়েড জর্জ]]", উইলসন, ক্লেমেনস্যাও, অরল্যান্ডো  এর মতো প্যারিস পিস কনফারেন্স  এর নেতাদের সাথে বসে থাকার সাক্ষী হয়।  টোকিও লীগ অব নেশনস এর কাউন্সিলের একটি স্থায়ী আসন লাভ করেছিল এবং প্যারিস পিস কনফারেন্সএ শানডং এর জার্মানির অধিকারের জাপানে হস্তানন্তরকে নিশ্চিত করেছে। একইভাবে, জার্মানের উত্তর-পূর্ব প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জ ম্যান্ডেট এর অধীনে জাপানিদের হাতে এসেছিল, যার নাম দক্ষিণ সমুদ্রের ম্যান্ডেট। ভূমধ্যসাগর ও পূর্ব এশিয়ায় সহায়তার জন্য ব্রিটিশদের আবেদনের জবাবে মৈত্রী যুদ্ধের প্রচেষ্টায় জাপানের দক্ষতা এবং মিত্র যুদ্ধের চেষ্টায় এর বিশাল অবদান থাকা সত্ত্বেও, পিস কনফারেন্সে উপস্থিত পশ্চিমা শক্তিগুলি জাপানের জাতিগত সাম্যতা এর ধারা প্রস্তাব ভার্সাই চুক্তিতে গ্রহণ করেনি। তবুও যুদ্ধের সমাপ্তির মাধ্যমে জাপান আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে একটি মহান শক্তি হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিল।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের দ্বারা যে সমৃদ্ধি এসেছিল তা স্থায়ী হয়নি। যদিও জাপানের হালকা শিল্প বিশ্ববাজারের একটি অংশ অর্জন করেছিল, যুদ্ধ শেষ হওয়ার পরেই জাপান ঋণখেলাপি-দেশর মর্যাদায় ফিরে এসেছিল। জাপানের বিজয়ের স্বাচ্ছন্দ্য, ১৯২৬ সালে শোয়া মন্দা এর নেতিবাচক প্রভাব এবং ১৯২০  এর অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা ১৯৩০-এর দশকে জাপানী সামরিকতার উত্থানে অবদান রেখেছিল।

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]

  • Best, Antony, and Oliviero Frattolillo, eds. Japan and the Great War (Springer, 2015) online.
  • Dickinson, Frederick R. War and National Reinvention: Japan in the Great War, 1914-1919 (Harvard U. Asia Center, 1999). 363pp
  • Duus, Peter, ed. The Cambridge history of Japan: The twentieth century (Cambridge University Press, 1989).
  • Saxon, Timothy D. "Anglo-Japanese Naval Cooperation, 1914–1918." Naval War College Review, 53, 1 (2000): 62–92.
  • Strachan, Hew. The First World War: Volume I: To Arms (Oxford University Press, 2003) 455-94.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

উইকিমিডিয়া কমন্সে প্রথম বিশ্বযুদ্ধকালে জাপান সম্পর্কিত মিডিয়া দেখুন


আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Frederick R. Dickinson, War and National Reinvention: Japan in the Great War, 1913–1919 (1999)
  2. Albert A. Altman and Harold Z. Schiffrin, "Sun Yat-Sen and the Japanese, 1914–16", Modern Asian Studies, (July 1972) 6#4 pp 385–400
  3. J. C. Schencking, "Bureaucratic Politics, Military Budgets and Japan's Southern Advance: The Imperial Navy’s Seizure of German Micronesia in the First World War", War in History, (July 1998) 5#3 pp 308–326
  4. O'Neill, Robert (১৯৯৩)। "Churchill, Japan, and British Security in the Pacific 1904–1942"। Blake, Robert B.; Louis, William Roger। Churchill। Oxford: Clarendon Press। পৃষ্ঠা 276। আইএসবিএন 978-0-19-820626-2 
  5. "宣戦の詔書 [Sensen no shōsho, Imperial Rescript on Declaration of War] (Aug. 23, 1914), Kanpō, Extra ed., Aug. 23, 1914." (PDF) 
  6. Mizokami, Kyle, "Japan’s baptism of fire: World War I put country on a collision course with West", The Japan Times, 27 July 2014
  7. Donko, Wilhelm M. (২০১৩), Österreichs Kriegsmarine in Fernost: Alle Fahrten von Schiffen der k.(u.)k. Kriegsmarine nach Ostasien, Australien und Ozeanien von 1820 bis 1914, Berlin: epubli, পৃষ্ঠা 4, 156–162, 427 
  8. Araki, Eiko: Women Soldiers Delegated to Europe. The Japan Red Cross Relief Corps and the First World War, in: Osaka City University Studies in the Humanities 64 (2013): pp. 5–35.
  9. Price, Ernest Batson. "The Russo-Japanese Treaties of 1907–1916 concerning Manchuria and Mongolia". Review by: A. E. Hindmarsh. Harvard Law Review Vol. 47, No. 3 (Jan., 1934) , pp. 547–550
  10. Nish, Ian (১৯৭২)। Alliance in Decline : A Study of Anglo-Japanese Relations, 1908-23। Bloomsbury Publishing PLC। আইএসবিএন 1780935196 
  11. Paul E. Dunscomb (২০১২)। Japan's Siberian Intervention, 1918–1922: 'A Great Disobedience Against the People'। Lexington Books। পৃষ্ঠা 5, 83। আইএসবিএন 9780739146019 
  12. Smitka, Michael (১৯৯৮)। Japanese Prewar Growth (Japanese Economic History 1600–1960)। Routledge। পৃষ্ঠা 192। আইএসবিএন 978-0-8153-2705-9