প্রতিমা বড়ুয়া পাণ্ডে

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
প্রতিমা বড়ুয়া পাণ্ডে
জন্ম(১৯৩৫-১০-০৩)৩ অক্টোবর ১৯৩৫
কলকাতা
মৃত্যু২৭ ডিসেম্বর, ২০০২
আসাম
ধরনলোকগীতি এবং আঞ্চলিক সিনেমার গান গায়িকা
পেশাগায়ক

প্রতিমা বড়ুয়া পাণ্ডে (অসমীয়া: প্ৰতিমা বৰুৱা পাণ্ডে) (৩ অক্টোবর, ১৯৩৫ – ২৭ ডিসেম্বর ২০০২) ছিলেন জনপ্রিয় লোকগীতি গায়িকা। জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত প্রতিমা বড়ুয়া পাণ্ডে বিখ্যাত ছিলেন তাঁর অমর গোয়ালপাড়িয়া গান হস্তির কন্যা এবং মোর মাহুত বন্ধুরের জন্য। তিনি ছিলেন প্রকৃতীশচন্দ্র বড়ুয়ার ( উনি ঐ অঞ্চলে লালজি বড়ুয়া নামে ও পরিচিত ছিলেন )কন্যা এবং দেবদাসখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক প্রমথেশ বড়ুয়ার ভাইঝি।

শৈশব[সম্পাদনা]

প্রতিমা বড়ুয়া ১৯৩৫ সালের ৩ অক্টোবর পশ্চিম আসামের ধুবড়ী জেলার গৌরিপুরের রাজ পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন।তার মাতার নাম মালতীবালা বড়ুয়া। তিনি প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করেন কলকাতার গোখেল মেমোরিয়াল গার্লস স্কুলে এবং মাধ্যমিক শিক্ষা গ্রহণ করেন অসমের গৌরীপুর বালিকা বিদ্যালয়ে। তিনি ১৯৫৩ সনে প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। সাউথ ক্যালকাটা গার্লস কলেজে ভর্তি হলেও লেখাপড়া শেষ করেননি প্রতিমা পাণ্ডে।

জনপ্রিয় গানসমূহ[সম্পাদনা]

  • ও মোর মাহুত বন্ধুরে...
  • হস্তির কন্যা ...
  • মইষ চড়ান, মইষাল বন্ধু, ঘাটের উজানে ...
  • কমলা সুন্দরি নাচে ...
  • কচুর পাতার পানি যেমন রে/ ও জীবন টলমল টলমল করে ...

পুরস্কারসমূহ[সম্পাদনা]

কালজয়ী গোয়ালপরীয়া লোকগীতি জনপ্রিয় করণের জন্যে প্রতিমা বরুয়া পাণ্ডে, ভারতের রাষ্ট্রীয় পদ্মশ্রী এবং সংগীত নাটক একাডেমী পুরস্কার দ্বারা ভূষিত হন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

প্রতিমা বড়ুয়া পাণ্ডের আরো কিছু গুণ :যেমন , উনাদের অনেক হাতি ছিল । তাই উনি হাতির পিঠে চড়তে পারতেন । হাতির পেশাদার মাহুত এর থেকে ও হাতি পরিচালনায় উনি দক্ষ ছিলেন । আমার ভাই একবার প্রকৃতীশচন্দ্র বড়ুয়া উরফে লালজি বড়ুয়া উনাদের কাছ থেকে হাতি কিনেছিলেন । তখন আমার ভাই নিজের চোখে উনার হস্তী পরিচালনার গুণ ও অমায়িকতার গুণ দেখে এসেছিলেন । একজন রাজার কন্যা হয়ে ও উনি ছিলেন সম্পূর্ণ নিরহঙ্কার ও আমায়িক । উনার গানের কণ্ঠের মতো উনার ব্যবহার ও মধুর ছিল ।