প্রজ্ঞানং ব্রহ্ম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

প্রজ্ঞানং ব্রহ্ম (সংস্কৃত: प्रज्ञानम् ब्रह्म) হল মহাবাক্য, যা ঋগ্বেদের ঐতরেয় উপনিষদে পাওয়া যায়।[১] [২] অন্যান্য মহাবাক্য হল- "অহং ব্রহ্মাস্মি", "তৎ ত্বং অসি" ও "অয়ং আত্মা ব্রহ্ম"।[৩][৪][৫] পরমাত্মার চেতনা হল "প্রজ্ঞানং ব্রহ্ম"।

সবকিছুই চৈতন্য (চেতনা) দ্বারা উৎপন্ন হয়, এবং সবকিছুই চেতনার অপর নাম। জগৎ চেতনা দ্বারা পরিচালিত হয়। চেতনাই কারণ, চেতনাই ব্রহ্ম[৬][৭]

ব্যুৎপত্তি ও অর্থ[সম্পাদনা]

সংস্কৃত শব্দ প্রজ্ঞা অর্থ "জ্ঞান বা চেতনা",[৮][৯] এবং স্বতঃস্ফূর্ত ধারণা।[১০][টীকা ১]ব্রহ্ম হল পরম,[৬][ওয়েব ৪] চেতনা,[৬] অসীম[ওয়েব ৪] এবং "সর্বোচ্চ সত্য"[ওয়েব ৪]। বিশেষভাবে "ব্রহ্ম হল প্রজ্ঞানং"; "চূড়ান্ত বাস্তবতা হল প্রজ্ঞা"।[ওয়েব ৫] প্রজ্ঞানং ব্রহ্ম এর অর্থ "ব্রহ্ম-চেতনা" বা "ব্রহ্ম-জ্ঞান"।

উৎস ও তাৎপর্য[সম্পাদনা]

মহাবাক্যটি ঋগ্বেদের ঐতরেয় উপনিষদে পাওয়া যায়।[১][৭] ঐতরেয় উপনিষদ ৩.৩ এ উল্লেখ করা হয়েছে,

এই স্বয়ং (আত্মা) কে যাকে আমরা পূজা করি?

এর মধ্যে কোনটি স্বয়ং? এটা কি যা দেখে? নাকি শোনে? গন্ধ [ইত্যাদি...] কিন্তু এগুলো জ্ঞানের বিভিন্ন উপাধি।

এটি ব্রহ্ম; এটা ইন্দ্র; এটা সব দেবতা। এটি হল [...] পৃথিবী, বায়ু, মহাকাশ, জল ও আলো [...] এটা জীবন্ত সবকিছু [...] জ্ঞান হল সমস্ত কিছুর চোখ, এবং জ্ঞানের উপর এটি প্রতিষ্ঠিত। জ্ঞান হল বিশ্বের চোখ, এবং জ্ঞান, ভিত্তি। ব্রহ্ম জানেন।

ঐতরেয় উপনিষদের তৃতীয় অধ্যায়ে আত্মার প্রকৃতি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। এটি ঘোষণা করে যে চেতনাই মানুষকে সংজ্ঞায়িত করে, সমস্ত বুদ্ধিবৃত্তিক এবং নৈতিক তত্ত্বের উৎস, সমস্ত দেবতা, সমস্ত জীবিত প্রাণী, যা কিছু আছে। তারপর উপনিষদ দাবি করে যে মহাবিশ্বের ধাঁধার চাবিকাঠি হল নিজের অন্তর্নিহিত।[১২] মহাবিশ্বকে জানতে, নিজেকে জানুন। আপনি হয়ে অমর হয়ে উঠুন, ঐতরেয় উপনিষদ পরামর্শ দেয়।[১২]

সাহু এর মতে,

প্রজ্ঞানং ইতি ব্রহ্ম - জ্ঞান হল স্বয়ং। প্রজ্ঞানং বলতে বোঝায় স্বজ্ঞাত সত্য যা কারণ দ্বারা যাচাই/পরীক্ষা করা যায়। এটি বুদ্ধির উচ্চতর কাজ যা সত-চিৎ-আনন্দ বা সত্য/অস্তিত্ব-চেতনা-আনন্দ, অর্থাৎ ব্রহ্ম/আত্মা/আত্ম/ব্যক্তিতে সত বা সত্য/অস্তিত্ব নিশ্চিত করে। [...] সত্যিকারের জ্ঞানী ব্যক্তি [...] প্রজ্ঞা নামে পরিচিত - যিনি নিজেই ব্রহ্মত্ব লাভ করেছেন; এইভাবে, বৈদিক মহাবাক্যের সাক্ষ্য দিচ্ছেন: প্রজ্ঞানং ইতি ব্রহ্ম।[১৩]

ডেভিড লয়ের মতে,

ব্রহ্মের জ্ঞান [...] ব্রহ্মের অন্তর্জ্ঞান নয় বরং নিজেই ব্রহ্ম।[১৪]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. Compare Radhakrishnan's notion of "intuition". See [ওয়েব ১][ওয়েব ২][ওয়েব ৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Sanskrit: ऐतरेयोपनिषद् Wikisource English Translation:Max Muller, Aitareya Upanishad 3.3.7, also known as Aitareya Aranyaka 2.6.1.7 Oxford University Press, page 246
  2. Prajñānam Brahma, www.encyclopedia.com (ইংরেজি ভাষায়)
  3. Saraswati 1995, পৃ. 4।
  4. "Meditation on Mahavakyas"www.sivanandaonline.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-০২ 
  5. "Mahavakyas: Great Contemplations of Advaita Vedanta"www.swamij.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-০২ 
  6. Grimes 1996, পৃ. 234।
  7. Prajnanam Brahma (प्रज्ञानं ब्रह्म महावाक्य), www.bhaktibharat.com (ইংরেজি ভাষায়)
  8. See, e.g., Monier-Williams (1899), "jña," p. 425 (retrieved 14 Aug. 2012 from "Cologne U." at http://www.sanskrit-lexicon.uni-koeln.de/scans/MWScan/MWScanpdf/mw0425-jehila.pdf).
  9. See, e.g., Monier-Williams (1899), "prā," p. 652 (retrieved 14 Aug. 2012 from "Cologne U." at http://www.sanskrit-lexicon.uni-koeln.de/cgi-bin/monier/serveimg.pl?file=/scans/MWScan/MWScanjpg/mw0659-prajalpana.jpg ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৬ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে)
  10. Loy 1997, পৃ. 136।
  11. Olivelle 2008, পৃ. 198-199।
  12. Paul Deussen, Sixty Upanishads of the Veda, Volume 1, Motilal Banarsidass, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১-২০৮-১৪৬৮-৪, pages 13–20
  13. Sahu 2004, পৃ. 41।
  14. Loy 1997, পৃ. 62।

ওয়েব সূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]