এটি একটি ভাল নিবন্ধ। আরও তথ্যের জন্য এখানে ক্লিক করুন।

পেঁয়াজ গম্বুজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মস্কোর সেন্ট ব্যাজল'স ক্যাথিড্রাল-এর পেঁয়াজ গম্বুজের বিস্তারিত

পেঁয়াজ গম্বুজ (রুশ: луковичная глава, lúkovichnaya glava; তুলনাঃ রুশ: лук, luk, "পেঁয়াজ") একটি গম্বুজ যার আকৃতি পেঁয়াজের মত। এই ধরনের গম্বুজ সাধারনত যেখানে বসানো হয়, তার চেয়ে ব্যাস বড় এবং উচ্চতা প্রস্থের চেয়ে লম্বা থাকে। এই কন্দল কাঠামোর উপরে একটি বিন্দুতে মসৃণ সরু মাথা থাকে।

এই চার্চ গম্বুজের কর্তৃত্ববাদী কাঠামো আছে রাশিয়ায় (রাশিয়ায় অধিকাংশ অর্থডক্স গির্জায়) এবং বাভারিয়া, জার্মানি (জার্মান: Zwiebelturm (= "পেঁয়াজ টাওয়ার"), বহুবচন: Zwiebeltürme, অধিকাংশ ক্যাথলিক গীর্জায়), কিন্তু প্রায়শই এটি দেখা যায় অস্ট্রিয়া, উত্তরপূর্ব ইতালি, পূর্ব ইউরোপ, মুঘল সাম্রাজ্য, এবং মধ্যপ্রাচ্য এবং মধ্য এশিয়ায়.

অন্য ধরনের পূর্বাঞ্চলীয় অর্থডক্স গম্বুজের মধ্যে আছে "হেলমেট গম্বুজ" (উদাহরনস্বরূপ, নভগরডের সেন্ট সোফিয়া ক্যাথিড্রাল ও ভ্লাদিমিরের আজাম্পশন ক্যাথিড্রাল), ইউক্রেনের "নাশপাতি গম্বুজ" (কিয়েভের সেন্ট সোফিয়া ক্যাথিড্রাল), এবং রারক কুঁড়ি গম্বুজ (সেন্ট অ্যান্ড্রু চার্চ, কিয়েভ).

ইতিহাস[সম্পাদনা]

রিসার্কসন চার্চের পেঁয়াজ গম্বুজ, কস্ত্রমা (১৯৬২)

রাশিয়ার ঐতিয্যে পেঁয়াজ গম্বুজ কবে এবং কিভাবে আদর্শ বৈশিষ্ট্যরুপে পরিগনত হলো তা নিয়ে ঐতিহাসিকদের মতভেদ আছে। বাইজেন্টাইন গীর্জাসমুহ ও কিয়েভের রুশ স্থাপত্যগুলো চিহ্নিত করা হয়েছিল বৃহত্তম কাঠামো ও স্তাবক গম্বুজ দিয়ে এবং গম্বুজের উপরে কোন কাঠামো ছাড়া। এই প্রাচীন কাঠামোর বিপরীতে, রাশিয়ার গির্জার গম্বুজের মাথায় ধাতু বা কাঠের বিশেষ কাঠামোর মধ্যে লোহা বা টাইলস বিশেষ সরু রেখা থাকে।

১৯ শতকের শেষে, পেত্রাইন যুগের আগে রাশিয়ার চার্চগুলো ছিল কুন্দল গম্বুজ। সবচেয়ে বড় পেঁয়াজ গম্বুজ নির্মাণ করা হয় ১৭শর দশকে ইয়ারস্লাভ্ল অঞ্চলে, ঘটনাক্রমে ঐ এলাকা বড় পেয়াজের জন্য বিখ্যাত ছিল। কিছু ছিল কুড়ি আকৃতির জটিল গম্বুজ, যেগুলো ১৭শ শতকের শেষের দিকে বারোক মডেল থেকে নেয়া। নাশপাতি আকৃতির গম্বুজগুলো মূলত ইউক্রেনীয় বারোক যুগের, যেখানে মোচক আকৃতির গম্বুজগুলি সাধারনত ট্রান্সককেশিয়ার অর্থডক্স গির্জায় দেখা যায়।

প্রথাগত দর্শন[সম্পাদনা]

রাশিয়ায় মোঙ্গল আগ্রাসনের পূর্বে পেঁয়াজ গম্বুজের গির্জায় প্রতিক চিত্র ছিল না। দুটি অত্যন্ত শ্রদ্ধানীয় প্রাক মোঙ্গল গির্জা পুনর্নির্মিত হয়েছে — আজাম্পশন ক্যাথিড্রাল ও সেন্ট ডিমেট্রিয়াস ক্যাথিড্রাল, ভ্লাদিমির — সোনালি হেলমেট গম্বুজের অনন্য প্রদর্শন। অন্য বেশ কিছু প্রচীন গীর্জার পুনর্নির্মাণের সময়, নতুন পেঁয়াজ গম্বুজের নিচে আগের হেলমেট গম্বুজের কিছু টুকরো উদ্ধার হয়েছে।

এটা বলা হয়ে থাকে, ভয়ানক ইভানের শাসনামলে পেঁয়াজ গম্বুজের প্রচলন শুরু হয়। ইভানের পুত্র ফইডর I এর শাসনামলে সেন্ট ব্যাজল'স ক্যাথিড্রাল গম্বুজের পরিবর্তন করা হয়নি, যার অর্থ পেঁয়াজ গম্বুজের অস্তিত্ব রাশিয়াতে ১৬শ শতকে।

কিছু পণ্ডিত স্বীকার করেন যে, পেঁয়াজ গম্বুজ ধারণা রাশিয়ানরা মুসলিম দেশগুলো, সম্ভবত কাজানের কানাতে থেকে এনেছিল; যেটি 'ভয়ানক ইভান জয় করেছিলেন এবং সেন্ট বেসিল ক্যাথিড্রাল গির্জা নির্মাণের জন্য তিনি স্মরণীয়।[১] অনেকে বিশ্বাস করে, পেঁয়াজ গম্বুজ রাশিয়ার কাঠের স্থাপত্য তাঁবুর মত গির্জা থেকে এসেছিল। এই সূত্রমতে, পেঁয়াজ গম্বুজ অনেক উপযোগী ছিল, যেহেতু সেগুলি ছাদ থেকে বরফ গড়িয়ে পরা ঠেকাত।[২]

ধারনামতে, পেঁয়াজ গম্বুজ মধ্য ষোড়শ শতকের আগে রাশিয়ায়তে ছিল না, সপ্তদশ শতাব্দীর আগে নির্মিত গীর্জার পুনর্নির্মাণ কাজের সময় পেঁয়াজ গম্বুজকে "আরো খাঁটি" হেলমেট-আকৃতির গম্বুজ দিয়ে প্রত্যয়র্পণ করা হয়। উদাহরনস্বরূপ, মস্কোর ক্রেমলিনের ডর্মিশন ক্যাথিড্রালের প্রত্যয়র্পণ।

আধুনিক দর্শন[সম্পাদনা]

কিযহি এবং ভিতেগ্রাতে প্রায় ২৫টি পেঁয়াজ গম্বুজের কাঠের চার্চ

১৯৪৬ সালে, ইতিহাসবিদ বরিস রিবাকভ, প্রাচীন রাশিয়ান সূক্ষ্ম উপ্যাখানগুলি পর্যালোচনা করে, নির্দেশ করেন যে অধিকাংশ, তেরশ শতক থেকে পরবর্তী সময়ে তৈরি, গির্জাগুলো হেলমেট গম্বুজের চেয়ে পেয়াজ গম্বুজ প্রদর্শন করে।[৩] নিকোলয় ভরনন, প্রাক-মোঙ্গল রাশিয়ার স্থাপত্যবিদ্যার প্রধানতম কর্তৃপক্ষ, মনে করেন যে, পেয়াজ গম্বুজ রাশিয়াতে ১৩শ শতকের প্রথম থেকেই ছিল, যদিও তাদের অনুমান ব্যাপক নাও হতে পারে।[৪] এইসব তথ্য স্পষ্ট করে যে, রাশিয়ান পেয়াজ গম্বুজের ধারণা প্রাচ্য থেকে নাও আসতে পারে, যেখানে পেঁয়াজ গম্বুজ পঞ্চদশ শতাব্দী পর্যন্ত গোলাকৃতি গম্বুজ প্রতিস্থাপন করা হয়নি।

আধুনিক কলাচারু ও কারু কলা ইতিহাসবিদ, সার্গে জাগ্রায়েভস্কি, একাদশ শতকের পরবর্তী সময়ের রাশিয়ান কয়েকশ মূর্তি এবং ক্ষুদ্র চিত্র জরীপ করেন। তিনি সিদ্ধান্তে পৌঁছান যে, মঙ্গোল আগ্রাসনের পরে আঁকা রাশিয়ান মূর্তিগুলো শুধুমাত্র পেঁয়াজ গম্বুজ প্রদর্শন করে। প্রথম পেঁয়াজ গম্বুজে দ্বাদশ শতাব্দীর কিছু চিত্র প্রদর্শন করে (ডব্রিলোভ ইভাঙ্গেলি থেকে দুটি ক্ষুদ্র চিত্র)।[৫] তিনি একটিমাত্র মূর্তি পান, যেটি পনের শতকের শেষের দিকে তৈরি যেখানে পেঁয়াজ গম্বুজের পরিবর্তে হেলমেট গম্বুজ প্রদর্শিত হয়েছে। তার এই ফলাফল এই ধারনাকে খারিজ করে যে, পুনর্নির্মাণ কাজের সময় আধুনিক পেঁয়াজ গম্বুজের নিচে হেলমেট গম্বুজের অস্তিত্ব ছিল। জাগ্রায়েভস্কি আরও ইঙ্গিত করেন যে, ভ্লাদিমির ক্যাথেড্রালের দুইটি প্রাচীনতম চিত্র যেটি পেঁয়াজ গম্বুজের অস্তিত্ব প্রমাণ করে তাদেরকে হেলমেট গম্বুজ দ্বারা প্রতিস্থাপনের পূর্বে।

জাগ্রায়েভস্কি ব্যাখ্যা করেন, দ্বাদশ শতকের শেষ থেকে পনের শতকের শুরু পর্যন্ত রাশিয়ায় উল্লম্ব স্থাপত্যের সার্বিক ঝোঁকের কারনেই পেঁয়াজ গম্বুজ সর্বত্র দেখা যায়।[৬] ঐ সময়ে, বারান্দা, কলাম, ভল্ট ও ড্রামগুলোকে এমনভাবে উল্লম্ব খোঁচায় পরিনত করা হয়, যাতে চার্চগুলোকে এদের আসল উচ্চতার চেয়ে লম্বা মনে হয়।[৭] এটা যৌক্তিক মনে হয় যে, সম্প্রসারিত, বা পেঁয়াজ, গম্বুজ প্রোটো-গোথিক প্রবণতা যার লক্ষ্য ছিল পিরামিড বা উল্লম্ব ঝোঁক।[৮]

প্রতীকীবাদ[সম্পাদনা]

মস্কোর ক্রেমলিনে ইভান দ্য গ্রেট বেল টাওয়ার (ষোড়শ শতক)

অষ্টাদশ শতাব্দীর আগে, রাশিয়ান অর্থডক্স চার্চগুলিতে বহিঃআকৃতির কোনো নির্দিষ্ট প্রতীক নির্ধারিত ছিল না।[৯] তবুও, জনপ্রিয় বিশ্বাস ছিল পেঁয়াজ গম্বুজ হচ্ছে জ্বলন্ত মোমবাতির প্রতীকীরূপ । ১৯১৭ সালে, ধর্মীয় দার্শনিক প্রিন্স ইয়েভগেনি ট্রুবেস্কয় যুক্তি দেন, রাশিয়ান গির্জার গম্বুজের পেঁয়াজ আকৃতির সাধারণ যৌক্তিক ব্যাখ্যা নাও থাকতে পারে। ট্রুবেস্কয়ের মতে, গম্বুজের মাথায় সুশোভিত ড্রামগুলোকে এমনভাবে সুক্ষ করা হয়েছে যাতে সেগুলি মোমবাতির প্রতিক হয়ে ওঠে, এভাবেই নির্দিষ্ট নান্দনিক ও ধর্মীয় বিশ্বাসের মানসিকতা তৈরি হয়।[১০] অন্য ব্যাখ্যা হল, পেঁয়াজ গম্বুজ আসলে জেরুসালেমের হলি সেপুল্ক্রে চার্চের ছোট (রুম) এর স্মৃতিস্বরূপ।[১১]

একই দলে পরিলক্ষিত ৩টি পেঁয়াজ গম্বুজকে সাধারনত পবিত্র ত্রয়ী এবং ৫টি যিশুখ্রিস্ট ও চার ধর্মপ্রচারকের সমন্বয় হিসেবে দেখা যায়। একাটি গম্বুজ যীশুর প্রতিনিধিত্ব করে। ভাসিলি তাতিছেভ, এসব ব্যাখ্যার প্রথম নিবন্ধনে সজোরে এটি খারিজ করেন। তিনি বিশ্বাস করেন, কুলপতি নিকন চার্চের পাঁচটি গম্বুজ বিশিষ্ট নকশার প্রচারণা করেন, যিনি মধ্যম এবং উচ্চতম গম্বুজের সঙ্গে নিজেকে এবং বাকি পাশের চারটি গম্বুজকে তিনি অর্থডক্স বিশ্বের কুলীনদের সঙ্গে তুলনা করেন। নিকনের এই ধারনার অন্য কোন প্রমাণ নেই।

গম্বুজগুলোকে প্রায়শই উজ্জ্বল করে আঁকা হয়, তাদের রঙগুলিকে বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতীকে প্রকাশ করা হয়েছে। সবুজ, নীল এবং স্বর্ণ গম্বুজগুলি কখনও যথাক্রমে পবিত্র ত্রয়ী, পবিত্র আত্মা, এবং যিশু প্রতিধিনিত্ব করে। কালো বল আকৃতি গম্বুজ একসময় তুষারময় উত্তর রাশিয়াতে জনপ্রিয় ছিল।

আন্তর্জাতিকভাবে[সম্পাদনা]

পেয়াজ গম্বুজ শুধুমাত্র রাশিয়ার স্থাপত্যেই পাওয়া যায়নি, এটি মুঘল স্থাপত্যেও ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়েছে, যেটি পরবর্তীতে ভারতের বাইরে ইন্দো-গ্রোথিক স্থাপত্যেও প্রভাব রাখে, এটি ইরান ও মধ্যপ্রাচ্য (ইসলামিক স্থাপত্য) এবং মধ্য এশিয়াতে দেখা যায়। উনিশ শতকের শেষে, ইন্দোনেশিয়ার আচেতে ওলন্দাজদের তৈরি বাইতুররহমান গ্র্যান্ড মসজিদে পেয়াজ গম্বুজ ব্যবহার করা হয়। তারপর থেকে ইন্দোনেশিয়ার অনেক মসজিদে এই আকৃতির গম্বুজ ব্যবহার করা হয়েছে।

পেয়াজ আকৃতির বারোক গম্বুজ (বা অন্য সবজি বা ফুল-কুঁড়ি) পবিত্র রোম সাম্রাজ্যে একইভাবে ব্যবহৃত হয়েছে। স্থপতি হান্স হল (১৫১২-১৫৯৪) আউগ্‌সবুর্গের সেন্ট মেরি স্টার অ্যাবে চার্চে প্রথম পেয়াজ গম্বুজ নির্মিত হয় ১৫৭৬ সালে। সাধারণত তামার পাত দিয়ে তৈরি, পেয়াজ গম্বুজ দেখা যায়, গোটা দক্ষিণের জার্মানি, চেক ভূখণ্ড, অস্ট্রিয়া এবং উত্তরের ইতালির ক্যাথলিক চার্চে। পেয়াজ গম্বুজ বিংশশতাব্দীতেও অস্ট্রিয়ান স্থাপত্য নকশাবিদ ফ্রেদেন্সরিখ হাণ্ডারওয়াসারের প্রিয়।

সাউথ ডাকোটার মিশেলে অবস্থিত বিশ্বের একমাত্র কর্ণ প্রাসাদ, পর্যটন এবং বাস্কেটবল কেন্দ্র, সেটির ছাদেও পেয়াজ গম্বুজ বৈশিষ্ট্য আছে।

গ্যালারি[সম্পাদনা]

টীকা ও তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Compare the iconic domes of the Taj Mahal built in 1630.
  2. A.П.Новицкий. Луковичная форма глав русских церквей. В кн.: Московское археологическое общество. Труды комиссии по сохранению древних памятников. Т. III. Moscow, 1909.
  3. Б.А.Рыбаков. «Окна в исчезнувший мир (по поводу книги А.В.Арциховского «Древнерусские миниатюры как исторический источник»). В кн.: Доклады и сообщения историч. факультета МГУ. Вып. IV. М., 1946. С. 50.
  4. Н.Н.Воронин. Архитектурный памятник как исторический источник (заметки к постановке вопроса). В кн.: Советская археология. Вып. XIX. М., 1954. С. 73.
  5. S. V. Zagraevsky. Forms of the domes of the ancient Russian temples. Published in Russian: Заграевский С.В. Формы глав (купольных покрытий) древнерусских храмов. М.: Алев-В, 2008.
  6. Г.К.Вагнер. О своеобразии стилеобразования в архитектуре Древней Руси (возвращение к проблеме). В кн.: Архитектурное наследство. Вып. 38. М., 1995. С. 25.
  7. See, for instance, the most authoritative survey of early Russian architecture: П.А.Раппопорт. Древнерусская архитектура. СПб, 1993.
  8. Another important consideration proposed by Zagraevsky links the onion-shaped form of Russian domes with the weight of traditional Russian crosses, which are much larger and more elaborate than those used in Byzantium and Kievan Rus. Such ponderous crosses would have fallen aground during a storm, if they had not been fixed to sizeable stones traditionally placed inside the elongated domes of Russian churches. It is impossible to place such a stone inside the flat dome of the Byzantine type.
  9. Бусева-Давыдова И.Л. Символика архитектуры по древнерусским письменным источникам XI-XVII вв. // Герменевтика древнерусской литературы. XVI - начало XVIII вв. Moscow, 1989.
  10. "The Byzantine cupola above the church represents the vault of heaven above the earth.
  11. Лидов А.М. Иерусалимский кувуклий. О происхождении луковичных глав. // Иконография архитектуры. Moscow, 1990.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]