পুনাখা ডিজং

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পুনাখা জং
পুনাখা এবং জাকারান্ডতে পুনাখা জং
পুনাখা জং
PunakhaDzongInSpring.jpg
পুনাখা এবং জাকারান্ডতে পুনাখা জং
পুনাখা ডিজং ভুটান-এ অবস্থিত
পুনাখা ডিজং
ভুটানে অবস্থান
বিকল্প নামপুংতাং ডিছেন ফোটরাং জং
সাধারণ তথ্য
ধরনধর্মীয় এবং বেসামরিক প্রশাসন
স্থাপত্য রীতিজং
অবস্থানপুনাখা, ভূটান
উচ্চতা1,200
নির্মাণ শুরু হয়েছে১৬৩৭
সম্পূর্ণ১৬৩৮
সংস্কারণ করা হয়েছে২০০৪
স্বত্বাধিকারীভূটান সরকার
কারিগরী বিবরণ
কাঠামোগত পদ্ধতিনগরদূর্গ
তলার সংখ্যা
নকশা এবং নির্মান
স্থপতিজয়ে পালেপ এবং নাগাওয়াং নামগিয়াল

পুনাখা জং (পুংতাং ডিছেন ফোটরাং জং হিসেবেও পরিচিত) (যার অর্থ পরম সুখময় প্রাসাদ"[১][২]), ভূটানের পুনাখার পুনাখা জেলার প্রশাসনিক কেন্দ্র। প্রাসাদটি ১৭৩৭-৩৮ সালে যাবদ্রারং রিনপোছে দ্বারা নির্মিত হয়েছিল যার স্থপতি ছিলেন নাগাওয়াং নামগিয়াল।[১][৩] এটি জং স্থাপত্যশিল্পের দ্বিতীয় পুরাতনতম এবং দ্বিতীয় বৃহত্তম প্রাসাদ এবং তাদের নির্মিত রাজকীয় প্রাসাদগুলো অন্যতম একটি। [১][৪] জং এর এই প্রাসাদে তিব্বতীয় বৌদ্ধধর্মের কাগ্যু গোত্রের দক্ষিণ দ্রুকপা বংশীয়সহ রাংজুং কাসারপানি বংশীয় সাধকদের দেহাবশেষ রয়েছে।

১৯৫৫ পর্যন্ত, যখন থিম্পুতে রাজধানী সরে আসে, পুনাখা জং ভূটান সরকারের প্রশাসনিক কেন্দ্র ছিল।[২][৪][৫] এটাকে ভুটানের ঐতিহ্য হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করেছে ইউনেস্কো।

অবস্থান[সম্পাদনা]

পুনাখা জং এবং মু ছ্যু

পুনাখা জং টি পুনাখা–ওয়াংড়ু উপাত্যকার ফু ছ্যু (পিতা) এবং মু ছ্যু (মাতা) নদীর সঙ্গমে অবস্থিত। মু ছ্যু নদী ভূটানের লিঘসি এবং লায়া পাহাড় থেকে সৃষ্টি হয়েছে। পু ছ্যু নদী পুনাখা উপত্যকার লুনানা অঞ্চলের হিমবাহ থেকে সৃষ্ট হয়েছে। এই দুই নদী মিলিত হওয়ার পর, প্রধানতম নদী যা পুনা সাং ছ্যু বা সানকোশ নদী এবং ওয়াংড়ু ফুরোডাং দিয়ে প্রবাহিত হয়ে, কালিখোলাতে ভূটান – ভারত সীমা অতিত্রম করেছে এবং অবশেষে ব্রহ্মপুত্র নদীর সাথে মিলিত হয়েছে।[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Dzong at Punakha"। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৪-০১The second oldest dzong in Bhutan, it was begun in 1637 also on the order of Shabdrung Ngawang Namgyal. The dzong was significantly expanded from 1744 to 1763 during the reign of the 13th desi (the secular ruler, as opposed to the Je Khenpo, who is the chief abbot of Bhutan, and who holds equal power), Sherab Wangchuk. 
  2. Wangchuck, Ashi Dorji Wangmo (২০০৬)। Treasures of the thunder dragon: a portrait of Bhutan। Penguin, Viking। পৃষ্ঠা 40–41, 102। আইএসবিএন 0-670-99901-6। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৪-০১ 
  3. Pommaret, Francoise (২০০৬)। Bhutan Himalayan Mountains Kingdom (5th edition)। Odyssey Books and Guides। পৃষ্ঠা 192। 
  4. "Punakha Dzong"। Tourism:Government of Bhutan। ২০১৭-০৯-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৪-০১ 
  5. Brown, Lindsay; Bradley Mayhew; Stan Armington; Richard Whitecros (২০০৭)। Bhutan। Lonely Planet। পৃষ্ঠা 146–147। আইএসবিএন 1-74059-529-7। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৪-০১ 
  6. Jordan, Bart (২০০৮)। Bhutan: A Trekker's Guide। Cicerone Press Limited। পৃষ্ঠা 210। আইএসবিএন 1-85284-553-8। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৪-০২ 

বহিঃ সংযোগ[সম্পাদনা]