পা (চলচ্চিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পা
পা (চলচ্চিত্র) পোস্টার.jpg
থিয়েটারে মুক্তির পোস্টার
পরিচালকআর. বাল্কি
প্রযোজকঅমিতাভ বচ্চন
অভিষেক বচ্চন
সুনীল মনচন্দা
রচয়িতাআর. বাল্কি
শ্রেষ্ঠাংশেঅমিতাভ বচ্চন
অভিষেক বচ্চন
বিদ্যা বালান
পরেশ রাওয়াল
অরুন্ধতী নাগ
সুরকারইলাইয়ারাজা
বিক্রম ভিকি গোস্বামী (স্কোর)
চিত্রগ্রাহকপি. সি. শ্রীরাম
সম্পাদকঅনিল নাইডু
প্রযোজনা
কোম্পানি
পরিবেশকরিলায়েন্স বিগ পিকচার্স
মুক্তি
  • ৪ ডিসেম্বর ২০০৯ (2009-12-04)
দৈর্ঘ্য১৩৩ মিনিট
দেশভারত
ভাষাহিন্দি
নির্মাণব্যয় ১৩ কোটি
আয় ৪৭.০১ কোটি

পা (ইংরাজী: ফাদার) ২০০৯ সালের হিন্দি-ভাষায় নির্মিত একটি ভারতীয় কৌতুক-কাহিনী চলচ্চিত্রআর. বাল্কি পরিচালিত এই ছবিতে অভিনয় করেছেন অমিতাভ বচ্চন, অভিষেক বচ্চন এবং বিদ্যা বালান[১] ছবিটি ১৯৯৬ সালের হলিউড ছবি জ্যাক দ্বারা অনুপ্রাণিত এবং জিনের অবস্থার কারণে প্রোজেরিয়া নামে পরিচিত একটি বিরল রোগে আক্রান্ত বালকের সাথে তার মা-বাবার সম্পর্কের উপর ভিত্তি করে নির্মিত হয়েছে। অমিতাভ বচ্চন এবং অভিষেক বচ্চন বাস্তব জীবনে যথাক্রমে পিতা এবং পুত্র। তবে পা চিত্রে তাঁরা বিপরীত চরিত্রে অভিনয় করেছেন। ছবিটি ২০০৯ সালের ৪ ডিসেম্বরে বিশ্বব্যাপী মুক্তি পায় এবং ভারতে সমালোচকদের দ্বারা প্রশংসিত হয়। বক্স অফিসেও দুর্দান্ত সাফল্য পায়। [২] ভারতীয় চলচ্চিত্র সমালোচকদের কাছ থেকে উষ্ণ অভ্যর্থনা সত্ত্বেও ওয়েবসাইটগুলি মেটাক্রিটিক এবং রটেন টমেটো অনুযায়ী ফিল্মটি বিদেশী চলচ্চিত্র সমালোচকদের কাছ থেকে মিশ্র প্রতিক্রিয়া পেয়েছে। অমিতাভ বচ্চন তাঁর অভিনয়ের জন্য ৫৭ তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এ তৃতীয় বার সেরা অভিনেতার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এবং পঞ্চম বার ফিল্মফেয়ার সেরা অভিনেতা পুরস্কার পান এবং বিদ্যা বালান পান তাঁর প্রথম ফিল্মফেয়ার সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার

পটভূমি[সম্পাদনা]

অরো (অমিতাভ বচ্চন) একজন বুদ্ধিমান এবং কৌতূকপ্রিয় ১২ বছর বয়সী ছেলে। সে প্রোজেরিয়ায় আক্রান্ত। এই অত্যন্ত বিরল জেনেটিক বিশৃঙ্খলার কারণে মানসিকভাবে সে বারো বছরের এবং খুব স্বাভাবিক হলেও শারীরিকভাবে তাকে পাঁচগুণ বড় দেখায়। এই অবস্থা সত্ত্বেও অরো খুব সুখী। সে তার মা বিদ্যা (বিদ্যা বালান) এর সাথে থাকে। বিদ্যা একজন স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ। অমল আর্তে (অভিষেক বচ্চন) একজন তরুণ ও উজ্জ্বল রাজনীতিবিদ। তিনি বিশ্বকে প্রমাণ করতে পারেন যে "রাজনীতি" কোনও খারাপ শব্দ নয়। তিনি একটি মিশন নিয়ে চলেন। অরো হ'ল অমলের ছেলে; তবে বিদ্যা তাঁর কাছ থেকে এটি গোপন রাখেন। প্রধান অতিথি হিসাবে অরোর স্কুল পরিদর্শনের সময় অরোর সাথে তাঁর দেখা হয়। তিনি "ভারতের স্বপ্নদর্শন" নিয়ে একটি প্রতিযোগিতা উপলক্ষে আসেন। অমল তার তৈরি সাদা গ্লোব দেখে মুগ্ধ হয়ে অরোকে বিজয়ী হিসাবে স্থির করেন। তবে এরকম বিশিষ্ট রাজনীতিবিদের সাথে যোগাযোগের ফলে মিডিয়া অরোর সন্ধান পায়। পরের দিন মিডিয়া তার স্কুলে প্রবেশ করার চেষ্টা করে। এতে বিরক্ত অরো তাকে একটি ইমেল পাঠায় যাতে লেখে "আমি আপনাকে ঘৃণা করি"। অমল এটি পড়েন এবং হাই কোর্টের কাছ থেকে একটি নিয়ন্ত্রক আদেশ বের করেন যাতে জানানো হয় যে অনুমতি ব্যতীত কেউ তাকে বিরক্ত করতে পারবে না। স্বস্তি পেয়ে অরো তাঁর কাছে রাষ্ট্রপতির বাড়িতে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করে। তবে রাজনৈতিক সমস্যার কারণে তিনি নির্ধারিত দিনে দেখাতে ব্যর্থ হন। অরো অবশ্য তাঁর প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলে। তবে পরে তাঁর সাথে দিল্লিতে যেতে রাজি হয়। এখন সে জেনে গেছে যে অমল তার বাবা। যদিও অমল জানেন না যে অরো তাঁর ছেলে। অমল তাকে দিল্লিতে নিয়ে যান রাষ্ট্রপতির বাড়ি দেখাতে। অরো অমলকে বলে যে তাঁর প্রথম ভুলের জন্য অমলকে (এখনও তাকে গ্রহণ না করা) ক্ষমা করা বাকি রয়ে গেছে। তবে সেই ভুলটা যে কী তা তাঁকে জানায় না। ১৩ তম জন্মদিনে অরো যখন হাসপাতালে তখন সে তার বাবাকে বলে যে সে তার বাবার একটি ভুলের ফসল। অরো তার মা ও বাবাকে আবার একত্রে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করে। কিন্তু বিদ্যা প্রতিরোধ করেন। বিদ্যার মনে আছে যে তিনি গর্ভবতী জানার পর অমল তাঁর গর্ভপাত করাতে চেয়েছিলেন। অমল যদিও নিজের ভুল বুঝতে পেরেছিলেন এবং বলেন যে বিদ্যাকে এখনও তিনি ভালোবাসেন। অরো তাঁর ছেলে বলে জানতে পেরে তিনি অরোর পাশে থাকেন। ১৩ তম জন্মদিনে অরোর শারীরিক ত্রুটিগুলি ধরা পড়ার সাথে সাথে তার স্বাস্থ্য খারাপ হতে শুরু করে। যাইহোক বিদ্যা অমলের প্রতি তাঁর অনুভূতি এবং অরোর প্রতি তাঁর মাতৃস্নেহের ভালবাসার সাথে মিল রেখে অবশেষে অরো আবারও তার মাকে এবং বাবাকে পুনরায় মিলিত করতে সক্ষম হয়। তাঁরা তাঁদের মৃত ছেলের সামনে হাসপাতালে প্রথম বিবাহের অনুষ্ঠান করেন। অরো মারা যাওয়ার আগে সন্তুষ্টির হাসি দিয়ে তার শেষ কথা 'কটি বলে। বিদ্যাকে "মা" এবং অমলকে "পা" সম্বোধন করে সে মারা যায়। বৃষ্টি দিয়ে ছবিটি শেষ হয় যখন অরোর মৃত্যুতে শোকগ্রস্ত বিদ্যার মনে পড়ে অরোর নাচের কথা; আর অমল তাঁকে সান্ত্বনা দিতে থাকেন।

নির্মাণ[সম্পাদনা]

চরিত্রায়ণ[সম্পাদনা]

ছবিতে অমিতাভ বচ্চন একটি বাচ্চার ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন যে প্রোজেরিয়ায় ভুগছে। এটি একটি জিনগত ব্যাধি যা শিশুকালে তাদের বার্ধক্যের প্রক্রিয়াকে দ্রুততার সাথে পরিচালিত করে। অভিষেক বচ্চন অমিতাভের বাস্তব জীবনের পুত্র হলেও চিত্রে তাঁর বাবার ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন।

বিদ্যা বালান মায়ের ভূমিকার জন্য একমাত্র পছন্দ ছিলেন।কন্নড় সিনেমার প্রয়াত অভিনেতা-পরিচালক শঙ্কর নাগ এর স্ত্রী অরুন্ধতী নাগ কে বিদ্যার মায়ের চরিত্রে অভিনয় করতে বলা হয়েছিল।[৩]

পুরস্কার এবং মনোনয়ন[সম্পাদনা]

অনুষ্ঠান বিভাগ নমিনি ফলাফল
৫৭ তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার[৪] সেরা অভিনেতার জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অমিতাভ বচ্চন বিজয়ী
সেরা সহঅভিনেত্রীর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অরুন্ধতী নাগ বিজয়ী
হিন্দিতে সেরা ফিচার ফিল্মের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এবি কর্পোরেশন লিমিটেড,
সুনীল মনচন্দা,
আর. বালাকৃষ্ণান
বিজয়ী
সেরা মেক-আপ শিল্পীর জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ক্রিস্টিয়ান টিনসলে,
ডমিনি টিল
বিজয়ী
১৬ তম স্টার স্ক্রিন পুরস্কার সেরা অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন বিজয়ী
সেরা অভিনেত্রী বিদ্যা বালান বিজয়ী
সেরা শিশু অভিনেতা প্রতীক কাত্রে বিজয়ী
সেরা সহঅভিনেত্রী অরুন্ধতী নাগ বিজয়ী
জোড়ি নং ১ অমিতাভ বচ্চন,
অভিষেক বচ্চন
বিজয়ী
সেরা ফিল্ম এবি কর্পোরেশন লিমিটেড,
সুনীল মনচন্দা
মনোনীত
সেরা পরিচালক আর. বাল্কি মনোনীত
সেরা কাহিনী আর. বাল্কি মনোনীত
সেরা চিত্রনাট্য আর. বাল্কি মনোনীত
সেরা সংলাপ আর. বাল্কি মনোনীত
সেরা পটভূমি স্কোর ইলাইয়ারাজা বিজয়ী
সেরা প্লেব্যাক সিঙ্গার (মহিলা) শিল্পা রাও - "মুডি মুডি" মনোনীত
সেরা সম্পাদনা অনিল নাইডু মনোনীত
সেরা সিনেমাটোগ্রাফি পি. সি. শ্রীরাম মনোনীত
সেরা অডিওগ্রাফি তাপস মনোনীত
৮ ম স্টারডাস্ট পুরস্কার বছরের তারকা - পুরুষ অমিতাভ বচ্চন বিজয়ী
সেরা সহঅভিনেতা অভিষেক বচ্চন বিজয়ী
বছরের নক্ষত্র - মহিলা বিদ্যা বালান মনোনীত
৫৫ তম ফিল্মফেয়ার পুরস্কার সেরা অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন বিজয়ী
সেরা অভিনেত্রী বিদ্যা বালান বিজয়ী
শ্রেষ্ঠ সহঅভিনেত্রী অরুন্ধতী নাগ মনোনীত
সেরা চলচ্চিত্র এবি কর্পোরেশন লিমিটেড মনোনীত
সেরা পরিচালক আর. বাল্কি মনোনীত
১১ তম আইআইএফএ পুরস্কার সেরা অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন বিজয়ী
সেরা অভিনেত্রী বিদ্যা বালান বিজয়ী
সেরা মেকআপ ক্রিস্টিয়ান টিনসলে,
ডোমিনি টিল
বিজয়ী
সেরা চলচ্চিত্র এবি কর্পোরেশন লিমিটেড,
সুনীল মনচন্দা
মনোনীত
সেরা পরিচালক আর. বাল্কি মনোনীত
আইআইএফএ সেরা সমঅভিনেতা পুরস্কার অভিষেক বচ্চন মনোনীত
আইআইএফএ সেরা সমঅভিনেত্রী পুরস্কার অরুন্ধতী নাগ মনোনীত
আইআইএফএ সেরা কাহিনী পুরস্কার আর. বাল্কি মনোনীত
আইআইএফএ সেরা মহিলা প্লেব্যাক পুরস্কার শিল্পা রাও - "মুধি মুধি " মনোনীত
৭ তম অপ্সরা ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন প্রযোজক গিল্ড পুরস্কার সেরা অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন বিজয়ী
সেরা অভিনেত্রী বিদ্যা বালান বিজয়ী
লাইন্স গোল্ড অ্যাওয়ার্ড সেরা অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন বিজয়ী
সেরা অভিনেত্রী বিদ্যা বালান বিজয়ী
এফআইসিসিআই ফ্রেমস এক্সেলেন্স অ্যাওয়ার্ডস সেরা অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন বিজয়ী
সেরা অভিনেত্রী বিদ্যা বালান বিজয়ী

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Paa: Complete cast and crew details"। Filmicafe Media Inc। ১ নভেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ নভেম্বর ২০০৯ 
  2. "Boxofficeindia.com"। Boxofficeindia.com। ১৪ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১২ 
  3. H Hooli, Shekhar। "Arundhati Nag's role in Paa gets rave reviews"Oneindia Entertainment। Greynium Information Technologies Pvt. Ltd। সংগ্রহের তারিখ ৬ এপ্রিল ২০১২ 
  4. "Big B wins National Award for Paa"The Times of India। Bennett, Coleman & Co. Ltd। Press Trust of India। ৩ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ এপ্রিল ২০১২