পাপুয়া নিউ গিনিতে ইসলাম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

 

পাপুয়া নিউ গিনিতে ইসলাম একটি সংখ্যালঘু ধর্ম, যার অনুসারী ৫,০০০ এর বেশি। [১] মুসলমানদের বেশিরভাগই সুন্নি এবং অল্প সংখ্যক আহমদিয়া[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ত্রয়োদশ থেকে পঞ্চদশ শতাব্দীর সময়কালে নিউ গিনিতে ইসলামের উপস্থিতি ছিল। তিদোরের সুলতান পশ্চিম পাপুয়ার উপর অত্যাচার চালিয়েছিল, যা মুসলিম জনবসতি এবং আদিবাসী স্থানীয়দের ইসলামে ধর্মান্তকরণের কারণ ছিল। নিউ গিনির স্থানীয় লোকেরাও সতেরো শতকের গোড়ার দিকে মালয়েশিয়ার সাথে সম্পর্ক ও বাণিজ্য করেছিলেন, [৩] যা পরে এই অঞ্চলে ইসলামকে সমর্থন জুগিয়েছিল।

১৯৮৮ সালে, পাপুয়া নিউ গিনির মুসলমানরা মালয়েশিয়া ভিত্তিক একটি ইসলামী সংস্থা এবং সৌদি ইসলামিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সহায়তায় প্রথম ইসলামী কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৯৬ সালে, মুসলিম ওয়ার্ল্ড লীগের সহায়তায় আরও তিনটি ইসলামিক কেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। দেশটিতে এখন সাতটি ইসলামিক কেন্দ্র রয়েছে। ১৯৮৮ সালে নিউ ব্রিটেনের কিম্বেতে আহমদিয়া মুসলিমরা বায়তুল কারিম মসজিদ নামে পরিচিত প্রথম মসজিদটি নির্মাণ করেছিলেন। [৪]

আজকের দিন[সম্পাদনা]

পাপুয়া নিউ গিনির ইসলামিক সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক ইসা তেইনের মতে, মেলানেশীয় রীতিনীতিগুলির সাথে মিল থাকার কারণে অনেকেই ইসলামের প্রতি আকৃষ্ট হন এবং তিনি ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন যে "আমি আপনাকে বলি, একসময় ধর্ম নিজেই ছড়িয়ে পড়বে, আমি কেবল ২০এ ভবিষ্যদ্বাণী করছি, ৩০ বছর পর, সমস্ত পাপুয়া নিউ গিনি ইসলামের কাছে সমর্পিত হবে ।" [৫] পাপুয়া নিউ গিনির বহু অমুসলিমরাও একই জাতীয় মতামত তুলে ধরেছে, পার্বত্য অঞ্চলের এনগা প্রদেশের সপ্তম দিবস অ্যাডভেন্টিস্ট প্রচারক এই বিশ্বাসের কথা উল্লেখ করে বলেছেন যে, "আগামী ৩০ বছরে সমস্ত পাপুয়া নিউ গিনি মুসলমান উচ্চভূমি হয়ে উঠবে কারণ আমাদের সংস্কৃতি ইসলামি। " [৬]

মেলবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামী বিশেষজ্ঞ ডাঃ স্কট ফ্লাওয়ারের গবেষণা অনুসারে, ইসলাম গ্রহণের পরোক্ষ কারণগুলির মধ্যে বিভিন্ন খ্রিস্টীয় গীর্জার মধ্যকার প্রতিযোগিতায় বিভ্রান্তি ও তাদের ধর্মতত্ত্বের অসঙ্গতি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে: “পাপুয়া নিউ গিনির লোকেরা ধর্মতত্ত্ব সম্পর্কে বেশ ধর্মান্ধ, তারা আসলে বাইবেল পড়ে। তারা অধ্যায় এবং আয়াত উদ্ধৃত করতে পারেন। এবং বাইবেলে তারা যে দ্বিধা-দ্বন্দ্বগুলি আবিষ্কার করে তা তাদের ধর্মান্তরিত হওয়ার আরেকটি বড় কারণ বলে তারা আমাকে জানিয়েছে" [৬]

পোর্ট মোরেসবির আশেপাশে, বাইমুরু, দারু, মার্শাল লেগুন, মুসা উপত্যকা এবং নিউ ব্রিটেন এবং নিউ আয়ারল্যান্ডের দ্বীপে কিছু মুসলমানদের রয়েছেন। ইসলাম উচ্চভুমিতেই সবচেয়ে বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে । [৭]

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

২০০১ সালে, পাপুয়া নিউ গিনিতে ৫০০ জনের কম মুসলমান ছিল। [৬] ২০০৭ সালে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর অনুমান করেছিল যে দেশটিতে প্রায় ২ হাজার মুসলমান আছে। [৮] ২০০৮ সালে, অস্ট্রেলিয়ান ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশন "একই সাথে পুরো গ্রামে রূপান্তরিত হওয়ার রিপোর্ট" সহ উদ্ধৃত করে বলেছিল যে, দেশটিতে ৪,০০০ এরও বেশি মুসলমান আছে। [৯] ২০১২ সালে স্কট ফ্লাওয়ার অনুমান করেছিলেন যে, সেখানে মুসলমানের সংখ্যা ৫,০০০ এর বেশি, যা ২০০১ সালের পর থেকে এখানে মুসলমানদের সংখ্যা ৫০০ শতাংশের বেশি বৃদ্ধি পাওয়াকে তুলে ধরে। [১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The growing muslim minority community in Papua New Guinea"। Journal of Muslim Minority Affairs। ৫ নভেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২৮ আগস্ট ২০১৫  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "scottflower" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  2. "Islam in Papua New Guinea" (PDF)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  3. BBC News: Timeline: Papua New Guinea
  4. "Islam in Melanesia"Vlad Sokhin (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১২-১৬ 
  5. "Growing numbers convert to Islam in PNG"ABC। ১৮ নভে ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৪ অক্টোবর ২০১৪ 
  6. Jo Chandler (আগস্ট ৮, ২০১৩)। "A Faith Grows In PNG"The Global Mail। ১৯ অক্টোবর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ অক্টোবর ২০১৪  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "A Faith Grows In PNG" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "A Faith Grows In PNG" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  7. http://www.ihrc.org.uk/show.php?id=119 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১১-০৫-২৬ তারিখে Events in Papua New Guinea
  8. International Religious Freedom Report 2007
  9. "Growing numbers convert to Islam in PNG"। abc.net। ১৮ নভেম্বর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২৮ আগস্ট ২০১৫ 

 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]