পাতিয়ালা ও পূর্ব পাঞ্জাব রাজ্য ইউনিয়ন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পাতিয়ালা ও পূর্ব পাঞ্জাব রাজ্য ইউনিয়ন
ভারতের প্রাক্তন রাজ্য
১৯৪৮–১৯৫৬
PEPSU in India (1951).svg
১৯৫১ সালে ভারতের মানচিত্র। পূর্ব পাঞ্জাবের অভ্যন্তরে ছিটমহল হিসেবে পতিয়ালা ও পূর্ব পাঞ্জাব রাজ্য ইউনিয়ন প্রদর্শিত হয়েছে।
রাজধানীপাতিয়ালা
আয়তন 
• ১৯৫১
২৬,২০৮ বর্গকিলোমিটার (১০,১১৯ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা 
• ১৯৫১
৩৪,৯৩,৬৮৫
আইনসভাপাতিয়ালা ও পূর্ব পাঞ্জাব রাজ্য ইউনিয়ন বিধানসভা
ইতিহাস 
• প্রতিষ্ঠিত হয়
১৫ জুলাই ১৯৪৮
• রাজ্য বিলুপ্ত করা হয়
১ নভেম্বর ১৯৫৬
পূর্বসূরী
উত্তরসূরী
পাঞ্জাব রাজ্য এজেন্সি
পাঞ্জাব, ভারত

পাতিয়ালা এবং পূর্ব পাঞ্জাব রাজ্য ইউনিয়ন (পেপসু / পিইপিএসিউ) ছিল ১৯৪৮ সাল থেকে ১৯৫৬ সাল পর্যন্ত বিদ্যমান থাকা ভারতের একটি রাজ্য। ভারতের স্বাধীনতার পর ১৯৪৮ সালে ব্রিটিশ ভারতের পাঞ্জাব রাজ্য এজেন্সির অ ন্তর্ভুক্ত ৮টি দেশীয় রাজ্য নিয়ে এই রাজ্য গঠন করা হয়। এর রাজধানী এবং প্রধান শহর ছিল পতিয়ালা। রাজ্যটি ২৬,২০৮ কিমি² এলাকা জুড়ে বিস্তৃত ছিল। পরবর্তী সময়ে শিমলা, কসৌলী, কান্দাঘাট এবং চাইল পেপসু-র অন্তর্ভুক্ত হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

দেশীয় রাজ্যের ইউনিয়ন[সম্পাদনা]

মোট আটটি দেশীয় রাজ্যকে একত্রিত করে রাজ্যটি গঠন করা হলেও তারা তাদের আদি শাসকদের দ্বারা শাসিত হতো:

ছয়টি স্যালুট রাজ্য
  • পতিয়ালা, উপাধি মহারাজা, ১৭-বন্দুকের বংশগত সালাম (১৯-বন্দুক স্থানীয়)
  • জিন্দ, উপাধি মহারাজা, ১৩-বন্দুকের বংশগত সালাম (১৫-বন্দুক ব্যক্তিগত এবং স্থানীয়)
  • কপূরতলা, উপাধি মহারাজা, ১৩-বন্দুকের বংশগত সালাম (১৫-বন্দুক ব্যক্তিগত এবং স্থানীয়)
  • নাভা, উপাধি মহারাজা, ১৩-বন্দুকের বংশগত সালাম (১৫-বন্দুক স্থানীয়)
  • ফরিদকোট , উপাধি রাজা, ১১-বন্দুকের বংশগত সালাম* মালেরকোটলা রাজ্য, শিরোনাম নবাব, ১১-বন্দুকের বংশগত সালাম
এবং দুটি অ-স্যালুট রাজ্য

১৮৪৮ সালের ১৫ জুলাই রাজ্যটি উদ্বোধন করা হয় এবং আনুষ্ঠানিকভাবে ১৯৫০ সালে ভারতের একটি রাজ্যে পরিণত হয়।

উত্তরসূরী[সম্পাদনা]

পূর্ব পাঞ্জাবের পেপসু রাজ্যের বিবর্তন

পুনর্গঠন আইনের অধীনে ১৯৫৬ সালের ১ নভেম্বরে পেপসু-র বেশিরভাগ অংশ পাঞ্জাব রাজ্যে একীভূত হয়ে যায়।[১]

প্রাক্তন পেপসু রাজ্যের একটি অংশ (বর্তমানে উত্তর হরিয়ানার জিন্দ জেলা এবং নারনাউল পাশাপাশি দক্ষিণ-পশ্চিম হরিয়ানার লোহারু তহশীল, চারখি দাদরি জেলা এবং মহেন্দ্রগড় জেলা) ১৯৬৬ সালের ১ নভেম্বরে পাঞ্জাব রাজ্য থেকে পৃথক করে হরিয়ানায় যুক্ত করা হয়। পেপসু-র অন্তর্গত আরও কিছু অঞ্চল, বিশেষত সোলান এবং নালাগড়, বর্তমানে হিমাচল প্রদেশে অবস্থিত।

প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

পাতিয়ালা এবং পূর্ব পাঞ্জাব রাজ্য ইউনিয়ন (পিইপিএসইউ) এর প্রতীক, সরকারী মেডিকেল কলেজ, পাতিয়ালার উদ্বোধন প্রস্তরে

রাজ্য ও সরকার প্রধানগণ[সম্পাদনা]

রাজ্যটি গঠিত হওয়ার পরে তত্কাল পাতিয়ালার মহারাজা যাদবীন্দ্র সিংহকে রাজপ্রমুখ (রাজ্যপালের সমতুল্য) নিযুক্ত করা হয়। রাজ্যের সংক্ষিপ্ত অস্তিত্বের পুরো সময় তিনি স্বপদে বহাল ছিলেন। তৎকালীন কাপুরথালার মহারাজা জগৎজিৎ সিং উপরাজপ্রমুখ (লেফটেন্যান্ট-গভর্নর) ছিলেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] জ্ঞান সিং রারেওয়ালা ১৯৪৯ সালের ১৩ জানুয়ারি পেপসু-র প্রথম মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ গ্রহণ করেন।কর্নেল রঘবীর সিং ১৯৫১ সালের ২৩ শে মে পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হন, এবং ব্রাশ ভান উপ-মুখ্যমন্ত্রী হন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ১৯৫২ সালের ৬ জানুয়ারি রাজ্য একটি ৬০ সদস্যের বিধানসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে কংগ্রেস ২৬টি আসন এবং অকালী দল ১৯ টি আসনে জয়লাভ করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ১৯৫২ সালের ২২ এপ্রিলে জ্ঞান সিং রারেওয়ালা আবারও মুখ্যমন্ত্রী হন। তিনি আকালি দল ও বিভিন্ন স্বতন্ত্র প্রার্থীদের নিয়ে গঠিত “যুক্তফ্রন্ট” নামে একটি জোট সরকারের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। ১৯৫৩ সালের ৫ মার্চ তাঁর সরকার বরখাস্ত হয় এবং রাজ্যটিতে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি করা হয়।[২] এরপরের মধ্য-মেয়াদী জরিপে কংগ্রেস দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে এবং ১৯৫৪ সালের ৮ ই মার্চ রঘবীর সিং মুখ্যমন্ত্রী হন। তাঁর মৃত্যুর পরে, ব্রিশ ভান ১৯৫৫ সালের ১২ জানুয়ারি মুখ্যমন্ত্রী হন এবং রাজ্য বিলুপ্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত স্বপদে বহাল ছিলেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

প্রশাসনিক বিভাগ[সম্পাদনা]

প্রথমদিকে ১৯৪৮ সালে রাজ্যটি নিম্নলিখিত আটটি জেলায় বিভক্ত ছিল:

  1. পতিয়ালা জেলা
  2. বরনালা জেলা
  3. ভাটিন্দা জেলা
  4. ফতেহগড় জেলা
  5. সঙ্গরুর জেলা
  6. কপুরতলা জেলা
  7. মহিন্দরগড় জেলা
  8. কোহিস্তান জেলা

১৯৫৩ সালে জেলার সংখ্যা আট থেকে পাঁচে কমিয়ে আনা হয়। বরনালা জেলা সঙ্গরুর জেলার অংশে পরিণত হয় হয়ে উঠে এবং কোহিস্তান ও ফতেহগড় জেলা পতিয়ালার জেলার অন্তর্ভুক্ত হয়। [৩]

এই রাজ্যে চারটি লোকসভা কেন্দ্র ছিল। এর মধ্যে তিনটি ছিল একক আসনের নির্বাচনী এলাকা: মহিন্দরগড়, সংগ্রুর ও পতিয়ালা। কাপুর্থলা-ভাটিন্ডা লোকসভা কেন্দ্রটি একটি দ্বি-আসনের নির্বাচনী এলাকা ছিল।

জনউপাত্ত[সম্পাদনা]

রাজ্যের জনসংখ্যা ছিল ৩৪,৯৩,৬৮৫ (১৯৫১ সালের আদমশুমারি), যার মধ্যে ১৯% ছিল শহুরে। জনসংখ্যার ঘনত্ব ছিল ১৩৩/ কিমি²। [৪]

রাজপ্রমুখ এবং উপরাজপ্রমুখ[সম্পাদনা]

ক্রমক নং. রাজপ্রমুখ প্রতিকৃতি মেয়াদ উপরাজপ্রমুখ প্রতিকৃতি কর্তৃক নিযুক্ত
যাদবিন্দর সিং Yadvinder Singh Mahendra Bahadur (1971).jpg ১৫ জুলাই ১৯৪৮ ১ নভেম্বর ১৯৫৬ ৮ বছর, ১০৯ দিন জগৎজিৎ সিং Major-General H.H. Farzand-i-Dilband Rasikh- al-Iqtidad-i-Daulat-i-Inglishia, Raja-i-Rajagan, Maharaja Sir Jagatjit Singh, Bahadur, Maharaja of Kapurthala, GCSI , GCIE , GBE.jpg সি রাজগোপালাচারী

মুখ্যমন্ত্রী[সম্পাদনা]

# নাম প্রতিকৃতি পার্টি (জোট সঙ্গী) অফিসের মেয়াদ [৫] নির্বাচন (সমাবেশ) কর্তৃক নিযুক্ত
পেপসু প্রধানমন্ত্রীর তালিকা (১৯৪৮-১৯৫২)
জ্ঞান সিং রেরেওয়ালা Gian Singh Rarewala ex CM.png স্বতন্ত্র (অকালী দল) ১৫ জুলাই ১৯৪৮ ১৩ জানুয়ারী ১৯৪৯ ২ বছর, ৩১২ দিন তত্ত্বাবধায়ক সরকার যাদবিন্দর সিং
১৩ জানুয়ারী ১৯৪৯ ২৩ মে ১৯৫১
[RES]
তখনও তৈরি হয়নি
রঘবীর সিং এন / এ ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস ২৩ মে ১৯৫১ ২১ এপ্রিল ১৯৫২
[RES]
৩৩৪ দিন
পেপসু-এর মুখ্যমন্ত্রী (1952-1956)
জ্ঞান সিং রেরেওয়ালা Gian Singh Rarewala ex CM.png স্বতন্ত্র
(ইউডিএফ)
২২ এপ্রিল ১৯৫২
[§]
৫ মার্চ ১৯৫৩
[RES]
৩১৭ দিন ১৯৫২ (১) যাদবিন্দর সিং
(i) শূন্য [ক]
( রাষ্ট্রপতির শাসন)
- ৫ মার্চ ১৯৫৩ ৮ মার্চ ১৯৫৪ ১ বছর, ৩ দিন - রাজেন্দ্র প্রসাদ
রঘবীর সিং এন / এ ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস 8 মার্চ 1954
[§]
12 জানুয়ারী 1955
[d]
৩১০ দিন ১৯৫৪ (২) যাদবিন্দর সিং
ব্রিশ ভান Brish Bhan.png ১২ জানুয়ারী ১৯৫৫ ১ নভেম্বর ১৯৫৬



</br> [pd]
১ বছর, ২৯৪ দিন

উপ-মুখ্যমন্ত্রী[সম্পাদনা]

না। নাম প্রতিকৃতি কার্যকাল রাজনৈতিক দল মুখ্যমন্ত্রী
ব্রিশ ভান Brish Bhan.png ২৩ মে ১৯৫১ ২১ এপ্রিল ১৯৫২ ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস রঘবীর সিং
8 মার্চ ১৯৫৪ ১২ জানুয়া্রি ১৯৫৫

১৯৫৬ সালে পেপসু পাঞ্জাবের সাথে একীভূত হয়।

টীকা[সম্পাদনা]

  1. President's rule may be imposed when the "government in a state is not able to function as per the Constitution", which often happens because no party or coalition has a majority in the assembly. When President's rule is in force in a state, its council of ministers stands dissolved. The office of chief minister thus lies vacant, and the administration is taken over by the governor, who functions on behalf of the central government. At times, the legislative assembly also stands dissolved.[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "States Reorganisation Act, 1956"। India Code Updated Acts। Ministry of Law and Justice, Government of India। 31August 1956। পৃষ্ঠা section 9। সংগ্রহের তারিখ 16 May 2013  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  2. Singh, Roopinder (১৬ ডিসেম্বর ২০০১)। "Rarewala: A Punjabi-loving gentleman-aristocrat"The Tribune 
  3. "History of Jind district"। Jind district website। ১৬ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০১১ 
  4. "Patiala and East Punjab States Union"। The Sikh Encyclopedia। ২১ আগস্ট ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ নভে ২০১৬ 
  5. worldstatesmen.org PEPSU
  6. Amberish K. Diwanji. "A dummy's guide to President's rule". Rediff.com. 15 March 2005.
  1. সিংহ, গুড়শরণ (1991)। পেপসু, ভারতের ইতিহাস: পাতিয়ালা এবং পূর্ব পাঞ্জাব স্টেটস ইউনিয়ন, 1948-1956, দিল্লি: কোনারক পাবলিশার্স, আইএসবিএন ৮১-২২০-০২৪৪-৭