পাকস্থলী ক্যান্সার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
পাকস্থলী ক্যান্সার
Adenocarcinoma of the stomach.jpg
চিত্রে একটি পাকস্থলীর ঘা দেখানো হয়েছে যা বায়োপসির পর ক্যান্সার হিসেবে ডায়াগনোসিস করা হয় এবং অপারেশন করে কেটে ফেলা হয়।
শ্রেণীবিভাগ এবং বহিঃস্থ সম্পদ
বিশিষ্টতা অনকোলজি
আইসিডি-১০ C১৬
আইসিডি-৯-সিএম ১৫১
ওএমআইএম ১৩৭২১৫
ডিজিসেসডিবি ১২৪৪৫
মেডলাইনপ্লাস ০০০২২৩
ইমেডিসিন med/845
মেএসএইচ D০১৩২৭৪ (ইংরেজি)
জেনেরিভিউস

পাকস্থলীর ক্যান্সার (ইংরেজি: Stomach cancer) রোগটি গ্যাস্ট্রিক ক্যান্সার (Gastric cancer) নামেও পরিচিত, এটি সাধারণত পাকস্থলীরর আবরণী কলা থেকে উৎপত্তি লাভ করে।[১] প্রাথমিক লক্ষণগুলো হলো বুকজ্বালা, পেটের উপরের অংশে ব্যথা, বমি ও ক্ষুধামন্দা পরবর্তী লক্ষণগুলোর মধ্যে রয়েছে ওজন কমে যাওয়া, জন্ডিস, বমি ডিসফ্যাজিয়া বা খাবার গিলতে কষ্ট হওয়া, পায়খানার সাথে কালো রক্ত যাওয়া(melena) ইত্যাদি। [২] ক্যান্সার পাকস্থলী থেকে দেহের অন্যান্য অংশে ছড়াতে পারে বিশেষ করে যকৃৎ, ফুসফুস, অস্থি, পেরিটোনিয়াম বা উদর আবরণী ও লিম্ফনোড উল্লেখযোগ্য। [৩]

হেলিকোব্যাক্টার পাইলোরি নামক ব্যাক্টেরিয়াম প্রায় ৬০% ক্ষেত্রে পাকস্থলীর ক্যান্সারের জন্য দায়ী। [৪][৫][৬] এই ব্যাক্টেরিয়ামের কোনো কোনো বিশেষ টাইপের ক্ষেত্রে এই ঝুঁকি আরো অনেক বেশি। অন্যান্য কারণের মধ্যে ধূমপান, জেনেটিক কারণ অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ১০% ক্ষেত্রে পরিবারে ক্যান্সার হওয়ার ইতিহাস থাকে। পাকস্থলী ক্যান্সারের অধিকাংশই গ্যাস্ট্রিক ক্যান্সার। এটাকে আবার কয়েক উপশ্রেণীতে ভাগ করা যায়।লিম্ফোমা ও মেজেনকাইমাল টিউমারও পাকস্থলীতে হয়। পাকস্থলী ক্যান্সার সাধারণত কয়েকবছর ধরে আস্তে আস্তে বিভিন্ন ধাপ পেরিয়ে শেষ ধাপে এসে উন্নীত হয়।[৫] এন্ডোসকপির মাধ্যমে বায়োপসি নিয়ে রোগ নির্ণয় করা হয়।তারপর মেডিকেল ইমেজিং এর মাধ্যমে শরীরের অন্য কোথাও ছড়িয়েছে কি না তা নির্ণয় করা হয়।[২] জাপানদক্ষিণ কোরিয়া এই দুই দেশে পাকস্থলী ক্যন্সারের রোগী সবচেয়ে বেশি হওয়ায় সেখানে নিয়মিত ক্যান্সার স্ক্রিনিং পরীক্ষা করানো হয়।[৫]

ধূমপান পরিহার ও ভূমধ্যসাগরীয় খাবার ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে পারে। হেলিকোব্যাক্টার পাইলোরি এর চিকিৎসা করালে ভবিষ্যতে ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে।[৫][৭] প্রাথমিক অবস্থায় চিকিৎসা করালে অনেক ক্যান্সারই পুরাপুরি ভালো হয়ে যায়।[৫] সাধারণত সার্জারি, কেমোথেরাপি, রেডিওথেরাপি ও টার্গেটেড থেরাপির মাধ্যমে চিকিৎসা দেয়া হয়।[২] বিলম্বে চিকিৎসা শুরু করলে পেলিয়েটিভ বা উপশমক চিকিৎসা নিতে পরামর্শ দেয়া হয়।[৫] চিকিৎসার পর পাঁচ বছর বেঁচে হার মাত্র দশ শতাংশ কারণ অধিকাংশ রোগী একদম শেষ পর্যায়ে এসে চিকিৎসা আরম্ভ করেন।[৮] যুক্তরাষ্ট্রে এই হার ২৮%।[৯]

ক্যান্সারের কারণ হিসেবে পাকস্থলী ক্যান্সার সারা পৃথিবীতে পঞ্চম স্থানে আছে এবং ক্যান্সারজনিত মৃত্যুর ক্ষেত্রে তৃতীয় স্থানে আছে।[১০] ২০১২ সালে প্রায় ৯,৫০,০০০ জন লোক এই রোগে আক্রান্ত হয় এবং ৭,২৩,০০০ জন মৃত্যুবরণ করে।[১০] ১৯৩০ সালের পূর্বে সারাবিশ্বের সব জায়গায় এটি ক্যান্সারজনিত মৃত্যুর প্রধান কারণ ছিল।[১১][১২][১৩] এরপর থেকে বিশ্বের অনেক স্থানে মৃত্যুহার অনেক হ্রাস পেয়েছে।[৫] রেফ্রিজারেটর সহজলভ্য হওয়ায় আচার ও অধিক লবণাক্ত খাবার খাওয়ার প্রবণতা কমে এসেছে কারণ এখন ফ্রিজে খাবার অনেকদিন পর্যন্ত সতেজ রাখা যায়।[১৪] পাকস্থলী ক্যান্সার সবচেয়ে বেশি হয় পূর্ব এশিয়াপূর্ব ইউরোপ অঞ্চলে। মহিলাদের তুলনায় পুরুষদের এই রোগ হওয়ার সম্ভাবনা প্রায় দ্বিগুণ। [৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Stomach (Gastric) Cancer"NCI। সংগ্রহের তারিখ ১ জুলাই ২০১৪ 
  2. "Gastric Cancer Treatment (PDQ®)"NCI। ২০১৪-০৪-১৭। সংগ্রহের তারিখ ১ জুলাই ২০১৪ 
  3. Ruddon, Raymond W. (২০০৭)। Cancer biology (4th সংস্করণ)। Oxford: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 223। আইএসবিএন 9780195175431 
  4. Sim, edited by Fiona; McKee, Martin (২০১১)। Issues in public health (2nd সংস্করণ)। Maidenhead: Open University Press। পৃষ্ঠা 74। আইএসবিএন 9780335244225 
  5. World Cancer Report 2014। World Health Organization। ২০১৪। পৃষ্ঠা Chapter 5.4। আইএসবিএন 9283204298 
  6. Chang, A. H.; Parsonnet, J. (২০১০)। "Role of Bacteria in Oncogenesis"Clinical Microbiology Reviews23 (4): 837–857। doi:10.1128/CMR.00012-10PMID 20930075আইএসএসএন 0893-8512পিএমসি 2952975অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  7. "Stomach (Gastric) Cancer Prevention (PDQ®)"NCI। ২০১৪-০২-২৭। সংগ্রহের তারিখ ১ জুলাই ২০১৪ 
  8. Orditura, M; Galizia, G; Sforza, V; Gambardella, V; Fabozzi, A; Laterza, MM; Andreozzi, F; Ventriglia, J; Savastano, B; Mabilia, A; Lieto, E; Ciardiello, F; De Vita, F (ফেব্রুয়ারি ২০১৪)। "Treatment of gastric cancer." (PDF)World Journal of Gastroenterology20 (7): 1635–49। doi:10.3748/wjg.v20.i7.1635PMID 24587643পিএমসি 3930964অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  9. "SEER Stat Fact Sheets: Stomach Cancer"NCI। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জুন ২০১৪ 
  10. "Chapter 1.1"। World Cancer Report 2014। World Health Organization। ২০১৪। আইএসবিএন 9283204298 
  11. Hochhauser, Jeffrey Tobias, Daniel (২০১০)। Cancer and its management (6th সংস্করণ)। Chichester, West Sussex, UK: Wiley-Blackwell। পৃষ্ঠা 259। আইএসবিএন 9781444306378 
  12. Khleif, Edited by Roland T. Skeel, Samir N. (২০১১)। Handbook of cancer chemotherapy (8th সংস্করণ)। Philadelphia: Wolter Kluwer। পৃষ্ঠা 127। আইএসবিএন 9781608317820 
  13. Joseph A Knight (২০১০)। Human Longevity: The Major Determining Factors। Author House। পৃষ্ঠা 339। আইএসবিএন 9781452067223 
  14. Moore, edited by Rhonda J.; Spiegel, David (২০০৪)। Cancer, culture, and communication। New York: Kluwer Academic। পৃষ্ঠা 139। আইএসবিএন 9780306478857 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Digestive system neoplasia