পল্টন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পল্টন মডেল থানা
থানা
পল্টন মডেল থানা বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
পল্টন মডেল থানা
পল্টন মডেল থানা
পল্টনে অবস্থান, ঢাকা, বাংলাদেশ
স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৪.২′ উত্তর ৯০°২৪.৯′ পূর্ব / ২৩.৭৩৬৭° উত্তর ৯০.৪১৫০° পূর্ব / 23.7367; 90.4150স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৪.২′ উত্তর ৯০°২৪.৯′ পূর্ব / ২৩.৭৩৬৭° উত্তর ৯০.৪১৫০° পূর্ব / 23.7367; 90.4150
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগঢাকা বিভাগ
জেলাঢাকা জেলা
আয়তন
 • মোট১.৪২ বর্গকিমি (০.৫৫ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৮৪,৪৯২
 • জনঘনত্ব৬০,০০০/বর্গকিমি (১,৫০,০০০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)

পল্টন বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার একটি থানা[১] ঢাকাকে "পুরান ঢাকা" এবং "নতুন ঢাকা" হিসেবে বিভক্ত করলে এটিকে প্রায়শই ঢাকার কেন্দ্র বলা হয়। ২০০৫ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া পল্টনকে থানায় রুপান্তরিত করেছিলেন। মতিঝিল থানার অংশ নিয়ে ২৭ জুন ২০০৫ সালে পল্টন থানা গঠিত হয়েছিল।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮৭৫ সালে একজন অজানা চিত্রগ্রাহকের তোলা ছবিতে পুররিয়া পল্টন ময়দানে গাছের পাশে একটি ছোট মসজিদ দেখানো হয়েছে।

পল্টন নামটি ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির একটি সেনানিবাস থেকে এসেছে।[২] নামটি ইংরেজি শব্দ প্লাটুন[৩] থেকে এসেছে, তবে বাস্তবে এটি আকারের একটি ব্যাটালিয়ন বা রেজিমেন্টের সমান।[৪] পুরানা পল্টন, পুরানা পল্টন লেন, নয়া পল্টন, তোপখানা এবং ফুলবাড়িয়া রেলপথ অবধি এটি ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির সেনানিবাস ছিল এবং তোপখানায় আর্টিলারি বাহিনী ছিল। 'তোপ' অর্থ কামান এবং তোপখানা অর্থ অস্ত্রাগার। এটি একটি তুর্কি শব্দ। ১৮৪০ সালে সেনানিবাসটি রমনা, বেগুনবাড়ি, পরে লালবাগ দুর্গে এবং ১৮৫৭ সালের পরে মিল ব্যারাকে স্থানান্তরিত হয়। সেনানিবাসটি স্থানান্তরিত হওয়ার পরে এলাকাটিকে পৌরসভার কাছে যত্ন নেওয়ার জন্য দেওয়া হয়েছিল। পুরো অঞ্চল থেকে তারা একটি অংশ নিয়ে বাগান তৈরি করে যা "কোম্পানী বাগিচা" নামে পরিচিত।[৪] বাকি অংশে একটি বড় মাঠ ছিল, যা ঢাকা কলেজের ছাত্ররা তাদের খেলার মাঠ হিসাবে ব্যবহার করত। এর পাশাপাশি এটি লেফটেন্যান্ট গভর্নরের প্যারেড গ্রাউন্ড হিসাবেও ব্যবহৃত হতো। তবে উনিশ শতকের শেষভাগে এটি ক্রিকেটের মাঠ হিসাবে ব্যবহৃত হতো এবং কখনও কখনও এখানে জনসভাও অনুষ্ঠিত হতো।[৫]

১৯৩০ সাল অবধি পল্টনে খুব কম লোকই বাস করত। বুদ্ধদেব বসুর উপন্যাসিকা 'মনের মতো মেয়ে' এই অঞ্চলে থাকাকালীন সময়েরই একটি সৃষ্টি;[৬] বিকাশ চরিত্রটি বলেন, "আমার বয়স যখন ১৭ বছর তখন পল্টনের একটি বাড়িতে এসেছিলাম। ওই সময় সেখানে মাত্র তিনটি বাড়ি ছিল"।

পল্টন শুরু থেকেই অসংখ্য নামী ব্যক্তি এবং পরিবারকে গর্বিত করেছে। উনিশ শতকের গোড়ার দিকে যে পরিবারগুলিতে বসতি স্থাপন করেছিল তাদের মধ্যে ছিল গাজী, আবেদিন, চৌধুরি এবং রউফ। এই পরিবারগুলি সামগ্রিকভাবে শহরের উন্নয়নে প্রধান ভূমিকা পালন করেছিল।

ভৌগোলিক অবস্থান[সম্পাদনা]

প্রশাসন[সম্পাদনা]

  • থানা ১টি
  • মহল্লা ১৩টি:[১]
  1. জনসংখ্যা - ৮৪,৪৯২ জন
  2. শিক্ষার হার - ৮১.৭৪%
  • ওয়ার্ড ২টি:[১]

১. ওয়ার্ড ৩৬ :
আয়তন - ১.৩৬ বর্গ কি.মি.
শিক্ষার হার - ৭৯.৫৭%

২. ওয়ার্ড ৫৬ (আংশিক) :
আয়তন - ০.০৬ বর্গ কি.মি.
শিক্ষার হার - ৮৩.৯১%

বৈশিষ্ট্যসমূহ[সম্পাদনা]

পল্টন ঢাকার একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক অঞ্চল

ভিআইপি রোড- পল্টন অঞ্চলে একটি অভ্যন্তরীণ-বৃত্তাকার ভিআইপি রাস্তা রয়েছে (বর্তমানে এটি আঞ্জুমান-এ-মুফিদুল ইসলাম রোড নামে পরিচিত, শহীদ-মানিক রোড), যা একটি বিভাজক দ্বারা ১২০ ফুট প্রশস্ত বিভক্ত। রাস্তাটির নামকরণ ভিআইপি করা হয়েছে কারণ দেশের প্রধানমন্ত্রী এবং রাষ্ট্রপতি থেকে শুরু করে বেশিরভাগ পুঁজিপতিদের চলাচল এই সড়কে। এই সড়কটি মতিঝিলের সাথে সংলগ্ন, দেশের ব্যবসায়ের মূলধন অঞ্চল যেখানে বেশিরভাগ সংস্থার কর্পোরেট অফিসগুলির সাথে প্রায় সমস্ত ব্যাংক এবং অন্যান্য আর্থিক সংস্থার প্রধান শাখা অন্তর্ভুক্ত। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জও একই এলাকায় অবস্থিত।

থানা- মডেল "পল্টন থানা" পল্টনে অবস্থিত। এখানে লোকেরা যে কোনও সময় পুলিশের সহায়তা নিতে পারে। থানার অভ্যন্তরে একটি বড় পুলিশ কোয়ার্টার রয়েছে। মহিলা পুলিশ সহ প্রায় ২০০ পুলিশ বাহিনী এখানে অবস্থান করে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান- পল্টনে শিক্ষার মাধ্যম হিসেবে রয়েছে অসংখ্য স্কুল-কলেজ। এর মাঝে উল্লেখযোগ্য - ঢাকা সিটি ইন্টারন্যাশনাল কলেজ, টিএন্ডটি কলেজ, পুরানা পল্টন মহিলা ডিগ্রি কলেজ, মতিঝিল কলোনি হাইস্কুল, মতিঝিল সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, মতিঝিল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পোস্ট অফিস হাইস্কুল, মতিঝিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, টিএন্ডটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ফকিরাপুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জাতীয় বধির স্কুল ইত্যাদি।[১]

শপিং কমপ্লেক্স- পল্টন ঢাকা শহরের অন্যতম প্রাচীন অঞ্চল, এখানে অসংখ্য শপিং সেন্টার এবং মার্কেট দর্প করে অবস্থান করছে। বায়তুল মোকাররম মসজিদ মার্কেট, পলওয়েল সুপার মার্কেট, পল্টন সুপার মার্কেট, ইস্টার্ণ প্লাস মার্কেট, গুলিস্তান হল মার্কেট, তপা কমপ্লেক্স, মল্লিক কমপ্লেক্স, সিটি হার্ট, গাজী ভবন এবং আরও অনেক কেন্দ্রস্থল এই এলাকায় অবস্থিত।[১]

হোটেল এবং রেস্তোঁরা- পল্টনে অনেকগুলি হোটেল রয়েছে যার বেশিরভাগই আন্তর্জাতিক মানের এবং বিশাল সংখ্যক বিদেশী বিনিয়োগকারী, ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব এবং অন্যান্য ক্লাব সদস্য এবং দর্শনার্থীদের পরিবেশন করার সময় তারা তাদের বাহ্যিক দৃষ্টিভঙ্গিকে কঠোরভাবে বজায় রাখে। এর মধ্যে হোটেল ভিক্টরি, অর্কার্ড, রাজমণি ঈশা খান, গ্র্যান্ড আজাদ উল্লেখযোগ্য। মিডনাইট সান-৩, সিজলার, ল্যান হুয়া, মৌরি-এর মতো রেস্তোঁরাগুলো দীর্ঘকাল থেকেই লোকেদের সন্তুষ্টি অর্জন করে যাচ্ছে।

অটোমোবাইল মার্কেট- এই অঞ্চলটি বাংলাদেশের বৃহত্তম অটোমোবাইল বাজারের পাশাপাশি অনেকগুলি মোটরযান ওয়ার্কশপ নিয়ে দর্প করছে যারা দীর্ঘকাল ধরে তাদের পেশাদারিত্বের সাথে কাজ করে যাচ্ছে।

সিনেমা হল এবং কমিউনিটি সেন্টার- খ্যাতনামা সিনেমা হল রাজমনি[৭] এবং জোনাকি[৮] এই অঞ্চলে অবস্থিত। এই এলাকায় অবস্থিত আনন্দ ভবন এবং পল্টন কমিউনিটি সেন্টার শহরে সুপরিচিত কমিউনিটি সেন্টার।

মসজিদ এবং অন্যান্য উপাসনালয়- ঢাকা মসজিদের শহর হিসাবে পরিচিত। এই অঞ্চলে অসংখ্য মসজিদ অবস্থিত। বাংলাদেশের জাতীয় মসজিদ ‘বায়তুল মোকাররম’ এই অঞ্চলে অবস্থিত। নয়া পল্টন জামে মসজিদ, পুরানা পল্টন মসজিদ, পুরানা পল্টন লেন বটতলা মসজিদ এর মাঝে উল্লেখযোগ্য। এই মসজিদগুলির বেশিরভাগই গত শতাব্দীর প্রথম দশকে নির্মিত হয়েছিল।

শহরের প্রাচীনতম এবং বৃহত্তম গির্জার অন্যতম কাকরাইল গির্জা হিসাবে পরিচিত আর্চবিশপ বাড়িটি পল্টনের নিকটে অবস্থিত।

হিন্দুদের অন্যতম প্রধান পবিত্র স্থান সিদ্ধেশ্বরী কালী মন্দিরও এই অঞ্চলের কাছেই অবস্থিত।

উল্লেখযোগ্য বাসিন্দা[সম্পাদনা]

ব্রিটিশ আমল থেকে আজ অবধি অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি একসময় এই অঞ্চলের বাসিন্দা ছিলেন। তাদের মধ্যে মহান রাজনৈতিক ও সমাজ সংস্কারক, লোকহিতৈষী আলহাজ্ব আবদুল হালিম চৌধুরী, প্রখ্যাত শিল্পপতি জনাব এন.এন. গাজী, প্রবীণ রাজনীতিবিদ গাজী গোলাম মোস্তফা, আইনজীবী অ্যাড. আশরাফ আলী চৌধুরী, পাকিস্তানের হিলাল-ই-কায়েদ এবং ১৯৬৫ সালের মন্ত্রী আলতাফ হোসেনের ভাই সেন্সরবোর্ডের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন এবং তার স্ত্রী মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও প্রখ্যাত বলিউড অভিনেতা পাহাড়ী সান্যালের কন্যা - নমিতা আনোয়ার, প্রখ্যাত বাম রাজনীতিবিদ / কলামিস্ট / প্রবীণ সাংবাদিক নির্মল সেন, প্রবীণ গায়ক খুরশিদ আলম, শাহনাজ রহমতুল্লাহ, আবিদা সুলতানা, শিমুল বিল্লাহ্, সংগীত পরিচালক আনোয়ার পারভেজ, অভিনেতা রাইসুল ইসলাম আসাদ, প্রয়াত জাফর ইকবাল, বিখ্যাত সাংস্কৃতিক সংগঠক ও মুক্তিযোদ্ধা নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, ক্রিকেট ভাষ্যকার শামীম আশরাফ চৌধুরী, প্রখ্যাত ভরত নাট্যম বিশেষজ্ঞ শিল্পী শুক্লা সরকার বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। গত শতাব্দীর বেশিরভাগ রাজনৈতিক ও সামাজিক ব্যক্তিত্বও তাদের জীবদ্দশায় সরাসরি এই অঞ্চলের সাথে সম্পর্কিত ছিলেন।

এই অঞ্চলটিতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার থেকে শুরু করে আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম[৯]-ও রয়েছে। এই অঞ্চলটি দীর্ঘকাল ধরে সামগ্রিকভাবে রাজনৈতিক ও সামাজিক ঘটনাকে প্রত্যক্ষ করেছে এবং প্রভাবিত করেছে, তা ব্রিটিশ আমল, পাকিস্তান আমল বা যুদ্ধ পরবর্তী সময়কাল-ই হোক। যদিও এই অঞ্চলটি জনসংখ্যা এবং আবাসনের সমস্যার কারণে ধীরে ধীরে নগরীর অন্যান্য অঞ্চলের মতো প্রভাবিত হচ্ছে, কিন্তু এটি এখনও নগরীর অন্য অঞ্চলগুলি থেকে পৃথক দাঁড়িয়ে আছে।

নয়া পল্টন[সম্পাদনা]

নয়াপল্টনের নামকরণের একটি ইতিহাস রয়েছে।[১০] ১৯৫০ এর দশকের আগে বর্তমানের নয়াপল্টন অঞ্চলটি রামকৃষ্ণপুর নামে পরিচিত ছিল। এই অঞ্চলের দুটি গলিতে ২৫টিরও কম পরিবার বাস করতো। একটি গলি যেতো পুরান পল্টন হয়ে। অন্য গলিটি নিভৃত ছিল মাত্র ১০ টিরও কম পরিবার নিয়ে। ১৯৫২ সালে (ভাষা আন্দোলনের বছর) এলাকার (তখন রামকৃষ্ণপুর) বাসিন্দারা (ডা. আবদুল হালিম, মো. রজব আলী, মো. জোহাদ হোসেন এবং অন্যান্য) একাধিক আলোচনায় একসাথে বসে এই অঞ্চলের নাম পরিবর্তন করেছিলেন। কারণটি ছিল, ১৯৪৭-এর দেশ বিভাগের পরে এলাকার সমস্ত মূল-মালিকরা তাদের বাড়ি বিক্রি করে ভারতে পাড়ি জমান এবং নতুন মালিকরা এই অঞ্চলটিতে জনবসতি শুরু করেন। প্রথম প্রস্তাবটি ছিল রামকৃষ্ণপুর থেকে নাম পরিবর্তন করে আল্লাহ-রসূলপুর করা হবে। পরবর্তী বৈঠকে এই প্রস্তাবটিতে যথেষ্ট সমর্থন পাওয়া যায়নি। দ্বিতীয় প্রস্তাবটি ছিল অঞ্চলটির নাম হবে নয়াপল্টন। তাৎক্ষণিকভাবে এই প্রস্তাবটি সবার দ্বারা সমর্থিত এবং গৃহীত হয়।

নিভৃত গলিটির সর্বাধিক সম্মানিত ব্যক্তি ছিলেন অধ্যাপক ডা. আবদুল হালিম। মূলত গলিটি প্রশস্ত ছিলো ছয় ফুট। ১৯৫৩/৫৪ সালের এক শুভ সকালে ডা. হালিম স্থানীয় জমির মালিকদের সাথে একসাথে বসে গলিটির প্রশস্ততা ৬ ফুট থেকে ১৮ ফুটে বৃদ্ধি করার সিদ্ধান্ত নেন। পরের দিন তিনি তার জমির রেখা বরাবর তার পাঁচটি বিশালাকার গাছ সরিয়ে ফেলেন এবং তার জমি থেকে ৬ ফুট অংশ মুক্ত করে দেন। অন্যান্য জমির মালিকরাও তাকে অনুসরণ করতে থাকেন। এভাবেই নয়া পল্টনের গলিটি তার অস্তিত্ব নিয়ে আসে। তখনকার সময় ১৮ ফুট প্রশস্ত গলি কেবল একটি স্বপ্ন ছিল।

ভারত বিভাগের পরে প্রবীণ বাসিন্দাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিলেন তৎকালীন পৌরসভার কাউন্সিলর আলহাজ্ব আবদুল হালিম চৌধুরী, জনাব হাসান আলী শেঠ, জনাব কে.বি.এম.এ. রশিদ, ইঞ্জিনিয়ার জহুরুল হক, ইঞ্জিনিয়ার আবদুল করিম, ডা. জয়নাল আবেদীন, এম.এ. শিকদার , জনাব এম এ সামাদ, নুরুননবী গাজী, মৌলভী ইদ্রিস চৌধুরী, জনাব আরব আলী, জনাব আনসার আলী, জনাব হেলাল উদ্দিন, জনাব ফজলুল হক, জনাব খন্দকার মহিউদ্দিন, জনাব সৈয়দ আবদুল মজিদ, জনাব শমসের আলী খান, মো: মোজাফফর হুসেন, জনাব আবদুল ওয়াসে চৌধুরী, জনাব হারিস-উর-রহমান চৌধুরী, জনাব গাজী হারুন-উর-রশিদ, জনাব মুন্সী শাখাওয়াত এবং প্রমুখ।

পুরানা পল্টন[সম্পাদনা]

ব্রিটিশ শাসনের অধীনে সরকার এখানে সৈন্যদের একটি রেজিমেন্ট বজায় রেখেছিল এবং তাই এর নাম হয় পুরানা পল্টন।[৪] এই স্থানে সেনাবাহিনীর একটি ফায়ারিং রেঞ্জ ছিল। ১৯৫৬ সালে পুরানা পল্টনে স্বল্পকিছু ভবন ছিল, এটির পূর্ব এবং উত্তরে গ্রাম এবং দক্ষিণে একটি বিশাল ফাকা স্থান দ্বারা বেষ্টিত ছিল। এখন সেখানে ফাকা স্থান খুজে পাওয়া দুষ্কর। এটি পুরান ঢাকার সীমানার দাগ। বর্তমানে এই স্থানটি প্রকাশনা ঘরগুলির জন্য বিশেষ খ্যাত।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. শামসুন নাহার (২০১২)। "পল্টন থানা"ইসলাম, সিরাজুল; মিয়া, সাজাহান; খানম, মাহফুজা; আহমেদ, সাব্বীর। বাংলাপিডিয়া: বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্বকোষ (২য় সংস্করণ)। ঢাকা, বাংলাদেশ: বাংলাপিডিয়া ট্রাস্ট, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটিআইএসবিএন 9843205901ওএল 30677644Mওসিএলসি 883871743 
  2. গাজী মো: মিজানুর রহমান (২০১২)। "পল্টন"ইসলাম, সিরাজুল; মিয়া, সাজাহান; খানম, মাহফুজা; আহমেদ, সাব্বীর। বাংলাপিডিয়া: বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্বকোষ (২য় সংস্করণ)। ঢাকা, বাংলাদেশ: বাংলাপিডিয়া ট্রাস্ট, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটিআইএসবিএন 9843205901ওএল 30677644Mওসিএলসি 883871743 
  3. "ঢাকার বিভিন্ন স্থানের ধারাবাহিক ইতিহাস- পর্ব এক"ঘটনা ডটকম। সংগ্রহের তারিখ ৪ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  4. "পুরানা পল্টন যেমন ছিল একসময়"পিবিএ। সংগ্রহের তারিখ ১২ মে ২০১৯ 
  5. "ছোট হয়ে যাচ্ছে পল্টন ময়দান"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  6. "বুদ্ধদেব বসুর পুরানা পল্টন"প্রাণেরবাংলা ডটকম। সংগ্রহের তারিখ ২ এপ্রিল ২০২০ 
  7. "এবার রাজমনি সিনেমা হল ভেঙে করা হচ্ছে বহুতল ভবন"কালের কন্ঠ। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১৯ 
  8. "মিটিমিটি জ্বলছে জোনাকী!"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২১ অক্টোবর ২০১৯ 
  9. "পল্টন ময়দান ও স্টেডিয়াম পাড়ার বেহাল দশা"বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। সংগ্রহের তারিখ ১ জুলাই ২০১৫ 
  10. "ঢাকা- ইতিহাসের আঁতুড়ঘর যে শহর"টেন মিনিট স্কুল ডটকম। সংগ্রহের তারিখ ২ এপ্রিল ২০২০