পলিথিন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পলিথিন
Skeletal formula of a ris monomer
Spacefill model of polyethylene
Sample of granulated polyethylene
নামসমূহ
ইউপ্যাক নাম
Polyethene or poly(ethylene)[১]
অন্যান্য নাম
Polyethene
Polythene
শনাক্তকারী
সংক্ষেপন PE
কেমস্পাইডার
  • none
ইসিএইচএ ইনফোকার্ড ১০০.১২১.৬৯৮
কেইজিজি
এমইএসএইচ {{{value}}}
সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করা ছাড়া, পদার্থসমূহের সকল তথ্য-উপাত্তসমূহ তাদের প্রমাণ অবস্থা (২৫ °সে (৭৭ °ফা), ১০০ kPa) অনুসারে দেওয়া হয়েছে।
তথ্যছক তথ্যসূত্র

পলিইথিলিন বা পলিথিন (সংক্ষেপে PE; ইউপ্যাক নাম: পলিথিন বা পলি (মিথাইলিন) হলো বর্তমানে ব্যবহৃত সবচেয়ে সাধারণ প্লাস্টিক। এটি একটি রৈখিক, মানুষের তৈরি, সংযোজি, হোমো-পলিমার পদার্থ;যা প্রাথমিকভাবে প্যাকেজিং এর জন্য ব্যবহৃত হয়। ২০১৭ সালের হিসাবানুযায়ী, ১০০ মিলিয়ন টন পলিইথিলিন রেজিন প্রতি বছর উৎপাদিত হচ্ছে। [২][৩]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পলিইথিলিন প্রথম জার্মান রসায়নবিদ হ্যান্স ফন পেচম্যান সংশ্লেষণ করেন, যিনি ডায়াজোমিথেন অনুসন্ধানের সময় ১৮৯৮ সালে দুর্ঘটনাবশত এটি তৈরি করেন। যখন তার সহকর্মী ইউগেন বামবার্গার এবং ফ্রেডরিখ টিশিরনার তার তৈরি করা সাদা, মোমজাতীয় পদার্থটি দেখেন, তারা বুঝতে পারেন যে এর মধ্যে লম্বা -CH2- চেইন আছে এবং এটিকে পলিমিথাইলিন বলে অভিহিত করা হয়। [৪]

শিল্পকারখানায় ব্যবহৃত পলিইথিলিন সর্বপ্রথম ১৯৩৩ সালে দুর্ঘটনাবশত ইংল্যান্ডের নর্থউইচে ইম্পেরিয়াল কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ (আইসিআই) এর এরিক ফসেট এবং রেজিনাল্ড গিবসন কর্তৃক আবিষ্কৃত হয়। [৫] ইথিলিন এবং বেনজালডিহাইড এর মিশ্রণে অত্যন্ত উচ্চ চাপ প্রয়োগ করার পর তারা একটি সাদা, মোমজাতীয় উপাদান তৈরি করে। ১৯৩৫ সালে আরেকজন আইসিআই রসায়নবিদ মাইকেল পেরিন এই দুর্ঘটনাবশত পলইথিলিন তৈরির এই প্রক্রিয়াটিকে পলিথিনের পুনরুৎপাদন প্রক্রিয়ায় পরিণত করেন যা ১৯৩৯ সাল থেকে শুরু হওয়া শিল্প লো-ডেনসিটি পলিইথিলিন (এলডিপিই) উৎপাদনের ভিত্তি হয়ে ওঠে। যেহেতু পলিইথিলিন খুব উচ্চ ফ্রিকোয়েন্সি রেডিও তরঙ্গ খুব কম ক্ষতি বৈশিষ্ট্য পাওয়া গেছে, ব্রিটেনে বাণিজ্যিক বিতরণ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রাদুর্ভাব, গোপনীয়তা আরোপ করা হয়, এবং নতুন প্রক্রিয়া ইউএইচএফ এবং এসএইচএফ কক্সিয়াল কেবলের জন্য ইনসুলেশন উৎপাদন এর জন্য ব্যবহার করা হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়, আইসিআই প্রক্রিয়া উপর আরো গবেষণা করা হয় এবং ১৯৪৪ সালে টেক্সাসের সাবিনের বেটেলিকর্পোরেশন, এবং পশ্চিম ভার্জিনিয়ার চার্লসটনের ডু পন্ট, আইসিআই থেকে লাইসেন্স সংগ্রহ করে বড় পরিসরে পলিথিনের বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু করেন।

পলিইথিলিনের বাণিজ্যিক উৎপাদনে যুগান্তকারী সাফল্য অনুঘটকের উন্নয়ন দিয়ে শুরু হয়। ১৯৫১ সালে রবার্ট ব্যাংকস এবং ফিলিপস পেট্রোলিয়াম জে পল হোগা ক্রোমিয়াম ট্রাইঅক্সাইড-ভিত্তিক অনুঘটক আবিষ্কার করেন। ১৯৫৩ সালে জার্মান রসায়নবিদ কার্ল জিগলার টাইটানিয়াম হ্যালিডেস এবং অর্গানোঅ্যালুমিনিয়াম যৌগের উপর ভিত্তি করে একটি ক্যাটালিটিক সিস্টেম উদ্ভাবন করেন যা ফিলিপস এর উদ্ভাবিত অনুঘটকের চেয়েও হালকা অবস্থকাজ করে। ফিলিপস এর আবিষ্কৃত অনুঘটকটি কম ব্যয়বহুল এবং সেটি নিয়ে কাজ করাও সহজ। ১৯৫০ এর দশকের শেষের দিকে ফিলিপস এবং জিগলার-টাইপ অনুঘটক উভয় উচ্চ-ঘনত্বের পলিইথিলিন (এইচডিপিই) উৎপাদনের জন্য ব্যবহার করা হচ্ছিল। ১৯৭০ সালে, জিগলার সিস্টেম ম্যাগনেসিয়াম ক্লোরাইড এর দ্বারা উন্নত করা হয়। দ্রবণীয় অনুঘটক, ধাতুলোসিনের উপর ভিত্তি করে অনুঘটক সিস্টেম, ১৯৭৬ সালে ওয়াল্টার কামিনস্কি এবং হ্যান্সজর্গ সিন কর্তৃক আবিষ্কৃত হয়।

পরিবেশের উপর প্রভাব[সম্পাদনা]

পলিইথিলিন ইথিলিন থেকে উৎপন্ন হয়, এবং যদিও ইথিলিন নবায়নযোগ্য সম্পদ থেকে উৎপন্ন হতে পারে, কিন্তু পলিথিন প্রধানত পেট্রোলিয়াম থেকে উৎপন্ন হয়।

পলিইথিলিনের ব্যাপক ব্যবহার বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য অসুবিধার সৃষ্টি করে যদি এটিকে পুনর্ব্যবহারযোগ্য করে না তোলা হয়।পলিইথিলিন, অন্যান্য কৃত্রিম প্লাস্টিকের মত, সহজে পরিবেশে মিশতে পারে না।

জাপানে, পরিবেশে বিদ্যমান অতিরিক্ত পরিমাণের প্লাস্টিক একটি প্রধান সমস্যা ছিল যখন ২০১১ সালে ফুকুশিমা পারমাণবিক বিপর্যয় একটি বৃহত্তর ইস্যু হয়ে ওঠে। এটি সমাধানের জন্য $৯০ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করা হয়। ২০০৮ সাল থেকে, জাপান দ্রুত প্লাস্টিক পুনর্ব্যবহার বৃদ্ধি করেছে, কিন্তু এখনও বড় পরিমাণ প্লাস্টিকের মোড়ক পুনর্ব্যবহার করা শুরু হয় নি; যা শুধুই বর্জ্য।

২০১০ সালে, একজন জাপানি গবেষক, আকিনোরি ইতো, একটি মেশিনের প্রোটোটাইপ প্রকাশ করেন যা একটি ছোট, স্ব-নিয়ন্ত্রিত বাষ্প ডিস্টিলেশন প্রোস ব্যবহার করে পলিইথিলিন থেকে তেল তৈরি করে।


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Compendium of Polymer Terminology and Nomenclature - IUPAC Recommendations 2008 (PDF)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-২৮ 
  2. Geyer, Roland; Jambeck, Jenna R.; Law, Kara Lavender (২০১৭-০৭-০১)। "Production, use, and fate of all plastics ever made"Science Advances3 (7): e1700782। ডিওআই:10.1126/sciadv.1700782পিএমআইডি 28776036পিএমসি 5517107অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:2017SciA....3E0782G 
  3. "Plastics: The Facts" (PDF)Plastics Europe। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-২৯ 
  4. Bamberger, Eugen; Tschirner, Friedrich (১৯০০)। "Ueber die Einwirkung von Diazomethan auf β-Arylhydroxylamine" [On the effect of diazomethane on β-arylhydroxylamine]। Berichte der Deutschen Chemischen Gesellschaft zu Berlin33: 955–959। ডিওআই:10.1002/cber.190003301166[page 956]: Eine theilweise – übrigens immer nur minimale – Umwandlung des Diazomethans in Stickstoff und Polymethylen vollzieht sich auch bei ganz andersartigen Reactionen; ... [A partial – incidentally, always only minimal – conversion of diazomethane into nitrogen and polymethylene takes place also during quite different reactions; ...] 
  5. "Winnington history in the making"This is Cheshire। ২৩ আগস্ট ২০০৬। ২১ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 


বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]