পদ্মিনী চেট্টুর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পদ্মিনী চেট্টুর
জন্ম১৯৭০
পেশানৃত্যশিল্পী, কোরিওগ্রাফার
কর্মজীবন১৯৮৯-বর্তমান
বর্তমান গোষ্ঠী"পদ্মিনী চেট্টুর নৃত্য সংস্থা"

পদ্মিনী চেট্টুর (জন্ম: ১৯৭০) একজন ভারতীয় সমসাময়িক নৃত্যের শিল্পী। তিনি নৃত্যশিল্পী ও নৃত্য পরিকল্পক চন্দ্রলেখার কাছ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। তিনি ভারতের চেন্নাই ভিত্তিক একটি নিজস্ব নৃত্য সংস্থা "পদ্মিনী চেট্টুর নৃত্য সংস্থা" পরিচালনা করেন।[১][২][৩]

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

পদ্মিনী চেট্টুর ১৯৭০ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন এবং ছোটবেলায় ভারতীয় ধ্রুপদী নৃত্যশৈলীর ভরতনাট্যমে প্রশিক্ষণ শুরু করেছিলেন। তিনি রাজস্থানের পিলানির বিড়লা প্রযুক্তি ও বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট (বিট) থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন ১৯৯১ সালে।[৪]

পেশা[সম্পাদনা]

১৯৮৯ সালে পদ্মিনী তাঁর প্রথম সমসাময়িক নাচের পরীক্ষা উপস্থাপন করেছিলেন।[৫]

১৯৯১ সালে তিনি চন্দ্রলেখা পরিচালিত নৃত্য সংস্থায় যোগদান করেন এবং ২০০১ অবধি তাঁর প্রযোজনা 'লীলাবতী,' 'প্রাণা,' 'অঙ্গিকা,' 'শ্রী,' 'ভিন্ন প্রবাহ,' 'ইয়ান্ত্রা,' মহাকাল' এবং 'শরিরা'তে [৬][৭] বেহালা বাদন করেছিলেন। ইতিমধ্যে, তিনি তাঁর প্রথম একক কাজ 'উইংস অ্যান্ড মাস্কস' (১৯৯৯) উপস্থাপন করেছেন। এর পরে 'ব্রাউন', দ্বৈতভাবে 'আনসাং', একটি দলীয় পরিবেশনা- 'ফ্রেজাইলিটি' (২০০১), এবং তিনটি বিভাগে 'একক পরিবেশনা' (২০০৩) করেছিলেন। তারপরে এসেছিল আরও একটি দলীয় পরিবেশনা 'পেপারডল'। ২০০৬ সালে তাঁর পরিবেশনা, 'পুশড'য়ের প্রিমিয়ার হয়েছিল সিওল পারফর্মিং আর্টস ফেস্টিভাল (এসপিএফ)-এ [৮]। তিনি ব্রাসেলস, হল্যান্ড, সালজবার্গ, প্যারিস এবং লিসবনে [৬] ভ্রমণ করেছিলেন। 'বিউটিফুল থিং -১' এবং 'বিউটিফুল থিং -২' যথাক্রমে একটি গ্রুপ এবং একক কাজ হিসাবে তৈরি হয়েছিল - শরীর এবং স্থানের সৌন্দর্যের রাজনীতি অন্বেষণ করে। এগুলি ভারত এবং বিদেশে ব্যাপকভাবে পরিবেশিত হয়েছিল। এরপর আসে 'ওয়াল ড্যান্সিং',[৯] এটি ছিল এই পথে আরও অধিক অনুসন্ধান নিয়ে একটি দলীয় পরিবেশনা। এটি তাঁর প্রথম অ-পেশাদারিত্বমূলক কাজ যা ভারতে এবং ভিয়েনা থেকে সিঙ্গাপুরে পরিবেশিত হয়েছিল। 'ওয়াল ডান্সিং'-এর সাথে কাজ করার সময় তিনি তাঁর প্রযোজনার অংশ হিসাবে ফরাসি কোরিওগ্রাফার ডেভিড রোল্যান্ডের সহযোগিতায় কোলাম তৈরি করেছিলেন। এটি একটি নৃত্যের অংশ যা কোলাম নকশা করা একটি বিশাল কার্পেটে পরিবেশিত হয়। পদ্মিনী বর্তমানে সমসাময়িক নৃত্যের ওপর বর্ণম নিয়ে কাজ করছেন, যেটি দূরত্বের ধারণা এবং আকাঙ্ক্ষা অন্বেষণের উপর একটি দলীয় কাজ - বর্তমান আর্থ-সাংস্কৃতিক প্রেক্ষাপটের সাথে যা প্রাসঙ্গিক।

তিনি ইংল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস, জার্মানি এবং আরো অনেক জায়গায় বাস করেছেন। তিনি ভারতের চেন্নাইয়ে, বেসমেন্ট-২১ নামে পরিচিত একটি শিল্পী সম্মিলন ভিত্তিক একটি দলের সহ-প্রতিষ্ঠাতা। এর প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে অন্যান্যরা হলেন, নৃত্যশিল্পী-কোরিওগ্রাফার প্রীতি আথেরিয়া, সংগীতশিল্পী-সুরকার মার্টেন ভিসার এবং থিয়েটার-পরিচালক-অভিনেতা প্রভিন কন্নানুর।

কাজগুলি[সম্পাদনা]

  • উইংস এবং মাস্ক (১৯৯৯)
  • ফ্রাজিলিটি (২০০১)
  • সলো (২০০৩)
  • পেপারডল (২০০৫)
  • পুশড (২০০৬)
  • বিউটিফুল থিং-১ (২০০৯)
  • বিউটিফুল থিং-২ (২০১১)
  • ওয়াল ড্যান্সিং (২০১২)
  • কোলাম (ডেভিড রোল্যান্ডের সহযোগিতায়) (২০১৪)
  • বর্ণম (২০১৬)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Swaminathan, Chitra (২২ নভেম্বর ২০০৮)। "Beyond boundaries"The Hindu। ৭ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  2. Venkatraman, Leela (২২ জানুয়ারি ২০১০)। "Is collaboration the new age mantra?"The Hindu। ৩১ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  3. "Celebrating the creative spirit"The Hindu। ২৬ নভেম্বর ২০০১। ১৯ অক্টোবর ২০০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  4. {{cite web|url=http://www.aky.org.in ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০ মার্চ ২০২০ তারিখে
  5. O'Shea, Janet (২০০৭)। At Home in the world: Bharata natyam on the Global stage। Wesleyan University Press। পৃষ্ঠা 17। আইএসবিএন 0-8195-6837-6 
  6. "Beyond boundaries"The Hindu। ২২ নভে ২০০৮। ৮ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ নভেম্বর ২০১০ 
  7. Rajaram, Poorva (২৭ নভেম্বর ২০১০)। "You in the third row, wake up!"Tehelka। ২৯ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ এপ্রিল ২০১৮ 
  8. "Dance Review: Pushed – A unique Indo-Korean dance venture"। Nartaki। ২৭ ডিসেম্বর ২০০৬। 
  9. Swaminathan, Chitra (২০১২-১১-৩০)। "Writing on the wall"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১১-১০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]