নেভিল টাফনেল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নেভিল টাফনেল
নেভিল টাফনেল.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামনেভিল চার্লসলি টাফনেল
জন্ম(১৮৮৭-০৬-১৩)১৩ জুন ১৮৮৭
শিমলা, পাঞ্জাব, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু৩ আগস্ট ১৯৫১(1951-08-03) (বয়স ৬৪)
হোয়াইটচ্যাপেল, লন্ডন, ইংল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
ভূমিকাউইকেট-রক্ষক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ১৬৯)
১১ মার্চ ১৯১০ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯০৮ - ১৯১০কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়
১৯২২সারে
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৭০
রানের সংখ্যা ১৪ ১,৫১৪
ব্যাটিং গড় ১৪.০০ ১৪.২৮
১০০/৫০ ০/০ ১/৪
সর্বোচ্চ রান ১৪ ১০২
বল করেছে ৮৪
উইকেট
বোলিং গড় - ১১৮.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং - ১/৫৪
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/১ ৬২/৪০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৯ জুন ২০২০

নেভিল চার্লসলি টাফনেল (ইংরেজি: Neville Tufnell; জন্ম: ১৩ জুন, ১৮৮৭ - মৃত্যু: ৩ আগস্ট, ১৯৫১) তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের শিমলা এলাকায় জন্মগ্রহণকারী ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯১০-এর দশকের শুরুতে অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ইংল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে সারে ও কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ উইকেট-রক্ষক হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিং করতেন নেভিল টাফনেল

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

এটন কলেজে অধ্যয়ন শেষে কেমব্রিজের ট্রিনিটি কলেজে পড়াশুনো করেন।[১] ১৯০৭ সাল থেকে ১৯২৪ সাল পর্যন্ত নেভিল টাফনেলের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল।

তৎকালীন পাঞ্জাব প্রদেশের শিমলায় জন্মগ্রহণকারী নেভিল টাফনেল কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের (এমসিসি) পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশ নিয়েছেন। ১৯০৬ সাল থেকে ১৯২৪ সাল পর্যন্ত উইকেট-রক্ষক হিসেবে খেলেছিলেন তিনি।

১৯২২ সালে সারের সদস্যরূপে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিপক্ষে একটিমাত্র প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশগ্রহণ করেছিলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন নেভিল টাফনেল। ১১ মার্চ, ১৯১০ তারিখে কেপ টাউনে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল। এরপর আর তাকে কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়নি।

১৯০৬-০৭ মৌসুমে মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের সদস্যরূপে নিউজিল্যান্ড গমনার্থে দলে অন্তর্ভূক্ত হন। এরপূর্বে তিনি মাত্র একটি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়েছেন। এছাড়াও, কেমব্রিজের ছাত্র থাকা অবস্থাতেই ১৯০৯-১০ মৌসুমে কেপ টাউনে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে অংশ নেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৯০৮ সালে কুইন্স রয়্যাল ওয়েস্ট সারে রেজিম্যান্টের প্রথম ভলান্টিয়ার ব্যাটালিয়নে (পরবর্তীতে চতুর্থ ব্যাটালিয়ন) কমিশন্ডপ্রাপ্ত হন। যুক্তরাজ্যের রাজার সিংহাভিষেকে জেন্টলম্যান উশার মনোনীত হন। ১৯৩৯ সালে ন্যাশনাল ডিফেন্স কোম্পানীজের গ্রুপ কমান্ডার হিসেবে লেফট্যানেন্ট-কর্নেল মনোনীত হন। একই বছরের শেষদিকে কিংস রয়্যাল রাইফেল কোরের সদস্য হিসেবে স্থানান্তরিত হন।

নেভিল টাফনেল রাজনীতিতে যুক্ত ছিলেন। ১৯৪৫ সালের সাধারণ নির্বাচনে লিবারেল পার্টির প্রার্থী হিসেবে বার্কশায়ারের উইন্ডসর এলাকা থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। তৃতীয় স্থান দখল করেন ও পরবর্তীতে আর সংসদ নির্বাচনে অংশ নেননি তিনি।[২]

৩ আগস্ট, ১৯৫১ তারিখে ৬৪ বছর বয়সে লন্ডনের হোয়াইটচ্যাপেল এলাকায় নেভিল টাফনেলের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Murland, Jerry (২০১০)। Aristocrats Go to War: Uncovering the Zillebeke Cemetery। Pen and Sword। 
  2. British parliamentary election results 1950-1973, Craig, F.W.S.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]