নেদারল্যান্ডস এন্টিলসের বিলুপ্তি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
নেদারল্যান্ডস এন্টিলসের বিলুপ্তি
তারিখ ১৯৮৬ থেকে ২০১০
অবস্থান নেদারল্যান্ডস এন্টিলস
অংশগ্রহণকারী নেদারল্যান্ডস এন্টিলসের দ্বীপ অঞ্চলের সরকারসমুহ
নেদারল্যান্ডস এন্টিলস সরকার
নেদারল্যান্ডস সরকার
ফলাফল ১৯৮৬ সালে আরুবাকে বিভক্ত করা,
২০১০ সালে সম্পূর্ণ বিলুপ্ত করা
নেদারল্যান্ডস রাজ্যের মানচিত্র। নেদারল্যান্ডস এবং ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জ একই মাপ বরাবর রয়েছে।


নেদারল্যান্ডস এন্টিলস হল নেদারল্যান্ডস রাজ্যের একটি ক্যারিবিয়ান স্বশাসিত রাষ্ট্র, যা ২০১০ সালের ১০ অক্টোবর বিলুপ্ত করা হয়।[১][২]

বিলুপ্তির পর, বিইএস দ্বীপসমুহ (বোনাইর, সিন্ট এউস্তাতিউস এবং সাবা) নেদারল্যান্ডস রাষ্ট্রের সাথে একীভুত করে, নেদারল্যান্ডের বিশেষায়িত পৌরসভা গঠন করা হয়, অপরদিকে কিউরাসাও এবং সিন্ট মার্টেনকে আরুবার মত নেদারল্যান্ডস রাজ্যের অন্তর্গত সাংবিধানিক রাষ্ট্রের মর্যাদা দেওয়া হয়। আরুবাকে ১৯৮৬ সালে নেদারল্যান্ডস এন্টিলস থেকে পৃথক করে সাংবিধানিক রাষ্ট্র করা হয়েছিল।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

সাংবিধানিক পরিবর্তন [সম্পাদনা]

কিউরাসাও এবং সিন্ট মার্টেন[সম্পাদনা]

কিউরাসাও এবং সিন্ট মার্টেন আরুবার মত নেদারল্যান্ডস রাজ্যের দুটি নতুন লান্ডেন (সাংবিধানিক রাষ্ট্র) হয়ে ওঠে। তারা নতুন মুদ্রা ক্যারিবিয়ান গিল্ডারের পরিকল্পনা করে, যা ২০১২ সালে আনার কথা ছিল কিন্তু তা বিলম্বিত হয়।[৩]

বোনাইর, সিন্ট এউস্তাতিউস এবং সাবা[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. Officiële bekendmakingen.nlBesluit van 23 september 2010 tot vaststelling van het tijdstip van inwerkingtreding van de artikelen I en II van de Rijkswet wijziging Statuut in verband met de opheffing van de Nederlandse Antillen Oktober 2010. (ওলন্দাজ ভাষায়) সংগৃহীত ২৫ জুলাই, ২০১৬।
  2. "Netherlands Antilles to cease to exist as a country"। Nrc.nl। ১ অক্টোবর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১০-১০ 
  3. "Antilliaanse gulden wordt aangehouden in 2012"dushi-curacao.info (ওলন্দাজ ভাষায়)। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১১ 

তথ্যসূত্র [সম্পাদনা]

  • Oostindie, Gert and Inge Klinkers (2001) Het Koninkrijk in de Caraïben: een korte geschiedenis van het Nederlandse dekolonisatiebeleid 1940-2000. Amsterdam: Amsterdam University Press.