নীলসাগর এক্সপ্রেস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
নীলসাগর এক্সপ্রেস
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
পরিষেবা ধরনআন্তঃনগর ট্রেন
বর্তমান পরিচালকবাংলাদেশ রেলওয়ে
যাত্রাপথ
শুরুকমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন
শেষচিলাহাটি রেলওয়ে স্টেশন
ভ্রমণ দূরত্ব৫২৬ কিলোমিটার (৩২৭ মাইল)
যাত্রার গড় সময়০৯ ঘণ্টা ৪৫ মিনিট
পরিষেবার হারদৈনিক
রেল নং৭৬৫ / ৭৬৬
যাত্রাপথের সেবা
শ্রেণীএসি, নন-এসি, শোভন,
আসন বিন্যাসহ্যাঁ
ঘুমানোর ব্যবস্থাহ্যাঁ
খাদ্য সুবিধাহ্যাঁ
কারিগরি
গাড়িসম্ভার১২
ট্র্যাক গেজ১,৬৭৬ মিলিমিটার (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি)
পরিচালন গতি১০০ কিমি/ঘণ্টা

নীলসাগর এক্সপ্রেস হল বাংলাদেশ রেলওয়ের পরিষেবার একটি আন্তঃনগর ট্রেন যা রাজধানী ঢাকা এবং উত্তরাঞ্চলের নীলফামারী জেলার সীমান্তবর্তী চিলাহাটি রেলওয়ে স্টেশনের মধ্যে চলাচল করে। এটি প্রথমে নীলফামারী থেকে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট স্টেশনে চলাচল করত, পরে চিলাহাটি ও কমলাপুর পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। এটি বাংলাদেশের দ্রুত ও বিলাসবহুল ট্রেনগুলোর একটি।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনটি ২০০৭ সালে ১ ডিসেম্বর ঢাকা থেকে নীলফামারী রুটে চালু করেন তৎকালীন তত্বাবধায়ক সরকার।[১] ট্রেনটি চিলাহাটি থেকে চালুর করার কথা থাকলেও নীলফামারী-চিলাহাটি পুরাতন রেল পরিকাঠামোর কারণে নীলফামারী থেকে যাত্রা শুরু করে। যার ফলে উত্তরাঞ্চলের মানুষ মানব-বন্ধনসহ বিভিন্ন আন্দোলন শুরু করে।[২] পরবর্তীতে বাংলাদেশ রেলওয়ে ২০১০ সালে সৈয়দপুর থেকে চিলাহাটি রেল পরিকাঠামো উন্নয়নের জন্য একটি প্রকল্প গ্রহণ করে। এ প্রকল্পের আওতায় ২২৬ কোটি টাকা ব্যয়ে চিলাহাটিতে একটি ওয়াশপিটসহ সৈয়দপুর-চিলাহাটি রেললাইনের উন্নয়ন করা হয়। এরপর ২০১৫ সালের ২৮ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের মাধ্যমে ট্রেনটি চিলাহাটি থেকে চলাচল শুরু করে।[১]

রোলিং স্টক[সম্পাদনা]

২০০৭ সাল থেকে এই ট্রেনটি ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি সাদা ব্রডগেজ রেক দ্বারা পরিচালনা করা হয়। ২০১৬ সালে ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি আধুনিক রেক দ্বারা পরিচালনা শুরু হয়। কিন্তু এই রেক পরিবর্তন করে ভারত থেকে আমদানি এলএসবি রেক দ্বারা পরিচালনা শুরু হয়, যা আরামদায়ক না হওয়ায় নীলফামারী জনগণ আবার আন্দোলন করে। তাদের দাবি ছিল ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি আধুনিক রেক পুনরায় নীলসাগরে দেওয়া। অবশেষে ২০২০ সালে শুরুর দিকে বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনের নতুন পিটি ইনকা রেক নীলসাগর কে দিয়ে দেওয়া হয়, ফলে নীলসাগরের ভারতীয় বিলাসবহুল রেক পায় বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেন। বর্তমানে ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি নতুন আধুনিক পিটি ইনকা রেক দ্বারা পরিচালনা করা হয়।

রুট ও বিরতিস্থান[সম্পাদনা]

দুর্ঘটনা[সম্পাদনা]

  • ০৭/১১/২০২০: ভোর চারটার দিকে গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটি রেলওয়ে স্টেশনের নিকটবর্তী সোনাখালী এলাকার একটি রেল ক্রসিং-এ একটি যাত্রীবাহী বাসের সাথে ৭৬৬ ডাউন নীলসাগর এক্সপ্রেসের সংঘর্ষ হয়। এতে বাসের একজন যাত্রীসহ ২ জন মারা যান। আহত তিনজনকে কালিয়াকৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর আরও একজন মারা যান।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]