বিষয়বস্তুতে চলুন

নিকেলোডিয়ন (দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নিকেলোডিয়ন
উদ্বোধন১৬ জুলাই ১৯৯৬; ২৭ বছর আগে (1996-07-16)
নেটওয়ার্কপ্যারামাউন্ট নেটওয়ার্কস ইএমইএএ
মালিকানাপ্যারামাউন্ট নেটওয়ার্কস ইএমইএএ
চিত্রের বিন্যাস১০৮০আই এইচডিটিভি
(এসডিটিভি ফিডের জন্য ৪৮০আই/৫৭৬আই এ ডাউনস্কেল করা)
ভাষাইংরেজি (এশিয়া)
মালয় (মালয়েশিয়া)
ইন্দোনেশীয় (ইন্দোনেশিয়া)
থাই (থাইল্যান্ড)
তাইওয়ানীয় (তাইওয়ান)
ক্যান্টনীয় (হংকং)
প্রচারের স্থানদক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া
ওশেনিয়া
মালদ্বীপ
শ্রীলঙ্কা
প্রধান কার্যালয়সিঙ্গাপুর
প্রতিস্থাপননিকেলোডিয়ন ভারত (শ্রীলঙ্কা এবং মালদ্বীপের কিছু প্রোভাইডারে)
নিকেলোডিয়ন নিউজিল্যান্ড (নিউজিল্যান্ডে)
ভ্রাতৃপ্রতিম
চ্যানেল(সমূহ)
এমটিভি
কমেডি সেন্ট্রাল
নিক জুনিয়র
এমটিভি লাইভ এইচডি
প্যারামাউন্ট চ্যানেল
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট

নিকেলোডিয়ন হচ্ছে একটি প্যারামাউন্ট গ্লোবাল মালিকানাধীন এশীয় শিশুতোষ পে টেলিভিশন চ্যানেল। এটি সিঙ্গাপুর থেকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এবং পাপুয়া নিউগিনির মতো কিছু ওশেনিয়ার এলাকার দর্শকদেরকে লক্ষ্য করে সম্প্রচার করে। চ্যানেলটি ১৯৯৬ সালের ১৬ জুলাইতে সম্প্রচার শুরু করে, এবং মূলত এটির যুক্তরাষ্ট্র প্রতিপক্ষের থেকে অনুষ্ঠান প্রচারিত করে। এটি দক্ষিণ কোরিয়া, নিউজিল্যান্ড, এবং ভারতে পূর্বে উপলব্ধ ছিল, কিন্তু পরে ওই দেশগুলিতে অঞ্চল-নির্দিষ্ট সংস্করণসমূহ এটিকে প্রতিস্থাপন করে।

ইতিহাস

[সম্পাদনা]

১৯৯৬ সালের ১৬ জুলাইতে নিকেলোডিয়ন একটি ২৪-ঘণ্টা ইংরেজি ভাষার টেলিভিশন চ্যানেলের হিসেবে মধ্যপ্রাচ্যের শোটাইম আরাবিয়ায় সম্প্রচার শুরু করে। পরে চ্যানেলটি সেই সালের ৫ নভেম্বরে দূরপ্রাচ্যে বিস্তৃত করে সিঙ্গাপুরভিত্তিক প্যান-আঞ্চলিক ফিডের মাধ্যমে।

১৯৯৮ সালের অক্টোবর মাসে জনপ্রিয় চ্যানেলটি এশিয়ায় নিয়ে আসার জন্য নিকেলোডিয়ন ফিলিপাইন, জাপান, এবং রাশিয়ায় সম্প্রচার শুরু করে। এটির শর্টসের মধ্যে এক ছিল ১৯৯৩ নিক যুক্তরাষ্ট্র শর্টসের উপর ভিত্তি করা রাইট হিয়ার, রাইট নাউ, এবং এটির আইডেন্টগুলো ফ্রন্ট তৈরি করেছে। ২০০৩ সালে এটি নিকস্প্ল্যাট (নিকেলোডিয়নের এশীয় সদর দপ্তর)।

২০০৬ সালের ১১ অক্টোবরে সিঙ্গাপুরভিত্তিক নিকেলোডিয়ন পরিচালনা করার জন্য ভায়াকমের সংস্থা এমটিভি নেটওয়ার্কস একটি নতুন বিভাগের উদ্বোধন করে।[১] নিকেলোডিয়ন সিঙ্গাপুরে সম্প্রচার করা শুরু করে ২০০১ সালে এবং এটির কার্যক্রম পরে পুরো দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এবং পলিনেশিয়ায় বিস্তৃত হয়। নিকেলোডিয়ন ফিলিপাইন, নিকেলোডিয়ন পাকিস্তান, এবং নিকেলোডিয়ন ভারত স্বাধীনভাবে কাজ করা শুরু করে। ২০০৩ সালে তাঁদের ওয়েবসাইট চালু হয়।

২০১০ সালের ১৫ মার্চে এটির যুক্তরাষ্ট্র প্রতিপক্ষের থেকে নতুন লোগো এবং অনুষ্ঠান নেয়। ২০১১ সালের ১১ এপ্রিলে নিকেলোডিয়ন এটির প্রাইম টাইম স্লটে লাইভ-অ্যাকশন অনুষ্ঠান অন্তর্ভুক্ত করে, এবং নিক জুনিয়র ব্লকটিকে প্রসারিত করা হয়। সেই সালের ১ জুলাইতে নিক জুনিয়র ব্লকটিকে অপসারণ করা হয়, এবং ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে নিকটুন্স ব্লকটির উদ্বোধন হয়।

২০১২ সালে নিকেলোডিয়ন যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্যে ব্যবহৃত নতুন গ্রাফিক্স ব্যবহার করা শুরু করে, কিন্তু নির্বাচিত অনুষ্ঠানের প্রোমো এবং আইডেন্টে আবেদন করা হয়। সাবেক নিক এশিয়া গ্রাফিক্স তখনো ব্যবহৃত ছিল।

২০১৪ সালে একটি নতুন ফিড, সাথে একটি নতুন অনুষ্ঠানসূচী, উদ্বোধন করা হয় এই ফিডটিকে ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, এবং ফিলিপাইনের বাদে বাকি এশীয় মহাদেশে প্রতিস্থাপন করার জন্য। এই ফিডটি ইন্দোনেশিয়া এবং মালয়েশিয়ায় প্রচারিত হতে থাকলো।

২০১৭ সালের ১৭ জুলাইতে চ্যানেলটির পরিবর্তন করা হয়, এবং যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক চ্যানেলের গ্রাফিক্স ব্যবহার করা শুরু করে, যেগুলি তৈরি করে আর্জেন্টিনাভিত্তিক সুপেরেস্তুদিও।

উপলব্ধতা

[সম্পাদনা]

মধ্যপ্রাচ্য

[সম্পাদনা]

মধ্যপ্রাচ্যে এবিএস-২, পালাপা সি২, এবং পালাপা ডি স্যাটেলাইটের মাধ্যমে নিকেলোডিয়ন এশিয়া ওই অঞ্চলের দর্শকদের কাছে উপলব্ধ ছিল ২০১০ সাল পর্যন্ত, যখন নিকেলোডিয়ন এশিয়া পালাপা ডির থেকে ছাড়ে।

সিঙ্গাপুর

[সম্পাদনা]

সিঙ্গাপুরে নিকেলোডিয়ন এশিয়া ২০০১ সালের সেপ্টেম্বর থেকে স্টারহাব টিভি এবং সিংটেল টিভিতে সম্প্রচার করে।

ইন্দোনেশিয়া

[সম্পাদনা]

ইন্দোনেশিয়ায় ২০০০ সাল থেকে নিকেলোডিয়ন এশিয়া ইন্দোনেশীয় ভাষায় সম্প্রচার করে। এটি বর্তমানে ফার্স্ট মিডিয়া, এমএনসি ভিশন, ট্রান্সভিশন, ইন্দিহোম ইউসিটিভি, এবং নেক্স প্যারাবোলাতে উপলব্ধ।

মালয়েশিয়া ও ব্রুনাই

[সম্পাদনা]

মালয়েশিয়া এবং ব্রুনাইয়ে ১৯৯৯ সালের ২১ মের থেকে নিকেলোডিয়ন অ্যাস্ট্রো এবং ইউনিফাই টিভির মতো প্রোভাইডারে উপলব্ধ আছে। নিকেলোডিয়ন ইংরেজি, মালয়, এবং ম্যান্ডারিনে সম্প্রচার করে।

থাইল্যান্ড

[সম্পাদনা]

থাইল্যান্ডে থাই ভাষায় ট্রুভিশনস চ্যানেল ৪৫২ তে নিকেলোডিয়ন এশিয়া উপলব্ধ আছে। ২০২০ সালে নিক জুনিয়রের সাথে এটি এআইএস প্লে, টিওটিপটিভি, এবং ৩বিবি গিগা টিভিতে উপলব্ধি করা হয়।

তাইওয়ান

[সম্পাদনা]

তাইওয়ানে নিকেলোডিয়ন এশিয়া তাইওয়ানীয় ম্যান্ডারিনে সম্প্রচার করে।

হংকং ও মাকাও

[সম্পাদনা]

হংকং এবং মাকাওয়ে নিকেলোডিয়ন এশিয়া ক্যান্টনীয়তে সম্প্রচার করে। নিকেলোডিয়ন হংকংয়ে ২০০২ সালের ফেব্রুয়ারিতে সম্প্রচার শুরু করে নাও টিভি, কেবল টিভি, এবং মাকাও কেবল টিভিতে উপলব্ধ।

মালদ্বীপ

[সম্পাদনা]

২০১৮ সালের জুন মাস থেকে মালদ্বীপের মিডিয়ানেটে নিকেলোডিয়ন এশিয়া উপলব্ধি করা আছে।

মিয়ানমার

[সম্পাদনা]

মিয়ানমারে নিকেলোডিয়ন এশিয়া স্কাই নেটে চ্যানেল ১৫, কানাল+ এ চ্যানেল ১১৪, এবং কুকি টিভি ওটিটি প্ল্যাটফর্মে উপলব্ধ।

শ্রীলঙ্কা

[সম্পাদনা]

২০১৮ সালের আগস্টে শ্রীলঙ্কার ডায়লগ টিভিতে নিক ভারতকে প্রতিস্থাপন করে নিক এশিয়া সম্প্রচার করা শুরু করে। কিন্তু নিক ভারত পিইও টিভিতে সম্প্রচার করতে থাকে।

দক্ষিণ কোরিয়া

[সম্পাদনা]

২০০৩ সালে নিকেলোডিয়ন এশিয়া দক্ষিণ কোরিয়ায় সম্প্রচার শুরু করে। এটি কোরীয় সাবটাইটেলের সাথে ইংরেজিতে সম্প্রচার করতো এবং টুনিভার্সকে প্রতিস্থাপন করে স্কাইলাইফের মাধ্যমে উপলব্ধ ছিল। চ্যানেলটি ২০০৬ সালে অপসারণ করা হয়, এবং ২০১৪ সালের পর্যন্ত স্কাইলাইফ নিকেলোডিয়নের দক্ষিণ কোরীয় ফিড বহন করে নি।

এশিয়াজুড়ে ব্র্যান্ড করা আনুষ্ঠানিক ব্লক

[সম্পাদনা]

ভিয়েতনাম

[সম্পাদনা]

২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ভিয়েতনামে একটি নিকেলোডিয়ন ব্র্যান্ড করা ব্লক, নিক অ্যান্ড ইউ, ইউটিভিতে প্রচারিত হয়।

চীনের মূলভূখণ্ড

[সম্পাদনা]

চীনের মূলভূখণ্ডে নিকেলোডিয়ন হাহা নিকের নামের একটি আনুষ্ঠানিক ব্লকের মাধ্যমে দর্শকদের কাছে উপলব্ধি করা হয়। এটি ২০০৫ সালের মের থেকে ২০০৭ সালের অক্টোবরের পর্যন্ত ম্যান্ডারিনে সম্প্রচার করেছিল। বর্তমানে চীনে নিকেলোডিয়ন বিলুপ্ত এবং সিএনটিভির মতো স্থানীয় টেলিভিশন চ্যানেলে নিকেলোডিয়নের অনুষ্ঠান প্রচারিত হয়।

কিডস চয়েস আওয়ার্ডস

[সম্পাদনা]

ইন্দোনেশিয়া

[সম্পাদনা]

এশিয়ায় স্থাপিত প্রথম কিডস চয়েস আওয়ার্ডস ছিল ইন্দোনেশিয়া কিডস চয়েস আওয়ার্ডস। এটি ২০০৮ সাল থেকে জাকার্তায় অনুষ্ঠিত হয়েছিল, এবং বছরের পর বছর ধরে এটি হোস্ট করেছেন তোরা সুদিরো, তাশা কামিলা, রিঙ্গো আগুস রহমান, এবং বিভিন্ন ইন্দোনেশীয় শিল্পী।

ফিলিপাইন

[সম্পাদনা]

ইন্দোনেশিয়ার পরে এশিয়ায় স্থাপিত দ্বিতীয় কিডস চয়েস আওয়ার্ডস ছিল ফিলিপাইন কিডস চয়েস আওয়ার্ডস। ২০০৮ সালে এটির প্রথম অনুষ্ঠিত হয় পাসায়ে আলিউ থিয়েটারে, এবং হোস্ট করেছেন মাইকেল ভি. সহ কিছু বিভিন্ন ফিলিপিনো শিল্পী। অমিত জৈন, এমটিভি নেটওয়ার্কস ভারত, চীন, ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার নির্বাহী সহ-সভাপতি ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বলেন যে "এটি নিকেলোডিয়নের দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় ব্যবসার জন্য একটি মাইলফলক যেহেতু এটি বিশ্বব্যাপী শিশু-কেন্দ্রিক অনুষ্ঠান এবং বৈশিষ্ট্য প্রদানের নিকের প্রতিশ্রুতি প্রদান করবে যা স্থানীয় রুচি ও আকাঙ্ক্ষা প্রতিফলিত করার জন্য অভিযোজিত।"[২] বছর ধরে ফিলিপাইনের কিডস চয়েস আওয়ার্ডস নিষ্ক্রিয় রয়ে গেলো।

অনুষ্ঠানসমূহ

[সম্পাদনা]

ভ্রাতৃপ্রতিম চ্যানেলসমূহ

[সম্পাদনা]

নিক জুনিয়র হচ্ছে একটি প্রাক-প্রাথমিক চ্যানেল যেটি ২০১১ সালের ১ জুলাইতে নিকেলোডিয়নের নিক জুনিয়র ব্লকটিকে প্রতিস্থাপন করে। ২০১১ সালের ১৮ মেতে চ্যানেলটি সিঙ্গাপুরের স্টারহাব টিভি চ্যানেল ৩০৪ এ এবং ইন্দোনেশিয়ায় তেলকমভিশন চ্যানেল ৩০৫ এ উদ্বোধন করা হয়। তারপরে সেই সালে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অন্যান্য এলাকায় চ্যানেলটি বিস্তৃত করে।

লোগোর ইতিহাস

[সম্পাদনা]

আরও দেখুন

[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]

৩. https://web.archive.org/web/20041205101323/http://www.nick.com:80/all_nick/everything_nick/intl_home.jhtml

বহিঃসংযোগ

[সম্পাদনা]