নারায়ণ ঘোষ মিতা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
নারায়ণ ঘোষ মিতা
জন্ম
নারায়ণ ঘোষ মিতা

২২ ডিসেম্বর[১]
জাতীয়তাপাকিস্তানি
বাংলাদেশি
অন্য নামমিতা
জাতিসত্তাবাঙালি
পেশাচলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক, চিত্র্যনাট্যকার
পুরস্কারজাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার

নারায়ণ ঘোষ মিতা ছিলেন একজন বাংলাদেশী চলচ্চিত্র পরিচালক। এছাড়াও তিনি প্রযোজনা করেছেন, চিত্রনাট্য লিখেছেন ও কয়েকটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। তিনি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের প্রথম আয়োজনে শ্রেষ্ঠ প্রযোজক ও পরিচালক বিভাগে পুরস্কার অর্জন করেন।[২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

মিতা ষাটের দশকে চলচ্চিত্রাঙ্গনে প্রবেশ করে। ১৯৬৮ সালে পারিবারিক টানাপোড়নকে কেন্দ্র করে নির্মাণ করেন এতটুকু আশা চলচ্চিত্রটি। পরের বছর নির্মাণ করেন নীল আকাশের নীচে, যেখানে পারিবারিক বন্ধনকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।[৩][৪] তার নির্মিত আলোর মিছিল (১৯৭৪) চলচ্চিত্রে মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী বিশৃঙ্খলা ও অনিয়ম তুলে ধরেন।[৫] ১৯৭৫ সাল থেকে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রদান শুরু হলে তিনি লাঠিয়াল চলচ্চিত্রের জন্য প্রথম শ্রেষ্ঠ প্রযোজক ও পরিচালক বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন।[৬] এছাড়া তার নির্মিত চলচ্চিত্রের মধ্যে অলংকার,[৭] হারানো সুর,[৮] সুখের সংসার উল্লেখযোগ্য।

চলচ্চিত্রের তালিকা[সম্পাদনা]

নারায়ণ ঘোষ মিতা পরিচালিত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রসমূহ

বছর চলচ্চিত্রের শিরোনাম পরিচালক প্রযোজক লেখক টীকা
১৯৬৭ চাওয়া পাওয়া হ্যাঁ না না
১৯৬৮ এতটুকু আশা হ্যাঁ না হ্যাঁ
১৯৬৯ নীল আকাশের নীচে হ্যাঁ না না
১৯৭০ দীপ নেভে নাই হ্যাঁ না না
১৯৭০ ক খ গ ঘ ঙ হ্যাঁ না না
১৯৭২ এরাও মানুষ হ্যাঁ না না
১৯৭৪ আলোর মিছিল হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ সেরা দশ মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্রের একটি[৯]
১৯৭৫ লাঠিয়াল হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ বিজয়ী: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র (প্রযোজক)
বিজয়ী: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ পরিচালক[৬]
১৯৭৮ অলংকার হ্যাঁ না না
মান অভিমান হ্যাঁ না না
১৯৮৭ হারানো সুর হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ
১৯৮৯ সুখের সংসার হ্যাঁ না না

পুরস্কার[সম্পাদনা]

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "আজ ২২ ডিসেম্বর"দৈনিক যুগান্তর। ২২ ডিসেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৬ 
  2. ফজলে এলাহী (৬ অক্টোবর ২০১৫)। "সাদাকালোয় সোনালি দিন"বনিক বার্তা। ২০১৫-১০-১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৬ 
  3. "Festival on films of golden age to begin tomorrow [আগামীকাল থেকে সোনালি যুগের চলচ্চিত্রের উৎসব শুরু]"ডেইলি নিউ এজ। ১৪ মে ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৬ 
  4. "বাংলা ছায়াছবি নীল আকাশের নীচে"। সাতদিন। ৮ অক্টোবর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৬ 
  5. "মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলা চলচ্চিত্র"দৈনিক জনকণ্ঠ। ১৫ ডিসেম্বর ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৬ 
  6. "লাঠিয়াল"দৈনিক সমকাল। ১৩ আগস্ট ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৬ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  7. আরিফ মাহমুদ (২০১৫-০৪-১৫)। "বাংলা চলচ্চিত্রের প্রথিতযশা পরিচালক এবং তাঁদের নান্দনিক কাজ"। বাংলা মুভি ডাটাবেজ। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৬ 
  8. "Subrata passes three decades in film industry [চলচ্চিত্রাঙ্গনে তিন যুগ পার করলেন সুব্রত]"দ্য ডেইলি নিউ ন্যাশন। ২০১৫-০৩-২৮। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৬ 
  9. "Top 10 Best Freedom Fighter Films Bangladeshi [সেরা ১০ বাংলাদেশী মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র]"। বাংলা হেরিটেজ। ১৪ জুলাই ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]