নাগাবলী নদী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(নাগাভালি নদী থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
নাগাভালি
লানগুলয়া
নদী
দেশ ভারত
উত্স লাখবাহাল
দৈর্ঘ্য ২৫৬.৫ কিলোমিটার (১৫৯ মাইল) প্রায়
প্রবাহ for বঙ্গোপসাগর
 - গড় ২৪ /s (৮৪৮ ft³/s)
শ্রীকাকুলামের কাছে নাগাভালি নদী।
শ্রীকাকুলামের কাছে নাগাভালি নদী।

লাগাভালি নদী ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় ওড়িশা এবং উত্তরঞ্চলীয় অন্ধ্রপ্রদেশ-এর একটি প্রধান নদী।[১] নদীটি রাশিকুলিয়া ও গোদাবরী উপত্যকার মাঝে অবস্থিত।

উৎস এবং অববাহিকা[সম্পাদনা]

নাগাভালি নদীর উৎস ওড়িশার কালাহান্ডি জেলার লখন্বরের কাছে পূর্বঘাট পর্বতমালার পূর্বাঞ্চলীয় ঢালে প্রায় ১,৩০০ মিটার (৪,৩০০ ফুট) উচ্চতায় অবস্থিত। নদীটির ভৌগলিক অবস্থান ১৮.১০ ডিগ্রি থেকে ১৯.৪৪ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮২.৫৩ থেকে ৮৪.৫ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। যে নিয়ামগিরি পাহাড় বক্সাইট খনির প্রস্তাব করা হয়েছে, তা নাগাভালি নদীর অববাহিকায় অবস্থিত।[২]

নদীর মোট দৈর্ঘ্য প্রায় ২৫৬ কিলোমিটার (১৫৯ মাইল), যার মধ্যে ১৬১ কিলোমিটার (১০০ মাইল) ওড়িশা রাজ্যের মধ্যে এবং বাকি অংশ অন্ধ্রপ্রদেশে রাজ্যের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত। অববাহিকার মোট আয়তন ৯,৫১০ বর্গ কিলোমিটার (৩,৬৭০ বর্গ মাইল)। নাগাভালি নদীর মোট অববাহিকা এলাকার ৪,৪৬২ বর্গ কিলোমিটার (১,৭২৩ বর্গ মাইল) ওড়িশা এবং ৫,০৪৮ বর্গ কিলোমিটার (১,৯৪৯ বর্গ মাইল) অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যে অবস্থি। এই নদী অববাহিকা বছরে ১০০০ মিলিমিটার (৩৯ ইঞ্চি) গড় বৃষ্টিপাত হয়। নদী উপকূলের উঁচু পাহাড় পর্বতগুলি প্রধানত উপজাতী গোষ্ঠীর মানুষের বাস। এটি ওড়িশার কালাহান্ডি, রায়গাদা ও কোরাপুট জেলার অংশ এবং অন্ধ্রপ্রদেশের ভিজানগরাম জেলার শ্রীকুলম কিছু অংশ নিয়ে গঠিত।

উপনদী[সম্পাদনা]

নাগাভালি নদীর প্রধান উপনদীগুলি হল ঝঞ্জাবতী, বারহা, বালদিয়া, সাতনালা, সীতাগুড়া, শ্রীকোনা, গুমুদ্গদ্দা, ভট্টিগিগা, সুভরণমুখী, ভনগিগা, রাজিড্ডা ও ভেগাটিটি নদী। সুভরণমুখী নদী সালুর মন্ডল- এর পাহাড়ে জন্ম নেয় এবং একটি পূর্ব দিকে প্রবাহিত হয় এবং অবশেষে শ্রীকুলম জেলার ভাঙ্গারা মণ্ডলের সাংম গ্রামে নাগাভালি নদীতে মিলিত হয়। পাচীপেনা মণ্ডলের পাচিপেণ্ট পাহাড়ের থেকে উৎপত্তি হয়েছে বেগবতী নদী।

বেগবতী নদী: পূর্ব উপকূলে পাচিপেন্টা পাহাড়ে বেগবতী নদীর উৎপত্তি। এটি সুভানামুখী নদীর একটি উপনদী, এটি ঘুরে নদী নাগালি একটি উপনদ। সালুর শহর ও পারদী শহর এই নদীর তীরে অবস্থিত। এই শহরে দুটি সেতু রয়েছে নদীর উপর।

শহর ও শহর[সম্পাদনা]

রায়গড়
রায়গাড় হল ওড়িশার রায়গড় জেলার সদর দপ্তর। এই শহরের উপকণ্ঠে নাগাভালি নদী প্রবাহীত হয়েছে।
শ্রীকাকুলাম
শ্রীকাকুলাম শহরটি অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীকাকুলাম জেলার জেলা সদর দফতর। শ্রীকাকুলম শহরের মধ্য দিয়ে নাগাভালি নদী প্রবাহিত হয় এবং শ্রীকাকুলম থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে কেল্লাপল্লী গ্রামে নদীটি সমুদ্রে মিলিত হয়।
হাতিপাথর
রায়গাডের কাছাকাছি অবস্থিত। নাগাভালি নদীপথে দুইটি জলপ্রপাতের সাথে এটি সুন্দর সৌন্দর্যের একটি স্থান। এখানে পাথরগুলি বিশাল আকারের হাতির মতো দেখায়।

সেচ প্রকল্প[সম্পাদনা]

ঝাঞ্জাবতী বাঁধ প্রকল্প ১৮ ° ৫১'৪২ "উত্তর থেকে ৮৩ ° ২৬'০৫" পূর্বে নাগাভালি নদীর একটি উপনদ ঝঞ্জভাতি নদীর উপর ভিজিয়াগরাম জেলার কমারদা মণ্ডলের রাজয়ালাক্ষমীপুর গ্রামে অবস্থিত।[৩] এটি অন্ধ্রপ্রদেশ এবং ভারতের মধ্যে প্রথম এবং এশিয়ার বৃহত্তম একটি রাবার বাঁধ। [৪][৫] বাঁধের ধারন ক্ষমতা ৪ টি.এম.সি. এবং ভিজিয়াগরাম জেলার ২৪,৬৪০ একর (৯,৯৭০ হেক্টর) জমির জল সেচের ব্যবস্থা করে। এটি ১ জানুয়ারী ২০০৬ সালে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা রাজশাহী রেড্ডি দেশবাসীর উদ্দেশ্যে কাছে নিবেদিত ছিল। বাঁধটি অস্ট্রিয়া মডেলের হাইড্রো-কনস্ট্রাক্টের সাথে প্রযুক্তিগত সহযোগিতায় একটি কংক্রিট প্লেটে স্থাপন করা হয়েছিল। বাঁধের আকার বৃদ্ধি বা হ্রাস করা হয় জলের সাহায্য।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Nagavali.CWC
  2. [১]
  3. "Janjavathi Dam D01971"। ২১ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  4. The Hindu on Jhanjavati Project
  5. "First rubber dam in Andhra, tackles dispute over Jhanjavati river with Orissa"। ১ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ এপ্রিল ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]