নলিনীকান্ত গুপ্ত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

নলিনীকান্ত গুপ্ত (জন্ম: ১৩ জানুয়ারি ১৮৮৯ - মৃত্যু: ৭ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৪) একজন ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা সংগ্রামী এবং বিশিষ্ট প্রবন্ধ লেখক ।

নলিনীকান্ত বর্তমান বাংলাদেশের ফরিদপুরের বাসিন্দা ছিলেন । তাঁর পিতার নাম রজনীকান্ত । নলিনীকান্ত পিতার কর্মক্ষেত্র রংপুরের নীলফমারীতে বিদ্যালয়ের শিক্ষা লাভ করেন । ১৯০৪ খ্রিস্টাব্দে কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজে ভর্তি হন ।

বিপ্লবী জীবন[সম্পাদনা]

বিপ্লবী গুপ্ত সমিতির সংস্পর্শে এসে তিনি ১৯০৭ খ্রিস্টাব্দে কলেজ ত্যাগ করে তিনি বারীন্দ্রকুমার ঘোষের মানিকতলা বোমা তৈরির কেন্দ্রে যোগ দেন । ২ মে ১৯০৮ খ্রিস্টাব্দে তিনি আলিপুর বোমা মামলায় গ্রেপ্তার হন । কিন্তু প্রমানাভাবে এক বছর পরে ছাড়া পান ।

বিপ্লব পরবর্তী জীবন[সম্পাদনা]

আলীপুর জেলে থাকার সময়ে তিনি শ্রীঅরবিন্দের সংস্পর্শে আসেন এবং তাঁর আদর্শে অনুপ্রাণিত হন । জেল থেকে মুক্তি পেয়ে তিনি শ্রীঅরবিন্দ পরিচালিত ধর্ম এবং কর্মযোগিন পত্রিকার (ইংরেজি) কার্যালয়ে কাজ করার সময় থেকেই শ্রীঅরবিন্দের শিক্ষা গ্রহণ করেন । ১৯০৯ খ্রিস্টাব্দের নভেম্বর মাসে ধর্ম পত্রিকায় তাঁর প্রথম প্রবন্ধ স্বদেশী দীক্ষা প্রকাশিত হয় । শ্রীঅরবিন্দ পণ্ডিচেরী যাবার পর তিনিও ছয় মাস পরে মণীন্দ্রনাথ রায় ছদ্মনামে পণ্ডিচেরী চলে যান । এখানে তিনি সাহিত্যসাধনা এবং যোগসাধনা শুরু করেন । তিনি গ্রিক, লাতিন এবং ফরাসি ভাষাও শিক্ষা করেন । তিনি ৫২টি বাংলা বই, ৩৮টি ইংরেজি বই এবং ৫টি ফরাসি বই লিখেছিলেন । তাঁর সাত দশকের লেখার বিষয় ছিল সাহিত্য, শিল্প, বিজ্ঞান, ধর্ম, দর্শন, যোগ এবং সমাজনীতি । স্মৃতির পাতা গ্রন্থে তাঁর প্রথম জীবনের কথা, বাংলার বিপ্লব আন্দোলন এবং আশ্রমের প্রথম পর্বের বিষয় বিবৃত করেছেন । তিনি প্রাবন্ধিক হিসাবে বিখ্যাত হয়েছিলেন । তিনি শ্রীঅরবিন্দের সাবিত্রী কাব্যটি বাংলায় অনুবাদ করেছিলেন । ১৯২৬ খ্রিস্টাব্দ থেকে আজীবন পণ্ডিচেরী আশ্রমের সম্পাদক ছিলেন ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান - প্রথম খণ্ড - সাহিত্য সংসদ