নমপেন অলিম্পিক স্টেডিয়াম

স্থানাঙ্ক: ১১°৩৩′৩০.১″ উত্তর ১০৪°৫৪′৪৩.৫″ পূর্ব / ১১.৫৫৮৩৬১° উত্তর ১০৪.৯১২০৮৩° পূর্ব / 11.558361; 104.912083
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অলিম্পিক স্টেডিয়াম
স্টেদ অলিম্পিকে দে নমপেন
ពហុកីឡាដ្ឋានជាតិអូឡាំពិក
পূর্ণ নামঅলিম্পিক স্টেডিয়াম
অবস্থান‌নমপেন, কম্বোডিয়া
ধারণক্ষমতা৫০,০০০[১]
উপরিভাগকৃত্রিম ঘাসের চাপড়া
নির্মাণ
কপর্দকহীন মাঠ১৯৬৩
উদ্বোধন১৯৬৪
স্থপতিভান মলিভান
ভাড়াটে
 কম্বোডিয়া
কম্বোডীয় লীগ

জাতীয় অলিম্পিক স্টেডিয়াম (খ্‌মের: ពហុកីឡាដ្ឋានជាតិអូឡាំពិក) হচ্ছে কম্বোডিয়ার ‌নমপেনে অবস্থিত একটি বহুমুখী স্টেডিয়াম। এই স্টেডিয়ামে বসে ৭০,০০০ জন দর্শক একসাথে খেলা দেখার ক্ষমতা রাখে। এটির নাম অলিম্পিক স্টেডিয়াম হওয়া সত্ত্বেও, স্টেডিয়ামটিতে কখনোই অলিম্পিক গেমস আয়োজন করা হয়নি।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অলিম্পিক স্টেডিয়াম এর টেনিস কোর্ট

১৯৬৩ সালে জাতীয় ক্রীড়া কমপ্লেক্সের দ্বারা এটির নির্মাণকাজ শুরু করা হয় এবং ১৯৬৪ সালে তা সম্পন্ন হয়।[২] ডিজাইনার ভান মলিভান এই মাঠের সুন্দর গঠন আকৃতির জন্য ৫০০,০০০ কিউবিক মিটার পৃথিবী খনন করে স্টেডিয়াম নির্মাণের জন্য ব্যবহার করেছেন।[৩]

১৯৬৩ দক্ষিণপূর্ব এশিয়ান উপদ্বীপ গেমসের আয়োজনে স্টেডিয়াম নির্মাণ করা হতে পারত, কিন্তু কম্বোডিয়ার রাজনৈতিক সমস্যার কারণে গেমস বাতিল করা হয়েছিল। এছাড়াও ১৯৬৬ খ্রিস্টাব্দের ২৫ বা ২৬ শে ডিসেম্বর, কম্বোডিয়ার ‌নমপেনে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য জিএএনএএফও গেমস অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং এর নাম "ফার্স্ট এশীয় গ্যানিফো" নামকরণ করা হয়। স্টেডিয়ামটি দর্শকদের এবং রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠান প্রদর্শন করে দর্শকদের উপস্থিতি বৃদ্ধি করে তুলেছিল এবং এটি কম্বোডিয়ার জাতীয় ক্রীড়া দলগুলোর নিজস্ব মাঠে পরিণত হয়েছিল।[২]

১৯৬৬ ফিফা বিশ্বকাপের একটি ছোট অংশ এই স্টেডিয়ামে খেলা হয়েছিল যখন উত্তর কোরিয়া জাতীয় ফুটবল দল এবং অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ফুটবল দলের মধ্যকার একটি কোয়ালিফাইয়ার ম্যাচে দুটি অবশিষ্ট আসিয়ান / ওশেনিয়া জোনের দল মুখোমুখি হয়েছিল।[৪] উক্ত খেলাটি অন্য এক স্টেডিয়ামে আয়োজন করার কথা ছিল, কিন্তু পরবর্তীতে তা স্থানান্তর করে এই স্টেডিয়ামে নিয়ে আসা হয়; কারণ সে সময় উত্তর কোরিয়ার সাথে বেশিরভাগ দেশগুলোর কূটনৈতিক সম্পর্ক ভালো ছিল না এবং খেলাটি আয়োজন করার কোনো উপযুক্ত স্থান ছিল না এবং সময়সল্পতার জন্য ম্যাচটির উপযুক্ত জায়গা খুঁজে পাওয়া কঠিন ছিল। তখন কিম ইল-সাংয়ের সহকর্মী নরোদম সিহানুক বলেন, এই খেলা প্‌নমপেন অলিম্পিক স্টেডিয়ামে আয়োজন করা যেতে পারে।

উক্ত ম্যাচটি প্রায় ৪০,০০০ থেকে ৬০,০০০ দর্শক আকৃষ্ট করেছিল, যেখানে নরোদম সিহানুক ঘোষণা করেন যে, অর্ধেক দর্শক অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ফুটবল দলের পক্ষে অবস্থান করবে এবং বাকি অর্ধেক উত্তর কোরিয়া জাতীয় ফুটবল দলের পক্ষে অবস্থান করবে। ১৯৬৫ সালের ২১ নভেম্বর এবং ২৪ নভেম্বর ১৯৬৫ সালে উত্তর কোরিয়া উভয় খেলায় (৬–১ ও ৩–১) উভয় দলকে হারিয়ে দিয়েছিল। যেহেতু ফিফার প্রতিবাদে সমস্ত আফ্রিকান দল তাদের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছিল, তাই উত্তর কোরিয়া স্বয়ংক্রিয়ভাবে চূড়ান্ত টুর্নামেন্টে খেলার জন্য যোগ্যতা অর্জন করে। উক্ত প্রতিযোগিতায় উত্তর কোরিয়া কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছিল।[৫][৬]

এই স্টেডিয়ামের ভেতরে সুবিধার জন্য সাঁতার এবং ডাইভিংয়ের জন্য অলিম্পিক-আকার পুল এবং একটি ৮,০০০ ধারণক্ষমতা বিশিষ্ট ইনডোর ভলিবল কোর্ট তৈরি করা হয়েছে, যেটি বর্তমানে অলিম্পিক স্টেডিয়াম ইনডোর এরিনা নামে পরিচিত। ২০১৭ সালের হিসাবে, ডাইভিং বোর্ডগুলি দখলযুক্ত এবং সুইমিং পুলগুলোর কোন অপারেশনে পরিস্রাবণের ব্যবস্থা নেই এবং তাই এটিকে সাঁতার কাটার অযোগ্য বলে ঘোষণা করা হয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Construction begins on Chinese-funded stadium in Cambodia"। ৪ এপ্রিল ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ৬ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  2. Khmer Architecture Tours, retrieved 2007-11-25
  3. Deconstructing Cambodia's modernist heritage ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৩ মার্চ ২০১৬ তারিখে, Asia Times Online; retrieved 2007-11-25
  4. South Korea had been forced to withdraw due to logistical issues after the matches were moved from Japan, and South Africa, who had been moved to the zone, were disqualified after being suspended by FIFA due to apartheid.
  5. The greatest story never told, Ron Gluckman; retrieved 2008-01-15
  6. 1966 Qualifying Competition, Planet World Cup; retrieved 2007-01-15