দ্য ফাস্ট অ্যান্ড দ্য ফিউরিয়াস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দ্য ফাস্ট অ্যান্ড দ্য ফিউরিয়াস
দ্য ফাস্ট অ্যান্ড দ্য ফিউরিয়াস পোস্টার.jpg
থিয়েটারে মুক্তি পাওয়া পোস্টার
পরিচালকরব কোহেন[১]
প্রযোজকনীল এইচ
চিত্রনাট্যকার
  • গ্যারি স্কট থম্পসন
  • এরিক বার্গকুইস্ট
  • ডেভিড আয়ার
কাহিনিকারগ্যারি স্কট থম্পসন
শ্রেষ্ঠাংশে
সুরকারবিটি
চিত্রগ্রাহকএরিকসন কোর
সম্পাদকপিটার হোনেস
প্রযোজনা
কোম্পানি
পরিবেশকইউনিভার্সাল পিকচার্স[২]
মুক্তি
  • ২২ জুন ২০০১ (2001-06-22) (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র)
দৈর্ঘ্য১০৬ মিনিট[৩]
দেশ
  • মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র[১]
  • জার্মানি[১]
ভাষাইংরেজি
নির্মাণব্যয়$৩৮ মিলিয়ন[৪]
আয়$২০৭.৩ মিলিয়ন[৪]

দ্য ফাস্ট অ্যান্ড দ্য ফিউরিয়াস রব কোহেন পরিচালিত ২০০১ সালের আমেরিকান অ্যাকশনধর্মী চলচ্চিত্র। চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য লিখেছেন গ্যারি স্কট থম্পসন এবং ডেভিড আয়ার। এটি ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস চলচ্চিত্র সিরিজের প্রথম চলচ্চিত্র। চলচ্চিত্রটিতে অভিনয় করেছেন পল ওয়াকার, ভিন ডিজেল, মিশেল রড্রিগেজ, জর্ডানা ব্রিউস্টার, রিক ইয়ুন, চাদ লিন্ডবার্গ, জনি স্ট্রং এবং টেড লেভিন। দ্য ফাস্ট অ্যান্ড দ্য ফিউরিয়াস ব্রায়ান ও'কনারকে (ওয়াকার) অনুসরণ করে যিনি একজন গোয়েন্দা পুলিশের সদস্য যারা ডমিনিক টোরেটোর (ডিজেল) নেতৃত্বে একদল অজ্ঞাত পরিচয়ধারী অটোমোবাইল ছিনতাইকারীর পরিচয় আবিষ্কার করার চেষ্টা করছেন।

মূল চিত্রগ্ৰহণ জুলাই ২০০০ সালে লস এঞ্জেলেসে শুরু হয়, বেশিরভাগ চিত্রগ্রহণ লস এঞ্জেলেস এবং দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ার সম্পন্ন হয়। একই বছরের অক্টোবরে চিত্র ধারণ সমাপ্ত হয়।[৫]

দ্যা ফাস্ট এন্ড দ্য ফিউরিয়াস ২২ জুন, ২০০১ তারিখে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মুক্তি পায়। চলচ্চিত্রটি বাণিজ্যিকভাবে সফল একটি চলচ্চিত্র এটি বিশ্বব্যাপী ২০০ মিলিয়ন ডলার আয় করে। এটি মিশ্র প্রতিক্রিয়া পেয়েছে[৬][৭][৮] এটি পরে চলচ্চিত্রের পঞ্চদশ বার্ষিকীর স্মরণে ২২ জুন ২০১৬ সালে পুনরায় মুক্তি দেওয়া হয়।

পটভূমি[সম্পাদনা]

চলচ্চিত্রের শুরুতে একটি নির্জন হাইওয়েতে, একদল ডাকাত দলের সদস্যরা তিনটি পরিবর্তিত কালো পঞ্চম প্রজন্মের হোন্ডা সিভিকস ইলেকট্রনিক পণ্য বহনকারী একটি ট্রাকে হামলা চালিয়ে তার পণ্য চুরি করে এবং রাতে পালিয়ে যায়।

পরের দিন, লস এঞ্জেলেস পুলিশ ডিপার্টমেন্ট (এলএপিডি) এবং এফবিআই টাস্ক ফোর্স এলএপিডি অফিসার ব্রায়ান ও'কনারকে গোপনে পাঠায় ডাকাতদের খুঁজে বের করার জন্য। তিনি টোরেটো মার্কেটে তার তদন্ত শুরু করেন, সাদা, কোন ক্রাস্ট এবং তার মালিক মিয়ার সাথে ফ্লার্ট করার আদেশ দেন। কুখ্যাত রাস্তার রেসার ডমিনিক টোরেটো তখন পিছনের অফিসে বসে একটি সংবাদপত্র পড়ছেন। ডমিনিকের ক্রু, ভিন্স, লিওন, জেসি এবং তার বান্ধবী লেটি আসছে। ভিন্স, যিনি মিয়ার উপর ক্রাশ খেয়েছেন তিনি ডমিনিক হস্তক্ষেপ না করা পর্যন্ত ব্রায়ানের সাথে মারামারি শুরু করেন।

সেই রাতে, ব্রায়ান একটি পরিবর্তিত ১৯৯৫ মিৎসুবিশি নিয়ে একটি রাস্তার রেসের প্রতিযোগিতায় নিয়ে আসে এই আশায় যে সে ডাকাত দলের নেতৃত্ব পাবে। ডমিনিক তার মাজদা আরএক্স-৭ নিয়ে আসে ও ব্রায়ান এবং অন্য দুই ড্রাইভারের মধ্যে একটি ড্র্যাগ রেস শুরু করে। তহবিলের অভাবে, ব্রায়ান তার গাড়ি বাজি রাখতে বাধ্য হয়। ব্রায়ানের গাড়ি বিকল হওয়ার পর ডমিনিক প্রতিযোগিতায় জয়লাভ করে, কিন্তু এলএপিডি তার গাড়ি হস্তান্তর করার আগেই চলে আসে। ব্রায়ান তার গাড়িতে, ডমিনিককে পালাতে সাহায্য করে, কিন্তু তারা ভুলবশত ডমিনিকের পুরনো রেসিং প্রতিদ্বন্দ্বী, গ্যাং লিডার জনি ট্রান এবং তার চাচাতো ভাই ল্যান্স নগুয়েনের এলাকায় প্রবেশ করে, যে ব্রায়ানের গাড়ি ধ্বংস করে। পরে, ডমিনিক পুনরাবৃত্তি করেন যে ব্রায়ান এখনো তার কাছে "১০ সেকেন্ডের গাড়ি" ঋণী। এরপর তারা দুজন একসাথে ডমিনিকের বাড়িতে ফিরে যায়, যেখানে ভিন্সের সাথে ব্রায়ানের ঝগড়া হয়।

ব্রায়ান একটি ক্ষতিগ্রস্ত ১৯৯৪ টয়োটা সুপার গাড়ির উন্নয়ন করার ডমিনিকের গ্যারেজে নিয়ে আসেন। ডমিনিক এবং তার ক্রুরা গাড়িটি পুনরুদ্ধারের দীর্ঘ প্রক্রিয়া শুরু করে এবং এইসযয় ব্রায়ান মিয়ার সাথে ডেটিং শুরু করে। তিনি ট্রানের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেন, নিশ্চিত হন যে সে ই ট্রাক অপহরণের মাস্টারমাইন্ড। রাতে গ্যারেজে তদন্ত করার সময় ব্রায়ান কে ডমিনিক ও ভিন্স আবিষ্কার করে এবং তারা এই ঘটনার একটি ব্যাখ্যা দাবি করে। ব্রায়ান তাদের বোঝান যে তিনি আসন্ন মরুভূমির রেসের জন্য তিনি তার বিরোধীদের গাড়ি নিয়ে গবেষণা করছেন। এরপর তিনজন একসাথে ট্রানের গ্যারেজে তদন্ত করে, বিপুল পরিমাণ ইলেকট্রনিক পণ্য আবিষ্কার করে।

ব্রায়ান তার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে এই আবিষ্কারের কথা জানান যার ফলে ট্রান এবং ল্যান্সকে গ্রেফতার করা হয়। তবে যখন ইলেকট্রনিক্স পণ্যগুলো আইনগতভাবে কেনা হয়েছে বলে প্রমাণিত হয় তখন এই অভিযান ব্যর্থ হয়। ব্রায়ান তার সন্দেহের মুখোমুখি হতে বাধ্য হয় যে ডমিনিক এই ঘটনার আসল মাস্টারমাইন্ড। ব্রায়ানকে ৩৬ ঘণ্টা সময় দেয়া হয় যাকাত দলের সদস্যদের খুঁজে বের করার জন্য, কারণ ট্রাকগুলো এখন অপহরণের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য নিজেদের হাতে তারা অস্ত্র তুলে নিচ্ছে। পরের দিন ডমিনিক এবং ব্রায়ান রেস ওয়ার্সে অংশগ্রহণ করে। সেখানে জেসি তার বাবার এমকে৩ ভক্সওয়াগেন জেট্টা তার হোন্ডা এস২০ এ ট্রানের বিরুদ্ধে বাজি ধরে, কিন্তু সে হেরে যাওয়ার পর গাড়ি নিয়ে পালিয়ে যায়। ট্রান ডমিনিকের গাড়ি পুনরুদ্ধারের দাবি জানায় এবং তাকে পুলিশের কাছে রিপোর্ট করার জন্য অভিযুক্ত করে। ক্ষুব্ধ হয়ে ডমিনিক ট্রানকে মারধর করে।

সেই রাতে ব্রায়ান ডমিনিক ও তার ক্রুদের চলে যেতে দেখে এবং বুঝতে পারে যে তারাই অপহরণকারী। সে মিয়ার কাছে তার আসল পরিচয় প্রকাশ করে এবং তাকে ক্রুদের খুঁজে পেতে সাহায্য করতে রাজি করায়। ডমিনিক, লেটি, ভিন্স এবং লিওন একটি আধা-ট্রেলার ট্রাক আক্রমণ করে। সশস্ত্র ড্রাইভার ভিন্সকে গুলি করে এবং লেটি এইসময় রাস্তা থেকে পালিয়ে যায়। ব্রায়ান মিয়াকে নিয়ে এসে ভিন্সকে উদ্ধার করে। ভিন্সকে বাঁচাতে জরুরী চিকিৎসা সেবায় কল করার জন্য তাকে তার পরিচয় প্রকাশ করতে বাধ্য করা হয়। ডমিনিক, মিয়া এবং বাকি ক্রুরা কর্তৃপক্ষ আসার আগেই চলে যায়।

কিছুদিন পরে, ব্রায়ান ডমিনিকের বাড়িতে আসে যখন সে তার বাবার ১৯৭০ সালের ডজ চার্জার আর/টি গ্যারেজ থেকে বের করে আনতে চায়। যেহেতু সে রেসে যাচ্ছে না কিন্তু এইসময় জেসিকে উদ্ধার করা এবং তার দেখাশোনা করার আর কেউ নেই। এইসময় জেসি ডমের বাড়িতে এসে তার সুরক্ষার জন্য অনুরোধ করে। ট্রান এবং ল্যান্স মোটরবাইকে চড়ে জেসিকে গুলি করে। ব্রায়ান এবং ডমিনিক তাদের পৃথক গাড়িতে ধাওয়া করে এরপর ট্রানকে খুঁজে বের করে ও হত্যা করে এইসময় ল্যান্সকে আহত হয়। ব্রায়ান তারপর ডমিনিক অনুসরণ করে, তাদের উভয় অবশেষে একটি চতুর্থাংশ মাইল ড্র্যাগ রেসে অংশ নেয়। এই জুটি একটি ট্রেন পাশ করার আগে একটি রেলপথ অতিক্রম করে যার ফলে একটি ড্রয়ের মাধ্যমে প্রতিযোগিতায় শেষ হয়, কিন্তু ডমিনিক তার গাড়ি একটি ট্রাকে ধাক্কা মারায় সেটি ধ্বংস হয়ে যায়। তাকে গ্রেফতার করার পরিবর্তে, ব্রায়ান তার নিজের গাড়ির চাবি ডমিনিককে দেয় এবং সে দাবি করে যে সে এখনো তাদের প্রথম রেস থেকে ১০ সেকেন্ডের জন্য ঋণী। ডমিনিক সুপারে পালিয়ে যাওয়ার পর ব্রায়ান চলে যায়।

পরবর্তী দৃশ্যে ডমিনিককে মেক্সিকোর রাস্তা দিয়ে ১৯৭০ সালের ডজ চার্জার গাড়ি চালাতে দেখা যায়।

অভিনয়ে[সম্পাদনা]

  • ব্রায়ান ও'কনার হিসাবে পল ওয়াকার: ছিনতাইকারী দলের সদস্য হিসাবে অনুপ্রবেশের করা একজন এলএপিডি অফিসার ও মিয়া টরেটোর প্রেমিক।
  • ডোমিনিক টরেটো হিসাবে ভিন ডিজেল: ডাকাত দলের নেতা এবং পেশাদার স্ট্রিট রেসার। যে ব্যক্তি ঘটনাক্রমে ডোমিনিকের বাবাকে হত্যা করেছিল তার উপর সহিংস প্রতিশোধমূলক হামলার পরে তাকে পেশাদার রেসিং থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল।
  • লেটি অরটিজ চরিত্রে মিশেল রদ্রিগেজ: ডোমিনিকের দলের সদস্য এবং তার বান্ধবী।
  • মিয়া টরেটো চরিত্রে জর্দানা ব্রিউস্টার: ডোমিনিকের বোন এবং টোরেটো জেনারেল স্টোরের মালিক। ব্রায়ানের প্রেমিকা।
  • জনি ট্রান চরিত্রে রিক ইউন: একজন ভিয়েতনামী গ্যাং লিডার এবং ডোমিনিকের প্রতিদ্বন্দ্বী।
  • জেসির চরিত্রে চাদ লিন্ডবার্গ: ডমিনিকের দলের সদস্য। গণিত, বীজগণিত এবং কম্পিউটিংয়ের সাথে অত্যন্ত বুদ্ধিমান, তবে তিনি মনোযোগ ঘাটতি ব্যাধিতে ভুগছেন।
  • লিওনের চরিত্রে জনি স্ট্রং: ডমিনিকের দলের সদস্য।
  • ভিন্স চরিত্রে ম্যাট শুলজে: ডমিনিকের দলের সদস্য এবং তার শৈশবের বন্ধু। সে মিয়াকে ভালবাসে।

নির্মাণ[সম্পাদনা]

চলচ্চিত্রটি লস এঞ্জেলেস এবং দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ার বিভিন্ন স্থানে জুলাই থেকে অক্টোবর ২০০০ পর্যন্ত চিত্রগ্ৰহণ করা হয়। গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোর মধ্যে ছিল ডোজার স্টেডিয়াম (উদ্বোধনী দৃশ্যে যেখানে ব্রায়ান পার্কিং লটে তার গাড়ি পরীক্ষা করে), অ্যাঞ্জেলিনো হাইটস, সিলভার লেক এবং ইকো পার্ক (টরেটো'র বাড়ির আশেপাশের এলাকা), সেই সাথে লিটল সায়গন (যেখানে ট্রান গাড়ি ধ্বংস করে) এবং সান বার্নার্দিনো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। ডায়মন্ড ভ্যালি লেকের কাছে সান জ্যাকিতো উপত্যকায় সান জ্যাকিতো/হেমেটের দক্ষিণ পার্শ্বে ডোমেনিগোনি পার্কওয়ে বরাবর শেষের রিগ ডাকাতির দৃশ্যটি ধারণ করা হয়েছে।[৯]

গান[সম্পাদনা]

চলচ্চিত্রের স্কোর সঙ্গীত প্রযোজনা সংস্থা বিটি দ্বারা রচিত। এটিতে হিপ-হপ এবং শিল্প প্রভাবের সঙ্গে ইলেকট্রনিকা মিশ্রণ রয়েছে। চলচ্চিত্রের জন্য দুটি সাউন্ডট্র্যাক মুক্তি পায়। প্রথমটিতে বেশিরভাগ হিপ-হপ এবং র্যাপ সঙ্গীত রয়েছে। দ্বিতীয়টি মোর ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস শিরোনামে বিকল্প ধাতু, পোস্ট-গ্রাঞ্জ এবং নু মেটাল গান বৈশিষ্ট্যযুক্ত পাশাপাশি বিটি স্কোরও রয়েছে।

মুক্তি[সম্পাদনা]

দ্য ফাস্ট অ্যান্ড দ্য ফিউরিয়াস জুন ২২, ২০০১ সালে উত্তর আমেরিকায় মুক্তি পায়।[৩]

চলচ্চিত্রটির ডিভিডি সংস্করণ ২ জানুয়ারি, ২০০২ তারিখে মুক্তি পায়।[১০] এপ্রিল ২০০২ এর মধ্যে প্রায় ৫.৫ মিলিয়ন ডিভিডি ইউনিট বিক্রি হয়।[১১]

প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

রোটেন টমাটোসে চলচ্চিত্রটি ১৪৯ জন সমালোচকের পর্যালোচনা থেকে ৫.৩৭/১০ গড় রেটিং এবং ৫৩% ইতিবাচক স্কোর পেয়েছে। সমালোচনামূলক ঐকমত্যে লেখা রয়েছে: "চলচ্চিত্রটি সাবলীল এবং সুন্দর, দ্যা ফাস্ট অ্যান্ড দ্যা ফিউরিয়াস ১৯৫০-এর দশকের সেই সব কিশোরদের শোষণের কথা স্মরণ করে"।[১২] মেটাক্রিটিক-এ, চলচ্চিত্রটি ২৯ জন সমালোচকের পর্যালোচনার উপর ভিত্তি করে ১০০ এর মধ্যে ৫৮ স্কোর পেয়েছে যা "মিশ্র বা গড় পর্যালোচনা" নির্দেশ করে।[১৩] সিনেমাস্কোর দ্বারা এক দর্শক জরিপে দর্শকরা চলচ্চিত্রটিকে A থেকে F স্কেলে একটি গড়ে B+ গ্ৰেড প্রদান করেছেন।[১৪]

বক্স অফিস[সম্পাদনা]

উদ্বোধনী সপ্তাহান্তে ৪০,০৮৯,০১৫ ডলার আয় করে এটি বক্স অফিসের শীর্ষে ছিল। এটি সর্বমোট ২,৮৮৯টি থিয়েটারে একসাথে মুক্তি পেয়েছিল। এই চলচ্চিত্রটি ৩৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বাজেটে নিয়ে উত্তর আমেরিকায় ১৪৪,৫৩৩,৯২৫ মার্কিন ডলার ও আন্তর্জাতিকভাবে ৬২,৭৫০,০০০ মার্কিন ডলার সড় বিশ্বব্যাপী মোট ২০৭,২৮৩,৯২৫ মার্কিন ডলার আয় করেছে।[৩]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Furious"British Film Institute। London। ফেব্রুয়ারি ৮, ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১২ 
  2. "The Fast and the Furious"AFI Catalog of Feature Films। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-০৪ 
  3. "The Fast and the Furious"Box Office Mojo 
  4. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; boxofficemojo নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  5. Elvis Mitchell (২০০১-০৬-২২)। "Getaway Drivers, Take Note: This One's Made for You"The New York Times 
  6. Pendleton, Reece। "The Fast and the Furious"Chicago Reader। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৭ 
  7. McCarthy, Todd (জুন ২১, ২০০১)। "The Fast and the Furious"Variety 
  8. "CNN.com - Review: 'Fast and Furious' runs on empty - June 22, 2001"edition.cnn.com 
  9. "Fast and the Furious, The : Production Notes"www.cinema.com। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৭ 
  10. "DVD Sales are Fast and Furious"hive4media.com। জানুয়ারি ৮, ২০০২। জানুয়ারি ২২, ২০০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯ 
  11. Wagner, Holly (এপ্রিল ২৪, ২০০২)। "Universal Burns Rubber With 'The Fast and the Furious'"hive4media.com। এপ্রিল ২৬, ২০০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯ 
  12. "The Fast and the Furious"Rotten TomatoesFandango Media 
  13. "The Fast and the Furious" – www.metacritic.com-এর মাধ্যমে। 
  14. FAST AND THE FURIOUS, THE (2001) CinemaScore

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]