দ্য গ্রেট আর্টিস্ট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
দ্য গ্রেট আর্টিস্ট
দ্য গ্রেট আর্টিস্ট-এর মতো রং করা একটি বি-২৯ যা হোয়াইটম্যান বিমান ঘাটিতে সংরক্ষিত রয়েছে
ভূমিকা বোয়িং বি-২৯এ-৪০-এমও সুপারফোর্ট্রেস বোমারু/পরিদর্শন বিমান
নির্মাতা গ্লেন লুথার মার্টিন কম্পানি, ওমাহা,নেব্রাস্কা
প্রবর্তন ২০ এপ্রিল ১৯৪৫
অবসর ৩ সেপ্টেম্বর ১৯৪৮
অবস্থা গুস বে বিমান ঘাঁটি থেকে উড্ডয়নের সময় দুর্ঘটনায় পতিত হয় এবং পরে ভেঙে ফেলা হয়
দ্যা গ্রেট আর্টিস্টের নাকে আঁকা চিত্রকর্ম

দ্য গ্রেট আর্টিস্ট ছিল যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর অন্তর্গত বিমান বাহিনীর ৫০৯তম কম্পোজিট গ্রুপের ৩৯৩ বম্বার স্কোয়াড্রনের একটি বি-২৯ বোমারু বিমান। এই বিমানটি এর কর্মজীবনে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে জাপান অধিকৃত প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জে বোমা বর্ষণের কাজে নিয়োজিত ছিল। কিন্তু এই বিমানটি অন্যান্য বোমারু বিমানের চেয়ে বিখ্যাত হওয়ার কারণ যেসময় হিরোশিমা ও নাগাসাকিতে পারমাণবিক বোমাবর্ষণ করা হয় তখন এটি হিরোশিমা ও নাগাসাকি উভয় স্থানেই উপস্থিত ছিল এবং এটিই একমাত্র বিমান যা দুটি পারমাণবিক বোমা হামলার সময় সেখানে ছিল।

জাপানের আত্মসমর্পণের মাধ্যমে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হলে এই বিমানটিকে আমেরিকায় নিয়ে যাওয়া হয় এবং সেখানে ১৯৪৮ সালের সেপ্টেম্বরে গুস বে বিমান ঘাঁটি থেকে উড্ডয়নের সময় দুর্ঘটনার কবলে পড়লে এটির ব্যাপক ক্ষতি সাধন হয়। দুর্ঘটনার ফলে মেরামতের অযোগ্য হয়ে পড়ায় পরবর্তীতে একে ভেঙে ফেলা হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

দ্য গ্রেট আর্টিস্টকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে গ্লেন লুথার মার্টিন কোম্পানির নেব্রাস্কার ওমাহায় অবস্থিত ফ্যাক্টিরতে তৈরী করা হয় এবং ১৯৪৫ সালের ২০ এপ্রিল অফিসিয়ালি বিমান বাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত হয়। পরবর্তীতে ১৯৪৫ সালের ২২ জুন এটিকে তিনিয়ানের নর্থ ফিল্ড বিমান ঘাঁটিতে নিয়োজিত করা হয়[১] এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষ হওয়া পর্যন্ত এটি সেখানেই কর্মরত ছিল।

কর্মজীবনের শুরু থেকেই এটি ৫০৯তম কম্পোজিট গ্রুপের অংশ ছিল এবং এটির পরিচিতি নম্বর ছিল 'ভিক্টর-৯' কিন্তু পরবর্তীতে ১ আগষ্ট তারিখে নিরাপত্তাজনিত কারণে এতে ৬ষ্ট বম্বার্ডমেন্ট গ্রুপের মার্কিং লাগানো হয় এবং এর পরিচিতি নম্বর পাল্টিয়ে 'ভিক্টর-৮৯' করা হয়। এই বিমানটির পরিচিতি নম্বর 'ভিক্টর-৮৯' হলেও এটি দ্য গ্রেট আর্টিস্ট নামেই বেশি পরিচিত এবং পরবর্তীতে এটিকে অফিশিয়ালি এই নামটিই দেয়া হয়। এই বিমানটি তার এই দ্যা আর্টিস্ট নামটি পায় এর বম্বারডিয়ার ক্যাপ্টেন কারমিট বিহানের বোমাবর্ষণের ক্ষেত্রে দক্ষতার কারণে[২]

এই বিমানটি হিরোশিমা ও নাগাসাকি উভয় স্থানে বোমা নিক্ষেপের সময় থাকলেও দুই মিশনে এর কাজ ভিন্ন হওয়ার কথা ছিল। হিরোশিমা মিশনে এর কাজ ছিল নিক্ষিপ্ত পারমাণবিক বোমার ধ্বংস ক্ষমতা পর্যবেক্ষণ ও পরিমাপ করা এবং পরবর্তীতে ককুরা-শি মিশনে (প্রথমে নাগাসাকির বদলে ককুরা-শি শহরে বোমা হামলা করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল) বোমা বহন করে ককুরা-শি শহরের ওপর ফেলা। এটির যেহেতু ককুরা-শি শহরে বোমা নিক্ষেপ করার কথা ছিল সেজন্য এটি ১২টি ট্রেনিং মিশনেও অংশ নিয়েছিল। ট্রেনিংএর অংশ হিসেবে এটি ৪,১২ ও ১৪ জুলাই রোটা, ৮ জুলাই চু-উক লেগুন, ৯ জুলাই মিনামিতোরিশিমায়, ১৮ ও ১৯ জুলাই গুয়ানা, ২৪ জুলাই কোবেশি শহর ও ২৯ জুলাই কোরিয়ামা-শি শহরে ফ্যাট ম্যান বোমার মতো দেখতে পামকিন বোমা নামে পরিচিত বোমা বর্ষণ করে[৩]

নাগাসাকিতে হামলার সময় দ্য গ্রেট আর্টিস্টের পরিবর্তে এই বকস্কার বিমানটি ফ্যাট ম্যানকে বহন করে নিয়ে গিয়েছিল

৬ই আগষ্ট ১৯৪৫ সালে অর্থাৎ যেদিন হিরোশিমায় প্রথম পারমাণবিক বোমা ফেলা করা হয় সেদিনের মিশনে এর কমান্ডার ছিল চার্লস ডাব্লিউ সুইনি এবং পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী এটি এর দায়িত্ব পালন করে[১]। কিন্তু ককুরা-শি মিশনে এটি পরিকল্পনা অনুযায়ী বোমা নিক্ষেপ করতে পারেনি কারণ খারাপ আবহাওয়ার জন্যে ১১ই আগষ্ট ককুরা-শি তে বোমা না ফেলার এবং তার পরিবর্তে দুই দিন আগেই নাগাসাকিতে বোমা হামলা করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সেসময় দ্য গ্রেট আর্টিস্টে পর্যবেক্ষণের জন্য লাগানো উপকরণগুলো বিদ্যমান থাকায় তাড়াতাড়ি বোমা হামলা করার স্বার্থে দ্য গ্রেট আর্টিস্টের বদলে বকস্কারকে বোমা ফেলার জন্য এবং দ্য গ্রেট আর্টিস্টকে পুনঃরায় পর্যবেক্ষণের জন্য ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ফলে ৯ আগষ্ট ক্যাপ্টেন ফ্রেডরিখ সি. ব্লকের নেতৃত্বে এটি নাগাসাকি মিশনে পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব পালন করে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হলে নভেম্বরে এটিকে আবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউ মেক্সিকোতে অবস্থিত রসওয়েল আর্মি বিমান ঘাঁটিতে ফিরিয়ে আনা হয়। পরবর্তীতে ১৯৪৮ সালের ৩ সেপ্টেম্বর একটি প্রশিক্ষণ মিশনের জন্য গুস বে বিমান ঘাঁটি থেকে উড্ডয়নের সময় এর ইঞ্জিনে সমস্যা দেখা দিলে এটি ক্র‍্যাশ ল্যান্ডিং করতে বাধ্য হয়। এসময় বিমানটি প্রায় ধ্বংস হয়ে যাওয়ায় এটিকে আর মেরামত না করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয় এবং ১৯৪৯ সালে একে একেবারে ভেঙে ফেলা হয়[৪][১]

প্রদর্শনী[সম্পাদনা]

বর্তমানে ৫০৯তম অপারেটিং গ্রুপের সদরদপ্তর হোয়াইটম্যান বিমান ঘাঁটিতে একটি বি-২৯ কে দ্যা গ্রেট আর্টিস্টের মতো রংকরে দর্শনার্থীদের জন্য রাখা হয়েছে।

হিরোশিমা মিশনে এর পরিচালক দল[সম্পাদনা]

সি-১৫ দলের সদস্যবৃন্দ

সি-১৫ পরিচালক দল (সাধারণত এরাই সবসময় দ্যা গ্রেট আর্টিস্ট পরিচালনা করত):[৫]

  • মেজর চার্লস ডাব্লিউ সুইনি (কমান্ডার)
  • ফার্স্ট লেফটেনেন্ট চার্লস ডি আলব্রি (পাইলট)
  • সেকেন্ড লেফটেনেন্ট ফ্রেড অলিভি (সহকারী পাইলট)
  • ক্যাপ্টেন জেমস ভ্যান পেল্ট (ন্যাভিগেটর)
  • ক্যাপ্টেন কারমিট কে বিহান (বম্বারডিয়ার)
  • কর্পোরাল এইব স্পিটজার (রেডিও অপারেটর)
  • মাষ্টার সার্জেন্ট জন ডি কুহারেক (ফ্লাইট ইঞ্জিনিয়ার)
  • স্টাফ সার্জেন্ট রে গ্যালেগার (গানার ও সহকারী ফ্লাইট ইঞ্জিনিয়ার)
  • স্টাফ সার্জেন্ট এডওয়ার্ড বাকলি (রাডার অপারেটর)
  • সার্জেন্ট অ্যালবার্ট ডিহার্ট (টেইল গানার)

হিরোশিমা মিশনে প্রজেক্ট অ্যালবার্টার পরিদর্শক দলের সদস্যবৃন্দ[৬]:

  • লুইস ওয়াল্টার আলভারেয
  • হোরান্ড অ্যাগনিউ
  • লরেন্স এইচ জনস্টন

নাগাসাকি মিশনে এর পরিচালক দল[সম্পাদনা]

সি-১৩ পরিচালক দল (এরা সাধারণত বকস্কার পরিচালনা করত):[৭]

  • ক্যাপ্টেন ফ্রেডরিখ সি. ব্লক (কমান্ডার)
  • লেফটেনেন্ট হিউ সি ফার্গুসন (কো-পাইলট)
  • লেফটেনেন্ট লিওনার্ড এ গডফ্রে (ন্যাভিগেটর)
  • লেফটেনেন্ট চার্লস লেভি (বম্বারডিয়ার)
  • মাষ্টার সার্জেন্ট রডরিক এফ আর্নল্ড (ফ্লাইট ইঞ্জিনিয়ার)
  • সার্জেন্ট রাল্ফ ডি বেলাঞ্জার (সহকারী ফ্লাইট ইঞ্জিনিয়ার)
  • সার্জেন্ট রাল্ফ ডি কারি (রেডিও অপারেটর)
  • সার্জেন্ট উইলিয়াম সি বার্নি (রাডার অপারেটর)
  • সার্জেন্ট রবার্ট জে স্টক (টেইল গানার)

নাগাসাকি মিশনে পরিদর্শক দলের সদস্যবৃন্দ:[৮][৯]

  • স্টাফ সার্জেন্ট ওয়াল্টার গুডম্যান (প্রজেক্ট অ্যালবার্টা)
  • লরেন্স এইচ জনস্টন (প্রজেক্ট অ্যালবার্টা)
  • টেকনিক্যাল সার্জেন্ট জেসি কাফারবার্গ (প্রজেক্ট অ্যালবার্টা)
  • উইলিয়াম এল লরেন্স, (নিউ ইয়র্ক টাইমসের পক্ষথেকে একজন সংবাদদাতা)

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. Campbell 2005, পৃ. 184-185।
  2. Sweeney, Antonucci এবং Antonucci 1997, পৃ. 111।
  3. Campbell 2005, পৃ. 28, 184-185।
  4. Campbell 2005, পৃ. 50-51।
  5. Campbell 2005, পৃ. 141-142।
  6. Campbell 2005, পৃ. 157-158।
  7. Campbell 2005, পৃ. 138-139।
  8. Laurence, William L.। "Eyewitness Account of Atomic Bomb Over Nagasaki"। ডিজিটাল জাতীয় বিজ্ঞান লাইব্রেরী। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০১৩ 
  9. "509th - The Los Alamos Scientific Team to Tinian - Project Alberta"ম্যানহ্যাটেন প্রজেক্টের ঐতিহ্য সংরক্ষণকারী সংস্থা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০১৪ 

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • "Eyewitness account of atomic bombing over Nagasaki, by William Laurence, New York Times"। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০১৩ 
  • "Abe Spitzer Gallery"। Manhattan Project Heritage Preservation Association। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০১৩  Sergeant Spitzer was radio operator for crew C-15 and maintained a detailed diary of his recollections of missions flown from Tinian, including both atomic missions. This collection is of photostats of the original pages.