দেবাশীষ বিশ্বাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দেবাশীষ বিশ্বাস
জন্ম (1977-01-27) ২৭ জানুয়ারি ১৯৭৭ (বয়স ৪৪)[১] ঢাকা
পেশাপরিচালক
কর্মজীবন২০০১–বর্তমান
পিতা-মাতা
  • গায়িত্রী বিশ্বাস (মাতা) দিলিপ বিশ্বাস (পিতা)

দেবাশীষ বিশ্বাস (জন্ম ২৭ জানুয়ারি ১৯৭৭)[১] বাংলাদেশের একজন জনপ্রিয় চলচ্চিত্র পরিচালক। তিনি বাংলাদেশের খ্যতিমান চলচ্চিত্র নির্মাতা দিলীপ বিশ্বাসের ছেলে। দেবাশীষ বিশ্বাস ২০০১ সালে ‘শ্বশুরবাড়ী জিন্দাবাদ’ চলচ্চিত্র নির্মাণের মধ্য দিয়ে পরিচালক হিসেবে অভিষেক হয়। এরপর নির্মাণ করেছেন ‘শুভ বিবাহ’ ও ‘ভালোবাসা জিন্দাবাদ’। এছাড়াও উপস্থাপক হিসেবে তার ব্যাপক খ্যাতি রয়েছে। ‘পথের প্যাঁচালি’ ও‘ক্লোজআপ ওয়ান তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’ উপস্থাপনার মধ্য দিয়ে উপস্থাপক হিসেবে খ্যাতি পান। তার নিজস্ব প্রযোজনা সংস্থার নাম ‘গীতি চিত্রকথা’।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

আড়াই বছর প্রেম করার পর চলচ্চিত্র পরিচালক ও উপস্থাপক দেবাশীষ বিশ্বাস এবং নাট্যাভিনেত্রী তানিয়া হোসেন বিয়ে করেছিলেন ২০১০ সালের ২৯ এপ্রিল। পুরান ঢাকার একটি সরকারি রেজিস্ট্রার অফিসে উভয়ে তাদের স্ব-স্ব ধর্মানুযায়ী বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। এর দুদিন পর গুলশানের একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টে তাদের বিবাহোত্তর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। কিন্তু এক বছর পূর্ণ হওয়ার পূর্বেই ভেঙ্গে যায় তাদের সংসার। জানা যায় মুসলমান মেয়েকে বিয়ে করায় দেবাশীষের মা এই বিয়ে কোন ভাবেই মেনে নিতে রাজী ছিলেন না। যার কারনেই তাদের বিয়ের পরিণতি ডিভোর্স পর্যন্ত গিয়ে ঠেকে।​

২০১২ সালে দেবাশীষ বিশ্বাস ও অরুণা সরকার বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। এটি দেবাশীষ বিশ্বাসের ২য় বিয়ে। অরুণা সরকার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে হিসাববিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতকোত্তর পড়ছেন। ২০১২ সালের ৪ অক্টোবর দেবাশীষ ও অরুণার বিবাহোত্তর সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়েছে। ২০১৪ সালের ১৫ আগস্ট সকালে তাদের পুত্রসন্তান দেবজিৎ বিশ্বাসের জন্ম হয়।

পরিচালনা করা চলচ্চিত্রের তালিকা[সম্পাদনা]

সমালোচনা[সম্পাদনা]

পিএনটিভি ইউটিউব চ্যানেলের মালিক লিটন সরকার ইমন নামে এক ব্যক্তি দেবাশীষ বিশ্বাসের মা গায়েত্রী বিশ্বাস প্রযোজিত চারটি বাংলা চলচ্চিত্র- অজান্তে, শুভ বিবাহ, অপেক্ষা এবং মায়ের মর্যাদা ইউটিউব চ্যানেলে প্রচার করতে ৬০ বছরের জন্য ১ লাখ ৪০ হাজার টাকায় ২০১৯ সালের ৩০ জুলাই বাণিজ্যিক শর্তে কিনে নেন। তিনি ছবিগুলো ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করলে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ চ্যানেল বন্ধ করে দেয়।

পরে তিনি খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন এই চারটি চলচ্চিত্র দেবাশীষ বিশ্বাস তার আগেই ২০১৭ সালে অন্য দুজন ব্যক্তির কাছে বিক্রি করেন। যার কারণে ইউটিউব চ্যানেল কর্তৃপক্ষ ছবিগুলো আপলোড করার পর লিটন সরকার ইমনের চ্যানেল বন্ধ করে দেন।

এরপরই ২০১৯ সালের ৮ সেপ্টেম্বর সিএমএম আদালতে লিটন সরকার ইমন বাদী হয়ে দেবাশীষ বিশ্বাস ও তার মায়ের নামে প্রতারণার মামলা করেন। মামলা তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে দেবাশীষ বিশ্বাসের নামে গ্রেফতারী-পরোয়ানা জারি করেন আদালত। পরবর্তীতে দেবাশীষ বিশ্বাস আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে আদালত লিটন সরকার ইমন কে টাকা ফিরিয়ে দেওয়ার শর্তে মুক্তি দেন ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "শুভ জন্মদিন দেবাশীষ বিশ্বাস"একুশে টিভি অনলাইন। ২৭ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০২০ 

২. [১]

  1. "প্রতারণার মামলায় দেবাশীষ বিশ্বাস"উদা: আমাদেরসময়। ১৮ই অক্টোবর ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০২১  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)

৩.[১]

  1. "দেবাশীষ বিশ্বাস"ভোরের কাগজ। ১২ ই জুন ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০২১  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)