দেওয়ানি আইন (আইনি ব্যবস্থা)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

দেওয়ানি আইন বা বেসামরিক আইন এর উৎপত্তি মূলত ইউরোপে। আর এই আইন রোমান আইনের কাঠামোর সাথে মিল রেখে করা। যার মূলনীতি হল একটি বিশেষ সিস্টেমকে আইনের আওতায় আনা যা আইনের প্রাথমিক উৎস হিসেবে কাজ করে। এটি সাধারন আইনের থেকে আলাদাও হতে পারে এবং নীতিগতভাবে এটা অন্যায় যে, একই অন্যায় ভিন্ন ভিন্ন পরিপ্রেক্ষিতে করলে একই শাস্তি দিতে হবে। এখানে বিচারক বিভিন্ন মানদন্ডের উপরে নির্ভর করে বা আগের দেওয়া সিদ্ধান্তের ওপর ভিত্তি করে একটি সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারে।[১][২]

ঐতিহাসিকভাবে দেওয়ানি আইনের ধারণা এবং পদ্ধতি Corpus Juris Civilis এর থেকে পাওয়া। কিন্তু এই আইন ব্যাপকভাবে নেপলিওনিক, জার্মান, ক্যানোনিকাল, সামন্তবাদ এবং স্থানীয় কিছু আইনের দ্বারা প্রভাবিত।[৩] পাশাপাশি প্রাকৃতিক আইন, বিভিন্ন নিয়ম এবং আইনি পজিটিভিজমের দ্বারাও প্রভাবিত।

ধারণাগতভাবে, দেওয়ানি আইন প্রাকৃতিক ভাবেই আসে যা সাধারন নীতিসমূহ তৈরী করে ও পদ্ধতিগত নীতি থেকে প্রধান নীতিগুলোকে আলাদা করে।[৪] এই আইন মামলার আইন গুলোকে অপ্রধান হিসেবে সংবিধিবদ্ধ আইনের আওতায় অন্তর্ভুক্ত করে। দেওয়ানি আইনকে অনেক সময় অনুসন্ধানিক আইন ভাবা হয়, কিন্তু এই দুইন আইন এক নয়।

আইন ও বিধানের মধ্যে কিছু মূল পার্থ‌ক্য রয়েছে।[৫] দেওয়ানি আইনের মূল বৈশিষ্ট্য হল এই আইনের ধারা যা বিভিন্ন ক্ষেত্রবিশেষে পরিবরতিত হতে পারে। এই আইনের কিছু ধারা খুব সাধারন ভাবে কাজ করে যা মাঝে মাঝে বিভিন্ন সংবিধিবদ্ধ আইনের প্রতিকূলে যায় যা প্রায়ই দীর্ঘ ও বিস্তারিত।

সংক্ষিপ্ত বিবরণ[সম্পাদনা]

এই আইন করার মূল লক্ষ্য আসলে সকল নাগরিককে নৈতিকতার সহিত এই আইনের বিষয়গুলি নিশ্চিত করা যা বিচারককেও মেনে চলতে হবে। এটি বহুবিস্তৃত আইনি ব্যবস্থা যা ১৫০টি দেশে বিভিন্নভাবে চর্চিত হচ্ছে।[৬] আর এই আইন রোমান আইন থেকে আসা যা আধুনিক যুগের অনেক আগের সময়কাল।

দেওয়ানি আইন মূলত পূর্ব-নির্ধারণকৃত আদেশ, বিভিন্ন আইনের মূলনীতি, বিভিন্ন অধিকার, এবং বিভিন্ন কার্যনীতি নিয়ে আলোচনা করে।[৭] আইনগুলো আসলে আইন প্রণয়নকারীদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত।[৮] আরও কিছু প্রধান আইন হলঃ সাধারণ আইন, ইসলামিক আইন, হালাখা ও যাজকীয় আইন।

পুরো বিশ্বের আইনি ব্যবস্থা। দেওয়ানি আইনভিত্তিক মানচিত্র।

পাশের চিত্রে পুরো বিশ্বের আইনী ব্যবস্থা দেখানো হচ্ছে।

দেওয়ানি আইনকে দেশ অনুসারে ভাগ করা যেতে পারেঃ

  • যেখানে প্রধানত রোমান আইনগুলোই আজও উজ্জীবিত কিন্তু তাদের দেওয়ানী আইন করার কোনো প্রয়োজনীয়তাবোধ নেই। যেমনঃ অ্যান্ডোরা ও স্যান মারিনো।
  • যেখানে কর্তৃপক্ষের প্রাতিষ্ঠানিক উৎস হিসেবে অলিখিত দেওয়ানি আইন প্রচলিত এবং সাধারন আইনের দ্বারাও প্রভাবিত। যেমনঃ স্কটল্যান্ড, রোমান-ডাচ আইনের দেশসমূহ (দক্ষিন আফ্রিকা, জিম্বাবুয়ে, শ্রীলঙ্কা, গায়ানা)
  • যেখানে দেওয়ানি আইন নৈপথ্যে থাকে কিন্তু জনগণের আইন ব্যাপকভাবে সাধারণ আইন দ্বারা প্রভাবিত, এমন একটি মিশ্র ব্যবস্থা। যেমনঃ পুয়ের্তো রিকো, ফিলিপাইনস, কিউবেক ও লুইজিয়ানা।
  • সমন্বিত দেওয়ানি আইন যা একক দেওয়ানি আইনের চেয়েও ভালো। যেমনঃ ফ্রান্স, জার্মানি, গ্রিস, ইতালি, জাপান, মেক্সিকো, রাশিয়া, স্পেন।
  • আর স্ক্যান্ডিভিয়ান ব্যবস্থা হল দেওয়ানি আইন ও স্ক্যান্ডিভিয়ানদের নিয়মের এক অপূর্ব সংমিশ্রণ। যেমনঃ নদীগর্ভ দ্বীপের আইন (জার্সি, গুয়ের্নসে, এল্ডের্নি, শার্ক)

দেওয়ানি আইনের একটি বিশিষ্ট উদাহরণ হল নেপলিওনিক আইন (১৮০৪), ফ্রেঞ্চ সম্রাট নেপলিয়নের নামানুসারে নামকরন হয়েছিল। এই আইনের তিনটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য ছিলঃ

  • মানুষের আইন
  • সম্পত্তির আইন
  • ব্যাবসায়িক আইন

মামলার আইনের সংবিধি বা ক্যাটালগের সংমিশ্রণের চেয়ে আইনটি আইনের বিধি হিসাবে সাধারণ নীতিগুলি নির্ধারণ করে।[৭]

সাধারণ আইন ব্যবস্থার বিপরীতে দেওয়ানি আইনের এখতিয়ারগুলি পূর্বের পরিমাপ ব্যতীত মামলার আইন নিয়ে কাজ করে। দেওয়ানি আইন আদালত সাধারণত (বা এমনকি উচ্চতর) বিচারিক সিদ্ধান্তগুলির উল্লেখ না করে মামলার ভিত্তিতে আইনী বিধান ব্যবহার করে মামলায় সিদ্ধান্ত নেয়। প্রকৃত অনুশীলনে, সিদ্ধান্তগুলোর ক্রমবর্ধমান ফলাফল দেওয়ানি আইনে ন্যায়বিচারে যুক্ত হয়। এবং সাধারণত অনেক দেশের সর্বোচ্চ আদালতে এগুলোকে যুক্ত হতে দেখা যায়। যদিও সাধারণ ফরাসি-ভাষী সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্ত সংক্ষিপ্ত এবং ব্যাখ্যা ন্যায়সঙ্গত নয়, তবুও সুপ্রিম কোর্ট আইনী যুক্তি দ্বারা সমর্থিত শব্দাবলী মতামত হিসেবে লিখতে পারে এবং প্রয়োগ করতে পারে। একই ধরণের মামলার সিদ্ধান্ত per se, থেকে সৃষ্ট jurisprudence constante এর ওপর ভিত্তি করে এক নাও হতে পারে। যদিও দেওয়ানি আইনের এখতিয়ারগুলি আদালতের সিদ্ধান্তের উপর সামান্য নির্ভরতা রাখে, তবে তারা বর্ণিত আইনী মতামতগুলির একটি সংখ্যার তালিকা তৈরী করে। তবে এটি অনিয়ন্ত্রিত হওয়ার প্রবণতা রয়েছে। যেহেতু, আইন ও প্রতিবেদনে রাষ্ট্রের এবং সাংবিধানিক আদালতের কাউন্সিল বাদে কোনও মামলার রিপোর্ট প্রকাশের কোন প্রয়োজন নেই; তাই সর্বোচ্চ আদালত ব্যতীত আইনী মতামতের সকল প্রকাশনা অফিশিয়াল বা বাণিজ্যিক।

দেওয়ানি আইনকে কখনও কখনও নিও-রোমান আইন, রোমান-জার্মানিক আইন বা মহাদেশীয় আইন হিসাবে উল্লেখ করা হয়। "দেওয়ানি আইন" অভিব্যক্তিটি লাতিন jus civile বা "নাগরিকদের আইন" এর অনুবাদ। যা এটির আইনী ব্যবস্থার জন্য বিভিন্ন সাম্রাজ্যে ব্যবহৃত শব্দ ছিল। যা বিজিত লোকদের (jus gentium) পরিচালিত আইনের বিপরীত; অতএব, জাস্টিনিয়ান আইনের শিরোনাম Corpus Juris Civilis. দেওয়ানি আইন ব্যবহারকারীরা ঐতিহ্যগতভাবে তাদের ব্যবস্থাকে ন্যায়সঙ্গত হিসাবে উল্লেখ করেন, আক্ষরিক অর্থে যা "সাধারণ আইন"। যার অর্থ বিভিন্ন নির্দিষ্ট বা বিশেষ ক্ষেত্রে আইনের নীতি, আইনের সাধারণ নীতির বিপরীত হয়। (অ্যাংলো-স্যাক্সন সিস্টেমের জন্য "সাধারণ আইন" এর ব্যবহার এই ধরণের ব্যবহার দ্বারা প্রভাবিত হতেও পারে আবার নাও হতে পারে।)

ইতিহাস[সম্পাদনা]

দেওয়ানি আইন প্রধানত ক্লাসিকাল রোমান আইন (খৃস্টপূর্ব ১-২৫০) থেকে অনুপ্রাণিত এবং জাস্টিনিয়ান আইন (খৃস্টপূর্ব ৬ষ্ঠ শতাব্দী) থেকেও কিছুটা উদ্বুদ্ধ।[৯] জাস্টিনিয়ান আইনের মতবাদগুলো মূলত চুক্তি, বিভিন্ন পদ্ধতির নিয়ম, পারিবারিক আইন, সম্পত্তির আইন ও রাজকীয় সাংবিধানিক আইনের ধারণা দেয়। রোমান আইন বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ভাবে ব্যবহৃত হয়েছে।[১০] এবং রোমান আইন বিস্তৃত ভাবে বিভিন্ন জ্ঞানীদের দ্বারা তাদের রাষ্ট্র পরিচালনায় এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়েছে।

এমনকি রোমান আইন কোনো বাধা ছাড়াই বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যে ব্যবহৃত হত, ১৫ শতাব্দীতে এই রাজ্য ভাঙার আগে পর্যন্ত। তবে মধ্যযুগে একাধিক আক্রমণ এবং পেশাবৃত্তির ফলে এই আইন পশ্চিমা বশবে ব্যাপকভাবে চর্চিত হয়েছিল। এই আইন প্রথম রোমান সাম্রাজ্য গ্রহন করেছিল, কারণ এটি ছিল রাজকীয় আইন। আর ইউরোপের ছাত্ররা এই আইনকে ব্যাপকভাবে গ্রহন করেছিল কারণ তারা বেশিরভাগ উকিল হতে চাইত। এই আইন স্কট আইনের ভিত্তি হয়ে দাড়িয়েছিল। ইংল্যান্ডে অক্সফোর্ড ও ক্যামব্রিজে এই আইন পাঠ্য হিসেবে ছিল।

ফলস্ব‌রুপ দুই প্রজন্মের রোমানরা পুরো ইউরোপে কর্তৃত্ত করতো। রোমান আইন অপ্রধান হিসেবে রাখা হতো, যদি কোনো বিষয়ে কোনো আইনের কোনো বিধির অভাব পরিলক্ষিত হতো তখন রোমান আইন ব্যাবহার করা হতো। এভাবেই সকল আইনগুলো তখন রোমান আইনের আলোকে সঙ্গসোধন এবং পরিমার্জন করা হতো। আর এভাবেই রোমান আইন তখন প্রদান আইনে পরিনত হয়েছিল। আর রোমান আইন সবার জন্য সাধারণ ভাষায় (jus commune) লিখা হতো যার কারনে এটি সবার কাছে এবং সকল দেশে গ্রহনযোগ্য ছিল। যা যাজকীয় আইন, সামন্তবাদ আইন ও রোমান আইনকে সংহত করে।

আইন সংগ্রহ[সম্পাদনা]

দেওয়ানী আইনের একটি গুরুত্বপূর্ণ সাধারন বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এর উৎস রোমান আইনের উৎস থেকে আলাদা। দেওয়ানি আইন হল রোমান আইনের ব্যাপকতার লিখিত রুপ। প্রথম লিখিত আইন হল হাম্মুরাবি আইন যা খৃস্টপূর্ব ১৮ শতাব্দীতে ব্যাবিলনে তৈরী হয়। এমনকি এই আইন এবং আরও অনেক আইনই হল ফৌজদারি এবং দেওয়ানী অপরাধ ও এর সাজা নিয়ে লিখিত। জাস্টিনিয়ান আইন না আসা পর্যন্ত কেউ আধুনিক আইন লিখা সম্পর্কে জানতই না।

৬ষ্ঠ ও ৭ম শতাব্দীতে জার্মান আইন তাদের দেশের বিশেষ শ্রেণীর অধিকার এবং রোমান আইনের বিরুদ্ধে সুস্পষ্ট ধারা উল্লেখ করে। সামন্তবাদ আইনের আওতায়, বেশ কয়েকটি কাস্টমালস (এক ধরণের আইন) নর্মান সাম্রাজ্যে সংকলিত হয়েছিল (Très ancien coutumier, ১২০০-১২৪৫)। এবং এই কাস্টমালসের (এক ধরণের আইন) আওতায় তারা বিভিন্ন ধর্ম, নিয়ম, আদালতের সিদ্ধান্ত নিয়ে আলোচনা করা হয়। আর এই কাস্টমালসগুলো (এক ধরণের আইন) বিভিন্ন বিচারক এবং বিভিন্ন ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যাক্তিরা পর্যালোচনা করে একটি আদালতে কিছু প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে অনুমোদন দিতেন। তারপরই কাস্টমালস গুলো দেশের সবখানে প্রচলনের ব্যবস্থা করা হতো। যখন ফ্রান্সের সপ্তম চার্লস ১৪৫৪ সালে কাস্টমালকে রাজকীয় আইনের সম্মান দেন তখন থেকে বিভিন্ন রাজ্যে এগুলো গুরুত্বপূর্ণ আইন হিসেবে স্বীকৃতি পায়। দুইটি গুরুত্বপূর্ণ উদাহরন হলঃ Coutume de Paris (১৫১০ সালে লিখা ; ১৫৮০ সালে প্রকাশ), Sachsenspiegel (১২২০) of the bishoprics of Magdeburg and Halberstadt which was used in northern Germany, Poland, and the Low Countries.

আইন লিখার ধারণা ১৭ ও ১৮ শতাব্দীতে প্রাকৃতিক আইন ও আইনের দ্বারা জ্ঞানের বিকাশের দ্বারা উন্মোচিত হয়। সেই সময়ের রাজনৈতিক ধারণা গনতন্ত্রের ধারণা, সম্পত্তির রক্ষা ও আইনী নিয়ম দ্বারা প্রকাশ করা হতো। এবং এই ধারনাগুলিকে একটি রুপদান দেওয়ার ও সংরক্ষণের ধারণা থেকেই আইন লিখা শুরু হয়। আর রোমান আইন, নিয়মের আইন আর স্থানীয় আইন একটা পথ করে দেয় আইন লিখার জন্য বা সংগ্রহ করার জন্য।

যেই দেশে একটি আইন লিখা বা অনুমোদন দেওয়া হবে, সেই দেশের পুরো এলাকা জুরে আইন কার্যকর হবে।

আইন সংশোধনের বিষয়েও একটি প্রতিক্রিয়া দেখা গিয়েছিল। আইন লিখা বা সংগ্রহ করার আরেকটি কারণ ছিল আইনের যথাযথ প্রয়োগ, নিয়ম মেনে আইন করা এবং একতা; যদিও এর বিরোধীরা দাবি করেছে যে কোডিংয়ের ফলে আইনটি অচল হয়ে যাবে।

শেষে, আইন সংগ্রহ ইউরোপে আরও উন্নত হতে থাকল। আইনের সংগ্রহ প্রত্যেক দেশেই চালু হতে থাকে। যেমনঃ ডেনমার্ক (১৬৮৭), সুইডেন (১৭৩৪), প্রুসিয়া (১৭৯৪), ফ্রান্স (১৮০৪), এবং অস্ট্রিয়া (১৮১১)। নেপলিয়ন তার সাম্রাজ্যেও এই আইন সংগ্রহ শুরু করেন। পোল্যান্ডে (ওয়ারশের ড্যাচি / কংগ্রেস পোল্যান্ড; কোয়েড্কস সাইভিনি ১৮০৬/১৮২৫), লুইসিয়ানা (১৮০৭), ভৌডের ক্যান্টন (সুইজারল্যান্ড; ১৮১৯), নেদারল্যান্ডস (১৮৩৮), সার্বিয়া (১৮৪৪), ইতালি এবং রোমানিয়া (১৮৬৫), পর্তুগাল (১৮৬৭) এবং স্পেন (১৮৮৮), জার্মানি (১৯০০), এবং সুইজারল্যান্ড (১৯১২) তাদের আইন সগ্রহ শুরু করে। আইন সংগ্রহ বিভিন্ন কলোনিতে তাদের শাষক দেশ দ্বারা শুরু হয়। যেমনঃ সুইজ সংস্করণ হয়েছিল ব্রাজিলে (১৯১৬) ও তুর্কিতে (১৯২৬)।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে "Field Code" (১৮৫০) প্রথম সংগৃহীত হয় যা California's codes (১৮৭২) এর আলোকে করা হয়েছিল এবং সামন্তগণ ১৮৭৪ সালে এটিকে অনুমোদন দেন যা আজ United States Code (১৯২৬) নামে পরিচিত।

জাপানে মেইজি যুগের শুরুতে ইউরোপীয়, প্রধানত ফ্রান্স ও জার্মানির বিভিন্ন আইন দিয়ে আইনী ও বিচারিক কার্যক্রম চলত। জাপানের দেখাদেখি চীনে কুইং এর রাজত্বকালে জার্মান দেওয়ানী আইনের প্রচলন হয়। উপরন্তু এটি চীনের আইনের ভিত্তি ছিল যা তাইওয়ানেও প্রচলিত ছিল। এছাড়াও কোরিয়া, তাইওয়ান আর মানচুরিয়াতে জাপানের আইনী ব্যবস্থার শক্ত প্রভাব ছিল।

কিছু লেখক দেওয়ানি আইনকে কমিউনিস্ট দেশগুলিতে ব্যবহৃত সমাজতান্ত্রিক আইনের ভিত্তি হিসাবে বিবেচনা করেন, যা মার্কসবাদী-লেনিনবাদী আদর্শ হতে সংযোজিত দেওয়ানি আইন। এমনকি যদি এটি হয় তবে সমাজতান্ত্রিক আইন উত্থানের আগে দেওয়ানি আইন সাধারণত আইনী ব্যবস্থা ছিল। এবং পূর্বের কিছু ইউরোপীয় দেশ সমাজতন্ত্রের পতনের পরে পূর্ব-সমাজতান্ত্রিক দেওয়ানি আইন প্রত্যাবর্তন করেছিল, আবার অন্যরা সমাজতান্ত্রিক আইনী ব্যবস্থাগুলি ব্যবহার অব্যাহত রেখেছিল।

মধ্যযুগীয় ইসলামী শরিয়াহ ও ফিকহ থেকে বেশ কয়েকটি দেওয়ানি-আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে মনে করা হয়। উদাহরণস্বরূপ, ইসলামী হাওলা (হুন্ডি) ইতালীয় আইনের অ্যাভালো এবং ফ্রেঞ্চ এবং স্প্যানিশ আইনের অ্যাভালোর সাথে সম্পর্কিত।[১১]

অন্য প্রধান আইনী ব্যাবস্থার সাথে পার্থক্য[সম্পাদনা]

ছকটিতে বিশ্বের প্রধান চার আইনী ব্যবস্থার পার্থক্য তুলে ধরা হলোঃ[১২]

সাধারন আইন দেওয়ানি আইন সমাজতান্ত্রিক আইন ইসলামিক আইন
অন্য নামসমূহ অ্যাংলো আমেরিকান, ইংরেজী, বিচারকের তৈরী, প্রতিনিধিদের দ্বারা তৈরী মহাদেশীয়, রোমানো-জার্মানিক, ইউরোপ মহাদেশীয় সোভিয়েত ধর্মীয় আইন, শরীয়াহ
আইনের উৎস মামলার আইন, সাংবিধানিক আইন সংবিধি / আইন সংবিধি / আইন ধর্মীয় নথি
উকিল বিচারক নিরপেক্ষ ও উকিল যে কোনো একজনের পক্ষ নেন বিচারক বিচার এর পুরোটাই নিয়ন্ত্রন করেন বিচারক বিচার এর পুরোটাই নিয়ন্ত্রন করেন দ্বিতীয় ভূমিকা
বিচারকের যোগ্যতা অভিজ্ঞ উকিল (নিযুক্ত বা নির্বাচিত) অভিজ্ঞ উকিল অভিজ্ঞ আমলা, পার্টি সদস্য ধর্মীয় ও আইনি উভয় প্রশিক্ষণ
বিচারের স্বাধীনতার মাত্রা উচ্চ উচ্চ; সরকারের নির্বাহী ও বিধানিক শাখা থেকে আলাদা খুব সীমিত খুব সীমিত থেকে উচ্চ[১৩][১৪]
জুরি বিচারের সময় দেওয়া হয় গুরুতর ফৌজদারি মামলায় বিচারকদের সাথে যুক্ত হতে পারে প্রায় সর্বনিম্ন পর্যায়ে ব্যবহৃত মালিকি স্কুল [১৫] অনুমোদিত, অন্যান্য স্কুলের দ্বারা অনুমোদিত নয়
নীতি নির্ধারণে ভূমিকা আদালত ক্ষমতার ভারসাম্য রাখে আদালতের সমান কিন্তু পৃথক ক্ষমতা আছে আদালত আইন বিভাগের আওতায় থাকে সরকার ও আদালত শরীয়াহ অনুযায়ী পরিচালিত হয়। আদালত আইন বিভাগের আওতায় থাকে।
উদাহারণ অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাজ্য (স্কটল্যান্ড বাদে), ইজরায়েল, ভারত, সাইপ্রাস, নাইজেরিয়া, আয়ারল্যান্ড প্রজাতন্ত্র, সিঙ্গাপুর, হংকং, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র (লুইসিয়ানা ছাড়া), কানাডা (ক্যুবেক ব্যতীত), নিউজিল্যান্ড, পাকিস্তান, মালয়েশিয়া, বাংলাদেশ সমস্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাজ্যগুলি (ইউকে, আয়ারল্যান্ড এবং সাইপ্রাস ব্যতীত) এবং ইউরোপীয় রাজ্যগুলি (সুইজারল্যান্ড ব্যতীত), মেক্সিকো, সমস্ত মহাদেশীয় দক্ষিণ ও মধ্য আমেরিকা (গায়ানা এবং বেলিজ ব্যতীত), ক্যুবেক, পূর্ব এশিয়ায় সমস্ত (হংকং ছাড়া) উত্তর আফ্রিকা, ফ্রান্সোপোন এবং লুসফোন আফ্রিকা, আজারবাইজান, কুয়েত, ইরাক, রাশিয়া, তুরস্ক, মিশর, মাদাগাস্কার, লেবানন, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড, লুইসিয়ানা সোভিয়েত ইউনিয়ন, চীন (হংকং ছাড়া) অনেক মুসলিম দেশ এই আইন মানে।যেমনঃ সৌদি আরব, আফগানিস্তান, ইরান, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ওমান, সুদান, মালয়েশিয়া, পাকিস্তান ও ইয়েমেন।

দেওয়ানি আইন মূলত সাধারণ আইন থেকে আলাদা। এবং এটি প্রথম ইংল্যান্ডে ও পরবর্তীতে ইংরেজী ভাষাভাষীদের কাছে পরিচিতি পায়। এই ধরণের আইনগুলো মূলত অন্যান্য আইনের থেকে পরিমার্জিত ও উন্নত। যা নাগরিকদের বিভিন্ন অধিকার নিশ্চিত করতে কাজ করে। এদের মধ্যে পার্থক্য থাকা সত্ত্বেও, দুটি সিস্টেম ঐতিহাসিক দৃষ্টিকোণ থেকে অনেকটাই একরকম। উভয়ই একইভাবে বিকশিত হয়েছিল, যদিও বিভিন্ন গতিতে। রোমান আইনে অন্তর্নিহিত দেওয়ানি আইন মূলত প্রচলিত আইন থেকে বিকশিত হয়েছিল এবং মামলার আইনের দ্বারা এবং আইনকর্তাদের দ্বারা সংশোধিত হয়েছিল। যাজকীয় আইন আদালতের পদ্ধতিকে আরও পরিমার্জিত করেছে। একইভাবে, ইংলিশ আইন অ্যাংলো-স্যাক্সন প্রথাগত আইন, ড্যানেল্যান্ড নর্মান আইন থেকে আগত ও বিকশিত। এবং এই আইনগুলো দ্বারা পরিমার্জিত। এদের মধ্যে পার্থক্য হলঃ

  • রোমান আইন জাস্টিনিয়ান আইন এর থেকে পরিশোধিত এবং জ্ঞানী ব্যাক্তিদের দ্বারা পর্যালোচিত।
  • বেসামরিক আইন এর ক্ষেত্রে প্রথাগত কর্তৃত্ব আছে, সাধারণ আইন অনুযায়ী কর্তৃপক্ষকে বাধ্য করে না।

আইনের লিখন ও সংরক্ষন কোনভাবেই দেওয়ানী আইন ব্যবস্থার একটি নির্ধারিত বৈশিষ্ট্যকে প্রকাশ করে না। উদাহরণস্বরূপ, সুইডেন এবং অন্যান্য উত্তরের রোমান-ডাচ দেশগুলির দেওয়ানি আইন ব্যবস্থা এবং নিয়মগুলি ফরাসী এবং জার্মান[১৬] আইনের মতো বৃহত্তর নয়, এবং বিস্তৃত আইনেও বিভক্ত নয়।

দেওয়ানি আইনের শ্রেণীবিভাগ[সম্পাদনা]

দেওয়ানি আইন ইংরেজী scholarship থেকে আসা যেটি ইংরেজ দেশগুলোতে একসঙ্গে সকল আইনি ব্যবস্থার jus commune নামক সংস্কৃতি। তুলনাবিদ ও অর্থবিদ বিভিন্ন ধরণের উপধারায় এই আইনকে ভাগ করেছেনঃ

  • নেপোলয়নিকঃ ফ্রান্স, ইতালি, নেদারল্যান্ডস, স্পেন, চিলি, বেলজিয়াম, লাক্সেমবার্গ, পর্তুগাল, ব্রাজিল, মেক্সিকো, ম্যাকাউ, ভারতের প্রাক্তন পর্তুগিজ অঞ্চল (গোয়া, দমন ও দেউ ও দাদরা ও নগর হাভেলি), মাল্টা, রোমানিয়া এবং আরব বিশ্বের বেশিরভাগ দেশ যেখানে ইসলামিক আইন ব্যবহার করা হয় না। প্রাক্তন উপনিবেশগুলো যেমনঃ ক্যুবেক (কানাডা) এবং লুইসিয়ানা (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) অন্তর্ভুক্ত।
    • চিলি আইন আন্দ্রেস বেল্লোর মূল কাজ। কিন্তু এটিকে কেউ কেউ নেপোলিয়ন কোড এর অনুপ্রেরণা থেকে বানানো বলে মনে করেন। এটা শুধু দায় ও জিনিস সম্পর্কিত আইনের ক্ষেত্রে সত্য এবং পরিবার ও সাফল্য আইনের ক্ষেত্রে সত্য নয়। এই আইনটি ইকুয়েডর, এল সালভাদর, নিকারাগুয়া, হন্ডুরাস, কলোমবিয়া, পানামা এবং ভেনিজুয়েলার দ্বারা একীভূত হয়েছিল (যদিও শুধুমাত্র এক বছরের জন্য)। আন্দ্রেস বেল্লোর সময়ের অন্যান্য ল্যাটিন আমেরিকার বিশেষজ্ঞদের মতে, অগাস্টো টিক্সিরা ডি ফ্রিয়েটস ("Esboço de um Código Civil para o Brasil" এর লেখক) বা ডালমাসিও ভিয়েজ স্যারফিল্ড (আর্জেন্টিনার সিভিল কোডের প্রধান লেখক), এটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আইন, যা ল্যাটিন আমেরিকার অর্জন।
    • ক্যামেরুন, ফ্রান্স এবং যুক্তরাজ্য উভয়ের একটি সাবেক উপনিবেশ, দ্বি-বিচারিক/মিশ্র
  • জার্মানবাদীঃ জার্মানি, অস্ট্রিয়া, সুইজারল্যান্ড, লাতভিয়া, এস্তোনিয়া, রোমান-ডাচ, চেক প্রজাতন্ত্র, রাশিয়া, লিথুয়ানিয়া, ক্রোয়েশিয়া, হাঙ্গেরি, সার্বিয়া, স্লোভেনিয়া, স্লোভাকিয়া, বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা, গ্রীস, ইউক্রেন, তুরস্ক, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান এবং থাইল্যান্ড
    • যুক্তরাজ্যের সাবেক উপনিবেশ দক্ষিণ আফ্রিকা নেদারল্যান্ডসের ঔপনিবেশিকদের দ্বারা ব্যাপকভাবে প্রভাবিত ছিল এবং দ্বি-বিচারিক/মিশ্র আইনী ব্যবস্থা ছিল।
  • উত্তরীয়ঃ ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, আইসল্যান্ড, নরওয়ে এবং সুইডেন
  • চীনাঃ (হংকং এবং ম্যাকাও ছাড়া) নাগরিক আইন এবং সমাজতান্ত্রিক আইনের মিশ্রণ। বর্তমানে, চীনা আইন সাধারণ আইন ব্যবস্থার কিছু বৈশিষ্ট্য বিলীন করে দেয়, বিশেষ করে বাণিজ্যিক ও আন্তর্জাতিক লেনদেন সম্পর্কিত। হংকং যদিও চীন অংশ তবুও সাধারণ আইন ব্যবহার করে। হংকংয়ের মৌলিক আইন, হংকংয়ে সাধারণ আইনের ব্যবহার এবং অবস্থান নিশ্চিত করে। ম্যাকাও পর্তুগিজ আইনি ব্যবস্থাকে তাদের দেওয়ানী আইন বলে মান্য করে।

যাইহোক এগুলো ছাড়াও কিছু সমন্বিত প্রকৃতির আইনী ব্যবস্থা লক্ষ্য করা যায়ঃ

নেপলিয়নিক থেকে জার্মানবাদী প্রভাবঃ ইতালীয় দেওয়ানি আইন (১৯৪২) ১৮৬৫ সালে মূল আইনটির জায়গা নেয়।[১৭] এই আইনটি সেই সময়ের জার্মানির রাজনৈতিক উপাদান গুলোকে পরিচয় করিয়ে দেয়। এই ধারণাটি পর্তুগাল (১৯৬৬), নেদারল্যান্ড (১৯৯২), ব্রাজিল (২০০২) এবং আর্জেন্টিনাকে (২০১৪) ব্যাপক ভাবে প্রভাবিত করে। আর এই সকল আইনগুলিই সবার সামনে ইতালিয়ান আইন বিভাগ পরিচয় করিয়ে দেয়।[১৮]

জার্মানবাদী থেকে নেপলিয়নিক প্রভাবঃ সুইজ দেওয়ানি আইন মূলত জার্মান দেওয়ানি আইনের প্রভাবে তৈরিকৃত এবং আংশিকভাবে গ্রান্সের দেওয়ানি আইনের প্রভাবে তৈরী। তুর্কিতে সুইজ দেওয়ানি আইনের প্রভাবে নির্মিত। আইনটি ১৯২৬ সালে মোস্তফা কামাল আতাতুর্ক তার সময়ে সরকারকে এগিয়ে নিতে এই উদ্যোগটি নেন।

কিছু দেওয়ানি আইন আছে যা কোনো প্রকারভেদে পড়ে না। যেমন ১৯ শতকের পলিশ আইন ফ্রেঞ্চ ও জার্মান দেওয়ানি আইনের প্রভাবে তৈরী। ১৯১৮ সালে পোল্যান্ডের পুনরায় একত্রিত হওয়ার পরে পাঁচটি আইনী ব্যবস্থাকে (ওয়ার্সার ডাচের কাছ থেকে পাওয়া ফরাসী নেপোলিয়নিক আইন, পশ্চিম পোল্যান্ডের জার্মান বিজিবি, দক্ষিণ পোল্যান্ডের অস্ট্রিয়ান এবিজিবি, পূর্ব পোল্যান্ডের রাশিয়ান আইন এবং স্পিজ ও ওরাওয়ায় হাঙ্গেরিয়ান আইন) একীভূত করা হয়েছিল। একইভাবে, ডাচ আইন মূলত নেপোলিয়োনিক ঐতিহ্যের আইনের প্রভাবে করা হলেও রোমান-ডাচ আইনের ও ডাচদের নিজেদের ঐতিহ্যের (এখনও পূর্ববর্তী উপনিবেশগুলিতে কার্যকর) প্রভাবের অধীনে এই আইনগুলোর প্রচুর পরিবর্তন নিয়ে এসেছিল। স্কটল্যান্ডের দেওয়ানি আইন রোমান-ডাচ আইনের দ্বারা প্রচুর পরিমানে প্রভাবিত। সুইজ আইনকে জার্মানবাদী হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে, তবে এটি নেপোলিয়নের ঐতিহ্যের দ্বারা প্রচুর পরিমানে প্রভাবিত, সাথে কিছু দেশীয় উপাদানও যুক্ত হয়েছে।

লুইজিয়ানা ব্যাক্তিগত আইন প্রাথমিকভাবে নেপোলিওনিক আইনব্যবস্থা। লুইজিয়ানা যুক্তরাষ্ট্রের একমাত্র রাজ্য যেখানে আইনগুলো ফ্রেঞ্চ ও স্প্যানিশ আইন থেকে প্রভাবিত যা মূলত রোমান আইন থেকে অনুপ্রাণিত এবং ইংরেজ আইনের বিরোধী বলা চলে।[১৯] লুইজিয়ানাতে এই ব্যাক্তিগত আইনই দেওয়ানি আইন এ অন্তর্ভূক্ত। বর্তমানে লুইসিয়ানা আইন আমেরিকান আইনের ওপরে বিশেষত আমেরিকান সাধারন আইন, বিচার ব্যবস্থা, এবং বিভিন্ন বাণিজ্যিক আইন (ধারা ২ ব্যতীত) এবং আমেরিকান সাধারণ আইনের কিছু নির্দিষ্ট আইনী ব্যবস্থার সাথে যথেষ্ট রূপান্তর করেছে।[২০] প্রকৃতপক্ষে, বেসরকারী বা পাবলিক, যে কোন আইনই মূলত সাধারণ আইন থেকে উদ্ভূত। কুইবেক আইনঃ যে ব্যক্তিগত আইনটি ফরাসী দেওয়ানি আইন থেকে উদ্ভূত। এবং এই আইনগুলো একই ধারায় বিকশিত। লুইসিয়ানার মতো একইভাবে কানাডিয়ান সাধারণ আইনের পাবলিক আইন এবং বিচারিক ব্যবস্থা খাপ খাইয়ে নিয়েছে। বিপরীতে, কুইবেক বেসরকারী আইন মূলত দেওয়ানি আইনের উত্স থেকে উদ্ভাবিত হয়েছে। কিছুটা হলেও, স্পেনীয় সাম্রাজ্যের পূর্বের উপনিবেশ যেমনঃ টেক্সাস এবং ক্যালিফোর্নিয়া এবং অন্যান্য রাজ্যগুলি স্পেনীয় দেওয়ানি আইনের বিভিন্ন দিক তাদের আইনী ব্যবস্থায় ধরে রেখেছে। উদাহরণস্বরূপঃ সম্প্রদায়ের সম্পত্তি। পুয়ের্তো রিকোর আইনী ব্যবস্থায় লুইসিয়ানার সাথে মিল দেখা যায়: যা একটি দেওয়ানি আইন, যার ব্যাখ্যাগুলি দেওয়ানি এবং সাধারণ আইনের উপর নির্ভর করে। যেহেতু পুয়ের্তো রিকোর দেওয়ানি আইন ১৮৮৯ সালের স্পেনীয় দেওয়ানি আইনের উপর ভিত্তি করে তৈরী আইনটির বয়স এবং অনেক ক্ষেত্রে অপ্রচলিত প্রকৃতির কারণে অনেক সময় আইনটি সাধারণ আইনের উপর নির্ভর করে।

অনেক ইসলামিক রাষ্ট্র ইসলামিক আইন মোতাবেক সবকিছু পরিচালনা করে।[২১] যেমনঃ ১৯ শতকে তৈরী হওয়া মিশর দেওয়ানি আইন ১৮১০ এর দ্বারা আরব বিশ্বের অনেক দেশ যেখানে দেওয়ানি আইন তৈরী হয়। আর এই আইনটি প্রাথমিক ভাবে নেপোলিওনিক আইন। আর এই আইন তৈরী করেন আবেদ আল-রাজ্জাক আল-শানুরী এবং তিনি এই আইনে মিশরের সমাজব্যবস্থার ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন ইসিলামিক আইন সংযুক্ত করেন।

জাপানের দেওয়ানি আইন একটি সংকর জাতের আইন। যেখানে ৬০% জার্মান দেওয়ানি আইন, ৩০% ফ্রেঞ্চ দেওয়ানি আইন, ৮% জাপানের প্রথা ও ২% ইংরেজ আইনের সংমিশ্রণ আছে।[২২] এই আইনে ইংরেজ আইনের হাডলে এবং বেক্সেন্ডেল এর বিরোধিতাও উল্লেখ করা আছে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Washington Probate, "Estate Planning & Probate Glossary", Washington (State) Probate, s.v. "common law", [htm], 8 Dec. 2008, retrieved on 7 November 2009.
  2. Charles Arnold-Baker, The Companion to British History, s.v. "English Law" (London: Loncross Denholm Press, 2008), 484.
  3. Charles Arnold Baker, The Companion to British History, s.v. "Civilian" (London: Routledge, 2001), 308.
  4. Michel Fromont, Grands systèmes de droit étrangers, 4th edn. (Paris: Dalloz, 2001), 8.
  5. “The role of legislation is to set, by taking a broad approach, the general propositions of the law, to establish principles which will be fertile in application, and not to get down to the details. . . .” Alain Levasseur, Code Napoleon or Code Portalis?, 43 Tul. L. Rev. 762, 769 (1969).
  6. "The World Factbook"cia.gov 
  7. "Neubauer, David W. 2007, pg.28"
  8. "Glossary of Legal Terms", 12th District Court – Jackson, County, MI, retrieved on 12 June 2009: [১]
  9. "Roman Law and Its Influence"। Infoplease.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৮-১৮ 
  10. Kenneth Pennington, "Roman and Secular Law in the Middle Ages", Medieval Latin: An Introduction and Bibliographical Guide, edd. F.A.C. Mantello and A.G. Rigg (Washington, D.C.: Catholic University Press of America, 1996), 254–266; [html], available at "Archived copy"। ২০১১-০৯-২৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৮-২৭ , retrieved 27 August 2011.
  11. Badr, Gamal Moursi (Spring ১৯৭৮), "Islamic Law: Its Relation to Other Legal Systems", The American Journal of Comparative Law, 26 (2 [Proceedings of an International Conference on Comparative Law, Salt Lake City, Utah, February 24–25, 1977]): 187–198 [196–8], doi:10.2307/839667, জেস্টোর 839667 
  12. Neubauer, David W., and Stephen S. Meinhold. Judicial Process: Law, Courts, and Politics in the United States. Belmont: Thomson Wadsworth, 2007, pg.28.
  13. Badr
  14. Makdisi, John A. (জুন ১৯৯৯), "The Islamic Origins of the Common Law", North Carolina Law Review, 77 (5): 1635–1739 
  15. Makdisi
  16. Smits, Jan (ed.); Dotevall, Rolf (২০০৬), Elgar Encyclopedia of Comparative Law, "63: Sweden", Edward Elgar Publishing, আইএসবিএন 978-1-84542-013-0 
  17. "Towards a civil code: the italian experience"teoriaestoriadeldirittoprivato.com 
  18. Franklin, Mitchell (এপ্রিল ১৯৫১)। ""On the Legal Method of the Uniform Commercial Code" by Mitchell Franklin"Duke.edu16 (2): 330–343। 
  19. "How the Code Napoleon makes Louisiana law different"LA-Legal। ২০০৬-১০-৩১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৬-১০-২৬ 
  20. "Louisiana – Judicial system"। City-data.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৮-১৮ 
  21. "Civil Law ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৮ অক্টোবর ২০০৯ তারিখে". Microsoft Encarta Online Encyclopedia 2009. 2009-10-31.
  22. 和仁陽「岡松参太郎――法比較と学理との未完の綜合――」『法学教室』No.183 (জাপানি) P.79

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

  • Glendon, Mary Ann, Paolo G. Carozza, & Colin B. Picker. Comparative Legal Traditions in a Nutshell, 4th edn. West Academic Publishing, 2015.
  • Glendon, Mary Ann, Paolo G. Carozza, & Colin B. Picker. Comparative Legal Traditions: Text, Materials and Cases on Western Law, 4th edn. West Academic Publishing, 2014.
  • Glenn, H. Patrick. Legal Traditions of the World, 5th edn. Oxford: Oxford University Press, 2014 (1st edn 2000).
  • Kischel, Uwe. Comparative Law. Trans. Andrew Hammel. Oxford: Oxford University Press, 2019.
  • Lydorf, Claudia. (২০১১)। Romance Legal Family। Mainz: Institute of European History 
  • MacQueen, Hector L. "Scots Law and the Road to the New Ius Commune." Electronic Journal of Comparative Law 4, no. 4 (December 2000).
  • John Henry Merryman & Rogelio Pérez-Perdomo. The Civil Law Tradition: An Introduction to the Legal Systems of Europe and Latin America, 4th edn. Stanford University Press, 2018.
  • Moustaira, Elina N. Comparative Law: University Courses (in Greek), Ant. N. Sakkoulas Publishers, Athens, 2004, আইএসবিএন ৯৬০-১৫-১২৬৭-৫
  • Reynolds, Thomas H. (১৯৯৮)। "Introduction to Foreign and Comparative Law"। Rehberg, Jeanne; Popa, Radu D। Accidental Tourist on the New Frontier: An Introductory Guide to Global Legal Research। পৃষ্ঠা 47–86। আইএসবিএন 978-0-837-71075-4 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]