দুমাতুল জান্দাল অভিযান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দুমাতুল জান্দাল অভিযান
তারিখআগস্ট বা সেপ্টেম্বর, ৬২৬ খ্রিস্টাব্দ
অবস্থান
ফলাফল ফলাফলগুলো ছিল নিম্নরূপ:
মুহাম্মাদ সফলভাবে দুমাতুল জান্দালে অভিযান করেন এবং পাঁচদিন অবস্থান করেন।
গোত্রের সদস্যদের পলায়ন।
মুহাম্মাদ বড় গোত্র বনু গাতফানের সাথে চুক্তি করেন।[১]
বিবাদমান পক্ষ
মুসলিম দুমাতুল জান্দালের গোত্রসমূহ
সেনাধিপতি ও নেতৃত্ব প্রদানকারী
মুহাম্মাদ
শক্তি
১,০০০ যোদ্ধা অজ্ঞাত[১]

দুমাতুল জান্দালের অভিযান হল একটি প্রাক মুসলিম অভিযান যা ৬২৬ খ্রিস্টাব্দের আগস্ট বা সেপ্টেম্বর মাসে সংঘটিত হয়েছিল।[২]

মুহাম্মাদের ভারতীয় জীবনীকার সাফিউর সফিউর রহমান মুবারকপুরীর মতে, দুমাতুল জান্দাল মদিনা থেকে প্রায় পনের দিন এবং দামেস্ক থেকে পাঁচ দিনের দূরত্বে অবস্থিত। ইতিহাসবিদ উইলিয়াম মন্টগোমারি ওয়াটের মতে, এটি মদিনা থেকে ৫০০ মাইল দূরে।[৩]

আর রাহীকুল মাখতুমের মতে, ছয় মাসের সামরিক তৎপরতার পর মুহাম্মাদ গোয়েন্দা সংবাদ পান যে, সিরিয়ার সীমান্তে দুমাতুল জান্দালের আশেপাশে কিছু গোত্র যারা সড়ক ডাকাতি ও লুণ্ঠনের সাথে সরাসরি বা অসরাসরি জড়িত ছিল; তারা সৈন্য সংগ্রহের উপায় এবং মদিনায় হামলা চালানোর ফিকির করছে। তিনি অবিলম্বে সিবা বিন আরফাতাহ গিফারিকে তার অনুপস্থিতিতে মদিনার বিষয়গুলো নিষ্পত্তি করার জন্য নিযুক্ত করেন এবং এক হাজার মুসলমানকে সাথে নিয়ে যাত্রা করেন, বনু উছরাহ থেকে মাযকুর নামে একজন ব্যক্তি তার পথপ্রদর্শক ছিলেন।

দুমাতুল জান্দাল যাওয়ার পথে তারা রাতে যাত্রা করতেন এবং দিনে লুকিয়ে থাকতেন। যাতে তারা শত্রুকে চমকে দিতে পারেন। যখন তারা তাদের গন্তব্যের কাছাকাছি পৌঁছেন, তখন মুসলমানরা আবিষ্কার করেন যে ষড়যন্ত্রকারী লোকেরা অন্য জায়গায় চলে গেছে, তাই তারা তাদের গবাদি পশু এবং রাখালদের ধরে আটক করেছিল। মুহম্মদ সেখানে পাঁচদিন অবস্থান করেন। সেসময় তিনি শত্রু সেনাদের সন্ধানের জন্য অভিযাত্রী বাহিনী প্রেরণ করেন কিন্তু তারা কাউকে শনাক্ত করতে পারেনি। মদিনায় ফিরে তিনি উয়াইনাহ বিন হিসানের সাথে একটি চুক্তি করেন।

বিশ্লেষণ[সম্পাদনা]

উইলিয়াম মন্টগোমারি ওয়াট দাবি করেন যে, এটিই ছিল সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য অভিযান যেটি মুহাম্মাদ সেই সময়ে নির্দেশ দিয়েছিলেন, যদিও প্রাথমিক সূত্রে এটি সামান্য উল্লেখযোগ্যতা পেয়েছিল। দুমাতুল জান্দাল মদিনা থেকে ৫০০ মাইল দূরে ছিল, এবং ওয়াট বলেছেন যে সিরিয়ার সাথে তার যোগাযোগ এবং মদিনায় সরবরাহ ব্যাহত হওয়ার সম্ভাবনা ছাড়া মুহাম্মাদের জন্য তাৎক্ষণিক কোনো হুমকি ছিল না। ওয়াট বলেছেন "এটি অনুমান করা যায় যে, মুহাম্মাদ ইতিমধ্যেই তার মৃত্যুর পরে ঘটে যাওয়া সম্প্রসারণের কিছু কল্পনা করছিলেন" এবং তার সৈন্যদের দ্রুত অগ্রযাত্রা অবশ্যই "যারা এটি শুনেছিল তাদের সবাইকে প্রভাবিত করেছে"।[৩]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

মন্তব্য[সম্পাদনা]

  1. Rahman al-Mubarakpuri, Saifur (২০০৫), The Sealed Nectar, Darussalam Publications, পৃষ্ঠা 193–194  (online)
  2. Watt, W. Montgomery (১৯৫৬)। Muhammad at Medina। Oxford At The Claredon Press। পৃষ্ঠা 341 
  3. Watt, W. Montgomery (১৯৫৬)। Muhammad at Medina। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 35। আইএসবিএন 978-0-19-577307-1 Watt, W. Montgomery (1956).