বিষয়বস্তুতে চলুন

দিভেহি রায়িথুঙ্গে পার্টি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দিভেহি রায়িথুঙ্গে পার্টি
ދިވެހި ރައްޔިތުންގެ ޕާޓީ
নেতাআব্দুল্লাহ জাবির[১]
প্রতিষ্ঠা২১ জুলাই ২০০৫
ভাঙ্গন১৫ মার্চ ২০২৩[২]
সদর দপ্তরমালে, মালদ্বীপ
সদস্যপদ৩৭৯৫[৩]
ভাবাদর্শরক্ষণশীলতাবাদ
জনতুষ্টিবাদ
ইসলামি গণতন্ত্র
জাতীয়তাবাদ
রাজনৈতিক অবস্থানকেন্দ্র-ডান থেকে ডানপন্থী রাজনীতি
ওয়েবসাইট
www.drp.mv
মালদ্বীপের রাজনীতি
নির্বাচন
২৫ জুন ২০১৭ পর্যন্ত সদস্যপদ আপডেট করা হয়েছে

দিভেহি রায়িথুঞ্জ পার্টি (ধিবেহী: ދިވެހި ރައްޔިތުންގެ ޕާޓީ, ইংরেজি: Maldivian People’s Party, ডিআরপি) ছিল মালদ্বীপের একটি রাজনৈতিক দল। ২ জুন ২০০৫-এ দেশের ৫০-সদস্যের সংসদ মালদ্বীপে রাজনৈতিক দলগুলিকে অনুমতি এবং পরিচালনা করার জন্য সর্বসম্মতভাবে ভোট দেয়। ডিআরপি পরবর্তীকালে ২১ জুলাই ২০০৫-এ তার নিবন্ধন জমা দেয় এবং মালদ্বীপ প্রজাতন্ত্রের দ্বিতীয় নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল ছিল।

২০২৩ সালের প্রথম দিকে নির্বাচন কমিশন ডিআরপি বিলুপ্ত করার সিদ্ধান্ত জারি করে। কারণ দলটি আইন দ্বারা বাধ্যতামূলকভাবে ন্যূনতম ৩,০০০ সদস্য বজায় রাখতে ব্যর্থ হয়েছিল। বিষয়টি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ডিআরপিকে সব ধরনের রাজনৈতিক কার্যক্রম বন্ধ রাখতে বলেছে ইসি।[৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মাউমুন আব্দুল গাইয়ুম (২০০৫-২০১০)[সম্পাদনা]

২ জুন ২০০৫-এ দেশের ৫০-সদস্যের সংসদ মালদ্বীপে রাজনৈতিক দলগুলিকে অনুমতি এবং পরিচালনা করার জন্য সর্বসম্মতভাবে ভোট দেয়। ডিআরপি পরবর্তীকালে ২১ জুলাই ২০০৫-এ তার নিবন্ধন জমা দেয়। এটি মালদ্বীপের দ্বিতীয় প্রজাতন্ত্রের দ্বিতীয় নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল ছিল।

৯ মে ২০০৯-এ মালদ্বীপে প্রথম বহুদলীয় সংসদীয় নির্বাচনে ডিআরপি সংসদে ৩৬% আসন (৭৭টি আসনের মধ্যে ২৮) জিতেছিল এবং সবচেয়ে বেশি আসন জয়ী দল হয়ে উঠেছে। যাইহোক ডিআরপি মালদ্বীপের ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রাপ্ত ৩৫.৩% ভোটের (৫০,৫৬২ ভোট) তুলনায় ২৭.৫% ভোট (৩৯,৩৯৯ ভোট) নিয়ে দ্বিতীয় সর্বাধিক ভোট পেয়েছে।

আহমেদ থাসমিন আলী (২০১০-২০১৩)[সম্পাদনা]

২০১১ সালে দলের প্রথম নেতা প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি মাউমুন আব্দুল গাইয়ুম দলের মধ্যে স্বার্থের বিতর্কিত দ্বন্দ্ব এবং রাজনৈতিক প্রতিযোগিতার মধ্যে নিজেকে দল থেকে সরিয়ে নেন।[৫] তিনি মালদ্বীপের প্রগ্রেসিভ পার্টি (পিপিএম) নামে একটি নতুন রাজনৈতিক দল গঠন করেন। এটি এমন একটি বিন্দু যেখানে ২০০৮ সালের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে পরাজয়ের পরে গাইয়ুমের রানিংমেট হিসাবে আহমেদ থাসমিন আলীর সাথে ডিআরপির একটি বিশাল ঋণ ছিল। একবার গাইয়ুম চলে গেলে দলের নেতৃত্বে ছিলেন আহমেদ থাসমিন আলী যাকে উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত ৩২ মিলিয়ন রুফিয়া ঋণের সম্মুখীন হতে হয়েছিল। দলের নেতা হিসেবে এটাই ছিল তার জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। ২০১৩ সালের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রথম রাউন্ডে পরাজয়ের পর থাসমিন আলী প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ড. ওয়াহেদের রানিংমেট হওয়ায় ডিআরপি দ্বিতীয় দফা নির্বাচনে এমডিপিকে সমর্থন করার সিদ্ধান্ত নেয় যা দলের অনেক সদস্যকে হতাশ করে। দ্বিতীয় দফায় পিপিএমের কাছে পরাজিত হয় এমডিপি। আহমেদ থাসমিন আলী তখন এমডিপিতে যোগদানের সিদ্ধান্ত নেন।[৬] বর্তমান নেতা মোহাম্মদ নাশিদের (কর্নেল) হাতে ডিআরপি ছেড়ে দেন যিনি সাহসের সাথে দায়িত্ব পালন করেন যখন দু'বার দুই নেতা দল ত্যাগ করেছিলেন। নেতৃত্ব গ্রহণ করে মোহাম্মদ নাশিদ দলের অনেক ক্ষেত্রে সংস্কার ও পুনরুদ্ধারের প্রতিশ্রুতি দেন। তিনি বলেছিলেন যে দলটি এই মুহুর্তে আইসিইউতে রয়েছে কারণ দলের নিরীক্ষিত এবং অনিরীক্ষিত ঋণের পরিমাণ ১০ মিলিয়ন রুফিয়া পর্যন্ত হবে।[৭]

মোহাম্মদ নাশিদ (কর্নেল) (২০১৩-২০১৯)[সম্পাদনা]

ডিআরপির নতুন প্রস্তাবিত লোগো

ডিআরপির বর্তমান নেতা আবদুল্লাহ জাবির।[৮] ১৪২তম কাউন্সিল সভায় সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোট পেয়ে তিনি ১৮ নভেম্বর ২০১৩-এ দলের নেতা হন।

নেতৃত্ব গ্রহণের পরপরই মোহাম্মদ নাশিদ একজন দৃঢ়প্রতিজ্ঞ নেতা হিসেবে দলের লোগো পরিবর্তনের জন্য সবার জন্য উন্মুক্ত একটি লোগো প্রতিযোগিতার ঘোষণা দেন। এটি ডিআরপি-র রি-ব্র্যান্ডিং এবং সংস্কারের অংশ ছিল। প্রথম স্থান অর্জন করার জন্য লোগোটি ছিল "রাইজিং স্টার" ডিজাইন করা হয়েছে মডার্ন আর্টস। লোগোটি মুহাম্মদ জামিল দিদির একটি কবিতার একটি শ্লোক থেকে অনুপ্রাণিত হয়েছিল যিনি একজন বিখ্যাত কবি এবং মালদ্বীপের একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ছিলেন।

দলের উদ্দেশ্য[সম্পাদনা]

দলের গঠনতন্ত্র অনুসারে ডিআরপির উদ্দেশ্যগুলি হল:

  • ইসলামী ঐক্যের বিদ্যমান বন্ধনকে শক্তিশালী ও রক্ষা করা।
  • একটি নতুন প্রজন্মের সুশৃঙ্খল এবং প্রতিভাবান যুবকদের তৈরি করা যারা সামনের বছরগুলিতে জাতীয় অগ্রগতির চাদর বহন করবে।
  • ন্যায়বিচার বজায় রাখা।
  • জনগণের আকাঙ্ক্ষা প্রতিফলিত করতে মালদ্বীপের সমাজের মডেলিং।
  • ক্ষতিকর বাহ্যিক প্রভাব থেকে মালদ্বীপকে রক্ষা করা।
  • প্রতিটি নাগরিকের জন্য আবাসন, শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যসেবার মতো মৌলিক পরিষেবাগুলিতে সহজে প্রবেশের সুবিধা প্রদান করা।
  • শান্তি ও সম্প্রীতির পরিবেশে গার্হস্থ্য বিষয়গুলি ফ্যাশন করার দৃষ্টিভঙ্গি সহ একটি নতুন প্রজন্মের তরুণ নেতাদের পরিচয় করিয়ে দেওয়া।
  • জনগণের কল্যাণের জন্য অবিচলভাবে কাজ করে একটি পরিষেবা-ভিত্তিক জনসংখ্যা তৈরি করা।

নির্বাচনের ফলাফল[সম্পাদনা]

রাষ্ট্রপতি[সম্পাদনা]

বছর প্রার্থী ১ম রাউন্ড ২য় রাউন্ড ফলাফল
রাষ্ট্রপতি উপরাষ্ট্রপতি ভোট ভোট % ভোট ভোট %
২০০৮ মাউমুন আব্দুল গাইয়ুম আহমেদ থাসমিন আলী ৭১,৭৭৯ ৪০,৩৪ ৮২,১২১ ৪৫.৩২ পরাজিত
২০১৩ মোহাম্মদ ওয়াহেদ হাসান আহমেদ থাসমিন আলী ১০,৭৫০ ৫,১৩ প্র/না বাতিল
দ্বিতীয় দফায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি
২০১৮ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি

গণ মজলিস[সম্পাদনা]

বছর দলীয় নেতা ভোট ভোট % আসন মন্তব্য
২০০৫ কেউই নয় ৭১,৫৫৮ ৩২.২৯
২০ / ৪২
ডিআরপি সমর্থনকারী স্বতন্ত্র হিসাবে দৌড়েছেন
২০০৯ মাউমুন আব্দুল গাইয়ুম ৪০,৮৮৬ ২৪.৬২
২৬ / ৭৭
২০১৪ কর্নেল মোহাম্মদ নাশিদ ৫৪৯ ০.৩০
০ / ৮৫

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Jabir takes over as leader of Dhivehi Rayythunge Party"The Edition। ২০১৯-০৭-২৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০১-১৮ 
  2. "DRP, MLSDP removed from political party registry"Avas (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২৩-০৩-১৫। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০৪-২৯ 
  3. "Election Commission of Maldives"। ২০১৭-০৬-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-২৪ 
  4. Shahid, Malika (১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩)। "MP Jabir resigns from DRP to form new party"The Edition। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০১-১৮ 
  5. Saeed, Shaheeda (৫ সেপ্টেম্বর ২০১১)। "Gayoom resigns from DRP"। Miadhu। ১৪ জুলাই ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুন ২০১৪ 
  6. Ahmed, Fazeena (১৮ নভে ২০১৩)। "Thasmeen resigns as DRP leader"। Haveeru Online। ২ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুন ২০১৪ 
  7. Naahee, Mohamed (২৬ নভেম্বর ২০১৩)। "Three DRP MPs defect to Jumhoree Party"। Minivan News। ২৩ জুলাই ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুন ২০১৪ 
  8. Aiham, Ahmed (২৪ জুলাই ২০১৯)। "Jabir takes over as leader of Dhivehi Rayythunge Party"The Edition। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-১১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]