দারুল ইফতা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
دار الإفتاء المصرية.png

মিশরের দারুল ইফতা ( আরবি: دار الإفتاء المصرية‎‎ Dār al-Iftā' al-Miṣriyyah ) একটি মিশরীয় ইসলামিক পরামর্শদাতা, বিচারপতি এবং সরকারি সংস্থা [১] মিশরে ইসলাম ও ইসলামী আইনি গবেষণার কেন্দ্র হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ১৩১৩ হিজরি / ১৮৯৯ খ্রিস্টাব্দে। এটি প্রতিদিন এবং সমসাময়িক বিষয়ে ফতোয়া জারি করার মাধ্যমে মুসলমানদের ধর্মীয় দিকনির্দেশনা এবং পরামর্শ দেয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

[ উদ্ধৃতি প্রয়োজন ]

দার আল-ইফতী কুরআন ও ভবিষ্যদ্বাণীমূলক সাহিত্যের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি করেছেন এবং ইসলামের নীতিমালা অনুসারে মুসলমানদের জীবনযাপন করতে সাহায্য করার জন্য ইতিহাস জুড়ে ফকীহদের মতামত নিয়ে আলোচনা করেছেন যাতে তারা এই জীবনে সুখ পেতে পারে এবং সর্বোত্তম পুরস্কার প্রাপ্ত করতে পারে পরকাল।

দার আল-ইফতার অবস্থা[সম্পাদনা]

এটি প্রথম প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পরে, মিশরের দার আল-ইফতা ইসলাম ও আইনি গবেষণার আন্তর্জাতিক প্রতিনিধিত্বকারী প্রধান প্রতিষ্ঠান হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এটি সমসাময়িক মুসলিমকে ধর্মীয় নীতিগুলির সাথে যোগাযোগ রেখে, সঠিক পথটি স্পষ্ট করে, ধর্মীয় ও পার্থিব জীবন সম্পর্কিত সন্দেহগুলি দূর করার মাধ্যমে এবং সমসাময়িক জীবনের নতুন ইস্যুগুলির জন্য ধর্মীয় আইন প্রকাশের মাধ্যমে ঐতিহাসিক এবং নাগরিক ভূমিকা পরিপূর্ণ করে।

মিশরের দার আল-ইফতা মিশরের ধর্মীয় ভিত্তির স্তম্ভগুলির মধ্যে রয়েছে যার মধ্যে আল-আজহার আল-শরীফ, আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয়, ধর্মীয় অনুদান মন্ত্রক এবং মিশরের দার-ইফতা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। মিশরে বিচার বিভাগের জন্য জনসাধারণকে রায় প্রদান ও পরামর্শ দেওয়ার ক্ষেত্রে এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

মিশরের দার আল-ইফতা মিশরীয় বিচার মন্ত্রকের অন্যতম বিভাগ হিসাবে শুরু হয়েছিল। এর পরামর্শের ভূমিকার পরিপ্রেক্ষিতে, অন্যদের মধ্যে মৃত্যুদণ্ডের শাস্তি মিশরের দার আল-ইফতাকে এই শাস্তি সম্পর্কে গ্র্যান্ড মুফতীর মতামত চেয়ে বোঝানো হয়েছে। দার আল-ইফতার ভূমিকা এই সময়ে থামবে না; এটি ঘরোয়া সীমানা দ্বারা সীমাবদ্ধ নয়, পুরো ইসলামী বিশ্ব জুড়ে মিশরের বাইরেও প্রসারিত।

এই নেতৃস্থানীয় ভূমিকাটি এর শুরু থেকে আজ অবধি তার ফতোয়ার রেকর্ডগুলির দ্বারা সর্বোত্তম প্রকাশিত বিষয় দার আল-ইফতা সমস্ত ইসলামী বিশ্ব থেকে তেমনি প্রশিক্ষণের জন্য ইসলামী আইনের বিদেশী শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অনুসন্ধানগুলি পান। এই নেতৃত্বটি দার আল-ইফতার ভূমিকা থেকে পণ্ডিতের রেফারেন্স হিসাবে এবং উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত ফিকাহ (ইঞ্জি। আইনশাস্ত্র) ইসলামী আইন এবং সমাজের প্রয়োজনের মধ্যে একটি ধারাবাহিকতা তৈরি করে।

যোগাযোগের ক্ষেত্রে বিশাল অগ্রগতির সাথে তাল মিলিয়ে, দার আল-ইফতা যোগাযোগ ও পরিবহনের নতুন যুগের দ্বারা পরিচালিত হয়ে গুণগত উত্তরণের দ্বারা আরোপিত বিশাল কাজগুলি হাতে নিয়েছে। [২]

প্রধান মুফতি[সম্পাদনা]

  • (১৮৯৫ - ১৮৯৯) শায়খ হাসুনাহ আল নওয়াবী
  • (১৮৯৯ - ১৯০৫) ইমাম শায়খ মুহাম্মদ আবদুহ
  • (নভেম্বর ১৯০৫) শায়খ আবদেল কাদের এল রাফেই [৩]
  • (১৯০৫ - ১৯১৪) শায়খ বাকরী আল-সাদাফি
  • (১৯১৪ - ১৯২০) শায়খ মুহাম্মদ বখিত আল-মুতিয়ী
  • (জুলাই ১৯২০ - নভেম্বর ১৯২০) শায়খ মুহাম্মদ ইসমা`ল আল-বার্দিসি
  • (১৯২১ - ১৯২৮) শায়খ `আব্দুল রহমান কুরআরাহ
  • (১৯২৮ - ১৯৪৫) শায়খ `আবদ আল-মজিদ সেলিম
  • (১৯৪৬ - ১৯৫০) শায়খ হাসানায়ন মুহাম্মদ মাখলুফ
  • (১৯৫০ - ১৯৫২) শায়খ `আল্লাম নাসার
  • (১৯৫২ - ১৯৫৪) দ্বিতীয় পদ  : শায়খ হাসনাইন মুহাম্মদ মাখলুফ
  • (১৯৫৫ - ১৯৬০) শায়খ হাসান মামুন
  • (১৯৬০ - ১৯৭০) শায়খ আহমদ মুহাম্মদ `আবদ-আল-আল হরিদি
  • (১৯৭০ - ১৯৭৮) শায়খ মুহাম্মদ খাতির মুহাম্মাদ আল শায়খ
  • (১৯৭৮ - ১৯৮২) শায়খ জাদ আল-হাক্ক `আলী যাদ আল-হক
  • (১৯৮২ - ১৯৮৫) শায়খ `আবদ আল-লতিফ` আব্দুল-গাণি হামযাহ
  • (১৯৮৬ - ১৯৯৬) ডাঃ মুহাম্মদ সায়িদ তানতাভী
  • (১৯৯৬ - ২০০২) ডাঃ নসর ফরিদ ওয়াসিল
  • (২০০২ -২০০৩) ডাঃ মোহাম্মদ আহমেদ আল-তায়েব
  • (সেপ্টেম্বর ২০০৩ - ফেব্রুয়ারি ২০১৩) আলি গোমা প্রফেসর ড
  • (ফেব্রুয়ারি ২০১৩ - বর্তমান) শায়খ শওকী ইব্রাহিম আবদেল-করিম আল্লাম

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Ramadan in Saudi Arabia"The Economist। ১১ জুন ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুন ২০১৬ 
  2. "دار الإفتاء المصرية - عن الدار"Dar al-Ifta al Misriyyah। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১১-০৫ 
  3. "Grand Mufti of Egypt"। নভেম্বর ১৮, ১৯০৫: 82। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]