বিষয়বস্তুতে চলুন

দধালিয়া রাজ্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দধালিয়া রাজ্য
ব্রিটিশ ভারত দেশীয় রাজ্য
১৮৪০–১৯৪৮

ডানদিকের চিত্রাংশটিতে সবুজ বর্ণে‌ চিহ্নিত দধালিয়া রাজ্য
আয়তন 
• ১৯০১
৫৯ বর্গকিলোমিটার (২৩ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা 
• ১৯০১
২,৬১৯
ইতিহাস 
• প্রতিষ্ঠিত
১৮৪০
১৯৪৮
উত্তরসূরী
ভারত

দধালিয়া রাজ্য ছিলো ব্রিটিশ শাসিত ভারতে অবস্থিত একটি অ-তোপ সেলামী পঞ্চম শ্রেণীর ক্ষুদ্র দেশীয় রাজ্য, যা বর্তমানে ভারতের অন্তর্গত৷ ব্রিটিশ ভারতে এটি বোম্বে প্রেসিডেন্সির বরোদা রাজ্য, পশ্চিম ভারত ও গুজরাত রাজ্য এজেন্সির মহীকাণ্ঠা এজেন্সিতে অবস্থিত রাজ্যগুলির মধ্যে একটি ছিলো।[১] রাজ্যটির রাজধানী ছিলো দধালিয়া গ্রামে, যা বর্তমানে গুজরাত রাজ্যের সবরকাণ্ঠা জেলায় অবস্থিত৷

ইতিহাস[সম্পাদনা]

দধালিয়া রাজ্যটি ৫৯ বর্গ কিলোমিটার ক্ষেত্রফল জুড়ে বিস্তৃত ছিলো এবং ১৯০১ খ্রিস্টাব্দের জনগণনা অনুসারে এর জনসংখ্যা ছিলো ২৬১৯ জন৷ রাজ্যে সংগৃহীত মোট রাজস্বের পরিমান ছিলো ৩৬৮৯ ভারতীয় মুদ্রা, যার অর্ধেক আসতো কৃষিকাজ ও বনজ সম্পদের মাধ্যমে৷ মোট রাজস্বের ৬৯৯ মুদ্রা বরোদা রাজ্যকে ও ৬১১ মুদ্রা ইদার রাজ্যকে কর হিসাবে দিতে হতো৷[২] ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দে ভারতের স্বাধীনতা লাভের পর দধালিয়া রাজ্যের শেষ শাসক ভারতীয় অধিরাজ্যে যোগদানের ইচ্ছা প্রকাশ করে একীভূতকরণের দলিল স্বাক্ষর করলে ১৯৪৮ খ্রিস্টাব্দের ১০ই জুন তারিখে রাজ্যটিকে ভারতের বম্বে রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত করা হয়৷[৩][৪] ১৯৬০ খ্রিস্টাব্দে বোম্বে রাজ্য দ্বিখণ্ডিত হয়ে মহারাষ্ট্র এবং গুজরাত প্রদেশ গঠন করলে পূর্বতন এই দেশীয় রাজ্যটি গুজরাত প্রদেশের অংশীভূত হয়।

শাসকবর্গ[সম্পাদনা]

দধালিয়া দেশীয় রাজ্যের শাসকগণ রাজা সাহেব উপাধিতে ভূষিত হতেন৷

রাজা সাহেব[সম্পাদনা]

  • ১৮৪০ - ১৮৬০ : শমলশা
  • ১৮৬০ - ১৯২৫ : কালিদাস
  • ১৯২৫ - ১৯৩৫ : মূলজী
  • ১৯৩৫ - ১৯৪৮ : তোয়াজী

নামমাত্র রাজা[সম্পাদনা]

  • ১৯৪৮ - ১৯৬৪ : তোয়াজী
  • ১৯৬৪ – ১৯৯০ : আলজী
  • ১৯৯০ – বর্তমান : রমেশজী[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Imperial Gazetteer of India, v. 17, p. 384.
  2. Princely States of India
  3. Wiki Source, White Paper on Indian States (1950)/Part 4/Instrument of Accession 
  4. "VIJAYNAGAR"। ১৯ অক্টোবর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  5. "Indian Princely States K-Z"www.worldstatesmen.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-১৭