বিষয়বস্তুতে চলুন

থারু জাতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
থারু জাতি थारू[১]
সোনু থারু
উল্লেখযোগ্য জনসংখ্যার অঞ্চল
   নেপাল১৮,০৭,১২৪[২]
 ভারত১,৬৯,২০৯[৩]
ভাষা
থারু ভাষা
ধর্ম
হিন্দুধর্ম, বৌদ্ধধর্ম, পরম্পরাগত বিশ্বাস
সংশ্লিষ্ট জনগোষ্ঠী
ভোকষা জাতি · ভুটিয়া জাতি · পোখারিয়া জাতি · বান রাওয়াঠ

থারু (দেবনাগরী: थारू) দক্ষিণ নেপাল এবং উত্তর ভারতের তেরাইতে আদিবাসী একটি গোষ্ঠী [৪] নেপালভারত সরকার থারু জনজাতির লোকেদের স্বীকৃত নাগরিক অধিকার প্রদান করেছে। [৫]নেপাল সরকার এগুলি একটি সরকারী জাতীয়তা হিসাবে স্বীকৃত।[৬] নেপালে থারু বেশিরভাগ জনবহুল আদিবাসী যারা নেপালের দক্ষিণাঞ্চলীয় সমভূমি পুরো তেরাই এবং অভ্যন্তরীণ তারাই বরাবর ২০টিরও বেশি জেলা বসতি স্থাপন করেছে। এগুলি লোককাহিনী, সাহিত্য, ভাষাতে সমৃদ্ধ।

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

থারু জাতির ঐতিহ্যবাহী পোশাকে থারু মহিলা

২০১১র জনগণনা, থারু জাতির জনসংখ্যা ১,৭৩৭,৪৭০ জন, যা নেপালের মোট জনসংখ্যার ৬.৬%।[৭]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

থারু মানুষের উৎপত্তি পুরাণ এবং মৌখিক বিশ্বাস দ্বারা বেষ্টিত। ইতিহাস থেকে, থারিকে পৃথিবীর পুত্র হিসাবে বিবেচনা করা হয় । নেপালের তিহাসিক চরিত্রের নির্মাতা পৃথ্বনারায়ণ শাহ কাঠমান্ডু উপত্যকাকে দখলের পরে সুরক্ষার জন্য থারু সেনাবাহিনীকে নিয়ে এসেছিলেন।

থারু ভাষা[সম্পাদনা]

থারু ভাষা থারু সম্প্রদায়ের মধ্যে কথিত একটি ভাষা। নেপাল এবং ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে থারু সম্প্রদায় একই ভাষা ভাগ করে না। বেশ কয়েকটি বিভিন্ন স্থানীয় থারু ভাষায় কথা বলে। নেপালে থারু ভাষা অন্যতম প্রধান ভাষা। কুমার, আউধী, মাইথিলি, বাংলা এবং ভোজপুরি প্রভৃতি প্রতিবেশী ভাষার সাথে থারু ভাষাগুলির সূক্ষ্ম মিল রয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Turner, R. L. (১৯৬১)। A Comparative and Etymological Dictionary of the Nepali Language। London: Routledge। ৮ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০১৬ 
  2. National Statistics Office (২০২১)। National Population and Housing Census 2021, Caste/Ethnicity ReportGovernment of Nepal (প্রতিবেদন)। 
  3. Office of the Registrar General, India (2001)। "Uttar Pradesh. Data Highlights: The Scheduled Tribes. Census of India 2001" (পিডিএফ) 
  4. Rajaure, D. P. (১৯৮১)। "Tharus of Dang: The people and the social context" (পিডিএফ)Kailash। Kathmandu: Ratna Pustak Bhandar। 8 (3/4): 155–185। 
  5. Lewis, M. P. (২০০৯)। "Tharu, Chitwania: a language of Nepal"Ethnologue: Languages of the World। Dallas: SIL International। ২৩ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০১৬ 
  6. "Indigenous Peoples -Tharu"www.indigenousvoice.com। ২০২১-০৬-১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৬-১০ 
  7. Central Bureau of Statistics (২০১২)। National Population and Housing Census 2011 (National Report) (পিডিএফ)। Government of Nepal, National Planning Commission Secretariat, Kathmandu। ১৮ এপ্রিল ২০১৩ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০১৬