ত্রিশূল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ত্রিশূল
Statue of lord shiva.jpg
দিল্লির রংপুরীতে ত্রিশূল হাতে ভগবান শিবের মূর্তি
প্রকার তিনটি শূল যুক্ত
উদ্ভাবনকারী দক্ষিণ এশিয়ার দেশ: ভারত, ভুটান, শ্রীলঙ্কা, নেপাল , আফগানিস্তান, মালদ্বীপ, পাকিস্তান (বৌদ্ধ এবং হিন্দুদের জন্য), বাংলাদেশ
দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশ: থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া

ত্রিশূল (সংস্কৃত ভাষা: त्रिशूल, আন্তর্জাতিক সংস্কৃত লিপ্যন্তর: triśūla) হলো ধারালো তিনটি বর্শার ফলাযুক্ত একটি অস্ত্রবিশেষ, যা সাধারণভাবে হিন্দুধর্মবৌদ্ধধর্মে শুভ চিহ্ন হিসাবে পরিগণিত হয়৷

ভারতীয় উপদ্বীপ এবং থাইল্যান্ডে ত্রিশূল ছোটো আকারে কোনো লাঠি বা দণ্ডের চূড়ায় লাগানো থাকা অবস্থায় দেখা যায়৷ কিন্তু ওকিনাওয়ার সাই অস্ত্রের মতো এটি ভোঁতা নয় বরং প্রতিটি ফলাই ধারালো৷ মালয় উপদ্বীপ এবং ইন্দোনেশিয়াতে ত্রিশূল সবসময়ই লম্বা হাতলযুক্ত হয়ে থাকে এবং এটির ছোট আকিরের একই রকম দেখতে অস্ত্রটিকে স্থানীয় ভাবে ত্রিশূল না বলে বরং "চবঙ" বা "তেকপি" বলা হয়ে থাকে৷

নামকরণ[সম্পাদনা]

ত্রিশূল শব্দের আক্ষরিক অর্থ তিনটি শূলের সমষ্টি৷ শূল বলতে সূঁচালো মাথাযুক্ত এবং ধারালো ফলাযুক্ত একটি ধাতব অস্ত্র৷ ত্রিশূলে তিনটি শূল একটি দণ্ডে গোড়ায় যুক্ত থাকে৷

বিভিন্ন ভাষায় ত্রিশূলের নামগুলি হলো,

প্রতীকতা[সম্পাদনা]

ত্রিশূল হলো বহুযোজীতা এবং সমৃৃদ্ধির প্রতীক৷ এটি মূলক ভগবান শিবের চিহ্নরূপে তার হাতে বিরাজমান থাকে৷ পুরাণ মতে নিজপুত্র গণেশকে চিনতে না পেরে ক্রোধের বশে তিনি এই ত্রিশূল দিয়েই গণেশের শিরোচ্ছেদ করেছিলেন৷ দেবী দূর্গাও তার অন্যান্য অস্ত্রের সাথে ত্রিশূল ধারণ করেন৷ ত্রিশূলের তিনটি ফলার একাধিক অর্থ ও গূরুত্ব রয়েছে৷ এটি হিন্দূ ধর্মাবলম্বীদের খুব সাধারণ একটি বিষয় এবং এর তাৎপর্যের পেছনে একাধিক পুস্তকে বিভিন্ন ব্যাখ্যা রয়েছে৷ ত্রিশূলের তিনটি ফলা জীবনের বিভিন্ন ত্রিত্বগুণকে উপস্থাপন করে৷ ত্রিত্ব বৈশিষ্ট্যগুলি হলো, সৃষ্টি-স্থিতি-বিনাশ, অতীত-বর্তমান-ভবিষ্যত, দেহ-মন-আত্মা, ধর্ম-সিদ্ধি-উদ্গম দিয়ে তৈরী ত্রিকায়া, সমবেদনা-আনন্দ-ভালোবাসা, আধ্যাত্মিকতা-মনস্তত্ত্ব-আপেক্ষিকতা, সুখ-স্বস্তি-বিষণ্ণতা, গর্ব-খ্যাতি-আমিত্ব, স্পষ্টতা-জ্ঞান-পাণ্ডিত্য, স্বর্গ-মন-পৃৃথিবী, অহং-অগ্নি-ভূ, আত্মা-আবেগ-জীব, যুক্তি-আসক্তি-বিশ্বাস, প্রার্থনা-প্রকাশ-মহিমা, প্রজ্ঞা-ধ্যান-বোধিসত্ত্ব, অধ্যয়ন-বোধগম্যতা-জ্ঞান, মৃত্যু-উত্তরণ-পুনরুজ্জীবন, সৃৃষ্টি-আদেশ-বিনাশ৷ এরকম তিনটি গুণের প্রকাশকে একত্রে ত্রিশূলের রূপ হিসাবে মনে করা হয়৷ ত্রিশূলকে যখন ভগবান শিবের শিবের অস্ত্র হিসাবে ধরা হয় তখন ত্রিশূল তিনটি বস্তুকে ধ্বংস করতে উদ্যত হয় যথা, ভৌতিক বিশ্বব্রহ্মাণ্ড, পিতৃৃপুরুষগণের বিশ্ব এবং মনোজগৎ৷ শিবের একটি হুংকারে তিনি ত্রিভূবন ধ্বংস করতে পারেন বলে ধারণা করা হয়৷

মানবদেহে যেই অঞ্চলে তিনটি যোগ নাড়ী তথা ইড়া, পিঙ্গল এবং সুষুম্না একত্রে মিলিত হয় তাকেও ত্রিশূল বলে ধরা হয়ে থাকে৷ এটি সাধারণত ভ্রূমধ্যস্থল৷ সুষুম্না হলো মধ্যস্থ নাড়ী এবং এটি আরো উর্ধ্বে উত্থিত হয়ে ব্রহ্মতালু স্থলে সপ্তম চক্র বা শক্তিকেন্দ্রটি সম্পন্ন করেছে৷ অপর দুটি উভয় ভ্রূ বরাবর শেষ হয়েছে যেখানে ষষ্ট চক্রটি রয়েছে৷ ত্রিশূলের মধ্যাক্ষটি এই সুষুম্নার প্রতিভূ, ফলে এটি বাকী দুটির থেকে অধিক দীর্ঘ৷

অন্যান্য উল্লেখ[সম্পাদনা]

১) শিবপুরাণ অনুসারে শিব হলেন স্বয়ম্ভু যিনি নিজের চেতনায় নিজ ইচ্ছায় সৃৃষ্ট হন৷ তিনি সদাশিবের সরাসরি অবতার রূপে উত্থিত হন এবং সৃষ্টির প্রথম থেকে ত্রিশূল তার সঙ্গী৷

২) বিষ্ণুপুরাণ অনুসারে সূর্যের তেজ ও রশ্মির ব্যবহার করে দেবশিল্পী বিশ্বকর্মা ত্রিশূল নির্মাণ করেন এবং তা শিবকে প্রদান করেন৷ সূর্যদেব বিশ্বকর্মার কন্যা সঞ্জনাকে বিবাহ করলে তার স্ত্রী এই বিষয়ে বেশ অসন্তুষ্ট হন৷ তার মতে তার কন্যার পক্ষে সূর্যের তেজ সহন করা সম্ভব না৷ তিনি তার স্বামী বিশ্বকর্মাকে এ নিয়ে অভিযোগ করেন ও এর নিষ্পত্তি চান৷ উভয়ের আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সঞ্জনাকে পাওয়ার জন্য সূর্যদেব নিজ তেজ হ্রাস করতে ইচ্ছুক হন৷ সৌরবস্তু পৃথিবীতে পতিত হয় ও সূর্যতেজ হ্রাস পায়৷ এক অষ্টমাংশ ঐ সৌরবস্তু ব্যবহার করেই তিনি পৃথিবীকে তাপ হতে নিস্তার দিতে ত্রিশূল তৈরী করেন৷

৩) অনেকক্ষেত্রে ত্রিশূলকে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের ত্রিরত্নের সাথেও তুলনা করা হয়ে থাকে৷

৪) দেবী দুর্গা তার অন্যান্য হাতে একাধিক অস্ত্রের সাথে ত্রিশূলও ধারণ করেন৷ দেবজ্যোতির পুঞ্জীভবনে উৎপন্ন হওয়ার পর মহিষাসুর বধের জন্য বিভিন্ন দেবতা তাকে বিভিন্ন অস্ত্রদান করেন৷ ভগবান শিব তাকে এই ত্রিশূলটি দান করেছিলেন৷ শ্বেতবরাহ কল্পে দেবী মহিষাসুরকে ত্রিশূল দিয়েই বধ করেন৷ পরবর্তীকালে শিব; দেবী তথা পার্বতীতে পত্নীরূপে গ্রহণ করেন৷

৫) নেপালের সাম্যবাদী দল নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির নির্বাচনী চিহ্নটি হলো ত্রিশূল৷[১]

৬) রোমানি ভাষায় ত্রিশূলের সমোচ্চারিত শব্দ ত্রিশেল শব্দটির অর্থ ক্রস বা ক্রুশ৷

চিত্রাবলী[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "पार्टीको सूची — Election Commission of Nepal"। ২০১৩-১১-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৯-১৪ 
  2. Wat Arun The trident of Shiv extends from the top of each tower. ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০০৭-০৬-২৮ তারিখে