ত্রিপুরা (দেশীয় রাজ্য)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ত্রিপুরা রাজ্য (পার্বত্য ত্রিপ্পেরাহ)
ব্রিটিশ ভারত দেশীয় রাজ্য
১৮০৯–১৯৪৯
ত্রিপুরার পতাকা
পতাকা
ত্রিপুরার প্রতীক
প্রতীক
Bengalpresidency 1858.jpg
১৮৫৮ সালে ত্রিপুরা
রাজধানীআগরতলা
আয়তন 
• 1941
১০,৬৬০ বর্গকিলোমিটার (৪,১২০ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা 
• 1941
513,000
ইতিহাস 
• ব্রিটিশ রাজ্য
১৮০৯
১৩ আগস্ট ১৯৪৭
১৫ অক্টোবর ১৯৪৯ ১৯৪৯
পূর্বসূরী
উত্তরসূরী
Twipra Kingdom
India
'হিল টিপ্পেরাহ' বেঙ্গল গেজেটিয়ারে, ১৯০৭
উজ্জয়ন্ত প্রাসাদ।
নীরমহল প্রাসাদ।
মহারাজা বীরচন্দ্র মানিক্য রানি মনমোহিনীর সাথে
১৯০০ সালে মহারাজা রাধা কিশোরের সাথে ঠাকুর
কুইন কাঞ্চন প্রভা দেবী যিনি রিজেন্সি কাউন্সিলের সভাপতি, ভারতে যোগদান স্বাক্ষর করেছিলেন

ত্রিপুরা রাজ্য, পার্বত্য টিপ্পেরাহ নামে পরিচিত, ব্রিটিশ রাজ আমলে এবং ব্রিটিশদের বিদায়ের পরে প্রায় দু'বছর ধরে ভারতের একটি দেশীয় রাজ্য ছিল। এর শাসকরা মানিক্য রাজবংশের অন্তর্ভুক্ত ছিল এবং ১৯৪৭ সালের আগস্ট অবধি রাজ্যটি সহায়ক জোটে ছিল, যা থেকে ভারতীয় স্বাধীনতা আইন ১৯৪৭ এর মাধ্যমে মুক্তি পেয়েছিল। রাজ্যটি ১৯৪৭ সালের ১৩ আগস্ট সদ্য-স্বাধীন ভারতীয় ইউনিয়নকে স্বীকৃতি দেয় এবং পরবর্তীতে ১৯৪৯ সালের অক্টোবরে ভারতীয় ইউনিয়নে একীভূত হয়।[১]

রাজ্য রাজ্যটি বর্তমান ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে অবস্থিত। রাজ্যে একটি শহর আগরতলা পাশাপাশি মোট ১,৪৬৩ টি গ্রাম অন্তর্ভুক্ত ছিল। এর আয়তন ছিল ১০,৬৬০ বর্গকিমি।  ১৯৪১ সালে জনসংখ্যা ছিল ৫১৩,০০০ জন।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পূর্ব ত্রিপুরার রাজ্যটি প্রায় ১০০ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। জনশ্রুতি অনুসারে মানিক্য রাজবংশের নাম একটি রত্ন থেকে তৈরি হয়েছিল ( সংস্কৃত ভাষায় 'মণি') যা ব্যাঙ থেকে প্রাপ্ত হয়েছিল। মানিক্যের রাজকীয় শিরোনামে প্রথম রাজা যিনি রাজ্য শাসন করেছিলেন তিনি ছিলেন মহারাজ মহা মানিক্য, যিনি ১৪০০ সালে সিংহাসনে আরোহণ করেছিলেন। রাজমালা, একটি ইতিহাস ধারাতে ত্রিপুরা রাজাদের বিষয়ে রাজা ধর্মমাণিক্যর অধীনে বাংলায় লেখা ছিল।[২] ত্রিপুরার রাজ্যটি ১৬শ শতাব্দীতে সর্বাধিক প্রসারণে পৌঁছেছিল।

১৭৬৪ সালে, যখন ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি বাংলার নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিল, মুঘল সাম্রাজ্যের অধীনে থাকা বাংলার অংশগুলি ব্রিটিশ প্রশাসন দখল করে নেয়। ১৮০৯ সালে ত্রিপুরা একটি ব্রিটিশ রাজ্যে পরিণত হয় এবং ১৮৩৮ সালে ত্রিপুরার রাজারা ব্রিটিশদের দ্বারা সার্বভৌম হিসাবে স্বীকৃত হয়। ১৮৩২ এবং ১৮৬২ এর মধ্যে পূর্ব অংশটি কুকি আক্রমণকারীদের দ্বারা ধ্বংসযজ্ঞের শিকার হয়েছিল যারা গ্রামে লুটপাট এবং ধ্বংসযজ্ঞ করেছিল এবং তাদের বাসিন্দাকে গণহত্যা করেছিল।

ত্রিপুরার রাজপরিবারের সদস্যদের মধ্যে প্রতিটি উত্তরাধিকারেই সমস্যা ছিল যখন উচ্চাকাঙ্ক্ষী রাজকুমারা প্রায়শই কুকীদের সেবা ব্যবহার করে ঝামেলা সৃষ্টি করতেন। এভাবে ১৯০৪ সালে ব্রিটিশরা একটি সনদ কার্যকর করেছিল যা রাজপরিবারের উত্তরসূরি স্থায়ীভাবে নিয়ন্ত্রণ করে। এর পরবর্তীতে এই উত্তরাধিকারটিকে ব্রিটিশ ক্রাউনের অধীনে ভারতের ভাইসরয় দ্বারা স্বীকৃতি হতে হবে।

বীরচন্দ্র মানিক্য (১৮৬২–১৮৯৬) ব্রিটিশ ভারতের আদলে তাঁর প্রশাসনকে মডেল করেছিলেন এবং আগরতলা পৌর কর্পোরেশনের ভিত্তি সহ বিভিন্ন সংস্কার করেন। ১৯০৫ সালে ত্রিপুরা পূর্ব বাংলা ও আসামের নতুন প্রদেশের অংশ হয়ে ওঠে এবং 'পার্বত্য টিপ্পেরা' হিসাবে মনোনীত হয়।[৩] পার্বত্য টিপ্পেরা অঞ্চলটি ত্রিপুরা রাজ্যের সাথে মিলে যায়, রাজারা ১৪৭৬ বর্গকিলোমিটারে অঞ্চল নিয়ে চাকলা রোশনাবাদ নামে একটি উর্বর সম্পত্তি রেখেছিলেন যা নোয়াখালী, সিলেট এবং টিপ্পেরাহ জেলার সমতল অঞ্চলে অবস্থিত; শেষেরটির বেশিরভাগ অংশ বাংলাদেশের কুমিল্লা জেলাতে অন্তর্ভুক্ত।

রাজা বীর বিক্রম কিশোর দেববর্মা ১৯৪৭ সালের মে মাসে ভারতের স্বাধীনতার কিছু আগে মারা গিয়েছিলেন। তাঁর পুত্র কিরীট বিক্রম কিশোর সেই সময়ে নাবালক ছিলেন এবং তাই মহারাণী কাঞ্চন প্রভা দেবী রাজ্য পরিচালনা করার জন্য গঠিত রিজেন্সি কাউন্সিলের সভাপতিত্ব করেছিলেন। ১৯৪৭ সালের ১৩ আগস্ট, মহারাণী ইন্ডিয়ান ইউনিয়নে যোগদানের মাধ্যমে চুক্তি স্বাক্ষর করেন। পরবর্তী মাসগুলিতে রাজ্যে অশান্তি হয় এবং প্রশাসনিক কাঠামোয় একের পর এক উত্তরাধিকার সূত্রে পরিবর্তন হয়। অবশেষে, ১৯৪৯ সালের ৯ সেপ্টেম্বর, মহারাণী ভারতীয় ইউনিয়নের সাথে একত্রকরণ চুক্তি স্বাক্ষর করেন, যা কার্যকর হয় ১৫ ই অক্টোবর, এবং ত্রিপুরা ভারতের কেন্দ্রীয় প্রশাসিত পার্ট সি রাজ্য ( চিফ কমিশনার প্রদেশ ) হয়ে ওঠে।[১][৪]

শাসক[সম্পাদনা]

ত্রিপুরার রাজপরিবারের প্রধান ১৯১৯ সাল থেকে ' মহারাজা ' উপাধি রেখেছিলেন। ১৮৯৭ সাল থেকে শাসকরা ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের ১৩ তোপ সেলামীর অধিকারী ছিল।

রাজা[সম্পাদনা]

  • ১৬৮৪- ১৭১২ রত্না মানিক্য দ্বিতীয় (দ্বিতীয়বার) (মৃত্যু ১৭১২)
  • ১৭১২- ১৭১৪ মহেন্দ্র মানিক্য
  • ১৭১৪ - ১৭৩২ ধর্ম মানিক্য দ্বিতীয় (প্রথমবার)
  • ১৭৩২ - ১৭৩৩ জগত মানিক্য
  • ১৭৩৩ ধর্ম মানিক্য দ্বিতীয় (দ্বিতীয়বার)
  • ১৭৩৩- ১৭৩৭ মুকুন্দ মানিক্যা ( মৃত্যু ১৭৩৯)
  • ১৭৩৭- ১৭৩৯ জয় মানিক্য দ্বিতীয় (প্রথমবার)
  • ১৭৩৯ - ১৭৩ ইন্দ্রস্যা মানিক্য দ্বিতীয় (প্রথমবার)
  • ১৭ .. - ১৭৪. উদাই মানিক্য
  • ১৭৪.. - ১৭৪. জয় মানিক্য দ্বিতীয় (দ্বিতীয়বার)
  • ১৭৪. - ১৭৪. ইন্দ্রস্যা মানিক্য দ্বিতীয় (দ্বিতীয়বার)
  • ১৭৪.. - ১৭৪৩ জয় মানিক্য দ্বিতীয় (তৃতীয় বার)
  • ১৭৪৩ - ১৭৬০ বিজয়া মানিক্য তৃতীয়
  • ১৭৪৮ - ১৭৫৭ শমসের গাজী- রিজেন্ট (মৃত্যু ১৭৫৮)
  • ১৭৬০ লক্ষ্মণ মানিক্য (মৃত্যু ১৭৬০)
  • ১৭৬০- ১৭৬১ কৃষ্ণ মানিক্য (প্রথমবার) (মৃত্যু ১৭৮৩)
  • ১৭৬১- ১৭৬৭ বলরাম মানিক্য
  • ১৭৬৭- ১১ জুলাই ১৭৮৩ কৃষ্ণ মানিক্য (দ্বিতীয়বার)
  • ১১ জুলাই ১৭৮৩ - মার্চ ১৮০৪ রাজাধারা মানিক্য দ্বিতীয় (মৃত্যু ১৮০৪)
  • ১১ জুলাই ১৭৮৩ - ১৭৮৬ জাহ্নবী রানী মহাদেবায়ু (চ) -রির্জেন্ট
  • মার্চ ১৮০৪- ১৮ অক্টোবর ১৮০৯ রামগঙ্গা মানিক্য (প্রথমবার)
  • ১৮ অক্টোবর ১৮০৯ - ৬ এপ্রিল ১৮১৩ দুর্গা মানিক্য
  • ৬ এপ্রিল ১৮১৩ - ১৪ নভেম্বর ১৮২৬ রামগঙ্গা মানিক্য (দ্বিতীয়বার) (সা )
  • ১৪ নভেম্বর ১৮২৬ - ১৯ মার্চ ১৮৩০ কাশীচন্দ্র মানিক্য (মৃত্যু ১৮৩০)
  • ১৯ মার্চ ১৮৩০ - ৩ এপ্রিল ১৮৪৯ কৃষ্ণ কিশোর মানিক্য (মৃত্যু ১৮৪৯)
  • ৩ এপ্রিল ১৮৪৯ - ৩১ জুলাই ১৮৬২ ঈশানচন্দ্র মানিক্য
  • ৩১ জুলাই ১৮৬২ - ১১ ডিসেম্বর ১৮৯৬ বিরচন্দ্র মানিক্য
  • ৩১ জুলাই ১৮৬২ - ৯ মার্চ ১৮৭০.... -রিজেন্ট
  • ১১ ডিসেম্বর ১৮৯৬ - ১২ মার্চ ১৯০৯ রাধা কিশোর মানিক্য
  • ১২ মার্চ ১৯০৯- ১ জানুয়ারী ১৯১৯ বীরেন্দ্র কিশোর মানিক্য

মহারাজা[সম্পাদনা]

  • ১ জানুয়ারী ১৯১৯- ১৩ আগস্ট ১৯২৩ বীরেন্দ্র কিশোর মানিক্য
  • ১৭ আগস্ট ১৯২৩- ১৭ মে ১৯৪৭ বিরা বিক্রম কিশোর মানিক্যা
  • ১৭ মে ১৯৪৭ - ১৫ অক্টোবর ১৯৪৯ মানিক্য কিরীট বিক্রম কিশোর দেব বর্মণ, একজন নাবাল্ক (জন্ম ১৯৩৩- মারা গেছেন ২০০৬)
  • ১৭ মে ১৯৪৭ - ১৫ অক্টোবর ১৯৪৯ মহারাণী কাঞ্চন প্রভবতী মহাদেবী, রিজেন্ট (জন্ম ১৯১৪, ১৯৭৩ মারা গেলেন)

প্রতীক[সম্পাদনা]

পতাকা[সম্পাদনা]

পতাকাটিতে জাফরান এবং লাল রঙের একটি পটভূমিতে প্রতীক রয়েছে।

সীল[সম্পাদনা]

মূলমন্ত্রটি হ'ল "বীর তা সরমেকম" (সাহস একটি জিনিস যা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন বা যোদ্ধার চেয়ে ভাল কিছুই নয়)।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Nag, Sajal (২০০৭), Making of the Indian Union: Merger of princely states and excluded areas, Akansha Pub. House, পৃষ্ঠা 321, আইএসবিএন 978-81-8370-110-5 
  2. Hill Tippera – History The Imperial Gazetteer of India, 1909, v. 13, p. 118.
  3.  চিসাম, হিউ, সম্পাদক (১৯১১)। "Hill Tippera"। ব্রিটিশ বিশ্বকোষ13 (১১তম সংস্করণ)। কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস। পৃষ্ঠা 469। [[বিষয়শ্রেণী:উইকিসংকলনের তথ্যসূত্রসহ ১৯১১ সালের এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা থেকে উইকিপিডিয়া নিবন্ধসমূহে একটি উদ্ধৃতি একত্রিত করা হয়েছে]]
  4. Das, J. K. (২০০১), Human Rights and Indigenous Peoples, APH Publishing, পৃষ্ঠা 224–225, আইএসবিএন 978-81-7648-243-1 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]