তারাক মেহতা কা উল্টা চশমা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
তারাক মেহতা কা উল্টা চশমা
তারাক মেহতা কা উল্টা চশমা.jpg
তারাক মেহতা কা উল্টা চশমা শো এর ব্যানার
ধরন
নির্মাতা
ভিত্তিতারাক মেহতা দ্বারা লিখিত ‘দুনিয়া নে উন্ধা চশমা'
লেখক
  • রাজু অডেদ্রা
  • নীরেন ভাট
  • জিতেন্দ্র পারমার
  • আব্বাস হীরাপুরওয়ালা
পরিচালক
  • হারশাদ যোশী
  • মালাভ সুরেশ রাজদা
অভিনয়েনিচে দেখুন
উদ্বোধনী সঙ্গীততারাক মেহতা কা উল্টা চশমা
মূল দেশভারত
মূল ভাষাহিন্দি
মৌসুমের সংখ্যা
পর্বের সংখ্যা৩৩৯৯ (চলমান)
নির্মাণ
প্রযোজক
  • নীলা আসিত মোদি
নির্মাণের স্থানমুম্বাই
লন্ডন
হংকং
গুজরাত
প্যারিস
ব্রাসেল্‌স
ক্যামেরা সেটআপমাল্টি-ক্যামেরা
ব্যাপ্তিকাল২০–২২ মিনিট
নির্মাণ কোম্পানিনীলা টেলি ফিল্মস
পরিবেশকসনি পিকচার্স নেটওয়ার্কস
মুক্তি
মূল নেটওয়ার্কসাব টিভি
ছবির ফরম্যাট
মূল মুক্তির তারিখ২৮ জুলাই ২০০৮ (2008-07-28) –
বর্তমান
বহিঃসংযোগ
ওয়েবসাইট

তারাক মেহতা কা উল্টা চশমা ভারতের জনপ্রিয় একটি কৌতুক টেলিভিশন ধারাবাহিক, যা সাব টিভিতে সোমবার থেকে শুক্রবার রাত ৮:৩০ মিনিটে (ভারতীয় সময় অনুযায়ী) প্রচার করা হয়। অনুষ্ঠানটি হাসির পাশাপাশি নানাভাবে শিক্ষাও দিয়ে থাকে। এটি গোকুলধাম নামক একটি সোসাইটি নিয়ে নির্মিত গল্প, যেখান সব রকমের মানুষ একটি পরিবারের মতো বাস করে।

চরিত্রাবলি ও কাহিনীসংক্ষেপ[সম্পাদনা]

গোকুলধাম পাউডার গলি, গোরেগাঁও, মুম্বাই এর একটি আবাসিক সোসাইটি। সোসাইটিতে ৪টি উইং আছে: এ উইং, বি উইং, সি উইং, ডি উইং। যদিও সোসাইটিতে ৫০টি ফ্ল্যাট আছে, কিন্তু ধারাবাহিকে শুধুমাত্র ৮টি পরিবারে ঘটনাক্রম দেখায়:

  • জেঠালাল চম্পকলাল গাড়া কচ্ছ জেলা, গুজরাটের একজন ইলেক্ট্রনিক্স দোকান মালিক।যে তার স্ত্রী দয়া, বাবা চম্পকলাল জয়ন্তিলাল গাড়া ও ছেলে ত্রিপেন্দ্র গাড়া ওরফে টাপ্পুকে নিয়ে বি উইং-এ থাকে।
  • যোধপুর, রাজস্থান-এর কথক তারাক মেহতা ও তার স্ত্রী অঞ্জলি বি উইং এ থাকে।
  • সোসাইটির একমেভ (একমাত্র) সেক্রেটারি রত্নগিরি, মহারাষ্ট্র থেকে আসা গৃহ শিক্ষক আত্মারাম তুকারাম ভিরে, তার স্ত্রী মাধবী ও মেয়ে সোনালিকা ওরফে সোনু এ উইং-এ থাকে।
  • উত্তর প্রদেশ এর ডাক্তার হাঁসরাজ হাতি, তার স্ত্রী কোমল হাতি ও ছেলে গোলাবকুমার হাঁসরাজ হাতি ওরফে গোলি এ উইং এ থাকে।
  • অমৃতসর, পাঞ্জাবের রোশান সিং সোধি, তার স্ত্রী যার নামও রোশান এবং ছেলে গুরুচরণ সিং রোশান সিং সোধি ওরফে গোগি এ উইং-এ থাকে।
  • দক্ষিণ ভারতের বিজ্ঞানী কৃষনান আইয়ার ও তার বাঙালি স্ত্রী ববিতা সি উইং এ থাকে।
  • অবিবাহিত সাংবাদিক পোপাটলাল পান্ডে সি উইং-এ থাকে।
  • পঙ্কজ দিওয়ান সাহায় ওরফে পিঙ্কু গুলমোহোর এপার্টমেন্ট নামক আরেকটি সোসাইটিতে থাকে।

এছাড়াও আরো কিছু চরিত্র আছে। যেমন: জেঠালালের স্ত্রী দয়ার ভাই সুন্দরলাল, সোসাইটির পাশের "অল ইন ওয়ান" নামক একটি দোকান মালিক আব্দুল, জেঠালালের দোকানের কর্মচারী নটওয়ারলাল প্রভাশঙ্কর উদাইওয়ালা (নাট্টু কাকা) ও বাঘা দাদুখ উদাইওয়ালা (বাঘা), বাঘার বাগদত্তা বাউরি ধন্দুলাল কানপুরিয়া, স্থানীয় থানার ইন্সপেক্টর চালু পান্ডে এবং আরো কিছু ছোট ছোট চরিত্র।

সোসাইটির সকল সদস্যদের মধ্যে খুব ভালো সম্পর্ক আছে। এমন মনে হয় যেনো পুরোটাই একটি পরিবার। তবে সাধারণ ভারতীয় পরিবারের মতো এতেও কিছু ঝগড়াঝাঁটি হয়। তবে সবসময় সোসাইটির কোনো না কোনো সদস্য বিপদে থাকে। বিপদে সবাই সবাইকে সাহায্য করে।

অভিনয়[সম্পাদনা]

প্রাক্তন অভিনেতা ও অভিনেত্রী[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ৯ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]