তারতু শিল্প জাদুঘর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
তারতু আর্ট মিউজিয়ামের প্রদর্শনী ভবন

তারতু আর্ট জাদুঘরটি এস্তোনিয়ার তার্তু শহরে অবস্থিত একটি রাষ্ট্র-মালিকানাধীন শিল্পকলা জাদুঘর। স্থানীয় আর্ট স্কুল পাল্লাসের সদস্যগণের ব্যক্তিগত উদ্যোগে ১৯৪০[১] সালে স্থাপিত হয় দক্ষিণ এস্তোনিয়ার বৃহত্তম এই জাদুঘর।

এর মূল সংগ্রহ মূলত অষ্টাদশ শতাব্দী থেকে বর্তমান সময় অবধি এস্তোনিয়ান এবং বিদেশী শিল্পীদের, যাঁদের সাথে এস্তোনিয়ার সংযোগ রয়েছে, শিল্পকর্ম নিয়ে গঠিত। । সংগ্রহশালায় প্রায় 23,000 আইটেম অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। [২] সংগ্রহে থাকা আইটেম থেকে বাছাইকৃত কিছু আইটেম নিয়ে এস্তোনিয়ার ও অন্যান্য দেশীয় মিউজিয়ামের সহযোগিতায় কিছু অস্থায়ী প্রদর্শনীরও আয়োজন করা হয়ে থাকে যা তার্তুর টাউন হলের নিকটস্থ ঐতিহাসিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ এক ভবনে আয়োজিত হয়।

সাম্প্রতিক বছরগুলোয়, আধুনিক শিল্পের প্রদর্শনীগুলো সর্বত্র শিল্পের পরিসর ও গুনাগুণের ব্যাপারে ব্যাপক আলাপচারিতার জন্ম দিয়েছে। সবচেয়ে বিতর্কিত ছিল ২০১২ সালের MÖH? FUI! ÖÄK! OSSA! VAU!  প্রদর্শনী যেখানে ১৯৯০ থেকে তৎপরবর্তী সময়ের সবচেয়ে বিতর্কিত শিল্পকর্ম প্রদর্শিত হয়, এবং ২০১৫ সালে প্রদর্শিত হয় হলোকাস্ট নিয়ে করা আধুনিক পোলিশ শিল্পকর্ম "মাই পোল্যান্ড। অন রিকলিং এন্ড ফরগেটিং"

২০১৩–২০১৭ এই পাঁচ বছর তারতু আর্ট যাদুঘরটির দায়িত্বে ছিলেন প্রাক্তন ফ্রিল্যান্স কিউরেটর এবং গ্যালারিস্ট রায়েল আর্টেল । [৩]

যাদুঘরের ইতিহাস[সম্পাদনা]

যাদুঘর অভ্যন্তর। প্রদর্শনী "চারটি দৃশ্যে পরিবর্তনশীল তার্তু"।

১৯১৮ সালে আর্টিস্টদের এসোসিয়েশন পাল্লাস প্রতিষ্ঠা করে হাইয়ার আর্ট স্কুল পাল্লাস পরবর্তীতে যেই স্কুল স্থানীয় চারুকলা শিক্ষায় মুখ্য ভূমিকা পালন করে। প্রতিষ্ঠার বিশ বছর পরে ওই এসোসিয়েশন থেকেই মিউজিয়াম তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ১৯৪০ সালের ১৭ই নভেম্বর তার্তু মিউনিসিপালিটি শিল্প জাদুঘর নির্মাণের ফরমানে স্বাক্ষর করে যার অবস্থান ছিল সুরতুরগ ৩ (বর্তমান নাম রাএকয়া স্কোয়ার ৩।) ১৯৪১ এর গ্রীষ্মে স্টেইট নৃতাত্ত্বিক জাদুঘর (বর্তমান এস্তোনিয়ান জাতীয় জাদুঘর) তাদের বিংশ শতাব্দীর আর্ট কালেকশন শিল্প জাদুঘরের নিকট হস্তান্তর করে।  

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালে বেশ কয়েকবার মিউজিয়ামের স্থানান্তর করতে হয়েছিল। তবে সবচেয়ে সংকটময় অবস্থার সৃষ্টি হয়েছিল যখন লাই ১৭’র ভবনটিতে বোমাবর্ষণের ফলে স্থানান্তরিত শিল্পকর্মসমেত ভবনটি গুঁড়িয়ে যায়। এতদসত্তেও অধিকাংশ শিল্পকর্ম রক্ষা করা সম্ভবপর হয়েছিল। অনেকবার স্থানান্তর শেষে ১৯৪৬ সালে ভাল্লিকরাভি ১৪’র দুটি ফ্লোর নিয়ে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল মিউজিয়ামের, ১৪ [১] প্রয়োজনে সময়ে সময়ে এর সংস্কার করা হয়েছে। গোড়ার দিকে ভবনটিতে ছিল স্টোরেজ হল ও প্রদর্শনী হলসমূহ। তবে ১৯৯৯ সালে সিদ্ধান্ত হয় ক্রমবর্ধিষ্ণু আর্টের সংগ্রহের যথাযথ সংরক্ষণের জন্য ভবনটিতে দর্শনার্থীদের প্রবেশ বন্ধ করার। এখন ওই ভবনে স্টোরেজ, প্রশাসনিক ও চাকরিরতদের দফতর, রেস্টোরেশন ওয়ার্কশপ, লাইব্রেরি ও আর্কাইভসসমূহ অবস্থিত।

১৯৮৮ থেকে ফলিং হাউস (Falling House) তার্তু আর্ট মিউজিয়াম ব্যবহার করে আসছে।

তার্তু আর্ট মিউজিয়ামে একক শিল্পীদের দুটি ব্যক্তিগত জাদুঘরও রয়েছে: তার্তুতে অ্যান্টন স্টারকোফের জাদুঘর ( ১৯৭২-১৯৯৭ ) এবং এলভায় এডুয়ার্ড কুত্সারের জাদুঘর (১৯৭১-২০১২)।

রায়েল আর্টেল[সম্পাদনা]

২০১৩ সাল থেকে যাদুঘরটির নেতৃত্ব রয়েছেন রায়েল আর্টেল। এই যাদুঘরে যোগদানের আগে তিনি ফ্রিল্যান্স কিউরেটর হিসেবে এস্তোনিয়াতে এবং বিদেশে সমসাময়িক শিল্পের আন্তর্জাতিক প্রদর্শনীতে কাজ করেছিলেন। অতিথি কিউরেটর হিসাবে রায়েল আর্টেল তাল্লিনের কুমু আর্ট যাদুঘর এবং পোল্যান্ডের লডজে আর্ট মিউজিয়ামের সাথে কাজ করেছিলেন। প্রতিযোগিতা কমিটির প্রস্তাব অনুসারে সংস্কৃতিমন্ত্রী ইন্দ্রেক সার এবং রায়েল আর্টেল ২০১৬ সালে নতুন মেয়াদে যাদুঘরে চাকরির চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছিলেন। [৩] রায়েল আর্টেল জুন ২০১৭ সালে তারতু আর্ট মিউজিয়াম তাঁর চাকরি ছেড়েছিলেন।

সিগনে কিভি[সম্পাদনা]

২৬শে জুন সিগনে কিভি যাদুঘরের পরিচালকের পদ গ্রহণ করেন। [৪] এখানে যোগদানের আগে তিনি এস্তোনিয়া প্রজাতন্ত্রের সংস্কৃতি মন্ত্রী (১৯৯৯–-২০০২), সংসদ সদস্য (২০০২-২০০৫) এবং এস্তোনিয়ান একাডেমি অফ আর্টস (২০০৫–-২০১৫) এর রেক্টর ছিলেন। ২০১৯ সালে কিভি সংসদ সদস্য হতে জাদুঘরের পদটি ত্যাগ করেছিলেন। [৫]

হেলানো ভবন[সম্পাদনা]

হেলানো ভবন নামে পরিচিত এই ভবনে ১৯৮৮ সাল থেকে তার্তু আর্ট মিউজিয়ামের প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়ে আসছে যা রাএকয়া স্কোয়ার ১৮তে অবস্থিত। ১৭৯৩ সালে নির্মিত ভবনটি বার্কলে ডি টোলি[৬] পরিবারের মালিকানাধীন ছিল । ব্যবহৃত বিভিন্ন উপকরণের কারণে সময়ে সময়ে একদিকে হেলে পড়ার জন্য এই ভবনটির এমন নামকরণ। পোলিশ এক্সপার্টদের পুননির্মাণের পর থেকে ভবনটির হেলে পড়া বন্ধ হয়েছে।

ভবনটিতে রয়েছে তিনটি ফ্লোর যেখানে অস্থায়ী প্রদর্শনী, একটি পাঠদানের শ্রেণিকক্ষ ও বিশেষায়িত বইয়ের দোকান রয়েছে।

জাদুঘরের সংগ্রহ[সম্পাদনা]

পাল্লাস আর্টিস্টিক এসোসিয়েশনের শিল্পীদের ১৩৩টি শিল্পকর্ম নিয়ে যাত্রা শুরু এই মিউজিয়ামের সংগ্রহশালার। সংগ্রহশালার ক্যাটালগের সর্বপ্রথম নথিভুক্ত হয় “ইন্টেরিয়র” নামের ইদা এন্তন-আগুর করা একটি শিল্পকর্ম। পাল্লাসের উত্তরাধিকার এই সংগ্রহশালার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ যাতে রয়েছে নিকোলাই তির্ক, কনরাদ মাগি, আদো ভাব্বে, আলেকসান্দার ভার্দি, কারিন লুতস এবং অন্য অনেকের শিল্পকর্ম।

প্যালাসের শিল্পীরা ছাড়াও, যাদুঘর ঊনবিংশ শতাব্দীর এস্তোনীয় শিল্পের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব যেমন য়োহান কোহলার (জাতীয় জাগরণকাল) এবং জুলি উইলহেলমিন হেইগেন-শোয়ার্জস (বাল্টিক জার্মান) এর চিত্রকর্ম।

রুশ এবং অন্যান্য দেশীয় প্রথিতযশা শিল্পীদের চিত্রকর্মও রয়েছে এখানে। রুশ স্কুলের প্রতিনিধিত্বকারী চিত্রকরদের মধ্যে ইভান আইভাজভস্কি, ইভান শিশকিন, ম্যাক্সিমিলিয়ান ভোলোশিন, কনস্ট্যান্টিন সোমভ, মিখাইল লরিওনোভ, ন্যাটালিয়া গনচরোভা প্রমুখ।

এই জাদুঘরে সব মিলিয়ে তেইশ হাজারের মতো শিল্পকর্ম রয়েছে [২] যাতে আছে চিত্রকলা, অঙ্কন, গ্রাফিক্স, ভাস্কর্য এবং সমসাময়িক শিল্প ফর্মগুলি (ফটোগ্রাফি, ভিডিও আর্ট, পারফরম্যান্স আর্ট, সাউন্ড আর্ট, ইনস্টলেশন)। মিউজিয়ামের ওয়েবসাইট MUIS এর মাধ্যমে এসব সংগ্রহশালা দেখার ব্যবস্থা রয়েছে অনলাইনে।

নির্বাচিত কাজ[সম্পাদনা]

  1. Laborint। "Information Centre Of Estonian Museums"www.muuseum.ee। ২০১৬-০৪-১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৬-০৭ 
  2. "Eesti muuseumide veebivärav - Muuseumide kogud"muis.ee। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৬-০৭ 
  3. "Rael Artel will continue as the Director of the Tartu Art Museum | Ministry of Culture"www.kul.ee। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৬-০৭ 
  4. "Signe Kivi to Become the Director of the Tartu Art Museum | Ministry of Culture"www.kul.ee (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-১৬ 
  5. Lossi plats 1a; Tallinn, 15165। "Member of the Riigikogu"Riigikogu (এস্তোনীয় ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-১৬ 
  6. "The Leaning House of Tartu, Estonia"Visitestonia.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৬-০৭