তামিলনাড়ুতে কোভিড-১৯ এর বৈশ্বিক মহামারী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
২০২০ তামিলনাড়ুতে করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারী
India Tamil Nadu COVID-19 map.svg
নিশ্চিত ঘটনা সহ জেলাগুলির মানচিত্র (৯ মে পর্যন্ত)
  ১০০০+ নিশ্চিত আক্রান্তের সংখ্যা
  ৫০০–৯৯৯ নিশ্চিত আক্রান্তের সংখ্যা
  ১০০–৪৯৯ নিশ্চিত আক্রান্তের সংখ্যা
  ৫০–৯৯ নিশ্চিত আক্রান্তের সংখ্যা
  ১০–৪৯ নিশ্চিত আক্রান্তের সংখ্যা
  ১–৯ নিশ্চিত আক্রান্তের সংখ্যা
রোগকোভিড-১৯
ভাইরাসের প্রজাতিসার্স-সিওভি-২
স্থানতামিলনাডু, ভারত
প্রথম সংক্রমণের ঘটনাChennai
আগমনের তারিখ7 March 2020
(১ বছর, ৬ মাস ও ৬ দিন)
উৎপত্তিউহান, হুবেই, চীন
নিশ্চিত আক্রান্ত৩,১৪,৫২০ (১২ আগস্ট ২০২০)
সক্রিয় আক্রান্ত৫২,৯২৬[note ১]
সুস্থ২,৫৬,৩১৩ (১২ আগস্ট ২০২০)
মৃত্যু
৫,২৭৮ (১২ আগস্ট ২০২০)
মৃত্যুর হার
১.৬৮% ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ অনুসারে
অঞ্চল
সকল ৩৭টি জেলা[note ২]
মোট ই-স-রো (ILI) সংক্রমণের ঘটনা[১]
প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট
stopcorona.tn.gov.in
Tamil Nadu COVID-19 Public dashboard

ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যে ২০১৯–২০ করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারীর প্রথম কোভিড-১৯ সংক্রমণের ঘটনাটি ২০২০ সালের ৭ মার্চ জানা গিয়েছিল। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ অধিদফতর ২০২০ সালের ৯ মে পর্যন্ত ৪৪ জনের মৃত্যু এবং ১,৮২৪ জন সুস্থ্য হওয়া সহ মোট ৬,৫৩৫ টি সংক্রমণের ঘটনা নিশ্চিত করেছে। [২] রাজ্যের সমস্ত [৩] ৩৭ টি জেলা [৪] মহামারী দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, রাজধানী চেন্নাই সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। রাজ্যে সকল সংক্রমণের অর্ধেকের বেশি, রাজ্যের সর্বাধিক জনবহুল জেলা চেন্নাইতে ঘটেছে। ভারতের অন্য রাজ্যের তুলনায় এই রাজ্যে কোভিড-১৯ সংক্রমণে মৃত্যুর হার সবচেয়ে কম। অর্ধেকেরও বেশি মামলা চেন্নাইয়ের, যা রাজ্যের সর্বাধিক জনবহুল জেলাও। রাজ্যে মামলার মৃত্যুর হার দেশে সবচেয়ে কম। ২০২০ সালের ১৪ মে পর্যন্ত, এই রাজ্য ২,৯১,৪৩২ জনের পরীক্ষা করেছে (দশ লক্ষ্য লোক প্রতি ৪০৩৯)। যাতে সমস্ত পরীক্ষার তিন শতাংশ ইতিবাচক ফলাফল দিয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের হিসাবে, ৮০% রোগী উপসর্গহীন, বেশীরভাগ মৃত্যু বৃদ্ধ, 'কো মর্বিডিটি বা অন্য রোগযুক্ত ব্যক্তিদের হয়েছে ।[৫] রাজ্যে সংক্রমণের প্রাথমিক বৃদ্ধি হ'ল দিল্লিতে অনুষ্ঠিত তাবলিগী জামায়াতের একটি ধর্মীয় জামাত অনুষ্ঠানের সাথে সংযুক্ত গোষ্ঠীর কারণে, যা এপ্রিলের শুরুতে বাড়ে। চেন্নাইয়ের কয়ম্বেদুতে একটি নতুন স্থানীয় গুচ্ছ শনাক্ত করা হয়েছে ১৪ মে পর্যন্ত যেখান থেকে রাজ্যের মোট সংক্রমণের ৩৫% ঘটেছে।

রাজ্যটি ২৫ মার্চ থেকে লকডাউনের অধীনে রয়েছে যা ৪ মে থেকে কিছুটা হলেও শিথিল করা হয়েছিল। যোগাযোগের সন্ধান, পরীক্ষা ও নজরদারি মডেল অনুসরণ করে রাজ্য সরকার প্রাদুর্ভাবের মোকাবেলা করেছে। [৬] মার্চের গোড়ার দিকে কম সংখ্যক পরীক্ষার জন্য সমালোচনার মুখোমুখি হওয়ার পরে, রাজ্যটি ১-১৯ এপ্রিলের মধ্যে মোট পরীক্ষার সংখ্যা প্রায় সাতগুণ বৃদ্ধি করেছিল। [৭] রাজ্যে ভারতীয় মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল (আইসিএমআর) দ্বারা অনুমোদিত পরীক্ষা চালাতে সক্ষম ৫২ টি পরীক্ষাগার রয়েছে।

ঘটনার সময়রেখা[সম্পাদনা]

কোভিড-১৯ - তামিলনাড়ু, ভারত  ()
     মৃত্যু        সুস্থ        আক্রান্ত

৭–৩১ মার্চ ৭–৩১ মার্চ ১–৩০ এপ্রিল ১–৩০ এপ্রিল ১–৩১ মে ১–৩১ মে ১–৩০ জুন ১–৩০ জুন ১–৩১ জুলাই ১–৩১ জুলাই ১–৩১ আগস্ট ১–৩১ আগস্ট গত ২১ দিনে গত ২১ দিনে

তারিখ
আক্রান্তের সংখ্যা
মৃত্যুর সংখ্যা
২০২০-০৩-০৭ (প্র.না.)
২০২০-০৩-০৮ (=)
২০২০-০৩-০৯ (=)
২০২০-০৩-১০ (=)
(=) (=)
২০২০-০৩-১৮ (+১০০%)
২০২০-০৩-১৯ (+৫০%)
২০২০-০৩-২০ (=)
২০২০-০৩-২১ (+১০০%)
২০২০-০৩-২২ (+১৭%)
২০২০-০৩-২৩ (+২৯%)
২০২০-০৩-২৪
১৫(+৬৭%)
২০২০-০৩-২৫
২৩(+৫৩%) (প্র.না.)
২০২০-০৩-২৬
২৯(+২৬%) (=)
২০২০-০৩-২৭
৩৮(+৩১%) (=)
২০২০-০৩-২৮
৪২(+১১%) (=)
২০২০-০৩-২৯
৫০(+১৯%) (=)
২০২০-০৩-৩০
৬৭(+৩৪%) (=)
২০২০-০৩-৩১
১২৪(+৮৫%) (=)
২০২০-০৪-০১
২৩৪(+৮৯%) (=)
২০২০-০৪-০২
৩০৯(+৩২%) (=)
২০২০-০৪-০৩
৪১১(+৩৩%) (=)
২০২০-০৪-০৪
৪৮৫(+১৮%) (+২০০%)
২০২০-০৪-০৫
৫৭১(+১৮%) (+৬৭%)
২০২০-০৪-০৬
৬২১(+৯%) (+২০%)
২০২০-০৪-০৭
৬৯০(+১১%) (+১৭%)
২০২০-০৪-০৮
৭৩৮(+৭%) (+১৪%)
২০২০-০৪-০৯
৮৩৪(+১৩%) (=)
২০২০-০৪-১০
৯১১(+৯%) (=)
২০২০-০৪-১১
৯৬৯(+৬%) ১০(+২৫%)
২০২০-০৪-১২
১,০৭৫(+১১%) ১১(+১০%)
২০২০-০৪-১৩
১,১৭৩(+৯%) ১১(=)
২০২০-০৪-১৪
১,২০৪(+৩%) ১২(+৯%)
২০২০-০৪-১৫
১,২৪২(+৩%) ১৪(+১৭%)
২০২০-০৪-১৬
১,২৬৭(+২%) ১৫(+৭%)
২০২০-০৪-১৭
১,৩২৩(+৪%) ১৫(=)
২০২০-০৪-১৮
১,৩৭২(+৪%) ১৫(=)
২০২০-০৪-১৯
১,৪৭৭(+৮%) ১৫(=)
২০২০-০৪-২০
১,৫২০(+৩%) ১৭(+১৩%)
২০২০-০৪-২১
১,৫৯৬(+৫%) ১৮(+৬%)
২০২০-০৪-২২
১,৬২৯(+২%) ১৮(=)
২০২০-০৪-২৩
১,৬৮৩(+৩%) ২০(+১১%)
২০২০-০৪-২৪
১,৭৫৫(+৪%) ২২(+১০%)
২০২০-০৪-২৫
১,৮২১(+৪%) ২৩(+৫%)
২০২০-০৪-২৬
১,৮৮৫(+৪%) ২৪(+৪%)
২০২০-০৪-২৭
১,৯৩৭(+৩%) ২৪(=)
২০২০-০৪-২৮
২,০৫৮(+৬%) ২৫(+৪%)
২০২০-০৪-২৯
২,১৬২(+৫%) ২৭(+৮%)
২০২০-০৪-৩০
২,৩২৩(+৭%) ২৭(=)
২০২০-০৫-০১
২,৫২৬(+৯%) ২৮(+৪%)
২০২০-০৫-০২
২,৭৫৭(+৯%) ২৯(+৪%)
২০২০-০৫-০৩
৩,০২৩(+১০%) ৩০(+৩%)
২০২০-০৫-০৪
৩,৫৫০(+১৭%) ৩১(+৩%)
২০২০-০৫-০৫
৪,০৫৮(+১৪%) ৩৩(+৬%)
২০২০-০৫-০৬
৪,৮২৯(+১৯%) ৩৫(+৬%)
২০২০-০৫-০৭
৫,৪০৯(+১২%) ৩৭(+৬%)
২০২০-০৫-০৮
৬,০০৯(+১১%) ৪০(+৮%)
২০২০-০৫-০৯
৬,৫৩৫(+৯%) ৪৪(+১০%)
২০২০-০৫-১০
৭,২০৪(+১০%) ৪৭(+৭%)
২০২০-০৫-১১
৮,০০২(+১১%) ৫৩(+১৩%)
২০২০-০৫-১২
৮,৭১৮(+৯%) ৬১(+১৫%)
২০২০-০৫-১৩
৯,২২৭(+৬%) ৬৪(+৫%)
২০২০-০৫-১৪
৯,৬৭৪(+৫%) ৬৬(+৩%)
২০২০-০৫-১৫
১০,১০৮(+৪%) ৭১(+৮%)
২০২০-০৫-১৬
১০,৫৮৫(+৫%) ৭৪(+৪%)
২০২০-০৫-১৭
১১,২২৪(+৬%) ৭৮(+৫%)
২০২০-০৫-১৮
১১,৭৬০(+৫%) ৮১(+৪%)
২০২০-০৫-১৯
১২,৪৪৮(+৬%) ৮৪(+৪%)
২০২০-০৫-২০
১৩,১৯১(+৬%) ৮৭(+৪%)
২০২০-০৫-২১
১৩,৯৬৭(+৬%) ৯৪(+৮%)
২০২০-০৫-২২
১৪,৭৫৩(+৬%) ৯৮(+৪%)
২০২০-০৫-২৩
১৫,৫১২(+৫%) ১০৩(+৫%)
২০২০-০৫-২৪
১৬,২৭৭(+৫%) ১১১(+৮%)
২০২০-০৫-২৫
১৭,০৮২(+৫%) ১১৮(+৬%)
২০২০-০৫-২৬
১৭,৭২৮(+৪%) ১২৭(+৮%)
২০২০-০৫-২৭
১৮,৫৪৫(+৫%) ১৩৩(+৫%)
২০২০-০৫-২৮
১৯,৩৭২(+৪%) ১৪৫(+৯%)
২০২০-০৫-২৯
২০,২৪৬(+৫%) ১৫৪(+৬%)
২০২০-০৫-৩০
২১,১৮৪(+৫%) ১৬০(+৪%)
২০২০-০৫-৩১
২২,৩৩৩(+৫%) ১৭৩(+৮%)
২০২০-০৬-০১
২৩,৪৯৫(+৫%) ১৮৪(+৬%)
২০২০-০৬-০২
২৪,৫৮৬(+৫%) ১৯৭(+৭%)
২০২০-০৬-০৩
২৫,৮৭২(+৫%) ২০৮(+৬%)
২০২০-০৬-০৪
২৭,২৫৬(+৫%) ২২০(+৬%)
২০২০-০৬-০৫
২৮,৬৯৪(+৫%) ২৩২(+৫%)
২০২০-০৬-০৬
৩০,১৫২(+৫%) ২৫১(+৮%)
২০২০-০৬-০৭
৩১,৬৬৭(+৫%) ২৬৯(+৭%)
২০২০-০৬-০৮
৩৩,২২৯(+৫%) ২৮৬(+৬%)
২০২০-০৬-০৯
৩৪,৯১৪(+৫%) ৩০৭(+৭%)
২০২০-০৬-১০
৩৬,৮৪১(+৬%) ৩২৬(+৬%)
২০২০-০৬-১১
৩৮,৭১৬(+৫%) ৩৪৯(+৭%)
২০২০-০৬-১২
৪০,৬৯৮(+৫%) ৩৬৭(+৫%)
২০২০-০৬-১৩
৪২,৬৮৭(+৫%) ৩৯৭(+৮%)
২০২০-০৬-১৪
৪৪,৬৬১(+৫%) ৪৩৫(+১০%)
২০২০-০৬-১৫
৪৬,৫০৪(+৪%) ৪৭৯(+১০%)
২০২০-০৬-১৬
৪৮,০১৯(+৩%) ৫২৮(+১০%)
২০২০-০৬-১৭
৫০,১৯৩(+৫%) ৫৭৬(+৯%)
২০২০-০৬-১৮
৫২,৩৩৪(+৪%) ৬২৫(+৯%)
২০২০-০৬-১৯
৫৪,৪৪৯(+৪%) ৬৬৬(+৭%)
২০২০-০৬-২০
৫৬,৮৪৫(+৪%) ৭০৪(+৬%)
২০২০-০৬-২১
৫৯,৩৭৭(+৪%) ৭৫৭(+৮%)
২০২০-০৬-২২
৬২,০৮৭(+৫%) ৭৯৪(+৫%)
২০২০-০৬-২৩
৬৪,৬০৩(+৪%) ৮৩৩(+৫%)
২০২০-০৬-২৪
৬৭,৪৬৮(+৪%) ৮৬৬(+৪%)
২০২০-০৬-২৫
৭০,৯৭৭(+৫%) ৯১১(+৫%)
২০২০-০৬-২৬
৭৪,৬২২(+৫%) ৯৫৭(+৫%)
২০২০-০৬-২৭
৭৮,৩৩৫(+৫%) ১,০২৫(+৭%)
২০২০-০৬-২৮
৮২,২৭৫(+৫%) ১,০৭৯(+৫%)
২০২০-০৬-২৯
৮৬,২২৪(+৫%) ১,১৪১(+৬%)
২০২০-০৬-৩০
৯০,১৬৭(+৫%) ১,২০১(+৫%)
২০২০-০৭-০১
৯৪,০৪৯(+৪%) ১,২৬৪(+৫%)
২০২০-০৭-০২
৯৮,৩৯২(+৫%) ১,৩২১(+৫%)
২০২০-০৭-০৩
১,০২,৭২১(+৪%) ১,৩৮৫(+৫%)
২০২০-০৭-০৪
১,০৭,০০১(+৪%) ১,৪৫০(+৫%)
২০২০-০৭-০৫
১,১১,১৫১(+৪%) ১,৫১০(+৪%)
২০২০-০৭-০৬
১,১৪,৯৭৮(+৩%) ১,৫৭১(+৪%)
২০২০-০৭-০৭
১,১৮,৫৯৪(+৩%) ১,৬৩৬(+৪%)
২০২০-০৭-০৮
১,২২,৩৫০(+৩%) ১,৭০০(+৪%)
২০২০-০৭-০৯
১,২৬,৫৮১(+৩%) ১,৭৬৫(+৪%)
২০২০-০৭-১০
১,৩০,২৬১(+৩%) ১,৮২৯(+৪%)
২০২০-০৭-১১
১,৩৪,২২৬(+৩%) ১,৮৯৮(+৪%)
২০২০-০৭-১২
১,৩৮,৪৭০(+৩%) ১,৯৬৬(+৪%)
২০২০-০৭-১৩
১,৪২,৭৯৮(+৩%) ২,০৩২(+৩%)
২০২০-০৭-১৪
১,৪৭,৩২৪(+৩%) ২,০৯৯(+৩%)
২০২০-০৭-১৫
১,৫১,৮২০(+৩%) ২,১৬৭(+৩%)
২০২০-০৭-১৬
১,৫৬,৩৬৯(+৩%) ২,২৩৬(+৩%)
২০২০-০৭-১৭
১,৬০,৯০৭(+৩%) ২,৩১৫(+৪%)
২০২০-০৭-১৮
১,৬৫,৭১৪(+৩%) ২,৪০৩(+৪%)
২০২০-০৭-১৯
১,৭০,৬৯৩(+৩%) ২,৪৮১(+৩%)
২০২০-০৭-২০
১,৭৫,৬৭৮(+৩%) ২,৫৫১(+৩%)
২০২০-০৭-২১
১,৮০,৬৪৩(+৩%) ২,৬২৬(+৩%)
২০২০-০৭-২২
১,৮৬,৪৯২(+৩%) ৩,১৪৪(+২০%)
২০২০-০৭-২৩
১,৯২,৯৬৪(+৩%) ৩,২৩২(+৩%)
২০২০-০৭-২৪
১,৯৯,৭৪৯(+৪%) ৩,৩২০(+৩%)
২০২০-০৭-২৫
২,০৬,৭৩৭(+৩%) ৩,৪০৯(+৩%)
২০২০-০৭-২৬
২,১৩,৭২৩(+৩%) ৩,৪৯৪(+২%)
২০২০-০৭-২৭
২,২০,৭১৬(+৩%) ৩,৫৭১(+২%)
২০২০-০৭-২৮
২,২৭,৬৮৮(+৩%) ৩,৬৫৯(+২%)
২০২০-০৭-২৯
২,৩৪,১১৪(+৩%) ৩,৭৪১(+২%)
২০২০-০৭-৩০
২,৩৯,৯৭৮(+৩%) ৩,৮৩৮(+৩%)
২০২০-০৭-৩১
২,৪৫,৮৫৯(+২%) ৩,৯৩৫(+৩%)
২০২০-০৮-০১
২,৫১,৭৩৮(+২%) ৪,০৩৪(+৩%)
২০২০-০৮-০২
২,৫৭,৬১৩(+২%) ৪,১৩২(+২%)
২০২০-০৮-০৩
২,৬৩,২২২(+২%) ৪,২৪১(+৩%)
২০২০-০৮-০৪
২,৬৮,২৮৫(+২%) ৪,৩৪৯(+৩%)
২০২০-০৮-০৫
২,৭৩,৪৬০(+২%) ৪,৪৬১(+৩%)
২০২০-০৮-০৬
২,৭৯,১৪৪(+২%) ৪,৫৭১(+২%)
২০২০-০৮-০৭
২,৮৫,০২৪(+২%) ৪,৬৯০(+৩%)
২০২০-০৮-০৮
২,৯০,৯০৭(+২%) ৪,৮০৮(+৩%)
২০২০-০৮-০৯
২,৯৬,৯০১(+২%) ৪,৯২৭(+২%)
২০২০-০৮-১০
৩,০২,৮১৫(+২%) ৫,০৪১(+২%)
২০২০-০৮-১১
৩,০৮,৬৪৯(+২%) ৫,১৫৯(+২%)
২০২০-০৮-১২
৩,১৪,৫২০(+২%) ৫,২৭৮(+২%)
২০২০-০৮-১৩
৩,২০,৩৫৫(+২%) ৫,৩৯৭(+২%)
২০২০-০৮-১৪
৩,২৬,২৪৫(+২%) ৫,৫১৪(+২%)
২০২০-০৮-১৫
৩,৩২,১০৫(+২%) ৫,৬৪১(+২%)
২০২০-০৮-১৬
৩,৩৮,০৫৫(+২%) ৫,৭৬৬(+২%)
২০২০-০৮-১৭
৩,৪৩,৯৪৫(+২%) ৫,৮৮৬(+২%)
২০২০-০৮-১৮
৩,৪৯,৬৫৪(+২%) ৬,০০৭(+২%)
২০২০-০৮-১৯
৩,৫৫,৪৪৯(+২%) ৬,১২৩(+২%)
২০২০-০৮-২০
৩,৬১,৪৩৫(+২%) ৬,২৩৯(+২%)
২০২০-০৮-২১
৩,৬৭,৪৩০(+২%) ৬,৩৪০(+২%)
২০২০-০৮-২২
৩,৭৩,৪১০(+২%) ৬,৪২০(+১%)
২০২০-০৮-২৩
৩,৭৯,৩৮৫(+২%) ৬,৫১৭(+২%)
২০২০-০৮-২৪
৩,৮৫,৩৫২(+২%) ৬,৬১৪(+১%)
২০২০-০৮-২৫
৩,৯১,৩০৩(+২%) ৬,৭২১(+২%)
২০২০-০৮-২৬
৩,৯৭,২৬১(+২%) ৬,৮৩৯(+২%)
২০২০-০৮-২৭
৪,০৩,২৪২(+২%) ৬,৯৪৮(+২%)
২০২০-০৮-২৮
৪,০৯,২৩৮(+১%) ৭,০৫০(+১%)
২০২০-০৮-২৯
৪,১৫,৫৯০(+২%) ৭,১৩৭(+১%)
২০২০-০৮-৩০
৪,২২,০৮৫(+২%) ৭,২৩১(+১%)
২০২০-০৮-৩১
৪,২৮,০৪১(+১%) ৭,৩২২(+১%)
২০২০-০৯-০১
৪,৩৩,৯৬৯(+১%) ৭,৪১৮(+১%)
২০২০-০৯-০২
৪,৩৯,৯৫৯(+১%) ৭,৫১৬(+১%)
২০২০-০৯-০৩
৪,৪৫,৮৫১(+১%) ৭,৬০৮(+১%)
২০২০-০৯-০৪
৪,৫১,৮২৭(+১%) ৭,৬৮৭(+১%)
২০২০-০৯-০৫
৪,৫৭,৬৯৭(+১%) ৭,৭৪৮(+১%)
২০২০-০৯-০৬
৪,৬৩,৪৮০(+১%) ৭,৮৩৬(+১%)
২০২০-০৯-০৭
৪,৬৯,২৫৬(+১%) ৭,৯২৫(+১%)
২০২০-০৯-০৮
৪,৭৪,৯৪০(+১%) ৮,০১২(+১%)
২০২০-০৯-০৯
৪,৮০,৫২৪(+১%) ৮,০৯০(+১%)
২০২০-০৯-১০
৪,৮৬,০৫২(+১%) ৮,১৫৪(+১%)
২০২০-০৯-১১
৪,৯১,৫৭১(+১%) ৮,২৩১(+১%)
২০২০-০৯-১২
৪,৯৭,০৬৬(+১%) ৮,৩০৭(+১%)
২০২০-০৯-১৩
৫,০২,৭৫৯(+১%) ৮,৩৮১(+১%)
২০২০-০৯-১৪
৫,০৮,৫১১(+১%) ৮,৪৩৪(+১%)
২০২০-০৯-১৫
৫,১৪,২০৮(+১%) ৮,৫০২(+১%)
২০২০-০৯-১৬
৫,১৯,৮৬০(+১%) ৮,৫৫৯(+১%)
২০২০-০৯-১৭
৫,২৫,৪২০(+১%) ৮,৬১৮(+১%)
২০২০-০৯-১৮
৫,৩০,৯০৮(+১%) ৮,৬৮৫(+১%)
২০২০-০৯-১৯
৫,৩৬,৪৭৭(+১%) ৮,৭৫১(+১%)
২০২০-০৯-২০
৫,৪১,৯৯৩(+১%) ৮,৮১১(+১%)
২০২০-০৯-২১
৫,৪৭,৩৩৭(+১%) ৮,৮৭১(+১%)
উৎস: stopcorona.tn.gov.in , Data:COVID-19 cases in Tamil Nadu.tab


টীকা ১৯ এপ্রিল, ২ জনের মৃত্যু হয় যারা অন্যান্য রাজ্যের এবং ১ রোগী সংক্রমণের জন্য নেতিবাচক হয়ে যাওয়ার পরে মারা যায়, যেগুলি এটিতে অন্তর্ভুক্ত নয়।

মার্চ[সম্পাদনা]

তামিলনাড়ুতে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত কোভিড ১৯ বৈশ্বিক মহামারীর মুখ্য ঘটনাক্রম
০৭ মার্চ প্রথম নিশ্চিন্তকৃত সংক্রমণ
১৫ মার্চ বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান, স্কুল এবং কলেজ বন্ধ
২০ মার্চ রাজ্যের সীমাগুলি বন্ধ করা হল।
২২ মার্চ জনতা কার্ফু - সমস্ত ভারত জুড়ে
২৪ মার্চ ১৪৪ ধারা লাগু
২৫ মার্চ প্রথম প্রতিবেদিত মৃত্যু
১৪ এপ্রিল পর্যন্ত দেশব্যাপী লকডাউন লাগু হয়েছে
৩১ মার্চ ১০০ নিশ্চিন্তকৃত সংক্রমণ
তাবলিগী জামাত গোষ্ঠী থেকে চিহ্নিত প্রথম ঘটনা
১১ এপ্রিল ১০ প্রতিবেদিত মৃত্যু
১২ এপ্রিল ১০০০ জন নিশ্চিত আক্রান্ত
১৪ এপ্রিল ৩ মে অবধি ভারত জুড়ে লকডাউন
১৫ এপ্রিল ১০০ প্রতিবেদিত আরোগ্যলাভ
২১ এপ্রিল ৫০০ প্রতিবেদিত আরোগ্যলাভ
২৫ এপ্রিল প্রতিবেদিত সুস্থ্য হওয়া ব্যক্তির সংখ্যা, বর্তমান আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যাকে ছাড়িয়ে গেছে
২৬ এপ্রিল ১০০০ প্রতিবেদিত আরোগ্য লাভ
২৮ এপ্রিল ২৫ প্রতিবেদিত মৃত্যু
২০০০ নিশ্চিন্তকৃত সংক্রমণ

৭ মার্চ চেন্নাইয়ের কাঞ্চিপুরম থেকে আগত এক বাসিন্দার দেহে করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রথম ঘটনাটি নিশ্চিত হয়েছিল। ওমান থেকে ফিরে এসে তার জ্বর এবং কাশি সহ লক্ষণগুলির প্রকাশ পেয়েছিল। [৮] তাকে রাজীব গান্ধী সরকারী জেনারেল হাসপাতালেয়ালাদা রাখা হয়েছিল । পরে, ১০ মার্চ, তিনি সুস্থ্য হয়ে ওঠেন এবং নেতিবাচক পরীক্ষিত হন। [৯]

নতুন মামলা ছাড়া এক সপ্তাহেরও বেশি সময় পরে, ১৮ মার্চ, দ্বিতীয় ব্যক্তি যিনি দিল্লী থেকে চেন্নাই ট্রেনে ভ্রমণ করেছিলেন তার সংক্রমণ ইতিবাচক নিশ্চিত করা হয়। তাঁর বিদেশ ভ্রমণের কোনও ইতিহাস নেই এবং রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সি বিজয়বাস্কর তাঁকে স্থানীয় ঘটনা হিসাবে বর্ণনা করেছিলেন। [১০]

১৯ মার্চ, আয়ারল্যান্ড থেকে ফিরে আসা ২১-বছর-বয়সী শিক্ষার্থী ইতিবাচক পরীক্ষিত হয়েছিলেন। [১১]

২১ মার্চ, আরও তিনজন ইতিবাচক নিশ্চিত হয়েছিলেন - নিউজিল্যান্ড ফেরত চেন্নাইয়ের এক ব্যক্তি [১২] এবং এরোডে ভ্রমণকারী থাইল্যান্ডের দুই নাগরিক। [১৩] তাদের ইরোডের পেরুন্ডুরাইয়ের আইআরটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। এই তিন রোগীর সংস্পর্শে আসা ৩০০ জনেরও বেশি লোককে পৃথক করা হয়েছিল। [১৪]

২৫ মার্চ, মাদুরাইয়ের এক ৫৪ বছর বয়সী ব্যক্তি মারাযান। এটি এই রাজ্যে প্রথম ভাইরাসজনিত মৃত্যুর ঘটনা। [১৫] আরও পাঁচজন সংক্রামিত হয়েছিল - চারজন ইন্দোনেশিয় এবং তাদের চেন্নাই বাসী ভ্রমণ গাইড। [১৬] ২২ মার্চ সালাম মেডিকেল কলেজে এই পাঁচজন পৃথক অবস্থায় ছিল। [১৭]

২৮ মার্চ, আয়ারল্যান্ডের ডাবলিন সফর থেকে ১৯ মার্চ ফিরে আসা ২১ বছর বয়সী যুবককে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। [১৮] কুম্বোনকাম ও কাটপাদিতে একটি করে দুটি সংক্রমণের নতুন ঘটনা হয়েছে। এর সাথে রাজ্যে মোট নিশ্চিত আক্রান্তের সংখ্যা ৪০-এ পৌঁছেছে। [১৯]

২৯ মার্চ, রাজ্যে আরও আটটি ঘটনা (কোয়েম্বাতোর ও ইরোডের চারটি) প্রতিবেদন করা হয়েছিল, এগুলির সবগুলিই দুই থাই নাগরিক এবং তাদের দলের সাথে যুক্ত ছিল যারা ইতিবাচক পরীক্ষিত হয়েছিল। এই আটজনের মধ্যে একটি ১০ মাস বয়সী শিশু অন্তর্ভুক্ত ছিল। [২০] এদিন নিশ্চিত হওয়া ঘটনার মোট সংখ্যা ৫০ পৌঁছায়। [২১]

৩০ মার্চ, রাজ্যে নতুন ১৭ টি ঘটনা প্রকাশিত হয়েছে, যা এদিন পর্যন্ত সর্বাধিক [১৩] - ইরোডের ১০ জন পুরুষ রোগী, যাদের সকলেই দিল্লী ভ্রমণ করেছেন তারা থাইল্যান্ডের পর্যটকদের সাথে যোগাযোগে এসেছিলেন, চেন্নাইয়ের ৫ জন এবং করুর এবং মাদুরাই থেকে একজন করে । [২২]

Chennai cop corona helmet
চেন্নাইয়ের এক পুলিশ আধিকারিক লকডাউন চলাকালীন যাত্রীদের বাইরে যেতে বাধা দেওয়ার জন্য একটি অনন্য 'করোনার' হেলমেট পরেছিলেন।

৩১ মার্চ, ৫৭ টি নতুন ঘটনা রিপোর্ট করা হয়েছিল, সবক্ষেত্রেই মূলত দিল্লিতে ভ্রমণের ইতিহাস সহ মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১২৪ এ পৌঁছেছে। [২৩] এটি ৩১ মার্চ পর্যন্ত একদিনের সর্বাধিক ঘটনা। এর মধ্যে ৫০ টি ঘটনা ছিল যথাক্রমে নামাক্কল (১৮), তিরুনেলভেলি (২২), কন্যাকুমারী (৪) ভিলুপুরম (৩), মাদুরাই (২) এবং থুথুকুডি (১)। [২৪] কর্মকর্তারা আবিষ্কার করেছিলেন যে তামিলনাড়ুতে ১২৪ টি নিশ্চিত ঘটনার মধ্যে কমপক্ষে ৮০ টি (৭৯ শতাংশ) একটি দলের অন্তর্ভুক্ত ছিল কারণ তারা ২১ মার্চ ইতিবাচক পরীক্ষিত দুই থাই নাগরিকের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ সংস্পর্শে ছিল। ৫ ও ৬ নম্বর রোগী হিসাবে চিহ্নিত থাই নাগরিকরা থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া ইত্যাদি দেশগুলির একটি বৃহত গোষ্ঠীর অংশ ছিলেন যারা এই বার্ষিক তীর্থযাত্রার জন্য এই রাজ্যটিতে এসেছিলেন। [২৫] এই গোষ্ঠীটি মার্চের প্রথম দিকে নয়াদিল্লির নিজামউদ্দিন মারকাজ মসজিদে তিন দিনের তাবলিগী জামাতে অংশ নিয়েছিল। [২৬] অনুমান করা হয়েছিল যে এই অনুষ্ঠানটিতে রাজ্যের ১,৫০০ জনেরও বেশি লোক অংশ নিয়েছিল। [২৭] কর্মকর্তারাও নিশ্চিত করেছেন যে আগের সপ্তাহে মারা যাওয়া ৫৪ বছর বয়সী রোগীও সমাবেশে অংশ নিয়েছিলেন। সমবেত হওয়া ১,৫০০ জনের মধ্যে ১,১৩০ জন রাজ্যে ফিরে এসেছিল। সরকার ১,১৩০ জন ব্যক্তির মধ্যে ৫১৫ জনকে চিহ্নিত করে পৃথক করা হয়েছে। সরকার বাকিজনেদের চিহ্নিত করার সময় সমস্যার সম্মুখীন হয়েছিল। সরকার সমাবেশে অংশ নেওয়া লোকদের এগিয়ে এসে পরীক্ষা করানোর জন্য অনুরোধ করেছিল। [২৮] এই ঘটনার পরে নিজামউদ্দিন মারকাজ একটি নতুন ভাইরাস হটস্পট হিসাবে দেখা দেয়। [২৯]

এপ্রিল[সম্পাদনা]

১ এপ্রিল, রাজ্য ১১০ টি নতুন ঘটনা রিপোর্ট করেছিল, যাদের সকলেই দিল্লি নিজামুদ্দিন অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিল, এদিনের মোট নিশ্চিত আক্রান্তের সংখ্যা ২৩৪। [৩০][৩১][৩২] স্বাস্থ্য সচিব, বিল্লা রাজেশ বলেছিলেন যে অনুষ্ঠানের ১৫০০ জন উপস্থিতির মধ্যে ১১০৩ জনকে চিহ্নিত করে পৃথক করা হয়েছে। তাদের নমুনাগুলির মধ্যে ৬১৮ জনকে পরীক্ষা করা হয়েছিল, যার মধ্যে .১৯০ জনের ইতিবাচক পরীক্ষা হয়েছে। [৩৩] অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে কয়েকজন সরকারের অনুরোধের পরে কর্মকর্তাদের কাছে এসেছিলেন। পরিবারের সদস্য এবং ঘনিষ্ঠ যোগাযোগে আসা ব্যক্তিদের, হয় সঙ্গনিরোধ সুবিধাগুলিতে বা নিজের বাড়িতে আলাদা করা হয়েছিল। [৩৪]

২ এপ্রিল ৭৫ টি নতুন ঘটনার খবর পাওয়া গেছে, যার মধ্যে ৭৪৮ জন দিল্লির তাবলিগী জামায়াতে অংশ নিয়েছে। [৩৫]

৩ এপ্রিল, ১০২ টি নতুন ঘটনা রিপোর্ট করা হয়েছিল, যার মধ্যে ১০০ জন দিল্লির তাবলিগী জামায়াতে অংশগ্রহণকারী ছিল। অন্য দু'জন ছিলেন চেন্নাই থেকে, একজন অন্য রোগ সংক্রান্ত সমস্যা সহ এবং একজন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে-ফিরে এসেছিলেন। [৩৬]

৮ এপ্রিল, ৭৪৮ টি নতুন ঘটনা রিপোর্ট করা হয়েছিল, যার মধ্যে ৬৯ জন দিল্লির অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী ছিল, ৪ জন অনুষ্ঠানের অংশগ্রহণকারীদের সংস্পর্শে এসেছিল। একজন ছিলেন চেন্নাই থেকে। [৩৭][৩৮] আরও দু'জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে, ৫১ বছর বয়সের একজন পুরুষ, যিনি ভিলুপুরমের তাবলিগী জামায়াতে যোগ দিয়েছিলেন এবং থেনি সরকারি হাসপাতালে একজন মহিলা। [৩৯]

৫ এপ্রিল, ৮৬ টি নতুন ঘটনার খবর পাওয়া গেছে যার মধ্যে ৮৫ জন সরাসরি বা পরোক্ষভাবে দিল্লির ঘটনার সাথে সম্পর্কিত। রমনাথপুরমের একজন ৭১ বছর বয়সী মৃত ব্যক্তি ইতিবাচক পরীক্ষিত হয়েছিল। এই রোগীর মতো একই হাসপাতালে ৬০ বছর বয়সের আরো একজন মারা যান। [৪০] স্বাস্থ্য অধিদফতর প্রকাশ করেছে যে তখনও পর্যন্ত তাবলিগী জামায়াতের অংশগ্রহণকারীদের যোগাযোগের সন্ধান করা হয়েছে এবং বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। [৪১]

৬ এপ্রিল, ৫০ টি নতুন ঘটনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ায় ৬২১। তাদের মধ্যে ৪৮ জন দিল্লি অনুষ্ঠান থেকে ফেরত এসেছিলেন। [৪২] ১০১ জন জনতা যারাকোভিড-১৯ এ মৃতদেহকে সমাহিত করার অনুষ্ঠানে তাদের রামনাথপুরমে ঘরে সঙ্গনিরোধে রাখা হয়েছিল। মৃতের সংক্রমণের সম্পর্কে তারা সচেতন ছিল না কারণ তার দাফনের দুদিন পর পরীক্ষার ফলাফল ইতিবাচক আসে। [৪৩]

মে[সম্পাদনা]

৩০ এপ্রিল থেকে তামিলনাড়ুতে কোভিড ১৯ মহামারীর প্রধান ঘটনাক্রম
মে মাসের প্রথম সপ্তাহ কয়ম্বেদু পাইকারি বাজার কমপ্লেক্স গোষ্ঠী চিহ্নিত
২ মে বর্তমান ব্যধিগ্রস্থ ব্যক্তির সুংখ্যা পুনরায় আরোগ্যলাভের সংখাকে ছাড়িয়ে গেছে
৩ মে ৩০০০ নিশ্চিত ঘটনা
৫ মে ৪০০০ নিশ্চিত ঘটনা
৬ মে ১৫০০ প্রতিবেদিত আরোগ্য
৮ মে ৫০০০ নিশ্চিত ঘটনা
১১ মে ৮০০০ নিশ্চিত ঘটনা

মে মাসে, কয়ম্বেদু পাইকারি বাজার কমপ্লেক্সটি, চেন্নাইয়ে নতুন হটস্পট হিসাবে দেখা দেয়।৩ মে অবধি, ১১৩টি সংক্রমণ বাজাটির সাথে শনাক্ত করা হয়েছিল। লকডাউন চলাকালীন এমনকি চেন্নাই থেকে আসা মালবহনকারী থাকায় সংক্রামিতরা চেন্নাই, তিরুভালুর, কাঞ্চিপুরম, কুডলোর এবং চেঙ্গালপট্টু জেলাগুলিতে ছড়িয়ে পড়েছিল। [৪৪][৪৫] কয়ম্বেদুর আশেপাশের অঞ্চলগুলি সিল করে দেওয়া হয়েছিল এবং সংক্রামিত বিক্রেতাদের যোগাযোগে আসা ব্যক্তিদের সন্ধান করা হচ্ছে। [৪৬] একজন সবজি বিক্রেতা যে কয়েমবেদু বাজারে যেত, ইতিবাচক পরীক্ষার পরে, দক্ষিণ চেন্নাইয়ের তিরুভানমিয়ুর বাজারও বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। [৪৭]

৬ মে, রাজ্যে ৭৭১ টি ঘটনা হয়েছে, যাতে সর্বমোট নিশিচ আক্রান্ত ৪৮২৯ জ্ন। এটি এদিন পর্যন্ত একদিনে আক্রান্তের সংখ্যায় সর্বোচ্চ ছিল। [৪৮]

৮ মে, ৬০০ টি নতুন ঘটনা হয়েছে। রাজ্যে কয়ম্বেদু গুচ্ছে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১৫৮৯। [৪৯]

১১ মে, 8৯৮ টি নতুন ঘটনা নিয়ে, রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮০০০ এর সীমা ছাড়িয়ে ৮০০২ হয়ে গেছে। চেন্নাই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত জেলা হিসাবে অব্যাহত রয়েছে। এই জেলায় একদিনের মধ্যে সর্বোচ্চ আক্রান্তের সংখ্যা ৫৩৮ টি হওয়ায় মোট সংখ্যা ৪৩৭১ এ দাঁড়িয়েছে। রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, "চেন্নাইয়ের কোয়েম্ববেদু ক্লাস্টার, ফ্রন্ট লাইনের কর্মী গোষ্ঠী, হাসপাতালের গোষ্ঠী এবং প্রচারমাধ্যমের গোষ্ঠী ঘটনা রয়েছে। রায়পুরাম, তিরু ভি কা নগর, কোডামবাক্কাম এবং তেণাম্পেট চেন্নাইয়ের চারটি উচ্চ-প্রভাবিত অঞ্চল "। [৫০]

 

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

চিত্রলেখ[সম্পাদনা]

মোট নিশ্চিত হওয়া ঘটনা, সক্রিয় ঘটনা, আরোগ্যলাভ এবং মৃত্যু[সম্পাদনা]

  মোট নিশ্চিত হওয়া ঘটনা   

   সক্রিয় ঘটনা   

  আরোগ্যলাভ   

  মৃত্যু

Note: On 19 Apr two deaths were reported to other state,1 person died after testing negative.[৫১]

সক্রিয় ঘটনা[সম্পাদনা]

ঘটনা সমাপ্তি শতাংশ[সম্পাদনা]

প্রতিদিন নতুন ঘটনা[সম্পাদনা]

প্রতিদিন নতুন সুস্থ্য হওয়া ব্যক্তি[সম্পাদনা]

প্রতিদিন মৃতের সংখ্যা[সম্পাদনা]

সংক্রমণের ধরণ অনুযায়ী প্রতিদিন নতুন ঘটনা[সম্পাদনা]

ইতিবাচক নমুনার হার[সম্পাদনা]

[৩০] [৩৫] [৩৬] [৩৭] [৪১] [৪২] [৫১] [৫২] [৫৩] [৫৪] [৫৫] [৫৬] [৫৭] [৫৮] [৫৯] [৬০] [৬১] [৬২] [৬৩] [৪৯] [৬৪] [৬৫] [৬৬] [৬৭] [৬৮] [৬৯] [৭০] [৭১] [৭২] [৭৩] [৭৪] [৭৫] [৭৬] [৭৭] [৭৮] [৭৯] [৮০] [৮১] [৮২] [৮৩] [৮৪]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

  1. 2 deaths cross notified to other states. 1 patient died after turning negative for infection.
  2. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; districts নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Severe acute respiratory illness surveillance for coronavirus disease 2019, India, 2020" (PDF)Indian Journal of Medical Research: 5। ১০ এপ্রিল ২০২০। [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. "ArcGIS Dashboards"nhmtn.maps.arcgis.com। ২০২০-০৪-১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৯ 
  3. Cases from newly split Mayiladuthurai district is officially reported along with its parent district Nagapattinam
  4. Cases from newly split Mayiladuthurai district is officially reported along with its parent district Nagapattinam
  5. Ch, Himani; na (২০২০-০৪-১৭)। "Tamil Nadu is containing Covid-19 well, and it is not following Bhilwara model"ThePrint (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-১৭ 
  6. "Tamil Nadu Prepares for Stage Two of Coronavirus Outbreak With More Home Quarantines, Surveillance"News18। ২৯ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-৩১ 
  7. Dubey, Jyotindra (২০২০-০৪-২০)। "Covid-19: Delhi has highest infection rate, Tamil Nadu is showing recovery"Business Standard India। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৪ 
  8. "Tamil Nadu reports first case of Coronavirus; patient quarantined in Chennai Government Hospital"The Economic Times। ২০২০-০৩-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-৩১ 
  9. "Coronavirus: No fresh COVID-19 cases in Tamil Nadu"Deccan Herald। ১০ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০২০ 
  10. "Tamil Nadu's 2nd Coronavirus patient raises community transmission fears"Economic Times। ১৯ মার্চ ২০২০। ১৯ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০২০ 
  11. "Coronavirus LIVE: India's death toll rises to four"Business Standard। ১৯ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০২০ 
  12. "Three more COVID-19 cases in State, one with no travel history"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৩-২৪। আইএসএসএন 0971-751X। ২৪ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-৩০ 
  13. "Tamil Nadu reports 17 fresh coronavirus cases; tally now 67"Deccan Herald (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৩-৩০। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-৩০ 
  14. "Tamil Nadu reports 7th positive coronavirus case"Deccan Herald (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৩-২২। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-৩১ 
  15. "மதுரையில் தமிழகத்தின் முதல் கொரோனா பலி : 54 வயது நபர் மரணம்"Tamil News patrikai (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৩-২৫। ২৮ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-২৮ 
  16. "Tamil Nadu reports five new coronavirus cases; tally goes up to 23"Economic Times। ২৬ মার্চ ২০২০। 
  17. "TN reports 5 new cases of COVID-19, includes 4 Indonesian travellers and 1 Chennai man"The News Minute। ২৫ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-৩০ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  18. "Covid-19 positive Tamil Nadu man with travel history to Ireland recovers"Business Standard India (ইংরেজি ভাষায়)। ২৮ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০২০ 
  19. "Media Bulletin 28 March 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৮ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০২০ 
  20. "10-month-old baby and 7 more test positive for COVID-19 in Tamil Nadu; state's tally rises to 50"Deccan Herald। ২৯ মার্চ ২০২০। ২৯ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মার্চ ২০২০ 
  21. "Media Bulletin 29 March 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ১ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মার্চ ২০২০ 
  22. "Media Bulletin 30 March 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ১৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  23. "Tamil Nadu reports 57 new Covid-19 cases in one day, 79% attended Tablighi Jamaat. State tally at 124"India Today। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০২০ 
  24. "Media Bulletin 31 March 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ১ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০২০ 
  25. M, Serena Josephine (২০২০-০৩-৩০)। "25 of 67 patients directly or indirectly linked to Thai nationals"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0971-751X। ৩১ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-৩১ 
  26. "Coronavirus: 25 out of 67 in Tamil Nadu have contact or travel history with Thai nationals"Deccan Herald (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৩-৩০। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-৩১ 
  27. "Coimbatore, Erode Stare at Crisis as Tamil Nadu Govt Races to Trace Scores Back from Nizamuddin Event"News18। ১ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-৩১ 
  28. Narayan, Pushpa (মার্চ ৩১, ২০২০)। "Tamil Nadu Coronavirus update: Tamil Nadu reports 50 more Covid-19 cases"The Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। ৩১ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-০১ 
  29. "How Nizamuddin markaz became Covid-19 hotspot; more than 8,000 attendees identified"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৪-০২। ২ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-০৬ 
  30. "Media Bulletin 1 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৩ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  31. Lobo, Shalini। "Tamil Nadu reports 110 new coronavirus cases, all linked to Nizamuddin event"India Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০২০ 
  32. "110 more cases in Tamil Nadu on Wednesday, all attended Delhi Jamaat conference"The News Minute। ২ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ এপ্রিল ২০২০ 
  33. "Covid-19: Tamil Nadu witnesses steep rise in cases"The Economic Times। ২০২০-০৪-০১। ১ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-০২ 
  34. Narayan, Pushpa (এপ্রিল ২, ২০২০)। "Tamil Nadu: Special containment plan for Tablighi Jamaat group"The Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-০২ 
  35. "Media Bulletin 2 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  36. "Media Bulletin 3 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  37. "Media Bulletin 4 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ১৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  38. "Coronavirus | 74 new cases take Tamil Nadu's total to 485"। ৫ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  39. "Two dead of Covid-19 in Tamil Nadu"। ৭ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  40. Sujatha, R. (২০২০-০৪-০৫)। "Coronavirus | Tamil Nadu reports 86 new cases, two more patients die"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0971-751X। ৬ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-০৬ 
  41. "Media Bulletin 5 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ৫ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  42. "Media Bulletin 6 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ৬ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  43. "Over 100 quarantined after COVID-19 victim buried without precautions in Tamil Nadu"The New Indian Express। ৭ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-০৬ 
  44. Lakshmi, K. (২০২০-০৫-০২)। "Koyambedu market emerges a hotspot"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৪ 
  45. "Almost 100 COVID-19 cases emerge from Chennai's Koyambedu market"thenewsminute.com। ২০২০-০৫-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৪ 
  46. "Koyambedu: Pandora's box opened"The New Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৪ 
  47. "Koyambedu weaves web wide across Tamil Nadu as Chennai grapples with COVID-19"The New Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৪ 
  48. "With record 771 new cases in 24 hrs, Tamil Nadu's Covid-19 count rises to 4,829"Livemint (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৫-০৬। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৬ 
  49. Media Bulletin on 2020 May 8 for COVID-19 prevention and control (Tamil Nadu) (Q93598390)
  50. "COVID-19 | Tamil Nadu sees record spike of 798 cases"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। Special Correspondent। ২০২০-০৫-১২। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-১৩ 
  51. "Media Bulletin 19 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  52. "Media Bulletin 7 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ৭ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  53. "Media Bulletin 8 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ৮ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  54. "Media Bulletin 9 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ৯ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  55. "Media Bulletin 10 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ১১ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  56. "Media Bulletin 11 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  57. "Media Bulletin 12 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ১২ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  58. "Media Bulletin 13 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ১৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  59. "Media Bulletin 14 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  60. "Media Bulletin 15 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ১৫ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  61. "Media Bulletin 16 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  62. "Media Bulletin 17 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ১৭ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  63. "Media Bulletin 18 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  64. "Media Bulletin 20 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২০ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  65. "Media Bulletin 21 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২১ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  66. "Media Bulletin 22 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২২ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  67. "Media Bulletin 23 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  68. "Media Bulletin 24 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  69. "Media Bulletin 25 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৫ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  70. "Media Bulletin 26 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৬ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  71. "Media Bulletin 27 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৭ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  72. "Media Bulletin 28 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৮ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  73. "Media Bulletin 29 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২৯ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  74. "Media Bulletin 30 April 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ৩০ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  75. "Media Bulletin 1 May 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ১ মে ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  76. "Media Bulletin 2 May 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ২ মে ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  77. "Media Bulletin 3 May 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ৩ মে ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  78. "Media Bulletin 4 May 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ৪ মে ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  79. "Media Bulletin 5 May 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ৫ মে ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  80. "Media Bulletin 6 May 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ৫ মে ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  81. "Media Bulletin 7 May 2020" (PDF)Health & Family Welfare Department Government of Tamil Nadu। ৭ মে ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  82. Media Bulletin on 2020 May 9 for COVID-19 prevention and control (Tamil Nadu) (Q93739085)
  83. Media Bulletin on 2020 May 10 for COVID-19 prevention and control (Tamil Nadu) (Q93871034)
  84. Media Bulletin on 2020 May 13 for COVID-19 prevention and control (Tamil Nadu) (Q94277705)

বহিসংযোগ[সম্পাদনা]