তাজপুর ইউনিয়ন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
তাজপুর
ইউনিয়ন
তাজপুর সিলেট বিভাগ-এ অবস্থিত
তাজপুর
তাজপুর
তাজপুর বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
তাজপুর
তাজপুর
বাংলাদেশে তাজপুর ইউনিয়নের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৪°৪৪′২.০০০″ উত্তর ৯১°৪৪′৫১.০০০″ পূর্ব / ২৪.৭৩৩৮৮৮৮৯° উত্তর ৯১.৭৪৭৫০০০০° পূর্ব / 24.73388889; 91.74750000স্থানাঙ্ক: ২৪°৪৪′২.০০০″ উত্তর ৯১°৪৪′৫১.০০০″ পূর্ব / ২৪.৭৩৩৮৮৮৮৯° উত্তর ৯১.৭৪৭৫০০০০° পূর্ব / 24.73388889; 91.74750000 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগসিলেট বিভাগ
জেলাসিলেট জেলা
উপজেলাওসমানী নগর উপজেলা উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
সরকার
 • চেয়ারম্যানমোঃ ইমরান রব্বানি
আয়তন
 • মোট২,১৯৪ হেক্টর (৫,৪২১ একর)
জনসংখ্যা
 • মোট২৯,০০০
 • জনঘনত্ব১,৩০০/বর্গকিমি (৩,৪০০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
৬০ ৯১ ০৮ ৮৮
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
মানচিত্র

তাজপুর ইউনিয়ন সিলেট বিভাগ এবং সিলেট জেলার ওসমানী নগর উপজেলার একটি ইউনিয়ন পরিষদ।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

তাজপুর পূর্বে আওরঙ্গপুর পরগনার ঐতিহাসিক গৌহরপুরের একটি অংশ ছিল। ১৩০৩ সালে গৌর বিজয়ের পরে ১৪ শতকের মাঝামাঝি সময়ে শাহ জালালের শিষ্যরা তাজপুরে বসতি স্থাপন করেছিলেন এবং ইসলাম প্রচার করেছিলেন। তাঁদের মধ্যে একজন ছিলেন শাহ তাজউদ্দিন যার নামানুসারে আজকের এই নামকরণ করা হয়েছে।[১]

১৯৮৭ সালে, ইউনিয়নের প্রথম উচ্চ বিদ্যালয়, মুহাম্মদ নূর মিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় চালু করা হয়, এতে সেখানে মেয়েদের আরও উচ্চ স্তরে পড়াশোনার সুযোগ পায়। ত্রিশ বছর পরে, এখানে কেএমজিডি নামে দ্বিতীয় উচ্চ বিদ্যালয় চালু করা হয়।[২]

তাজপুর ইউনিয়ন প্রথমে বালাগঞ্জ উপজেলার অংশ ছিল। ওসমানী নগর থানাটি ২০০৩ সালের ২৩ শে মার্চ প্রতিষ্ঠিত হলে এতে তাজপুরও যুক্ত হয়। ২ জুন ২০১৪ সালে তাজপুরকে ওসমানী নগর উপজেলার অংশে যুক্ত করা হয়।[৩] ৫ জানুয়ারী ২০১৮ সালে খাসি কাপন নাইট রাইডার্স (কাশিকাপন) নামে একটি স্থানীয় দল সিলেট সিক্সার্সকে (একটি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের দল) একটি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনালে পরাজিত করলে এই ইউনিয়নটি মিডিয়ার মনোযোগ আকর্ষণ করে।[৪]

ভৌগলিক উপাত্ত[সম্পাদনা]

তাজপুর ইউনিয়নের আয়তন ৫৮২০ একর (৮.৫ বর্গ কিলোমিটার)। তাজপুর ইউনিয়ন ওসমানী নগর উপজেলার উত্তর অংশে অবস্থিত। এটির পশ্চিমে গোয়ালাবাজার ও উমরপুর ইউনিয়ন এবং বিশ্বনাথ উপজেলা, পূর্বে ওসমানপুর ও দয়ামির ইউনিয়ন, উত্তরে দয়ামির ও বিশ্বনাথ এবং দক্ষিণে গোয়ালাবাজার এবং বোয়ালজুর ইউনিয়ন (বালাগঞ্জ উপজেলা) অবস্থিত।

প্রশাসনিক অবকাঠামো[সম্পাদনা]

এই ইউনিয়নে ৪৯টি গ্রাম এবং ২০ টি মৌজা আছে । ৯ টি ওয়ার্ড এবং ৪৯ টি মহল্লা নিয়ে এ তাজপুর ইউনিয়ন গঠিত। এ ৯টি ওয়ার্ডে ৯ জন সাধারণ আসনের ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং ৩ জন সংরক্ষিত আসনে মহিলা কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। মাননীয় মেয়র ও সম্মানিত কাউন্সিলরগণ জনগনের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত হয়ে থাকেন।

ওয়ার্ড নং অন্তর্ভুক্ত গ্রাম/মহল্লার নাম
০১ কাশিকাপন, সুরতপুর, ছিলামনপুর,
০২ রঙ্গিয়া, দুরাজপুর, পূর্ব দুরাজপুর, পশ্চিম দুরাজপুর, একাশনী চক ভাড়েরা, বরায়া ২, আমিনপুর, কামিনীকান্দি,
০৩ ভাড়েরা, নাগেরকোনা, ভাড়েরা শাধবপুর, পশ্চিম রোকনপুর, পূর্ব রোকনপুর, সাইটধা, কমরপুর
০৪ চরইসবপুর, নটপুর, আইলাকান্দি
০৫ লালকৈলাশ, রবিদাস, দুলিয়ারবন্দ, গুপ্তপাড়া ফতেহপুর, মাটিহানী লামাপাড়া
০৬ কাশিপাড়া, জিয়াফক গ্রাম তাজপুর রায়পুর, কালাসারা, হস্তিদুর
০৭ দশহাল, সুলতানপুর, মজলিশপুর, মোল্লাপাড়া
০৮ বরায়া কাজিরগাও, তাজপুর বাজার, দিগর গয়াসপুর, বরায়া মোল্লাপাড়া, চানপুর, উদরকোনা, তেঘরী, খোদ ভাড়েরা, উত্তর মজলিশপুর
০৯ কাদিপুর, বদরপুর

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

বাংলাদেশর ১৯৯১ আদমশুমারি অনুযায়ী তাজপুর ইউনিয়নের জনসংখ্যা ১৯,৭৯৭ জন।[৫] এর মধ্যে মহিলা ৫১%, এবং পুরুষ ৪৯%।

ভাষা ও সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

স্থানীয় জনগোষ্ঠী তাদের আদি সিলেটি উপভাষায় কথা বলেন তবে তারা মানক বাংলাতেও কথা বলতে পারেন। বিদ্যালয়গুলিতে আরবি এবং ইংরেজি ভাষাও শেখানো হয়। ইউনিয়নে ৪০ টি মসজিদ রয়েছে।

শিক্ষা[সম্পাদনা]

এখানে সাক্ষরতার হার ৪৮.৬৯%। এখানে ১৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে এবং এর মধ্যে কয়েকটি হল: কাশিকাপন, আইলাকান্দি, কাদিপুর, নাগরকোনা, দোশাল এবং সিলমনপুর। এখানে একটি কলেজ, চল্লিশটি মক্তব রয়েছে, দশটি মাদ্রাসা রয়েছে। মাদ্রাসার মধ্যে কিছু উল্লেখযোগ্য হল আলহাজ্ব মিনা বেগম দাখিল মাদ্রাসা, আশরাফুল উলূম কাদিপুর, বোরায়া-কাজিরগাঁও উসমানিয়া মহিলা উপাধি মাদ্রাসা এবং তাহফিজুল কুরআন কাশিকাপন-সুরতপুর মাদ্রাসা।

অর্থনীতি ও পর্যটন[সম্পাদনা]

তাজপুরে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ব্রিটিশ এবং মার্কিন প্রবাসি রয়েছে যাদের এর অর্থনীতিতে অবদান রয়েছে। এখানে চারটি হাট বাজার রয়েছে, তা হ'ল: তাজপুর বাজার, কাশিকাপন বাজার, মঙ্গলচণ্ডী বাজার এবং রাখালগঞ্জ বাজার। এখানে দুটি পোস্ট অফিস রয়েছে (তাজপুর এবং ব্রাহ্মণশ্মশান)। এখানে থাকা শের খান (চানপুর), ইনসান শাহ (লামপাড়া) এবং বোয়ালি শাহ (দোশাল) এর মাজারগুলি জনপ্রিয় পর্যটন স্থান। এখানে কাদিপুর দিঘিরপাড় (বড় পুকুর) নামে একটি শত বছরের পুরনো পুকুর রয়েছে যা উদ্যান, মসজিদ এবং ইসলামী গ্রন্থাগারের পাশে অবস্থিত।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. আবদুল হান্নান তুরুক্ষলি (১০ মে ২০১৯)। "৩৬০ আউলিয়ার মাজার পরিচিতি"। সিলেটের ডাক। 
  2. "উচ্চ বিদ্যালয়"তাজপুর ইউনিয়ন 
  3. "নতুন দুই উপজেলার অনুমোদন"দৈনিক যুগান্তর। ২ জুন ২০১৪। 
  4. "ওসমানীনগরে কাশিকাপন চ্যাম্পিয়ন্স ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের ফাইনাল সম্পন্ন"। SurmaNews24। ৬ জানু ২০১৯। ১০ অক্টোবর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  5. "বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (BBS)"। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ২, ২০০৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]