তাইওয়ান–প্যারাগুয়ে সম্পর্ক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
তাইওয়ান–প্যারাগুয়ে সম্পর্ক
মানচিত্র Paraguay এবং Taiwan অবস্থান নির্দেশ করছে

প্যারাগুয়ে

প্রজাতন্ত্রী চীন

তাইওয়ান–প্যারাগুয়ে সম্পর্ক হল তাইওয়ান এবং প্যারাগুয়ে রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। ৮ জুলাই, ১৯৫৭ সালে দুই দেশের সরকার পারস্পরিক কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করেন। প্যারাগুয়ে পৃথিবীর ২২টি দেশের একটি এবং দক্ষিণ আমেরিকার একমাত্র দেশ, যারা প্রজাতন্ত্রী চীনকে (আরওসি) চীনের এবং তাইওয়ান দ্বীপের মূল এবং বৈধ সরকার হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। ১৯৯৯ সাল থেকে তাইপেইয়ে প্যারাগুয়ের দূতাবাস রয়েছে।[১] অসানসিঁওতে একটি দূতাবাস এবং সিউদাদ দেল এস্তেতে তাইওয়ানের একটি কনস্যুলেট-জেনারেল অফিস অবস্থিত।[২] রাষ্ট্রদ্বয় পৃথিবীর দুই প্রান্তে অবস্থিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

তাইওয়ানে প্যারাগুয়ের রাষ্ট্রপতি হোরাশিও কার্তেস এবং আরওসির রাষ্ট্রপতি তিসাই ইং-ওয়েন সাক্ষাৎ করছেন।

প্যারাগুয়ে এবং প্রজাতন্ত্রী চীনের সরকার ১৯৫৭ সালের ৮ই জুলাই নিজেদের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করে। এরপরের বছরগুলোতে দুই দেশের সরকার সাংস্কৃতিক কনভেনশন (১৯৬১), বন্ধুত্বের চুক্তি (১৯৬৮) এবং পর্যটন ও বিনিয়োগ কনভেনশন (১৯৭৫) স্বাক্ষর করে।[৩] [৪]

জেনারেল আলফ্রেডো স্ট্রোয়েসনার এবং জেনারালিসিমো চিয়াং কাই-সেক শাসিত সমাজতন্ত্র-বিরোধী বন্ধুত্ব সম্পূর্ণ স্বাভাবিক ছিল। অনেক প্যারাগুইয়ান অফিসারকে তাইওয়ানের ফু হুসিং কাং কলেজে প্রশিক্ষণের জন্য পাঠানো হয়।[৫] ১৯৮৯ সালে স্ট্রোয়েসনারকে সরিয়ে ক্ষমতায় বসেন আন্দ্রেস রড্রেগেজ। এর পরপরই তিনি নিজেকে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি হিসেবে দাবি করেন। তখনই গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের পক্ষ থেকে কূটনৈতিক স্বীকৃতি পরিবর্তনের প্রস্তাব আসে।[৬] তবে অভিজ্ঞ জেনারেল ও রাজনীতিবিদ ওয়াং শেং, যিনি তখন তাইওয়ানের রাষ্ট্রদূত এবং কূটনৈতিক কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত ছিলেন, প্যারাগুয়েকে আরওসির সাথে সম্পর্ক বজায় রাখার পক্ষেই অবস্থান গ্রহণ করায়। সেইসাথে তাইওয়ানের উন্নয়নের সহযোগী হিসেবে প্যারাগুয়েকে পাশে পাওয়া, এবং তাইওয়ানের বাজারে প্রবেশ প্যারাগুয়ের জন্য অধিকতর লাভজনক হবে বলে তিনি প্যারাগুয়েকে বোঝাতে সমর্থ হন। অসানসিঁওতে নিয়োজিত আরওসির বাণিজ্যিক সহদূত তিসেং চেং-তে বলেন যে "আমি অনবরত বের করার চেষ্টা করেছি যে তাদের কাছ থেকে আমরা কি কিনতে পারি। এটা খুবই কঠিন ছিল, কারণ তাদের তরফ থেকে অফার করার মত কিছুই নেই।"[৬]

১৯৯০-এর দশক জুড়েই তাইওয়ান প্যারাগুয়ের একাধিক অর্থনৈতিক উন্নয়নমূলক প্রকল্পে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।[৪] সেইসাথে প্যারাগুয়েকে প্রদত্ত ঋণের পরিমাণও বেড়ে গেছে। ২০০৯ সালের শুরুর দিকে তাইওয়ান সরকারকে ২০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের উদৃত্ত ঋণ থেকে মুক্ত রাখার প্রস্তাব করা হয়।[৭]

ঐতিহাসিকভাবেই জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সকল প্রকার প্রস্তাবে প্যারাগুয়ের কূটনীতিকেরা জাতিসংঘে তাইওয়ানের ফিরে আসার পক্ষে অবস্থান নেন।[৮] তবে, ২০০৮ সালের শরতে সদ্য নির্বাচিত প্যারাগুয়ের রাষ্ট্রপতি ফার্নান্দো লুগো (যার শপথ গ্রহণের দিন তাইওয়ানের মা ইং-জিউ উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন[৯]) ঘোষণা করেন যে তার রাষ্ট্র ৬৩তম সাধারণ পরিষদের সভায় তারা এটা করবে না বলে জানান।[১০]

প্রস্তাবিত এফটিএ[সম্পাদনা]

২০০৪ সালে তাইওয়ান এবং প্যারাগুয়ে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি নিয়ে মধ্যস্থতা করার চেষ্টা করে,[১১] তবে এক্ষেত্রে প্যারাগুয়ের মারকসুরের সহযোগী দেশের (তাইওয়ানের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন) কাছ থেকে অনুমোদনের প্রয়োজন হয়। এ বিষয়টিই প্রক্রিয়াকে জটিল করে তুলেছে।[৯][১২] ২০০৯ সালের এপ্রিল মাস পর্যন্ত প্রস্তাবিত চুক্তিটি এখনও মধ্যস্থতা হবার প্রক্রিয়ায় রয়েছে।[১৩]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Paraguay opens first Asian embassy in Taiwan, Summary of World Broadcasts: Asia, Pacific, Issues 3641-3653, British Broadcasting Corporation, 1999, page D-10
  2. "CONSULATE GENERAL OF TAIWAN IN CIUDAD DEL ESTE, PARAGUAY" 
  3. Relaciones de la República de China (Taiwán) y la República del Paraguay (Relations of the Republic of China (Taiwan) and the Republic of Paraguay) (At the official site of the R.O.C. Embassy in Paraguay) (স্পেনীয়)
  4. DIPLOMATIC RELATIONS WITH THE REPUBLIC OF CHINA (TAIWAN)>BILATERAL AGREEMENTS (Embassy of Paraguay in the Republic of China)
  5. Marks, Thomas A. (১৯৯৮)। Counterrevolution in China: Wang Sheng and the Kuomintang। ফ্রাঙ্ক কাস, লন্ডন। পৃষ্ঠা ২৮৯-৯৩। আইএসবিএন 0-7146-4700-4 
  6. Marks, p. 301
  7. "Taiwan to allow Paraguay to defer loan payments: minister"চায়না পোস্ট। ৯ মার্চ ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৬ 
  8. "Taiwan's UN Campaign: The Ministry of Foreign Affairs (MOFA)" 
  9. "Taiwan-China balancing act in Latin America" (PDF) 
  10. "Taiwan denies ties with Paraguay are shaky"। এশিয়া-প্যাসিফিক নিউজ। ২ সেপ্টেম্বর ২০০৮। 
  11. Melody Chen (৭ জুলাই ২০০৪)। "MOEA set to negotiate FTA with Paraguay"তাইপেই টাইমস 
  12. Jessie Ho (১৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৫)। "Paraguayan FTA safe: government"। তাইপেই টাইমস। 
  13. "Bilaterals.org: Taiwan" 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:তাইওয়ানের বৈদেশিক সম্পর্ক টেমপ্লেট:প্যারাগুয়ের বৈদেশিক সম্পর্ক