তসলিম আরিফ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
তসলিম আরিফ
تسلیم عارف
তসলিম আরিফ.jpg
১৯৮০ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে তসলিম আরিফ
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামতসলিম আরিফ আব্বাসী
জন্ম(১৯৫৪-০৫-০১)১ মে ১৯৫৪
পিআইবি কলোনী, করাচী, সিন্ধু প্রদেশ, পাকিস্তান
মৃত্যু১৪ মার্চ ২০০৮(2008-03-14) (বয়স ৫৩)
করাচী, পাকিস্তান
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকাউইকেট-রক্ষক, রেফারি
সম্পর্কওয়াসিম আরিফ (ভ্রাতৃষ্পুত্র), মোহাম্মদ আলী (ভ্রাতৃষ্পুত্র)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৮২)
২৯ জানুয়ারি ১৯৮০ বনাম ভারত
শেষ টেস্ট৮ ডিসেম্বর ১৯৮০ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ৩১)
২১ নভেম্বর ১৯৮০ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ ওডিআই১৯ ডিসেম্বর ১৯৮০ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৬৭/৬৮ - ১৯৮৯/৯০করাচী
১৯৬৭/৬৮ - ১৯৮৯/৯০এনবিপি
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১৪৮ ৪০
রানের সংখ্যা ৫০১ ২৮ ৭,৫৬৮ ৮৫৩
ব্যাটিং গড় ৬২.৬২ ১৪.০০ ৩৩.৬৩ ২৫.৮৪
১০০/৫০ ১/২ ১৩/৪০ ১/৪
সর্বোচ্চ রান ২১০* ২৪ ২১০* ১১৩*
বল করেছে ৩০ ৩১১
উইকেট
বোলিং গড় ২৮.০০ ৩০.২৮
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/২৮ ৪/৪৬
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৬/৩ ১/১ ৩১২/৫৬ ৪৫/১৪
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৪ জুন ২০২০

তসলিম আরিফ আব্বাসী (উর্দু: تسلیم عارف‎‎; জন্ম: ১ মে, ১৯৫৪ - মৃত্যু: ১৪ মার্চ, ২০০৮) সিন্ধু প্রদেশের পিআইবি কলোনী এলাকায় জন্মগ্রহণকারী পাকিস্তানী আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ও রেফারি ছিলেন। পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৮০-এর দশকের সূচনালগ্নে অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে পাকিস্তানের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর পাকিস্তানী ক্রিকেটে করাচী, পাকিস্তান ন্যাশনাল ব্যাংকসিন্ধু দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ উইকেট-রক্ষক হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি ডানহাতে মিডিয়াম বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন তসলিম আরিফ

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৬৭-৬৮ মৌসুম থেকে ১৯৮৮-৮৯ মৌসুম পর্যন্ত তসলিম আরিফের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল।

সেপ্টেম্বর, ১৯৭৮ সালে ন্যাশনাল ব্যাংকের পক্ষে দূর্দান্ত ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শন করেন। লাহোরে পাঞ্জাবের বিপক্ষে দশটি ডিসমিসাল ঘটান। এরফলে, প্রথম পাকিস্তানী উইকেট-রক্ষক হিসেবে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে এ কৃতিত্বের অধিকারী হন।[১] পরবর্তীতে, ১৯৯৭ সালে ওয়াসিম ইউসুফজী তার এ রেকর্ড ভেঙ্গে ফেলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে ছয়টিমাত্র টেস্ট ও দুইটিমাত্র একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছেন তসলিম আরিফ। ২৯ জানুয়ারি, ১৯৮০ তারিখে কলকাতায় স্বাগতিক ভারত দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ৮ ডিসেম্বর, ১৯৮০ তারিখে ফয়সালাবাদে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

পাকিস্তান দলে অভিষেককালীন ব্যাটসম্যান হিসেবে অন্তর্ভূক্ত হন। ১৯৭৯-৮০ মৌসুমে কলকাতায় স্বাগতিক ভারতের বিপক্ষে ৯০ ও ৪৬ রান করেছিলেন। তবে, সংক্ষিপ্ত খেলোয়াড়ী জীবনের বাদ-বাকী সময় তাকে গ্লাভস হাতে উইকেটের পিছনে অবস্থান করতে হয়েছিল।

অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি[সম্পাদনা]

একই মৌসুমের শীতকালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ও নিজস্ব তৃতীয় টেস্টে সাত ঘণ্টা ক্রিজে অবস্থান করে অপরাজিত ২১০ রান তুলেন। এটিই তার খেলোয়াড়ী জীবনের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের ইনিংস ছিল।[২] অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাকিস্তানের টেস্ট দলের সদস্যরূপে এ সংগ্রহটি করেছিলেন। টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে উইকেট-রক্ষক হিসেবে তার এ অর্জনটি ২০ বছরের অধিক সময় রেকর্ডসংখ্যক রান সংগ্রহের কারণে টিকেছিল। পরবর্তীতে, ২০০০-০১ মৌসুমে জিম্বাবুয়ীয় উইকেট-রক্ষক অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার ও শ্রীলঙ্কার বিখ্যাত ক্রিকেটার কুমার সাঙ্গাকারা তার এ রেকর্ড ভঙ্গ করে নিজের করে নেন।[৩] তাসত্ত্বেও, গ্লাভস হাতে ওয়াসিম বারি’র প্রাধান্যতায় তসলিম আরিফকে মাত্র ছয় টেস্টে অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়া হয়েছিল।

৬২.৬২ গড়ে রান তুলে টেস্ট খেলোয়াড়ী জীবনের সমাপ্তি ঘটে। বিস্ময়করভাবে ক্যারি প্যাকারের ব্যবস্থাপনায় বিশ্ব সিরিজ ক্রিকেটের দ্বিতীয় আসরে খেলার জন্যে চুক্তিবদ্ধ হয়েছিলেন তিনি।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত তিনি। দুই পুত্র ও এক কন্যা সন্তানের জনক তিনি। ইমরান আরিফ লন্ডনে, আইনান আরিফ পাকিস্তান ন্যাশনাল ব্যাংকের পক্ষে খেলেছেন এবং কন্যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছেন।[৪] দীর্ঘদিন ফুসফুসের ক্যান্সারে ভুগছিলেন। অতঃপর, ১৪ মার্চ, ২০০৮ তারিখে ৫৩ বছর বয়সে করাচীতে তসলিম আরিফের দেহাবসান ঘটে। করাচীর ফয়সাল সেনানিবাসের গোরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Taslim Arif on 10 September, 1978"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  2. WISDEN – Second Test Match – PAKISTAN v AUSTRALIA 1979–80, ESPNCricinfo, ১৩ মার্চ ২০০৮, সংগ্রহের তারিখ ২২ এপ্রিল ২০১২ 
  3. Records / Test matches / Batting records / Most runs in an innings by a wicketkeeper, ESPNCricinfo, ১৩ মার্চ ২০০৮ 
  4. Former Pakistan keeper Taslim Arif dies, ESPNCricinfo, ১৩ মার্চ ২০০৮, সংগ্রহের তারিখ ২২ এপ্রিল ২০১২ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]