ডেঞ্জারাস গার্লস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ডেঞ্জারাস গার্ল
ডেঞ্জারাস গার্লের প্রথম প্রকাশিত প্রচ্ছদ.jpg
প্রথম প্রকাশিত প্রচ্ছদ ২০০৪ সাল ।
লেখকআর.এল.স্টাইন
দেশআমেরিকা যুক্তরাষ্ট
ভাষাইংরেজী
ধারাবাহিকডেঞ্জারাস গার্ল
ধরনভৌতিক, কিশোর সাহিত্য
প্রকাশকহার্পারকলিন্স প্রকাশনী
প্রকাশনার তারিখ
২০০৩
মিডিয়া ধরনমুদ্রিত
পৃষ্ঠাসংখ্যা২৪৭ (first edition)
আইএসবিএন০-০৬-০৫৩০৮০-৪
ওসিএলসি51969348
এলসি শ্রেণীPZ7.S86037 Dan 2003
পরবর্তী বইদ্য টেস্ট অফ নাইট 

ডেঞ্জারাস গার্ল (ইংরেজী: Dangerous Girls) উপন্যাসটি আর.এল.স্টাইনের প্রথম প্রকাশিত উপন্যাস। যা প্রথম প্রকাশিত হয় ২০০৩ সালে। এটির সিকুয়েল ‘দ্য টেস্ট অফ নাইট’ ২০০৪ সালে প্রকাশিত হয়। উপন্যাসটি বেশ কয়েকটি পুরষ্কার লাভ করে এবং নিউ ইয়র্ক লাইব্রেরি উপন্যাসটি কিশোর-কিশোরীদের জন্য নির্বাচিত করে।

ক্যাম্প ব্লু মুনে, ডেস্টিনি ওয়েলার, রেঞ্জা নামের এক ভ্যাম্পায়ারের দ্বারা আক্রান্ত হয়। পরবর্তীতে সে এবং তার জমজ বোন ক্লেভি রক্ত পান করার তীর্ব বাসনা বাড়িতে পৌছায়। ডেস্টিনির বাবা তাকে আরোগ্য লাভ করাতে সক্ষম হলেও লিভিকে আরোগ্য লাভ করাতে ব্যর্থ হন।লিভি এবং রোজ একসঙ্গে পাখিতে রূপান্তরিত হয়ে আকাশের উড়ে যায়।

পটভুমি[সম্পাদনা]

উপন্যাসটি প্রকাশের সময় আর.এল,স্টাএনের বয়স ছিল ৫৯ বছর এবং এসময়ের মধ্যে তিনি শিশু-কিশোরদের এবং প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ৩৩০ টি বই প্রকাশ করেন। উল্লেখ্য, যার মধ্যে ফিয়ার স্ট্রিট (ইংরেজী: Fear Street) এবং 'গোসবামস' সিরিজ অন্যতম, যা ১৯৯০ এর দশকে প্রকাশিত হয়। তার ফিয়ার স্ট্রিট উপন্যাস উজ্জল ভুমিকা লাভ করে শিশু-কিশোরদের কাছে। গোসবামস উপন্যাসটির প্রায় ৩০০ মিলিয়নের বেশি বই বিক্রি হয়।[১] অন্যান্য বইয়ের সাথে উভয় বইয়ের তফাৎ রয়ে যায়.[২]

নিউ ইয়র্ক সিটিতে থাকার সময় স্টাইন, কুকুরকে সঙ্গে নিয়ে পার্কে  হাটতে যান। আর তখনই এই উপন্যাস লেখার কথা ভাবেন তিনি । তিনি ভাবতে থাকেন ‘ ডেন্জারাস গার্ল’ কি? এটা কে ভ্যাম্পায়ারের মত সাজান "[৩] স্টাইন কিশোর-কিশোরীদের জন্য বইটি লিখতে উৎসাহিত হন ।[৪] স্টাইন এ বিষয়ে গবেষনা করেন এবং সৎ ভ্যাম্পায়ারদের কথা বলেন , যারা ক্ষতিগ্রস্থদের সাহায্য করে[৫]

বিপদ্জনক বালিকা ‘হার্পার কলিন্স’ কর্তৃক হার্ড কভারে প্রথম ২০০৩ সালে প্রকাশিত হয়। ২০১০ এর ৩১  এ আগস্ট  ক্রমানুযায়ী অন্যান্য বইয়ের সাথে একত্রে প্রকাশিত হয়।

কাহিনী[সম্পাদনা]

সময়টা ছিল গ্রীষ্মের ছুটির সময়। ক্যাম্প ব্লু মুন’ লরেঞ্জা রেঞ্জের অ্যাঞ্জেলিনি নামের একজন ভ্যাম্পায়ার ১৬ বছর বয়সী ডেস্টিনি ওয়েলারের গলায় দাঁত বসায়। পরবর্তীতে সে এবং তার জমজ বোন ক্লেভি রক্ত পান করার  তীর্ব  বাসনা বাড়িতে পৌছায় । তারা একটি খরগোশের রক্ত পান করে। এদিকে ডেস্টিনি খাওয়ার কিছু না পেয়ে একটি লিভারের প্যাকেট থেকে রক্ত শোষিত রক্ত পান করে। তাদের পারিবারিক বন্ধু কোচ বাওয়ার এর বাড়িতে তারা মার্জরি বাওয়ারের সাথে পরিচিত হয়, যে ছিল একজন ভ্যাম্পায়ার। মার্জরির কাছ থেকে লরেঞ্জো জানতে পারে যে সে মৃত নয় এবং সে তাদের জীবনে ফিরে আসতে পারে।

ডার্ক স্প্রিং উচ্চ বিদ্যালয়ে ডেস্টিনি রেন্জের সাথে দেখা করে এবং সে সিদ্ধান্ত নেয় যে রেন্জ তার পুনরূদ্ধারকারী। সে রেঞ্জকে জিঞ্জাসা করে, রেঞ্জ তাদের দুই জমজ বোনকে সাহাজ্য করবে কি না। উত্তরে রেঞ্জ বলে সে অবশ্যই তাদের সহযোগীতা করবে। ডেস্টিনি তার বাড়িতে ফিরে আসে। এখানে সে তার বন্ধু নাকিইসা জনসনের সাক্ষাৎ পায়। তার কাছ থেকে ডেস্টিনি জানতে পারে যে, রেঞ্জ অনেক আগে থেকেই ক্যাম্পের বাইরে আছে। এমনকি সেখানে তার কোনো ছবিও নাই। এরথেকে ডেস্টিনি বুঝতে পারে যে রেঞ্জ আসলে একজন ভ্যাম্পায়ার, এবং তার কাছ থেকে সাহায্য পাওয়ার কোনই আশা নেই।

সিনিয়র ওভারনাইটে ডেস্টিনি রেঞ্জের দেখা পায়। সে একটি কাঠের খুটি রেঞ্জের শরীরে ঢুকিয়ে দেয় এবং তাকে হত্যা করে। কিছুক্ষনের মধ্যে তার বাবা উপস্থিত হয় এবং ডেস্টিনি তার কাছ থেকে জানতে পারে যে সেই আসল উদ্ধারকারী। তার বাবার কাছ থেকে ডেস্টিনি আরোগ্য লাভ করে । তারপর তারা লেভি এবং তার বন্ধু রোজকে খুঁজে বের করে। লেভির কাছ থেকে ডেস্টিনি এবং তার বাবা জানতে পারে যে, রোজের সাথে লেভি তার নিজের রক্ত অদলবদল করে নিজে অমর হয়েছে। তারপর লেভি এবং রোজ দুজনই কালোপাখি  হয়ে আকাশে উড়ে যায়।

পরিণতি এবং অভ্যর্থনা[সম্পাদনা]

২০০৪ সালে নিউ ইয়র্ক লাইব্রেরি এই উপন্যাসটিকে কিশোর কিশোরীদের জন্য নির্বাচন করে[৬], এবং আমেরিকান লাইব্রেরি সংস্থা ( এ.এল.এ) প্রাপ্তবয়স্ক পাঠকদের জন্য এটিকে তালিকাভুক্ত করে।[৭] ২০০৪ সালে এই উপন্যাসটি পেপারব্যাক (আই.বি.বি.এন ০-০৬-০৫৩০৮২-০)  সংস্করনে  প্রকাশিত হয় এবং এটি ২০০৫ সালে কিশোরবয়সী পাঠকদের জন্য একটি  জনপ্রিয় পেপারবুক হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়।[৮]

গ্রিনম্যানের একজন সমালোচক ‘রাচেল মানিজা ব্রাউন’ বইটি সম্পর্কে  বলেন যে  উপন্যাসটিতে কোন নতুনত্ব বা কৌতূহলোদ্দীপক কিছু নেই। বইটি এককথায় প্রানহীন এবং লেখক পৃষ্ঠার পর পৃষ্ঠা লিখে গেছেন।"[৯]  স্কুল লাইব্রেরি জার্নাল থেকে কিংবার্লি  এল পিওনে  বলেন যে, এই উপন্যাসটিতে এর চরিত্রগুলোর তেমন ক্রমবিকাশ ঘটেনি এবং ঘটনাপ্রবাহ ছিল অনুমান করার মতো ।যদিও গল্পে কিছু চমক ছিল ।  "[১০]

আমেরিকান সাপ্তাহিক পত্রিকা পাবলিশার্স  উইকলি (ইংরেজী:Publishers Weekly) বইটি সম্পর্কে  বলে, এটি  খুবই উত্তেজনাপূর্ন  ছিল, এবং ভ্যাম্পায়ারের কাহিনি হিসেবে বেশ কিছু চমক ছিল ।"[১১] পিটসবার্গ পোস্ট গ্যাজেটের ‘কারেন ম্যাকফারসন’ বলেন যে ডেন্জার গার্ল  বইটি খুবই চমকপ্রদ। বইটি ছোট ছোট অধ্যায়ে বিভক্ত এবং প্রতিটি অধ্যায়ের শেষে লেখক দক্ষতার সাথে অপূর্নতা রেখেছেন।"[৩] টিন রিডস ওয়েব সাইট (ইংরেজী:Teenreads.com) এর পক্ষ থেকে সারা  স্যাটাল এই বইটি সম্পর্কে  মন্তব্য করেন যে, উপন্যাসটি কিছু কিছু যায়গায় স্লো ছিল, যদিও এটা ছিল লেখকের অন্যতম সেরা বই । [১২]

২০০৪ সালের আগষ্ট মাসে হার্পারকলিন্স প্রকাশনী থেকে বইটির একটি সিকুয়েল বের হয় ।সিকুয়েলটির  নাম ছিল দ্য টেস্ট অফ নাইট। এটি ছিল  ডেঞ্জার গার্ল  সিরিজের ২য় উপন্যাস। এই সিরিজের ৩য় বইয়ের ব্যাপারে লেখককে প্রশ্ন করা হলে তিনি দ্বিতীয় উপন্যাসটিকে এই সিরিজের শেষ বলে ঘোষনা করেন।

[১৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. MacPherson, Karen (2008-04-08).
  2. Stelter, Brian (2008-03-25).
  3. MacPherson, Karen (2003-10-30).
  4. "'Goosebumps' author gives readers the creeps."
  5. Green, Judy (2003-09-19).
  6. Marcovitz, Hal (2005).
  7. "Quick Picks for Reluctant Young Adult Readers".
  8. Brown, Rachel Manija.
  9. Paone, Kimberly L. (August 2003).
  10. "DANGEROUS GIRLS".
  11. Sawtelle, Sarah.
  12. Stine, R. L. "ASK R.L.".

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]