ডুবোজাহাজ-হতে-উৎক্ষিপ্ত নিক্ষেপী ক্ষেপণাস্ত্র

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ডুবোজাহাজ-হতে-উৎক্ষিপ্ত নিক্ষেপী ক্ষেপণাস্ত্র (ইংরেজি ভাষায় সাবমেরিন-লঞ্চড ব্যালিস্টিক মিসাইল, সংক্ষেপে এসএলবিএম) হলো এমন এক ধরনের নিক্ষেপী ক্ষেপণাস্ত্র যা ডুবোজাহাজ থেকে উৎক্ষেপণ করা যায়। এর আধুনিক রূপগুলিতে সাধারণত একাধিক স্বতন্ত্রভাবে লক্ষ্যযোগ্য রেন্ট্রি যান (এমআইআরভি) সরবরাহ করে যার প্রত্যেকটিতে একটি করে পারমাণবিক ওয়ারহেড বহন করে এবং এককভাবে চালিত ক্ষেপণাস্ত্রকে কয়েকটি লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করতে সাহায্য করে। ডুবোজাহাজ-হতে-উৎক্ষিপ্ত নিক্ষেপী ক্ষেপণাস্ত্রগুলি ডুবোজাহাজ থেকে লঞ্চ করা ক্রুজ মিসাইল থেকে আলাদা উপায়ে কাজ করে।

১৯৮৪ সালে মার্কিন নৌবাহিনীর একটি ডুবোজাহাজ থেকে যাত্রা শুরু করার পরে একটি ইউজিএম -৯৯ ট্রাইডেন্ট আই

আধুনিক ডুবোজাহাজগুলো চালু হওয়ার সাথে আন্তঃমহাদেশীয় নিক্ষেপী ক্ষেপণাস্ত্রগুলো ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত, যাদের পাল্লা ৫৫০০ কিলোমিটার (৩০০০ এনএমআই) এবং অনেক ক্ষেত্রে এসএলবিএম এবং আইসিবিএম অস্ত্রগুলির একই পরিবারের অংশ হতে পারে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

ডুবোজাহাজ-ভিত্তিক উৎক্ষেপণ মঞ্চের প্রথম ব্যবহারিক নকশাটি জার্মানরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষের দিকে তৈরি করেছিল। একটি লঞ্চ নলের মধ্যে ভি-২ নিক্ষেপী ক্ষেপণাস্ত্র ডুবোজাহাজের পিছনে জুড়ে দেওয়া হয়েছিল, যার কোড-নাম ছিল প্রেফস্ট্যান্ড ১২।

বিশ্বযুদ্ধ পরীক্ষা করার আগেই শেষ হয়েছিল, তবে যে প্রকৌশলীরা এতে কাজ করেছিলেন তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং সোভিয়েত ইউনিয়নের হয়ে তাদের এসএলবিএম কর্মসূচিতে কাজ শুরু করেছিলেন এবং অন্যান্য প্রারম্ভিক এসএলবিএম সিস্টেমগুলি যখন ক্ষেপণাস্ত্র চালিত করার কার্যক্রম শুরু হয়। লঞ্চ সিস্টেমগুলি শেষ পর্যন্ত ১৯৫০-৬০ এর দশকে ডুবোজাহাযে চালু করার জন্য অভিযোজিত হয়।

রূপান্তরিত প্রকল্পটি ১৯৫৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর বিশ্বের প্রথম এসএলবিএম, একটি আর -১১ এফএম (এসএস-এন-১ স্কুড-এ, এসএস-১ স্কুড) হিসাবে ডুবোজাহাজে স্থাপন করা হয়। এভি ৬১১ (জুলু-ভি শ্রেণি) ডুবোজাহাজ ১৯৫৬-৫৭ সালে পরিষেবাতে প্রবেশ করে প্রতিটি দুটি আর -১১ এফএম ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে বিশ্বের প্রথম কর্মক্ষম নিক্ষেপী ক্ষেপণাস্ত্রবাহী ডুবোজাহাজে পরিণত হয়েছিল (এসএসবি)।[১][২]

বিশ্বের প্রথম কর্মক্ষম পরমাণু চালিত নিক্ষেপী ক্ষেপণাস্ত্রবাহী ডুবোজাহাজ (এসএসবিএন) ছিল ইউএসএস জর্জ ওয়াশিংটন (এসএসবিএন -৯৯৮)। পোলারিস এ -১০০ ক্ষেপণাস্ত্র সহকারে এটি ১৯৫৯ সালের ডিসেম্বর মাসে পরিষেবাতে প্রবেশ করে এবং ১৯৬০ সালের নভেম্বর মাসে প্রথম এসএসবিএন প্রতিরোধকারী টহল পরিচালনা করে।[৩]

ফরাসী এম৪৫ এসএলবিএম এবং এম৫১ এসএলবিএম একটি ডুবোজাহাযে প্রস্থচ্ছেদে।

স্থাপনা এবং উন্নয়ন[সম্পাদনা]

প্রাথমিক দিকের এসএলবিএমের সংক্ষিপ্ত পরিসরের বেস এবং স্থাপনার অবস্থানগুলি নির্ধারিত করে। ১৯৬০ এর দশকের শেষের দিকে পোলারিস এ-৩ মার্কিন এসএসবিএনগুলিতে ৪,৬০০ কিলোমিটার (২,৫০০ এনএমআই) পরিসীমা দিয়ে মোতায়েন করা হয়েছিল, পোলারিস এ-১ এর ১,৯০০ কিলোমিটার (১,০০০ এনএমআই) রেঞ্জ থেকে দুর্দান্ত উন্নতি করা হয়েছিল। এ-৩ তে তিনটি ওয়ারহেডও ছিল যা একটি একক লক্ষ্যকে ঘিরে একটি প্যাটার্নে অবতরণ করেছিল।[৪][৫] ইয়াঙ্কি শ্রেণিতে প্রাথমিকভাবে আর-২৭ জাইব ক্ষেপণাস্ত্র (এসএস-এন-৬) সহ ২,৪০০ কিলোমিটার (১,৩০০ এনএমআই) দিয়ে সজ্জিত ছিল। সোভিয়েতদের তুলনায় আমেরিকা তার বেসিং ব্যবস্থাতে অনেক বেশি ভাগ্যবান ছিল। গুয়ামে ন্যাটো এবং মার্কিন দখলের জন্য মার্কিন এসএসবিএনগুলি ১৯৭০ এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে হলি লচ, স্কটল্যান্ড, রোটা, স্পেন এবং গুয়ামের অ্যাডভান্সড রেফিট সাইটগুলিতে মোতায়েন করা হয়েছিল, ফলস্বরূপ সোভিয়েত ইউনিয়ন নিকটবর্তী অঞ্চলে টহল দেওয়ার জন্য স্বল্প ট্রানজিটের ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করে।

প্রকারভেদ[সম্পাদনা]

একটি ট্রাইডেন্ট আই সি -4 প্রবর্তনের মন্টেজ এবং তার পুনরায় প্রবেশের পথগুলি
নির্বাচিত রাশিয়ান এবং চাইনিজ এসএলবিএম

কয়েক ধরণের এসএলবিএম (বর্তমান, অতীত এবং নির্মাণাধীন) এর মধ্যে রয়েছে:

ধরণ ন্যাটো নেম সর্বনিম্ন পরিসীমা (কি.মি.) সর্বোচ্চ পরিসীমা (কি.মি.) দেশ অবস্থা
ইউজিএম -২৭ পোলারিস ৪,৬০০ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাতিল
পোসেইডন (সি -৩) ৪,৬০০ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাতিল
ইউজিএম -৯৯ ট্রিডেন্ট আই (সি -৪) ৭,৪০০ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাতিল
ইউজিএম -১৩৩ ত্রিশূল II ১২,০০০ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সক্রিয়
আর-১৩ এসএস-এন-৪ ৬০০ সোভিয়েত ইউনিয়ন / রাশিয়া বাতিল
আর-২১ এসএস-এন-৫ ১,৬৫০ সোভিয়েত ইউনিয়ন / রাশিয়া বাতিল
আর-২৭ এসএস-এন-৬ ২,৪০০ ৩,০০০ সোভিয়েত ইউনিয়ন / রাশিয়া বাতিল
আর-২৯[৬] এসএস-এন-৮ ৭,৭০০ ৯,০০০ সোভিয়েত ইউনিয়ন / রাশিয়া বাতিল
আর-২৭ কে এসএস-এনএক্স-১৩ ৩,৬০০ সোভিয়েত ইউনিয়ন / রাশিয়া ব্যবহৃত হয়নি[৭]
আরএসএম-৪৫ আর-৩১ এসএস-এন-১৭ [৬] ৪,৫০০ সোভিয়েত ইউনিয়ন / রাশিয়া বাতিল
আরএসএম-৫৯[৬] আর-২৯ আর এসএস-এন-১৮ ৬,৫০০ সোভিয়েত ইউনিয়ন / রাশিয়া বাতিল
আরএসএম-৫২[৬] আর-৩৯ এসএস-এন-২০ ৮,৩০০ সোভিয়েত ইউনিয়ন / রাশিয়া বাতিল
আরএসএম-৫৪ এসএস-এন-২৩ ৮,৩০০ সোভিয়েত ইউনিয়ন / রাশিয়া বাতিল[৮]
আরএসএম-৫৪ আর-২৯আরএমইউ এসএস-এন-২৩ স্কিফ ৮,৩০০ সোভিয়েত ইউনিয়ন / রাশিয়া সক্রিয়
আরএসএম-৫৪ ৮,৩০০ ১২,০০০ সোভিয়েত ইউনিয়ন / রাশিয়া সক্রিয়
আরএসএম-৫৬ এসএস-এনএক্স-৩২[৯] ৮,৩০০ ৯,৩০০ সোভিয়েত ইউনিয়ন / রাশিয়া সক্রিয়
ইউজিএম-২৭ পোলারিস ৪,৬০০ যুক্তরাজ্য বাতিল
ইউজিএম-২৭ পোলারিস-১৩৩ ১২,০০০ যুক্তরাজ্য সক্রিয়
এম-১ ৩,০০০ ফ্রান্স বাতিল
এম-২ ৩,২০০ ফ্রান্স বাতিল
এম-২০ ৩,০০০ ফ্রান্স বাতিল
এম-৪ ৫,০০০ ফ্রান্স বাতিল
এম-৪৫ ৬,০০০ ফ্রান্স সক্রিয়
এম-৫১ ৮,০০০ ১০,০০০ ফ্রান্স সক্রিয়
জেএল-১[১০] ২,৫০০ চীন বাতিল
জেএল-২ ৭,৪০০ ৮,০০০ চীন সক্রিয়
জেএল-৩ ১১,৯০০ চীন পরিক্ষা মূলক পর্যায়ে [১১]
কে-১৫ ৭৫০ ১,৯০০ ভারত সক্রিয়
কে-৪ ৩,৫০০ ভারত উৎপাদনের জন্য প্রস্তুত[১২]
কে-৫ ৫,০০০ ভারত উন্নয়ন পর্যায়[১৩][১৪]
কে-৬ ৬,০০০ ভারত উন্নয়ন পর্যায়[১৫][১৬]
কেএন-১১ ৫০০ ২,৫০০ উত্তর কোরিয়া সক্রিয়[১৭]
পুক্কুকসং-৩ উত্তর কোরিয়া উন্নতি পর্যায় [১৮]

অ-সামরিক ব্যবহার[সম্পাদনা]

কিছু প্রাক্তন রাশিয়ান এসএলবিএম উপগ্রহ উৎক্ষেপণের জন্য ভোলা এবং শিটিলের উৎক্ষেপন যানে রূপান্তরিত করা হয়েছে -এটি উৎক্ষেপণ করা হয় ডুবোজাহাজ থেকে বা জমির কোন উৎক্ষেপণ ক্ষেত্র থেকে।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Wade, Mark। "R-11"Encyclopedia Astronautica। সংগ্রহের তারিখ ২৩ এপ্রিল ২০১১ 
  2. "Large submarines - Project 611"russianships.info 
  3. Friedman, pp. 192–195
  4. Friedman, pp. 199–200
  5. Polmar American Submarine, pp. 131–133
  6. Korabli VMF SSSR, Vol. 1, Part 1, Yu. Apalkov, Sankt Peterburg, 2003, আইএসবিএন ৫-৮১৭২-০০৬৯-৪
  7. SS-NX-13 SLBM System (U), Defense Intelligence Agency, D5T-1020S-4l7-75, 1 October 1975
  8. "SSBN K-51 Verkhoturye arrived to Zvezdochka for repairs today"। Rusnavy.com। ২৩ আগস্ট ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১০ 
  9. NASIC-1031-0985-09
  10. "JL-1 [CSS-N-3] – China Nuclear Forces"। Fas.org। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  11. "詹氏:大陸將試驗巨浪3飛彈 採用東風41技術"। 联合早报网। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-০৮ 
  12. P, Rajat; Jan 25, it | TNN | Updated; 2020; Ist, 4:21। "DRDO: Arihant's N-capable missile 'ready to roll' | India News - Times of India"The Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০১-২৮ 
  13. "Going nuclear at sea"The Indian Express। ১৯ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  14. "India's First Ballistic Missile Sub to Begin Sea Trials"The Diplomat। ৩০ জুলাই ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১১ জানুয়ারি ২০১৭ 
  15. "India's Undersea Deterrent" 
  16. "From India Today magazine: A peek into India's top secret and costliest defence project, nuclear submarines" 
  17. (2nd LD) N.K. leader calls SLBM launch success, boasts of nuke attack capacity – Yonhap, 25 August 2016 08:17 am
  18. ‘Of great significance’: North Korea hails submarine launch of ballistic missile, The Guardian.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]