ডুইট ওয়াশিংটন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ডুইট ওয়াশিংটন
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামডুইট মারলন ওয়াশিংটন
জন্ম (1983-03-05) ৫ মার্চ ১৯৮৩ (বয়স ৩৮)
মন্টেগো বে, জ্যামাইকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ২৬০)
২৯ এপ্রিল ২০০৫ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৮
রানের সংখ্যা ২০৬
ব্যাটিং গড় ১২.৮৭
১০০/৫০ –/– –/১
সর্বোচ্চ রান ৭* ৫৮
বল করেছে ১৭৪ ২৩৪৬
উইকেট ৪৮
বোলিং গড় ২০.৯৭
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৫/২০
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৩/– ৭/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ডুইট মারলন ওয়াশিংটন (ইংরেজি: Dwight Washington; জন্ম: ৫ মার্চ, ১৯৮৩) মন্টেগো বে এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ২০০০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়কালে অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটে জ্যামাইকা দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিং করতেন ডুইট ওয়াশিংটন

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

২০০৪ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত ডুইট ওয়াশিংটনের সংক্ষিপ্ত প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ২০০৩-০৪ মৌসুমে ক্যারিব বিয়ার কাপ প্রতিযোগিতায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ বি-দলের সদস্যরূপে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ডুইট ওয়াশিংটনের অভিষেক ঘটে। ২২.০০ গড়ে ২০ উইকেট লাভ করেছিলেন তিনি। ফলশ্রুতিতে, শক্তিশালী ক্যারিব বিয়ার একাদশের অন্যতম খেলোয়াড় হিসেবে যুক্ত হন ও মৌসুমের শেষদিকে ইংরেজ একাদশের বিপক্ষে খেলেন। গায়ানার বিপক্ষে ১১ নম্বর ব্যাটসম্যান হিসেবে দূর্দান্ত খেলেন। ছয়টি ছক্কার মারে ৫৮ বলে ৫৮ রান তুলেন।[১]

২০০৪-০৫ মৌসুমে জ্যামাইকার পক্ষে খেলেন। ১৬.৮৪ গড়ে ১৯ উইকেট দখল করে দলকে শিরোপা বিজয়ে ভূমিকা রাখেন। নেইনে উইন্ডওয়ার্ড আইল্যান্ডসের বিপক্ষে ৪/১৮ ও ৫/২০ বোলিং পরিসংখ্যান দাঁড় করান।[২]

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন ডুইট ওয়াশিংটন। ২৯ এপ্রিল, ২০০৫ তারিখে সেন্ট জোন্সে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল। এরপর আর তাকে কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়নি। তাকে কোন ওডিআইয়ে অংশগ্রহণ করার সুযোগ দেয়া হয়নি।

লিকলিকে গড়নের পেসার হিসেবে ডুইট ওয়াশিংটনকে দল নির্বাচকমণ্ডলী মার্চ ও এপ্রিল মাসে সফররত ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে খেলার জন্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের সদস্যরূপে অন্তর্ভুক্ত করে। তবে, পরবর্তী মৌসুমে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট অভিষেকের পূর্ব-পর্যন্ত তাকে খেলানো হয়নি।

২০০৪-০৫ মৌসুমের শেষদিকে সফররত দক্ষিণ আফ্রিকা দলের বিপক্ষে সিরিজের চতুর্থ টেস্ট খেলার জন্যে তাকে মনোনীত করা হয়। সেন্ট জোন্সে অনুষ্ঠিত ঐ খেলায় ৯৩ রান খরচ করেও কোন উইকেট লাভ করতে পারেননি। ব্যাটসম্যানের উপযোগী পিচে সবমিলিয়ে ১৪৬২ রান সংগৃহীত হয় ও মাত্র ১৭ উইকেটের পতন ঘটেছিল। তন্মধ্যে, উভয় দলের আটজন ব্যাটসম্যান শতরান করে সম্মিলিতভাবে নতুন টেস্ট রেকর্ড গড়েন।[৩]

জুন ও জুলাই, ২০০৫ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এ-দলের সদস্যরূপে শ্রীলঙ্কা গমন করেন। এরপর, ঐ বছরের শেষদিকে কেএফসি কাপে জ্যামাইকার পক্ষে তিনটি খেলায় অংশ নেন। মাত্র ২২ বছর বয়সে শীর্ষ পর্যায়ের ক্রিকেট খেলা থেকে বাদ পড়েন তিনি।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]