টোকিও ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

টোকিও ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানি হোল্ডিংস, inc. (東京電力ホールディングス株式会社 Tōkyō Denryoku Hôrudingusu Kabushiki-gaisha, TYO, 9501), একই সাথে পরিচিত টোডেন (東電 Tōden) বা জাপানের বিদ্যুতের উপযোগিতা হোল্ডিং জাপানের কানটো অঞ্চলের য়ামানাশি ছারতে কোম্পানি টেপকো, জেলার ও শিযুওকা জেলার পূর্ব অংশে অবস্থিত। টোকিও ' শহর এই অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত। এর সদর দপ্তর অবস্থিত উচিসাইয়াইচ, ছিয়াদা, টোকিও এবং ওয়াশিংটন, লন্ডন শহরে আন্তর্জাতিক শাখা অফিস আছে। ইহা উদ্ভাবনী শক্তি ও গবেষনা সংক্রান্ত কৌশলগত কন্সারটিয়ামের একজন প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। যেমন জেআইএনইড, আইএনসিজে এবং এমএ। [১]

২০০৭ সালের আগস্টে ভূমিকম্পের পর চুইতসু-ওকি কাশিয়াজাকি-কারিয়া পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধ করতে বাধ্য করা হয়। ওই বছরের ২৮ বছরে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রথম বন্ধ করা হয়েছিল। [২] কর্পোরেট লোকসান গাছটা ২০০৯ সালে পুনরায় চালু না হওয়া পর্যন্ত চলতে থাকে। [৩] পর মার্চ ২০১১ টোহুকু ভুমিকম্প ও সুনামি-এর [[ফুকুশিমা দাইইচি পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র|ফুকুশিমা দাইইচি বিদ্যুত কারখানা ছিল বিশ্বের সবচেয়ে মারাত্মক পরমাণু বিপর্যয় অব্যাহত রাখার একটি সাইট। আগস্টে ¥ ২ ট্রিলিয়ন (২৩.৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার) বিশেষ ক্ষতি বছরে বর্তমান ব্যবসা থেকে মার্চ ২০১২ [৪] হতে পারে এবং এই দুর্ঘটনার ফলে আগস্টে ক্ষতিপূরণের অর্থ জনগণের কাছে নিশ্চয়তা দিতে কার্যকর রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণের আওতায় রেখে জাপান সরকার পরিকল্পনা প্রভাবিত। বায়ু, মাটি ও সাগরের ফুকুশিমা বিপর্যয়ের ফাঁস হওয়া তেজস্ক্রিয় পদার্থের ফলে উদ্বাসন অঞ্চলে ৫০,০০০ পরিবার বাড়িছাড়া। .[৫]

২০১২ সালের জুলাই মাসে কোম্পানির বিদ্যুৎ এখনো টোকিও এবং এর আশপাশের পৌরসভা ও ফুকুশিমা দাইইচি পরমাণু থেকে বন্ধ জন্য সরবরাহ করা হচ্ছে। নিশ্চিত করতে দেওয়া টেপকো ¥ ১ ট্রিলিয়ন রুখতে জাপান সরকার থেকে গুটিয়ে নিন। বিদ্যুৎ কেন্দ্র। [৬] টেপকো ব্যবস্থাপনা পরবর্তীতে প্রস্তাব তার অংশীদারেরা অংশ রাষ্ট্রীয়করণ করা কোম্পানির জন্য তৈরি। [৭] নিউক্লিয়ার ক্ষতির ক্ষতিপূরণ ও সহজীকরণ কর্পোরেশন বন্ধকরণ পরে ক্ষয়ক্ষতি এবং, বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বন্ধকরণ শাসক সংখ্যাগরিষ্ঠ স্টোকহল্ডার পরিণত হয়। মোট খরচ হয়েছে বিপর্যয়ের ১০০বিএন, মে ২০১২-এ প্রাকúকলন কব়া হযে়ছিল।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আগস্টে ১৯৮৭ থেকে মার্চ ২০১৬ পর্যন্ত লোগো

আগস্টে জাপানের নয়টি বিদ্যুৎ কোম্পানী সহ, রাষ্ট্র-চালিত বিদ্যুৎ শিল্পে শাসকদের জন্য জাতীয় যুদ্ধকালীন সংগঠন ১৯৫১ সালে স্থাপিত হয়েছিল। [৮][৯]

১৯৫০ সালে দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের অবকাঠামো ধ্বংস থেকে দ্রুত পুনরুদ্ধার করতে কোম্পানির প্রাথমিক লক্ষ্য ছিল। পুনরুদ্ধারের সময় পর কোম্পানি দেশের দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ধরতে জীবাশ্ম জ্বালানি প্লান্ট এবং আরও দক্ষতার সাথে ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা এর সরবরাহের ক্ষমতা প্রসারিত করতে হয়েছিল।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Japanese nuclear exports consortium launches"www.world-nuclear-news.org 
  2. "Tokyo Electric Has First Loss in 28 Years on Shutdown" 
  3. Antoni Slodkowski (এপ্রিল ১১, ২০১১)। "TEPCO may face $23.6 billion compensation costs: JP Morgan"Reuters 
  4. "Japan to control TEPCO to handle compensation claims after nuclear disaster"Herald Sun। এপ্রিল ২০, ২০১১। 
  5. Takahiko Hyuga and Tsuyoshi Inajima (জুন ১০, ২০১১)। "Police to Send Riot Squads to TEPCO Meeting"Bloomberg 
  6. McCurry, Justin (৯ মে ২০১২)। "Fukushima owner saved from collapse by Japanese government"The Guardian। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুলাই ২০১২ 
  7. Mitsuru, Obe (২৭ জুন ২০১২)। "TEPCO shareholders OK nationalization plan"MarketWatch। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুলাই ২০১২ 
  8. Today, Japan has 10 regional electric companies, including Okinawa electric power. But Okinawa was occupied by US until 1972.
  9. Martin, Alex, "When it comes to mighty TEPCO, pride goes before the fall", Japan Times, 17 May 2011, p. 3.