টপ ইলেভেন বি এ ফুটবল ম্যানেজার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
টপ ইলেভেন বি এ ফুটবল ম্যানেজার
Top Eleven Football Manager logo.svg
নির্মাতানরডিউস
প্রকাশকনরডিউস
মাধ্যমপি.সি.ব্রাউজার,এন্ড্রয়েড,আইওএস
মুক্তিমে , ২০১০

পি.সি.ব্রাউজার: মে , ২০১০ এন্ড্রয়েড: অক্টোবর ,২০১১

আইওএস: নভেম্বর ২০১১
ধরনকৌশল
কার্যপদ্ধতিMultiplayer video game
single-player video game উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

টপ ইলেভেন বি এ ফুটবল ম্যানেজার একটি অনলাইন ভিত্তিক ফুটবল ম্যানেজার সিমুলেশন গেম,যা নরডিওস প্রস্তুত করে ২০১০ সালের মে মাসে বাজারে ছাড়ে। গেমটিতে একজন গেমার বা খেলোয়াড় শুধুমাত্র একটি ফুটবল দলের ম্যানেজার পদেই খেলতে পারেন। গুগল প্লে-স্টোর এবং এপ স্টোরে গেমটির এপ্লিকেশন পাওয়া যায়। গেমটি ফেসবুক-এ খেলা যায় এবং খেলোয়াড়েরা নিজেদের বন্ধুদের বিরুদ্ধেও গেমটি খেলতে পারবেন। সামাজিক মাধ্যমে ফুটবল ম্যানেজমেন্ট গেমের অভাব মোকাবেলার জন্য গেমটি তৈরি করা হয়েছিল। মূলত স্পোর্টস ইন্টার‍্যাক্টিভ-এর ফুটবল ম্যানেজার এবং ইলেক্ট্রনিক আর্টস-এর প্রিমিয়ার ম্যানেজার গেমগুলোর আদলে এই গেমটি তৈরি করা হয়েছে এবং সামাজিক মাধ্যমে জায়গা করার উপযোগী করা হয়েছে। বর্তমানে প্রায় ৬০ লক্ষাধিক মানুষ এই গেমটি খেলেন। টপ ইলেভেন বি এ ফুটবল ম্যানেজার মূলত ডেস্কটপ এপ্লিকেশন হিসেবে ফেসবুকে স্থান করে নেয়। ফেসবুকে ছাড়ার ২ বছরের মধ্যে গেমটি ২০১১ সালের নভেম্বর হতে মোবাইল ফোনে খেলার উপযোগী করা হয়েছে।[১] রাশিয়ার বৃহত্তম সামাজিক নেটওয়ার্কগুলির মধ্যে অন্যতম,অদ'নক্লস্নেইকি-তে গেমটি ছাড়া হয়েছিল।[২] ফেসবুক থেকে পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৪ সালে সেখানে মাসিক ১.৫ কোটিরও বেশি ব্যবহারকারী ছিল। ২০১৩ সাল হতে নরডিওস হোসে মরিনহোকে ফেইস অব দ্যা গেইম হিসেবে মনোনীত করে। তখন থেকে খেলোয়াড়েরা মরিনহোর প্রতিপক্ষ হয়ে খেলতে পারেন। মরিনহো ছাড়াও খেলোয়াড়েরা প্রায় ২০টিরও বেশি নিবন্ধনকৃত দলের রঙ বা জার্সি পড়ে খেলতে পারেন। তাদের মধ্যে রিয়াল মাদ্রিদ সি.এফ., আর্সেনাল এফ.সি., লিভারপুল এফ.সি., ইত্যাদি অন্যতম।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও এর জনপ্রিয়তা আছে। সামাজিক মাধ্যম, ফেইসবুকে গেমটির নিয়মিত খেলোয়াড়দের সমন্নয়ে Top Eleven Community (Bangladesh) নামের একটি গ্রুপও রয়েছে। গ্রুপটির সদস্যবৃন্দ তাদের অভিজ্ঞতা ও অর্জন প্রকাশের পাশাপাশি নতুন খেলোয়াড়দের বিভিন্ন উপদেশও দিয়ে থাকেন যা একজন নতুন খেলোয়াড়কে একটি শক্তিশালী এবং অভিজাত দল তৈরিতে সাহায্য করে থাকে।

ম্যানেজার[সম্পাদনা]

গেমটির খেলোয়াড়েরা একজন ম্যানেজার হিসেবে গেমটি খেলেন। গেমে প্রথমবারের মত প্রবেশ করা মাত্র ম্যানেজারকে ব্যক্তিগত কিছু তথ্য,নিজ দলের নাম, চিহ্ন, এবং রঙ তথা জার্সি নির্ধারণ করতে হয়। ফেসবুকের সাথে গেমটি সংযোগ করা হলে অথবা ডেস্কটপ হতে ফেসবুক দিয়ে গেমে প্রবেশ করলে ম্যানেজারের ব্যক্তিগত তথ্য নিজে নিজে আপডেটেড হয়ে যায়। পরবর্তীতে টোকেন ব্যবহারের মাধ্যমে দলের নাম, চিহ্ন এবং জার্সি পরিবর্তন করা সম্ভব। ম্যানেজারের মূল লক্ষ্য চলমান মৌসুমে নিজের দলকে টিকিয়ে রাখা, সে জন্য ম্যানেজারকে শুরুতে কিছু সম্পদ দেওয়া হয়। এর পাশাপাশি একজন ম্যানেজারকে একটি স্কোয়াড এবং একটি খেলার মাঠও দেওয়া হয়। নিজ দলকে খেলার মাধ্যমে টিকিয়ে রাখা সহ দলের সকল বাহ্যিক বিষয়েও ম্যানেজারকে হস্তক্ষেপ করতে হয়। তার মধ্যে প্রধান হচ্ছে খেলোয়াড় ক্রয় করে দলকে শক্তিশালী করা এবং অব্যবহারিত বা অপ্রয়োজনীয় খেলোয়াড়দের বিক্রয় করা। দলের সম্পদ উপার্জনের জন্য স্পন্সরশীপ চুক্তি স্বাক্ষর করতে পারবেন এবং হোম খেলায় সমর্থকদের কাছ থেকে টিকেটের মুল্য পাবেন। শুরুর মৌসুমে একজন ম্যানেজারের লেভেল ১ হতে শুরু হবে এবং দলকে প্রোমোশনের মাধ্যমে ম্যানেজারের লেভেলও ১বার করে উন্নীত হবে।

অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার[সম্পাদনা]

অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার পুরনাঙ্গ স্বয়ংক্রিয় একজন সহকারি। ম্যানেজারের অবর্তমানে অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার বিশেষ ভুমিকা পালন করে থাকেন। দলের স্কোয়াডের সমস্যা সহ ম্যানেজারকে স্পন্সরশীপ চুক্তি স্মরণ করে দেওয়া এবং ম্যাচ চলাকালিন সময়ে ম্যানেজারকে বিভিন্ন উপদেশ দিয়ে থাকেন। এছাড়া ফেসবুক ও টপ ইলেভেন বন্ধুদের মাঝে বিভিন্ন উপহার আদান প্রদানের হিসাব সংরক্ষন করেন। খেলোয়াড়ের চুক্তি স্মরণ করে দেওয়ায় সহকারি ম্যানেজার বিশেষ ভুমিকা রাখেন। প্রতিদিন সহকারি ম্যানেজার খেলোয়াড়দের মান উন্নত করার জন্য অনুশীলনের ইঙ্গিত দিবেন, পরবর্তী খেলার জন্য দলের প্রতুতি এবং ম্যাচ শেষে দলের খেলা কেমন ছিল তারও কিছু মন্তব্য সহকারি ম্যানেজার করে থাকেন।

স্কোয়াড[সম্পাদনা]

স্কোয়াড হল দলের খেলোয়াড়দের তালিকা। এখানে খেলোয়াড়দের তথ্য ও দলের ফরমেশন পরিবর্তন ও নিশ্চিত করা যায়। মূল একাদশসহ স্কোয়াডের ধারণ ক্ষমতা ২২জন। অতিরিক্ত ১১জনের মধ্যে ৭জন কে সাবস্টিটিউট এবং ৪জনকে রিজার্ভ হিসেবে রাখতে হয়। খেলা চলাকালিন সময়ে ম্যানেজার শুধু সাবস্টিটিউটে রাখা ৭ জনের যে কোন ৩জন খেলোয়াড়কে মূল দলের যে কোন ৩জনের পরিবরতে নামাতে পারবেন। যে কোন সময় ম্যানেজার তার মূল একাদশ, সাবস্টিটিউট এবং ফরমেশন পরিবর্তন করতে পারবেন, তবে ম্যাচ শুরু হয়ার ৩মিনিটের পূর্বে তা বন্ধ হয়ে যাবে। কমপক্ষে ১৪জন খেলোয়াড়কে স্কোয়াডে রাখতে হয়। ট্রান্সফার মার্কেটে খেলোয়াড় ক্রয়-বিক্রয়ের মাধ্যমে স্কোয়াডের খেলোয়াড় সংখ্যা ১৪ থেকে ২২ এর মধ্যে যে কোন সংখ্যায় রাখা যাবে। যদি স্কোয়াডে কোন সমস্যা তথা কোন খেলোয়াড় ইঞ্জুরিতে থাকে বা লাল কার্ডের কারণে পরবর্তী খেলায় অংশগ্রহণে ব্যর্থ হয়ে থাকে তবে ম্যানেজার তার স্কোয়াড ট্যাবের পাশে একটি আশ্চর্যবোধক(!) চিহ্ন দেখতে পারবেন।

খেলোয়াড়দের তথ্য[সম্পাদনা]

স্কোয়াডে প্রবেশ করে যে কোন খেলোয়াড়ের তথ্য নেওয়া যায়। প্রতিটি খেলোয়াড়ের নাম চাপার মাধ্যমে তার তথ্য পাওয়া যাবে। তথ্যগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল খেলোয়াড়ের নাম, বয়স, খেলার স্থান, জাতীয়তা, তারকা বা মান, ব্যক্তিগত পরিসঙ্খ্যান(খেলা, গোল, গোল সহায়ক, হলুদ/লাল কার্ডের সংখ্যা এবং টুর্নামেন্ট ভেদে শেষ ৫টি খেলার রেটিং) ও খেলোয়াড়ের বরতমান মূল্য। এখান থেকেই একজন খেলোয়াড়কে ট্রান্সফার মার্কেটে পাঠানো যায় এমনকি দল থেকে বহিস্কার করা যায়। টোকেন ব্যবহার করে এখান থেকে খেলোয়াড়ের ব্যক্তিগত তথ্য পরিবর্তন সহ তার মান উন্নত করা যায়।

মূল একাদশ[সম্পাদনা]

ফুটবল খেলায় প্রতি দলে ১১জন করে থাকে কাজেই প্রতিটি খেলার জন্য ম্যানেজারকে ১১জন নির্বাচন করতে হবে। খেলা চলাকালিন সময়ে ম্যানেজার চাইলেই এই ১১ জনের যে কোন ৩জনকে মাঠের বাইরে নিয়ে যেতে পারেন এবং নতুন ৩জনকে মাঠে প্রবেশ করাতে পারেন। ম্যানেজার যে খেলোয়াড়কে মাঠ থেকে একবার বের করবেন, তাকে সেই খেলায় পুনরায় নামাতে পারবেন না। খেলা চলাকালিন সময়ের যে কোন পরিবর্তন খেলা শেষে নিজে নিজে আগের অবস্থায় চলে যাবে। প্রতি খেলা শেষে মূল একাদশের খেলোয়াড়দের বিশ্রামের মান কিছুটা কমে যাবে।

সাবস্টিটিউট[সম্পাদনা]

ম্যানেজার তার স্কোয়াডে সর্বনিম্ন ৩জন এবং সর্বোচ্চ ৭জন কে রাখতে পারবেন। খেলা চলাকালিন সময়ে ম্যানেজার চাইলেই তাদের মধ্য থেকে যেকোনো ৩জনকে মূল একাদশের যেকোনো ৩জনের পরিবর্তে নামাতে পারবেন। খেলা চলাকালিন সময়ে ম্যানেজার অনলাইনে না থাকলে অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার সুবিধা মত ইঞ্জুরিগ্রস্থ খেলোয়াড়ের পরিবর্তে সাবস্টিটিউটের যে কোন খেলোয়াড়কে নামাতে পারবেন।

রিজার্ভ[সম্পাদনা]

রিজার্ভে সর্বোচ্চ ধারণক্ষমতা ৪জন, তবে রিজার্ভে যদি কোন খেলোয়াড় নাও থাকে তাতে খেলায় কোন প্রকার ত্রুটি দেখা যাবে না।

ফরমেশন[সম্পাদনা]

ম্যানেজার নিজ দায়িত্বে তার দলের ফরমেশন পরিবর্তন করতে পারেন। ম্যানেজারের ফরমেশন অনুযায়ী যদি কোন খেলোয়াড়কে তার অবস্থানের বহির্ভূত কোন অবস্থানে রাখা হয় তবে সেই খেলোয়াড়ের নামটি লাল রঙের হয়ে যাবে এবং ফরমেশন ম্যাপে আশ্চর্যবোধক(!) চিহ্ন দেখা যাবে। ফরমেশনের মধ্যে গোলরক্ষকের জন্য একটি স্থান নির্দিষ্ট এছাড়া রক্ষণ ভাগে ৫টি, মধ্যমাঠে ১৫টি(রক্ষণশীল মধ্যমাঠ, মধ্যমাঠ ও আক্রমণাত্মক মধ্যমাঠ) এবং আক্রমণ ভাগে ৩টি স্থান চিহ্নিত করা আছে। ম্যানেজারকে তার খেলোয়াড়দের গোল রক্ষক ব্যতীত মোট ২৩টি স্থানের যেকোনো ১০টি স্থানে বসাতে পারবেন।

খেলার ব্যর্থতা[সম্পাদনা]

একজন খেলোয়াড় ২টি কারণের খেলা থেকে ব্যর্থ হতে পারে। প্রথমটি হল ইঞ্জুরি এবং ২য়টি হল লাল কার্ড। ইঞ্জুরি আক্রান্ত খেলোয়াড়কে খেলার যোগ্য করার জন্য চিকিৎসা প্রদানই যথেষ্ট তবে লাল কার্ড প্রাপ্ত খেলোয়াড় কে পরবর্তী ম্যাচের জন্য অবশই মাঠের বাইরে থাকতে হবে।

দল উন্নীতকরণ[সম্পাদনা]

দলকে উন্নত করতে হলে ২টি উপায় অবলম্বন করতে হবে। ১ম হল উন্নত মানের খেলোয়াড় ট্রান্সফার থেকে কেনা এবং ২য় হল অনুশীলন। চলমান মৌসুমে দলকে টিকিয়ে রাখতে এবং প্রোমোশনের জন্য লড়াই করতে দল উন্নীত করণ বাধ্যতামূলক।

ট্রান্সফার[সম্পাদনা]

ম্যানেজার ট্রান্সফার মার্কেট থেকে প্লেয়ার কিনতে পারেন আবার সেখানে খেলোয়াড় বিক্রিও করতে পারেন। খেলোয়াড় কেনার জন্য ডলারসহ টোকেন ব্যয় করতে হবে। খেলোয়াড় বিক্রয়ের ক্ষেত্রে ম্যানেজার শুধু ডলার পাবেন। নিলামে থাকা খেলোয়াড় কিনতে হলে ম্যানেজারকে ধৈর্যশীল হতে হবে। নিলামে ডাক হাঁকানোর জন্য প্রতি ডাকে একটি করে টোকেন খরচ করতে হবে। এক খেলোয়াড়ের জন্য একাধিক ম্যানেজার ডাক হাঁকালে নিলামটি পরবর্তী রাউন্ডে চলে যাবে এবং প্রতি রাউন্ডে ম্যানেজারকে একটি করে টোকেনের বিনিময়ে পরবর্তী রাউন্ডের ডাক হাঁকানোর উপযুক্ত করতে হবে। নিলামে থাকা যে কোন খেলোয়াড়ের সর্বোচ্চ মান ৯৯%। এছাড়া সরাসরি খেলোয়াড় কিনতে হলে অতিরিক্ত টোকেন খরচ করে স্কাউট লিস্ট অথবা নেগোশিয়েশন লিস্টে থাকা খেলোয়াড়দের কিনতে হবে। যদি নেগোশিয়েশনের মাধ্যমে কোন খেলোয়াড় বিড পায় তবে বিডক্রিত এবং বিডপ্রাপ্ত ম্যানেজারেরা তাদের মধ্যে ক্রয়-বিক্রয়ের মাধ্যম নির্বাচন করতে পারবেন।

অনুশীলন[সম্পাদনা]

অনুশিলনে কিছু অনুশীলন প্রক্রিয়া দেওয়া থাকবে। অনুশীলনগুলো আক্রমণ, রক্ষণ এবং শারীরিক ও মানসিক বিভাগে মোট ৩টি ভাগে বিভক্ত থাকবে। ম্যানেজার এই ৩বিভাগের যেকোনো প্রক্রিয়া অনুশীলন আদেশের অন্তর্ভুক্ত করতে পারবেন। একই আদেশের মধ্যে যেকোনো প্রক্রিয়া এক বা একাধিকবার নির্বাচন করা যাবে। অনুশীলন লেভেল উন্নত হওার সাথে সাথে নতুন নতুন অনুশীলন ম্যানেজারের জন্য উন্মুক্ত হবে। এক আদেশে ৬টির বেশি অনুশীলন প্রক্রিয়া প্রদান করা যাবে না। প্রতি অনুশীলনের শেষে সহকারি ম্যানেজার অনুশীলনের উপর মন্তব্য করবেন। অনুশীলনের মাধ্যমে ম্যানেজার দলের জন্য আক্রমণ, রক্ষণ, বল দখল এবং অবস্থার বোনাস পাবে।

স্টেডিয়াম[সম্পাদনা]

প্রতিটি ম্যানেজার একটি মাঠের মালিক হবেন। সে মাঠে স্টেডিয়াম তৈরি সহ মাঠের আশে পাশে বিভিন্ন স্থাপনা তৈরি করবেন। একটি স্থাপনার কাজ চলাকালীন সময়ে নতুন আদেশ দেওয়া যাবে না, তবে চলমান স্থাপনার কাজ বন্ধ করে নতুন কাজের আদেশ দেওয়া যাবে। মাঠের স্থাপনার মধ্যে স্টেডিয়াম উল্লেখযোগ্য, এছাড়া রয়েছে ফ্যান শপ, হাসপাতাল, তরুন একাডেমী, অনুশীলন মাঠ এবং পারকিং লট। স্টেডিয়াম যত বড় হবে, সমর্থক ধারণ ক্ষমতা তত বেশি হবে এবং হোম খেলায় তত বেশি টিকেটের মূল্য পাওয়া যাবে। মাঠের উন্নয়নশীল কাজ তথা স্থাপনা প্রস্তুতিকরনে ম্যানেজারকে ডলার ব্যয় করতে হবে।

খেলা[সম্পাদনা]

প্রতিটি খেলা সাধারনত বাস্তব সময়ের ১০মিনিট ধরে হয়ে থাকে, তবে বিশেষ ক্ষেত্রে তার কম বা বেশিও হতে পারে। খেলার সময়সূচী স্থানীয় সময় তথা গেমটির পরিচালক যন্ত্রের সময়ের উপর নির্ভরশীল। খেলাটি ১ম ও ২য় দুটি অর্ধে বিভক্ত। খেলা চলাকালিন সময়ে ম্যানেজার তার দলের যেকোনো পরিবর্তন করতে পারবেন। তবে খেলা শুরুর ৩মিনিট(বাস্তব সময়) পূর্বে স্কোয়াডের সকল পরিবর্তন বন্ধ থাকবে। একটি মৌসুমে দিন প্রতি কমপক্ষে একটি করে খেলা থাকবে। হোম ও আওয়ে ভিত্তিতে খেলার ফলাফল পরিবর্তন হতে পারে।

হোম ও আওয়ে[সম্পাদনা]

ম্যানেজারের নিজের মাঠে খেলা হলে হোম এবং প্রতিপক্ষের মাঠে খেলা হয়ে আওয়ে। হোম খেলায় সমর্থকদের ১০০% উপস্থিতি দলকে ৫% বল দখলের বোনাস পাবে। এছাড়া ম্যানেজারের উপস্থিতি ৮% এবং অন্য কোন ম্যানেজারের সমর্থন ২% করে সর্বোচ্চ ১৫% বল দখলের বোনাস পাবে। সমর্থক, ম্যানেজার এবং সমর্থক ম্যানেজারদের উপস্থিতি যোগ-বিয়োগ করে সর্বোপরি বলদখলের বোনাস নির্ণয় করা হবে।

মৌসুম[সম্পাদনা]

এই গেমে ৪ সপ্তাহে ১ মৌসুম এবং প্রতিটি মৌসুম শুরু হয় সপ্তাহের রবিবারে আর শেষ হয় ৪র্থ সপ্তহাহের শনিবারে। মৌসুমের প্রথম এবং দ্বিতীয় দিন শুধু কাপ খেলার প্রথম রাউন্ডের খেলা হয়। এছাড়া বাকি ২৬ দিনে দিনপ্রতি একটি করে মোট ২৬টি লীগ খেলা চলে। গেমারের প্রথম মৌসুমে কাপ এবং লীগ ব্যতীত আর কোন খেলা থাকে না, তবে যদি কোন এসোসিয়েশনে যোগদান করে থাকলে ৪ সপ্তাহে ৪টি এসোসিয়েশন কম্পিটিশনে অংশগ্রহণ করতে হয়। মৌসুম শেষে পরবর্তী মৌসুমের কাপ ও লীগসহ চ্যাম্পিয়নস লীগ অথবা সুপারলীগে টুর্নামেন্টে অংশগ্রন করা যেতে পারে, তবে তার জন্য চলমান মৌসুমের লীগে শীর্ষ ৮ দলের মধ্যে থাকতে হয়।

টুর্নামেন্ট[সম্পাদনা]

লিগ[সম্পাদনা]

১৪ টি টিম নিয়ে একটি লিগ টুর্নামেন্ট হয়। একটি দল ১৩টি প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে হোম ও আওয়ে ভিত্তিতে মোট ২৬টি ম্যাচ খেলবে। এই ২৬টি ব্যাচ মৌসুমের প্রথম দুইদিন ব্যতীত বাকি ২৬ দিনের প্রতি এক দিনে একটি করে খেলতে হবে। খেলাইয় জয়ের জন্য ৩ পয়েন্ট, ড্র এর জন্য ১ পয়েন্ট এবং হারের জন্য শুন্য(০) পয়েন্ট পাবে। টুর্নামেন্ট শেষে এই পয়েন্টের ভিত্তিতে সেরা আটটি দল পরবর্তী মৌসুমের উন্নত লীগে প্রমোশন পাবে। প্রমোশন পাওয়া মাত্র স্কোয়াডে থাকা খেলোয়াড়দের তারকা একটি করে কমে যাবে তবে তার মূল মান/অভিজ্ঞতা অপরিবর্তিত থাকবে।

কাপ[সম্পাদনা]

কাপ একটি নক-আউট টুর্নামেন্ট। মোট ৬৪টি দল এখানে বাধ্যতামূলক ভাবে অংশগ্রহণ করে। মৌসুমের সর্বপ্রথম টুর্নামেন্ট এটি। মৌসুমের প্রথম দিন হতে কাপের খেলা মাঠে গড়ায়। মৌসুমের প্রথম ও দ্বিতীয় দিন মিলে হোম ও আওয়ে ভিত্তিএ একে অপরের সাথে ২ লেগের ম্যাচ খেলতে হয়। বিজয়ী দল পরবর্তী রাউন্ডে যেতে পারে। সেমিফাইনালে পরাজিত ২টি দলকেই ৩য় স্থান অধিকারী হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ[সম্পাদনা]

মৌসুম শেষে লীগে শীর্ষ চার দল পরবর্তী মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন্স লীগ খেলার যোগ্যতা অর্জন করে। এছাড়া চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ও সুপার লীগ শিরোপা ধারিরা সরাসরি পরবর্তী মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন্স লীগ খেলার যোগ্যতা অর্জন করে। ৩২ টি দল কে ৪টি করে মোট ৮টি গ্রুপে বিভক্ত করা হয়। গ্রুপের প্রতিটি দল হোম ও আওয়ে ভিত্তিতে মোট ৬টি করে ম্যাচ খেলতে হয়। গ্রুপে প্রতিটি জয় ৩পয়েন্ট, ড্র ১পয়েন্ট এবং হার ০পয়েন্ট হিসেবে গণনা করা হয়। পয়েন্টের ভিত্তিতে গ্রুপে থাকা প্রথম ২টি দল নকাউট রাউন্ডে যেতে পারে আর ৩য় স্থানে থাকা দলটি সুপারকাপের রাউন্ড অব ১৬ এ সরাসরি খেলতে পারে। সেমিফাইনালে পরাজিত ২টি দলকেই ৩য় স্থান অধিকারী হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

সুপার লিগ[সম্পাদনা]

মৌসুম শেষে লীগে ৫ম থেকে ৮ম স্থান অর্জনকারীরা সুপার লীগে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে। ৩২ টি দল কে ৪টি করে মোট ৮টি গ্রুপে বিভক্ত করা হয়। গ্রুপের প্রতিটি দল হোম ও আওয়ে ভিত্তিতে মোট ৬টি করে ম্যাচ খেলতে হয়। গ্রুপে প্রতিটি জয় ৩পয়েন্ট, ড্র ১পয়েন্ট এবং হার ০পয়েন্ট হিসেবে গণনা করা হয়। পয়েন্টের ভিত্তিতে গ্রুপে থাকা প্রথম ২টি করে মোট ১৬টি দল রাউন্ড অব ৩২ তে যায়, এখান থেকে ৮টি বিজয়ী দল রাউন্ড অব ১৬ এ যায় আর বাকি ৮টি দল চ্যাম্পিয়ন্স লীগের গ্রুপে ৩য় স্থান অর্জন করে এই খেলার যোগ্যতা অর্জন করে। সেমিফাইনালে পরাজিত ২টি দলকেই ৩য় স্থান অধিকারী হিসেবে ঘোষণা করা হয়। সুপার লীগ শিরোপা ধারি সরাসরি পরবর্তী মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন্স লীগ খেলার যোগ্যতা অর্জন করে।

প্রীতি ম্যাচ[সম্পাদনা]

মৌসুমের যেকোনো দিন যেকোনো সময় এটি খেলা যাবে। গেমটিতে নিজেদের অবস্থান যাচাইয়ের জন্য অন্য যেকোনো ম্যানেজারের সাথে প্রীতি ম্যাচ খেলা যাবে। এই ক্ষেত্রে যে ম্যানেজারের লেভেল যত বেশি তার দলও তুলনামুলক ভাবে তত শক্তিশালী ও তারকাপূর্ণ হবে। তবে প্রীতি ম্যাচ খেলার জন্য অবশ্যই ম্যানেজারদের বন্ধুতালিকায় অন্তর্ভুক্ত হতে হবে। এই খেলায় হোমে দলের বিশ্রাম কিছুটা কমে যাবে তবে আওয়ে দলের বিশ্রাম অপরিবর্তিত থাকবে। এই খেলায় কোন খেলোয়াড় পরিবর্তনের সীমা নেই, অর্থাৎ খেলা চলাকালীন সময়ে ম্যানেজাররা ৩জনের বেশি খেলোয়াড়ও পরিবর্তন করতে পারবেন।

এসোসিয়েশন[সম্পাদনা]

৬জন ম্যানেজার মিলে একটি এসোসিয়েশন তৈরি করতে পারবে। এসোসিয়েশন ম্যাচ খেলার জন্য কমপক্ষে ৪জন ও সর্বোচ্চ ৬জন ম্যানেজার সম্বলিত একটি এসোসিয়েশনের প্রয়োজন হবে। এসোসিয়েশন টুর্নামেন্টে ৪টি এসোসিয়েশন অংশগ্রহণ করবে। এসোসিয়েশনের খেলা প্রতি সপ্তাহের শুক্রবারে ঘোষণা করা হবে এবং পরবর্তীতে শনিবারে ও রবিবারে অনুষ্ঠিত হবে। এক মৌসুমে ৪ সপ্তাহে ৪টি এসোসিয়েশন টুর্নামেন্ট হবে। শুধু মাত্র শেষের সপ্তাহে ঘোষণাসহ খেলা হবে শুক্রবার আর শনিবারে। প্রথমদিন সেমিফাইনাল এবং দ্বিতীয় দিন ফাইনাল ও ৩য় স্থান নির্ধারণি খেলা হবে। প্রতিটি টুর্নামেন্টে একেকটি দল ৪টি করে ম্যাচ খেলবে। জয়ে ৩ পয়েন্ট, ড্রতে ১ এবং পরাজয়ে ০ পয়েন্টের ভিত্তিতে প্রথম দিনের জয়ী এসোসিয়েশনগুলো ফাইনাল এবং পরাজিত এসোসিয়েশনগুলো ৩য় স্থান নির্ধারণি খেলবে। এই খেলায় ম্যানেজারের লেভেল কোন ভূমিকা রাখবে না, শুধু খেলোয়াড়দের তারকা সংখ্যা দলের মান নির্ধারণ করবে। এসোসিয়েশনের ম্যানেজাররা সম্পূর্ণ বিনামুল্যে নিজেদের মধ্যে খেলোয়াড় আদান-প্রদান করতে পারবে। ম্যানেজারদের খেলার উপর ভিত্তি করে এসোসিয়েশন নিজস্ব কিছু পয়েন্ট পাবে যা মৌসুম শেষে এসোসিয়েশনের প্রমশনে বিশেষ ভূমিকা রাখবে। মৌসুম শেষে প্রত্যেক এসোসিয়েশনের পয়েন্ট ২০% করে কমে যাবে।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

অন্যান্য অনলাইন গেমের মত এই গেমটিতেও অর্থনৈতিক ভূমিকা রয়েছে। গেমটির ভারচুয়াল অর্থনীতি ম্যানেজার তথা দলের উত্থান-পত্তনের পেছনে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। গেমটির ভারচুয়াল ডলার এবং টোকেন গেমটি পরিচালনা করতে সাহায্য করে। এছাড়া অন্যান্য সম্পদের মধ্যে রয়েছে চিকিৎসা, অনুপ্রেরণা এবং বিশ্রাম। প্রতিদিন এবং চলমান মৌসুমের ভারচুয়াল ডলার এর পরিসংখ্যান গেমটির অর্থনীতি ট্যাবে পাওয়া যায়। এছাড়া স্পন্সরশীপ চুক্তি এবং টিকেটের মূল্য নির্ধারণ করতেও এই ট্যাবটি একক ভূমিকা পালন করে।

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

দলের প্রতিদিনের এবং চলমান মৌসুমের ভারচুয়াল ডলার আয়/ব্যয় পরিসংখ্যান অর্থনীতি ট্যাবের প্রথম পৃষ্ঠায় পাওয়া যায়। সেখানে আয়ের খাত, ব্যয়ের খাত, মোট আয়/ব্যয় এবং সর্বোপরি সঞ্চয়ের হিসাব পাওয়া যায়।

আয় আজ মৌসুম
বিনিয়োগ 0 0
টিকেট বিক্রয় ১৭.৯মি ৩০৭মি
স্পন্সরশীপ চুক্তি ৩.৯৭মি ৯৯.৩মি
প্রতিযোগিতা পুরস্কার ৫.৬মি ১.০৩বি
খেলোয়াড় বিক্রয় ১৯৫মি ৭৫২মি
মার্চেন্ডাইজ ৪.৮৫মি ১০৫মি
মোট ২২৭মি ২.৩বি
ব্যয় আজ মৌসুম
খেলোয়াড়ের বেতন ৩৬.২মি ৯৫৫মি
খেলোয়াড় ক্রয় ৮২৫মি
জয় বকসিস ৮২৫মি
স্থাপনা
মোট ৩৬.২মি ১.৮৭বি
হিসাব আজ মৌসুম
আয় ১৯১মি ৪৩২মি
সঞ্চয় ১.০৩বি

মিডিয়া চুক্তি[সম্পাদনা]

অর্থনীতি ট্যাবের ২য় পৃষ্ঠায় মিডিয়া চুক্তি রয়েছে। এই চুক্তির মাধ্যমে টোকেন আয় করা যায়। এই টোকেন দিয়ে ট্রান্সফার মার্কেটে নিলামের বিড করা যায় এমনকি সরাসরি খেলোয়াড় কিনতেও মাধ্যম হিসেবে কাজ করে। এছাড়া টোকেন বিনিয়োগ করে ভার্চুয়াল ডলার, চিকিৎসা, অনুপ্রেরণা এবং বিশ্রাম ক্রয় করা যায়। এছাড়া স্কোয়াডের যেকোনো খেলোয়াড়ের তথ্য পরিবর্তন করা যায়।

জার্সি স্পন্সরশীপ[সম্পাদনা]

অর্থনীতি ট্যাবের ৩য় পৃষ্ঠায় জার্সি স্পন্সরশীপ চুক্তি রয়েছে। এই চুক্তির মাধ্যমে ভার্চুয়াল ডলার পাওয়া যায়, যা দিয়ে খেলোয়াড় ক্রয় এবং স্টেডিয়ামের স্থাপনার কাজ শুরু করা যায়।

টিকেটের মূল্য[সম্পাদনা]

অর্থনীতি ট্যাবের ৪র্থ পৃষ্ঠায় টিকেটের মূল্য নির্ধারণ করা যায়। লীগ, চ্যাম্পিয়ন্স লীগ, কাপ প্রীতি খেলা এবং এসোসিয়েশনের খেলার ধরন ভেদে টিকেটের মূল্য নির্ধারণ করা যায়। এছাড়া জয়ের জন্য খেলোয়াড়দের বকসিসও এখানে নির্ধারণ করা যায়।

References[সম্পাদনা]

  1. [edit source] Jump up ^ Beres, Ivan (20 October 2011). "Nordeus' Top Eleven gives its 1,000,000 daily active players an Android app – iOS to follow soon!". Retrieved 13 August 2013.
  2. "Top Eleven Now Available on Odnoklassniki!". Retrieved 13 August 2013.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]