ঝিনুক শিল্প

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ঝিনুক

ঝিনুক শিল্প হলো এমন একটি শিল্প যা সামুদ্রিক প্রাণি ঝিনুক নির্ভর এবং পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে সুদীর্ঘকাল থেকে প্রতিষ্ঠিত।[১] যদিও বাংলাদেশের ৬৯,৯০০ বর্গকিলোমিটার সামুদ্রিক জলরাশিতে প্রায় ৩০০ প্রজাতির ঝিনুক পাওয়া যায় তবু এদেশে এটি খুব বেশি প্রসারিত হয়নি; যেমনটি হয়েছে পার্শ্ববর্তী ভারত, চীনজাপানে - এরা বিশ্বের অন্যতম প্রধান ঝিনুক শিল্পোন্নত দেশ।[২]

শিল্প হিসাবে ঝিনুক[সম্পাদনা]

ঝিনুক থেকে মুক্তা আহরণ করা হচ্ছে।

ঝিনুক বিভিন্ন ধরনের শিল্প হিসাবে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন দেশে; যেমনঃ খাদ্য, রত্ন, সহায়ক, রসায়ন প্রভৃতি খাতে এটি ব্যবহৃত হয়।[১][২]

খাদ্য শিল্প

পঞ্চাশেরও অধিক প্রজাতির ঝিনুক ভক্ষণযোগ্য। সামুদ্রিক ঝিনুক (ওয়েস্টার) বেশ দামি খাবার এবং অনেক দেশে এর খামার রয়েছে; যেমনঃ ভারতে বাণিজ্যিকভাবে সামুদ্রিক ঝিনুক উৎপাদন করা হয়।[৩]

রত্ন শিল্প

হীরার পর সবচেয়ে দামী রত্ন বলে পরিচিত মুক্তার জন্ম হয় ঝিনুক হতে।[১] বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সুদীর্ঘকাল থেকেই মুক্তা আহরণের জন্য ঝিনুক চাষ হয়; যেমনঃ চীনে প্রায় ১ হাজার ৪০০ বছর আগে থেকে এর চাষ হয়ে আসছে।[৪]

সহায়ক শিল্প

পরিবেশের জন্য ঝিনুক খুবই গুরুত্বপূর্ণ; কারণ এটি পানি থেকে শৈবাল, জৈব পদার্থ, দ্রবীভূত ক্ষতিকারক উপাদান দূরীকরণের মাধ্যমে প্রাকৃতিকভাবে পানিকে পরিষ্কার রেখে মাছ চাষে সহাযতা করে।[৩]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "সম্ভাবনাময় ঝিনুক শিল্প"দৈনিক জনকন্ঠ অনলাইন। ৩০ জুলাই ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৮ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. রফিকুল আহসান (জানুয়ারি ২০০৩)। "ঝিনুক শিল্প"। সিরাজুল ইসলাম[[বাংলাপিডিয়া]]ঢাকা: এশিয়াটিক সোসাইটি বাংলাদেশআইএসবিএন 984-32-0576-6। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৮  ইউআরএল–উইকিসংযোগ দ্বন্দ্ব (সাহায্য)
  3. "বাণিজ্যিকভাবে শামুক-ঝিনুক চাষের উদ্যোগ সরকারের"দৈনিক বণিক বার্তা অনলাইন। ২৯ জুলাই ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৮ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  4. "বাংলাদেশে ঝিনুক চাষের অর্থনৈতিক গুরুত্ব"। AgroBangla.com। ২০১৮-০১-২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]