জ্যোতিষশাস্ত্র

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(জ্যোতিষ শাস্ত্র থেকে পুনর্নির্দেশিত)
Jump to navigation Jump to search

জ্যোতিষ একটি সংস্কৃত শব্দ। এই শব্দের একটি অর্থ হল “জ্যোতির্বিষয়ক” এবং অস্ত্যর্থে এই শব্দের একটি অর্থ হল “জ্যোতিষশাস্ত্রবিৎ” এবং অন্য অর্থ “জ্যোতির্ব্বিৎ” [১]। জ্যোতিষ ৬ টি বেদাঙ্গের অন্যতম। বেদাঙ্গ জ্যোতিষের উপলব্ধ শ্লোকগুলিতে মূলতঃ সূর্য্য-চন্দ্রের আবর্তন ও ঋতুপরিবর্তন সংক্রান্ত বিষয় আলোচিত হয়েছে। বেদের লিপিবদ্ধকরণের সময় যজ্ঞানুষ্ঠানের দিন, ক্ষণ ও মূহুর্তাদি নির্ণয়েও জ্যোতিষের বহুল ব্যবহার ছিল। উল্লেখ্য এই যে সেই সময় জ্যোতির্বিদ্যা ও জ্যোতিষবিদ্যা অভিন্ন ছিল।

বর্তমানে, প্রশ্নকর্তার জন্মসময়, তারিখ এবং জন্মস্থানের ভিত্তিতে, জন্মকালে মহাকাশে গ্রহের অবস্থান নিরুপণ করে অথবা প্রশ্নের সময় গ্রহাদির অবস্থান নির্ণয় করে, অথবা হস্তরেখাবিচার, শরীরের চিহ্নবিচার ইত্যাদি বিভিন্ন পদ্ধতির ব্যবহারে প্রশ্নকর্তার ভবিষ্যতের গতিপ্রকৃতি নির্ধারণ করার জ্ঞান ও পদ্ধতিকে জ্যোতিষশাস্ত্র বলা হয়। আবার জ্যোতিষশাস্ত্রের একটি বিভাগ দেশ, রাজ্য, শহর, গ্রাম ইত্যাদির এবং প্রাকৃতিক ঘটনাবলীর যেমন বৃষ্টি, অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, ভূমিকম্প, ঝড়, ঝঞ্ঝা, মহামারী বা প্লাবণের ভবিষ্যদ্বাণী করতেও ব্যবহৃত হয়।

Astrological glyphs for some of the planets of astrology, including the Sun, the Earth, the Moon, and Pluto.

যিনি জ্যোতিষশাস্ত্রের চর্চা করেন, তিনি জ্যোতিষী নামে পরিচিত। আধুনিককালের জ্যোতিষীগণ প্রতীকের মাধ্যমে জ্যোতিষশাস্ত্র অধ্যয়ন করে থাকেন। এছাড়াও এটি একধরনের কলাশাস্ত্র বা ভবিষ্যৎকথন হিসেবে পরিচিত।

লক্ষণীয় এই যে জ্যোতিষশাস্ত্রের প্রয়োগসূত্রগুলি কেবলমাত্র সম্ভাবনা নির্দেশ করে, কিন্তু কোন নিশ্চিত ঘটনার কথা বলে না। তার কারণ এই যে জ্যোতিষীগণ মনে করেন মানুষ সচেতন কর্মের সাহায্যে অথবা ঈশ্বরের আশীর্বাদে অথবা এই দুইয়ের মিশ্রিতফলে ভাগ্য অনেকাংশে নিয়ন্ত্রণ এবং পরিবর্তন করতে পারে। এই নিশ্চয়তার তারতম্যের কারনে অনেক বিজ্ঞানী জ্যোতিষশাস্ত্রকে মান্যতা দেন না। একদিকে যেমন বিখ্যাত বিজ্ঞানী ইয়োহানেস কেপলার একই সাথে জ্যোতির্বিজ্ঞানী এবং জ্যোতিষী ছিলেন, আবার অন্যদিকে বিজ্ঞানীদের অনেকে জ্যোতিষশাস্ত্রকে ভ্রান্ত প্রতিপন্ন করতে চেয়েছেন। যেমন, ১৯৭৫ সালের সেপ্টেম্বরে দ্য হিউম্যানিস্ট পত্রিকায় অনেক বিজ্ঞানী আনুষ্ঠানিকভাবে জ্যোতিষশাস্ত্রের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।[২] এছাড়া বিখ্যাত বিজ্ঞান লেখক কার্ল সেগান তার একটি প্রামাণ্য চিত্রে এ নিয়ে আলোচনা করেছেন।[৩] তৎসত্ত্বেও জ্যোতিষশাস্ত্রের প্রতি বহু মানুষের বিশ্বাস এখনও অটুট আছে।

পরিচ্ছেদসমূহ

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

জ্যোতিষ্ক বিষয়ক তথ্য, সূত্রাবলী ও ব্যবহারিক প্রয়োগসমূহের সামগ্রিক জ্ঞান জ্যোতিষশাস্ত্র নামে পরিচিত। এই শাস্ত্রের উৎপত্তিকালে জ্যোতিষশাস্ত্র এবং জ্যোতির্বিজ্ঞান এক এবং অভিন্ন ছিল। পরবর্তিকালে জ্যোতিষশাস্ত্র জ্যোতিষ্কগুলির গতি এবং অবস্থানের ভিত্তিতে, প্রাকৃতিক এবং শারীরিক লক্ষণ অথবা দুয়ের সমন্বয়ে ব্যক্তি, সমষ্টি বা দেশের ভবিষ্যত নিরুপণের প্রায়োগিক দিকটি নিয়ে অভিজ্ঞতাভিত্তিক জ্ঞানের সংগ্রহ হিসেবে বিস্তার লাভ করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অনেক সংস্কৃতির মধ্যেই জ্যোতির্বিজ্ঞানের ঘটনাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। ভারতীয়, চীনা ও মায়া সভ্যতার অধিবাসীগণ মহাকাশ পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে পার্থিব ঘটনাগুলির ভবিষ্যদ্বাণী করার জন্য এই বিষয়ের চর্চা এবং উন্নয়ন সাধন করেছিলেন। পশ্চিমে, জ্যোতিষশাস্ত্র প্রায়ই একজন ব্যক্তির ব্যক্তিত্বের ব্যাখ্যা করার জন্য এবং তার জন্মের সময় সূর্য, চন্দ্র, এবং অন্যান্য জ্যোতিষ্কগুলির অবস্থানের উপর ভিত্তি করে তার জীবনের ভবিষ্যদ্বাণী করার জন্য ব্যবহৃত হত।

জ্যোতিষশাস্ত্র অতি প্রাচীন এবং এটি বিভিন্ন সময়ে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে বিভিন্ন সভ্যতার মানবগোষ্ঠির দ্বারা চর্চিত, পরিবর্তিত ও পরিবর্ধিত হয়েছে। তাই কোন একটি বিশেষ সময়কে জ্যোতিষশাস্ত্রের সৃষ্টিকাল হিসেবে চিহ্নিত করা যুক্তিযুক্ত নয়।

বেদাঙ্গ জ্যোতিষে উল্লিখিত একটি মকর সংক্রান্তির তারিখ জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা খ্রিস্টপূর্ব ১৪০০-১২০০ অব্দের মধ্যে স্থির করেন। তা থেকে অনুমান করেন বেদাঙ্গ জ্যোতিষ খ্রিস্টপূর্ব ১৪০০-১২০০ অব্দের থেকেও প্রাচীন। কিন্তু আরও কত প্রাচীন, সে বিষয়ে কোন নিশ্চিত প্রমাণ পাওয়া যায় না।[১] জ্যোতিষশাস্ত্রের একটি প্রথা মেসোপটেমিয়ার (১৯৫০-১৬৫১ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) প্রথম রাজবংশে প্রচলিত ছিল। চীনা জ্যোতিষশাস্ত্র জু রাজ বংশে (১০৪৬-২৫৬ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) প্রসার লাভ করেছিল। হেলেনীয় জ্যোতিষশাস্ত্র ৩৩২ খ্রিস্টপূর্বাব্দের পরে আলেকজান্দ্রিয়াতে মিশরীয় ডিকানিক জ্যোতিষশাস্ত্রের সাথে বেবিলনীয় জ্যোতিষশাস্ত্রের সমন্বয়ে রাশিচক্র ভিত্তিক জ্যোতিষশাস্ত্র প্রচলন করেছিল। আলেকজান্ডার দ্য গ্রেট এর এশিয়া জয়ের মধ্য দিয়ে জ্যোতিষশাস্ত্র প্রাচীন গ্রিস এবং রোমে বিস্তার লাভ করেছিল। রোমে জ্যোতিষশাস্ত্র 'কালদীয় জ্ঞানের' সাথে যুক্ত ছিল। সপ্তম শতাব্দীতে আলেকজান্দ্রিয়া জয় করার পর জ্যোতিষশাস্ত্র ইসলামিক পণ্ডিতদের দ্বারা গৃহিত হয়েছিল এবং হেলেনিস্টিক গ্রন্থগুলি আরবি ও ফার্সি ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছিল। দ্বাদশ শতকের মধ্যে আরবি গ্রন্থ ইউরোপে আমদানি করা হয়েছিল এবং এইগুলি ল্যাটিন ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছিল। বিখ্যাত জ্যোতির্বিজ্ঞানী টায়কো ব্রাহে, জোহানেস কেপলার এবং গ্যালিলিও রাজার পৃষ্ঠপোষকতাপ্রাপ্ত অন্যান্য জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের মত জ্যোতিষশাস্ত্রের অনুশীলন করেছিলেন। জ্যোতিষশাস্ত্র দান্তে আলিঘিরি এবং জিওফ্রে চসারের সাহিত্যে উল্লিখিত হয়েছিল এবং ক্রিস্টোফার মার্লো এবং উইলিয়াম শেক্সপিয়ারের মতো নাট্যকারের নাটকের মধ্যেও জ্যোতিষশাস্ত্রের প্রয়োগের উল্লেখ রয়েছে।

ইতিহাসের অধিকাংশ সময় জুড়ে জ্যোতিষশাস্ত্রকে একটি বৈজ্ঞানিক ঐতিহ্য হিসাবে বিবেচনা করা হয়েছে। এটি রাজনৈতিক এবং তাত্ত্বিক প্রসঙ্গে আলোচিত হত এবং অন্যান্য গবেষণার সাথে সংযুক্ত ছিল। উদাহরণস্বরুপ জ্যোতির্বিজ্ঞান, রসায়নবিদ্যা, আবহাওয়াবিদ্যা ও চিকিৎসাবিজ্ঞানের উল্লেখ করা যেতে পারে। সপ্তদশ শতকের শেষের দিকে জ্যোতির্বিদ্যা ও পদার্থবিজ্ঞানের নতুন বৈজ্ঞানিক ধারণা (যেমন সূর্যকেন্দ্রিকতা এবং নিউটনিয়ান মেকানিক্স) জ্যোতিষশাস্ত্রকে প্রশ্নচিহ্নের সামনে দাঁড় করিয়েছিল।

প্রাচীন বিশ্ব[সম্পাদনা]

জ্যোতিষশাস্ত্র হল ব্যাপক, যা মূলত আকাশে অর্থের অনুসন্ধান করে। জ্যোতির্বিদ্যা চক্রের রেফারেন্সের মাধ্যমে পরিমাপ, রেকর্ড এবং ঋতুগত পরিবর্তনগুলির পূর্বাভাসের জন্য মানুষের সচেতন প্রচেষ্টার প্রারম্ভিক প্রমাণগুলি হাড়ের উপর এবং গুহার দেয়ালে আঁকা চিহ্ন থেকে পাওয়া গিয়েছিল, তা থেকে অনুমান করা হয় যে চন্দ্র চক্রটি ২৫,000 বছর আগে উল্লেখ করা হয়েছিল। এটি চাঁদ এবং নদীগুলির উপর চাঁদের প্রভাব এবং একটি সাম্প্রদায়িক ক্যালেন্ডার সংগঠনের বিষয়গুলি রেকর্ড করার প্রথম পদক্ষেপ ছিল।

কৃষকরা বিভিন্ন ঋতুতে দৃষ্ট নক্ষত্রপুঞ্জের জ্ঞান নিজেদের কাজের প্রয়োজনে ব্যবহার করতেন। তাঁরা নির্দিষ্ট নক্ষত্রমণ্ডলের উদয়কে বন্যা বা বৃষ্টির মত প্রাকৃতিক ঘটনার পূর্বাভাষের কাজে ব্যবহার করতে শিখেছিলেন। খ্রিষ্টপূর্ব ৩ সহস্রাব্দের কাছাকাছি সময়ে বিভিন্ন সভ্যতার মানুষ এই গ্রহ-তারকাগুলির ঘূর্ণনের সঙ্গে বিভিন্ন নক্ষত্রমণ্ডলে তাদের উদয়ের মধ্যে সমন্বয় সাধন করতে পারতেন বলে অনেকে মনে করেন। প্রাচীনতম জ্যোতিষশাস্ত্র বিষয়ক তথ্যগুলি ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা প্রমাণ ও প্রাচীন জগতে সৃষ্ট গ্রন্থগুলির প্রতিলিপি থেকে পাওয়া যায়। প্রায় ১৭০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দের মধ্যে আম্মিসাদুকার ভেনাস ট্যাবলেটটি ব্যাবিলনে সঙ্কলন করা হয়েছিল। সুস্পষ্টভাবে নির্বাচনে জ্যোতিষশাস্ত্রের প্রথম ব্যবহার সম্পর্কে একটি স্ক্রোলকে সুমেরীয় শাসক এবং তৎকালীন লাগাস রাজ্যের অধিপতি, গডিয়া (সি. ২১৪৪ - ২১২২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) এর শাসনামলে উল্লেখ করা হয়েছিল। এটি বর্ণনা করে যে, দেবতারা স্বপ্নে তাঁর কাছে যে নক্ষত্রপুঞ্জ প্রকাশ করেছিলেন তা মন্দিরের পরিকল্পিত নির্মাণের জন্য সবচেয়ে উপযোগী হবে।

যাইহোক, এই সময় সঠিকভাবে নথিভুক্ত করা হয়েছিল কি না অথবা কেবল প্রাচীন শাসকদের দ্বারা বংশানুক্রমে প্রচারিত হয়েছে কিনা তা নিয়ে দ্বন্দ্ব রয়েছে। জ্যোতিষশাস্ত্রের জ্ঞানের একটি সমন্বিত পদ্ধতি হিসেবে ব্যবহারের প্রাচীনতম দৃঢ় প্রমাণস্বরুপ মেসোপটেমিয়া (১৯৫০-১৬৫১ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) এর প্রথম রাজবংশের রেকর্ডকে উল্লেখ করা হয়। এই জ্যোতিষশাস্ত্রের সাথে হেলেনিক গ্রীক (পশ্চিমী) জ্যোতিষশাস্ত্রের সামান্য সাদৃশ্য ছিল। রাশিচক্র সহ আরিসের ৯ ডিগ্রি এর কাছাকাছি একটি সাধারণ বিন্দু, ট্রাইন দৃষ্টিভঙ্গি, গ্রহের উজ্জ্বলতা এবং ডোডেক্যাটোমিয়ারিয়া (প্রতিটি ৩০ ডিগ্রি বারের বারভাগ) এর মধ্যে অন্যতম। ব্যাবিলনীয়রা মহাজাগতিক ঘটনাগুলির পরিবর্তে জাগতিক ঘটনাগুলির ব্যাখ্যা দিতে জ্যোতিষের সংকেতগুলির ব্যবহারকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছিল।

চীনা জ্যোতিষশাস্ত্রের ব্যবস্থাকে ঝৌ রাজবংশ (১০৪৬-২৫৬ খ্রিস্টপূর্বাব্দের) সময় প্রসারিত হয়েছিল এবং হান রাজবংশের (খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় শতাব্দী থেকে দ্বিতীয় শতাব্দী পর্যন্ত) বিকাশ লাভ করেছিল, যার মধ্যে ঐতিহ্যগত চীনা সংস্কৃতির সব পরিচিত উপাদান যেমন ইয়ান-ইয়ং দর্শন, পাঁচটি উপাদানের তত্ত্ব, স্বর্গ এবং পৃথিবী, কনফুসিয়ান নৈতিকতা , চীনা ঔষধ এবং ভবিষ্যদ্বাণী, জ্যোতিষশাস্ত্র এবং রসায়নবিদ্যার দার্শনিক নীতিকে আনুষ্ঠানিক রূপে একত্রিত করা হয়েছিল।

প্রাচীন আপত্তিসমূহ[সম্পাদনা]

সিসেরো (১০৬ - ৪৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) দুটি বিষয়ে আপত্তিটি করেছিলেন (যে জন্মদিনের কাছাকাছি সময় এবং ব্যক্তিগত ফলাফলগুলি খুব ভিন্ন হতে পারে), পরে তা সেন্ট অগাস্টিন দ্বারা উন্নত করা হয়েছিল। তিনি যুক্তি দেন যে চাঁদের চেয়ে অন্যান্য গ্রহ পৃথিবীর তুলনায় অনেক বেশি দূরবর্তী, তাই চাঁদের তুলনায় তাদের খুব কম প্রভাব রয়েছে। তিনি যুক্তি দেন যে, জ্যোতিষশাস্ত্র যদি একজন ব্যক্তির ভাগ্য সম্পর্কে সবকিছু ব্যাখ্যা করে, তবে এটি উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত দক্ষতা ও পিতামাতার প্রভাব, ঔষধ দ্বারা কাজ করা স্বাস্থ্যের পরিবর্তন বা মানুষের উপর আবহাওয়ার দৃশ্যমান প্রভাবগুলি ভুলভাবে উপেক্ষা করে।

প্লটিনাস যুক্তি দেন যে, যেহেতু নির্দিষ্ট নক্ষত্রগুলি গ্রহের তুলনায় অনেক বেশি দূরবর্তী তাই মানবজাতির উপর গ্রহগুলির প্রভাব রাশিচক্রের সাথে তাদের অবস্থানের উপর নির্ভর করে তা কল্পনা করাও হাস্যকর। তিনি তর্ক করেন যে চাঁদ যদি পূর্ণ হয় তাহলে তা অন্যান্য গ্রহের জন্য ভাল এবং চাঁদ ভেঙে গেলে খারাপ তা স্পষ্টভাবে ভুল ধারনা, যেমন চন্দ্রের দৃষ্টিকোণ থেকে তার পৃষ্ঠের অর্ধেক সূর্যের আলোতে থাকে সবসময় ; এবং গ্রহের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে হ্রাস পাওয়া ভাল হওয়া উচিত, তবে গ্রহটি চাঁদ থেকে কিছু আলো দেখতে পায়, কিন্তু যখন চাঁদ আমাদের কাছে পূর্ণ হয় তখন এটি অন্ধকার এবং এর ফলে এটি ক্ষতিকারক কারণ এটি গ্রহের দিকে মুখ করে আছে।

ফেভারিনাস যুক্তি দেন যে, তারা এবং গ্রহগুলি একইভাবে মানুষের দেহকে প্রভাবিত করবে যেমনটি তারা জোয়ারকে প্রভাবিত করে এটি কল্পনা করা ছিল অদ্ভুত এবং সমানভাবে অদ্ভুত যে স্বর্গে ছোট গতির কারণে মানুষের ভাগ্যে বড় পরিবর্তন ঘটে। Sextus Empiricus যুক্তি দেন যে রাশিচক্রের চিহ্নগুলি সম্পর্কে কল্পবিজ্ঞানের সাথে মানুষের বৈশিষ্ট্যগুলি লিঙ্ক করা নিতান্তই ভ্রান্ত ধারণা। কার্নিয়াডস যুক্তি দেন যে ভাগ্যে বিশ্বাস মুক্ত ইচ্ছা এবং নৈতিকতাকে অস্বীকার করে; যেমন- বিভিন্ন সময়ে জন্মগ্রহণ করা মানুষ একই দুর্ঘটনা বা যুদ্ধে মারা যেতে পারে; এবং তারা, উপজাতি এবং সংস্কৃতি সব ভিন্ন তাই তাদের প্রভাবও বিপরীত ।

হেলেনীয় মিশর[সম্পাদনা]

৫২৫ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে পারস্যদের দ্বারা মিসরকে পরাজিত করা হয়েছিল। খ্রিস্টপূর্ব ১ম শতাব্দীর দিকে মিশরীয় ডেন্ডেরা রাশিচক্রের দুটি লক্ষণ-ব্যালেন্স এবং স্কর্পিয়ন - মেসোপটেমিয়ীয় জ্যোতিষশাস্ত্রের সাথে শেয়ার করেছিলেন।

৩৩২ খ্রিস্টপূর্বাব্দে আলেকজান্ডার দ্য গ্রেট কর্তৃক দখলদারির মাধ্যমে মিসর হেলেনিক সভ্যতার অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। জয়ের পর আলেকজান্দ্রিয়া শহরটি আলেকজান্ডার কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, সেই স্থানটি হয়ে উঠেছিল রাশিচক্রের জন্মভূমি যেখানে ব্যাবিলনীয় জ্যোতিষশাস্ত্রের সাথে মিশরীয় ডায়নারিক জ্যোতিষশাস্ত্রকে মেশানো হয়েছিল। এটি ব্যাবিলনিক রাশিচক্রের সাথে গ্রহের মহিমান্বিত ব্যবস্থার সঙ্গে চিহ্নগুলির ত্রিপলব্ধতা এবং গ্রহণের গুরুত্বের সাথে সমন্বয় রয়েছে। এটি রাশিচক্রের ১০ ডিগ্রির প্রতিটিতে ছড়িয়ে পড়া ছত্রিশ ধাপে মিশরীয় ধারণা ব্যবহার করে, ক্রমবর্ধমান ডেকান এবং গ্রিক ঈশ্বরগণের গ্রহের পদ্ধতির উপর শাসন এবং চারটি উপাদানকে স্বাক্ষর করে। খ্রিস্টপূর্ব ২য় শতাব্দী পাঠ্যসূচী কিছু নির্দিষ্ট ডেকান উত্থানের সময় রাশিচক্রের গ্রহের অবস্থানগুলি নিয়ে ভবিষ্যদ্বাণী করে, বিশেষ করে সোথিস। জ্যোতির্বিজ্ঞানী এবং জ্যোতির্বিদ টলেমী আলেকজান্দ্রিয়াতে বসবাস করতেন। টলেমীর লেখা টেট্রাবিবলস পশ্চিমা জ্যোতিষশাস্ত্রের ভিত্তি তৈরি করেছিল এবং "হাজার বছর বা তারও বেশি সময় ধরে জ্যোতির্বিদ লেখকদের মধ্যে প্রায় বাইবেলের কর্তৃত্ব উপভোগ করেছিল।"

গ্রীস এবং রোম[সম্পাদনা]

আলেকজান্ডার গ্রেট দ্বারা এশিয়া জয়ের ফলে সিরিয়া, বাবিল, পারস্য ও মধ্য এশিয়ায় গ্রিকদের ধারণাগুলি উন্মোচিত হয়েছিল। প্রায় ২৮০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে ব্যাবিলনের বেল থেকে একজন পুরোহিত বারোসাস জ্যোতিষশাস্ত্র ও ব্যাবিলনীয় সংস্কৃতি শিক্ষার জন্য গ্রীক দ্বীপে কস গিয়েছিলেন। ১ম শতাব্দীর পূর্বে জ্যোতিষশাস্ত্রের দুটি প্রজাতি ছিল, একটি অতীত, বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ বর্ণনা করার জন্য রাশিচক্র ব্যবহার করতো; অন্যটি বুরক, তারার উপর আত্মার উত্থানকে জোর দেয়া হত। রোমে জ্যোতিষশাস্ত্রের সংমিশ্রণে গ্রিক প্রভাব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল।

রোমের জ্যোতিষশাস্ত্রের প্রথম সুনির্দিষ্ট রেফারেন্স বক্তা ক্যাটোর কাছ থেকে এসেছিল যিনি ১৬০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে কালদীয়দের সাথে পরামর্শের মাধ্যমে খামার পরিচারকদেরকে সতর্ক করেছিলেন যাদেরকে ব্যাবিলনীয় 'জ্যোতিষী' বলা হত। গ্রীক ও রোমান উভয়ের মধ্যেই ব্যাবিলনেনিয়া (যেহেতু কালদীয় নামেও পরিচিত) জ্যোতিষ দ্বারা সুস্পষ্ট হয়ে উঠেছিল এবং 'কালদীয় জ্ঞানের সমার্থক হয়ে ওঠেছিল কারণ তারা গ্রহগুলি এবং নক্ষত্রগুলির সাহায্যে ভবিষ্যৎ বাণী প্রদান করতো । ২য় শতকের রোমান কবি এবং ব্যঙ্গাত্মক জুভেনাল কালদীয়দের ব্যাপক প্রভাব সম্পর্কে অভিযোগ করে বলেন, "এখনো কালদীয়রা অনেক বিশ্বস্ত , জ্যোতির্বিদরা যে সব কথা বলে গেছেন তারা বিশ্বাস করবে যে তা হ্যামন এর ফোয়ারা থেকে এসেছে।"

রোমের হারম্যাটিক জ্যোতিষশাস্ত্র নিয়ে আসা প্রথম জ্যোতির্বিদদের মধ্যে একজন ছিলেন থ্রাসিলিয়াস, তিনি ছিলেন সম্রাট তিবিরিয়াসের জ্যোতিষী যিনি ছিলেন প্রথম সম্রাট যার কোর্ট জ্যোতিষী ছিল, যদিও তাঁর পূর্বসূরি অগাস্টাস তাঁর ঔপনিবেশিক অধিকারকে বৈধতা দেওয়ার জন্য জ্যোতির্বিদ্যা ব্যবহার করেছিলেন।

মধ্যযুগীয় বিশ্ব[সম্পাদনা]

হিন্দুধর্ম[সম্পাদনা]

প্রাচীন ভারতীয় জ্যোতিষশাস্ত্র মূলত প্রাথমিক মধ্যযুগীয় কিছু গ্রন্থের উপর ভিত্তি করে গড়ে ওঠেছিল, বিশেষত: বৃহৎ পরাশর হোরাশাস্ত্র এবং কল্যাণবর্মার সারাবলী অন্যতম। হোরাশাস্ত্রে মোট ৭১টি অধ্যায় আছে, যার প্রথম অংশ (অধ্যায় ১-৫১) যা ৭ম শতক এবং ৮ম শতকের প্রথম দিকে এবং এর দ্বিতীয় অংশ (অধ্যায় ৫২-৭১) ৮ম শতকের পরে রচিত হয়েছিল। একইভাবে সারাবলী ৮০০ খ্রিস্টাব্দের কাছাকাছি সময়ে রচিত হয়েছিল। এই গ্রন্থের ইংরেজি অনুবাদগুলি এন.এন কৃষ্ণ রাও এবং ভি.বি. চৌধুরী দ্বারা যথাক্রমে ১৯৬৩ এবং ১৯৬১ সালে প্রকাশিত হয়েছিল।

ইসলাম[সম্পাদনা]

৭ম শতাব্দীতে আরবদের কাছে আলেকজান্দ্রিয়া পতনের পর এবং ৮ম শতাব্দীর আব্বাসীয় সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠার পর জ্যোতিষশাস্ত্রটি গ্রহণ করেছিল । দ্বিতীয় আব্বাসীয় খলিফা আল মুনসুর (৭৫৪-৭৭৫) বাগদাদ শহরটিকে শিক্ষার একটি কেন্দ্র হিসেবে কাজ করার জন্য প্রতিষ্ঠা করেছিলেন যা বাইত আল-হিকমা 'উইসডম হাউস' নামে পরিচিত ছিল। তাছাড়া এটি তার উত্তরাধিকারীদের কাছ থেকে উন্নয়ন লাভ এবং হেলেনীয় জ্যোতিষশাস্ত্র গ্রন্থের আরবি-ফার্সি অনুবাদের জন্য একটি প্রধান অনুপ্রেরণা হিসাবে কাজ করেছিল। প্রথম অনুবাদক ছিলেন মাশাল্লা যিনি বাগদাদের ভিত্তির ক্ষেত্রে সময় বেছে নেওয়ার জন্য সাহায্য করেছিলেন এবং সাহল ইবন বিশার (এ.কে.এ জায়েল) যার গ্রন্থ ত্রয়োদশ শতাব্দীর পরে গুয়াদো বোনাত্তির মত ইউরোপীয় জ্যোতির্বিদদের উপর সরাসরি প্রভাব বিস্তার করেছিল এবং সপ্তদশ শতকের উইলিয়াম লিলি ছিল তাদের মধ্যে অন্যতম । দ্বাদশ শতকের লাতিন ভাষায় অনুবাদকালে আরবি গ্রন্থের জ্ঞান ইউরোপে আমদানি করা শুরু হয়েছিল।

ইউরোপ[সম্পাদনা]

ইউরোপে প্রকাশিত প্রথম জ্যোতির্বিজ্ঞান গ্রন্থটি ছিল লাইবার প্ল্যানেটিস এন্ড মুণ্ডি ক্লাইমাটিবাস ("গ্রহ এবং বিশ্বের অঞ্চলসমূহের পুস্তক"), যা ১০১০ এবং ১০২৭ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত হয়েছিল যা সম্ভবত ওরিল্যাকের জেরবার্ড দ্বারা রচনা করা হয়েছিল। টলেমীর দ্বিতীয় শতাব্দীর টেটরাবিবলস ১১৩৮ সালে টিভোলির প্লাতো দ্বারা ল্যাটিন ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছিল। ডোমিনিকান ধর্মতত্ত্ববিদ টমাস অ্যাকুইনাস অ্যারিস্টটলের অনুসরণ করে প্রস্তাব করেছিলেন যে, নক্ষত্ররা অসিদ্ধ 'স্বেচ্ছাসেবী' শরীর শাসন করে, তিনি মূলত ঈশ্বর যেমন আত্মার উপর শাসন করে তাকে খ্রিস্টধর্মের সাথে জ্যোতিষশাস্ত্রের সমন্বয় সাধন করার চেষ্টা করেছিলেন। ত্রয়োদশ শতকের গণিতবিদ নোয়াড়ার ক্যাম্পানোস জ্যোতিষশাস্ত্রীয় ঘরগুলির একটি ব্যবস্থার উদ্ভাবন করেছিলেন যেগুলি সর্বোচ্চ ৩০ ডিগ্রি সেন্টিমিটারের "ঘর "গুলির মধ্যে বিভক্ত করে যদিও আগেই এশিয়াতে সিস্টেমটি ব্যবহার করা হয়েছিল। ত্রয়োদশ শতকের জ্যোতির্বিজ্ঞানী গুইডো বোনাটি একটি পাঠ্যপুস্তক লিবার অ্যাস্ট্রোনোমিকস লিখেছিলেন, যার একটি কপি পঞ্চদশ শতাব্দীর শেষের দিকে ইংল্যান্ডের রাজা হেনরি সপ্তম অধিকার করেছিলেন ।

মধ্যযুগীয় আপত্তিসমূহ[সম্পাদনা]

সপ্তম শতাব্দীতে সেভিলের ইসিডোর তাঁর ইথাইমোলজিতে যুক্তি দিয়েছিলেন যে জ্যোতির্বিজ্ঞান আকাশের আন্দোলনকে বর্ণনা করেছিল, আর জ্যোতিষশাস্ত্রে দুটি অংশ ছিল: একটি ছিল বৈজ্ঞানিক যা সূর্য, চাঁদ এবং তারার গতিবিধি বর্ণনা করে, অন্যটি ভবিষ্যদ্বাণী তৈরি করে তত্ত্বগতভাবে ভুল ছিল। পক্ষান্তরে, চতুর্দশ শতাব্দীতে জন গওয়ার জ্যোতিষশাস্ত্রকে পূর্বাভাসের মধ্যে সীমিত হিসাবে নির্ধারণ করেছিলেন। তারার প্রভাবগুলি স্বাভাবিক জ্যোতিষশাস্ত্রে বিভক্ত করা হয়েছিল, উদাহরণস্বরূপ জোয়ার এবং গাছপালা বৃদ্ধির উপর প্রভাব এবং বিচার বিভাগীয় জ্যোতিষশাস্ত্রের সাথে মানুষের উপর অনুমিত পূর্বাভাসের প্রভাবগুলির বিষয় অন্যতম। চতুর্দশ শতাব্দীর সন্দেহভাজন নিকোল ওরেসমে জ্যোতির্বিজ্ঞানকে তাঁর Livre de divinacions জ্যোতিষশাস্ত্রের অংশ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন। ওরেসমে যুক্তি দেন যে প্লেগ, যুদ্ধ এবং আবহাওয়ার ঘটনাসমূহের ভিত্ততে ভবিষ্যতের পূর্বাভাস দেওয়া অনুপযুক্ত ছিল, কিন্তু এই ধরনের ভবিষ্যদ্বাণী তদন্তের একটি বৈধ ক্ষেত্র ছিল বলেও তিনি মনে করতেন। যাইহোক, তিনি কাজকর্মের সময় (তথাকথিত জিজ্ঞাসাবাদ ও নির্বাচন) নির্বাচন সম্পূর্ণরূপে মিথ্যা হিসাবে আক্রমণ করেছিলেন এবং স্বাধীন ইচ্ছার ভিত্তিতে মানুষের কর্ম তারা দ্বারা পরিচালিত হয় এই ধারণাকে প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। ফ্রিয়ার লরেন্স পিনগান (১৩৬৮-১৪৪৫ খ্রি।) অনুরূপভাবে তাঁর ১৪১১ কন্ট্রে লো ডিভাইনুরস-এ তারকাদের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত সব ধরনের বিভ্রান্তি এবং নিয়ন্ত্রকতাকেও প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। এটি আরব জ্যোতির্বিজ্ঞানী অ্যালবায়সার (৭৮৭-৮৮৬) দ্বারা পরিচালিত ঐতিহ্যের বিরোধিতা করে, জ্যোতির্বিজ্ঞান ও দ্য ম্যাগনিস কননিংটিবিস এর প্রবর্তনকারীটি এই মতামতকে যুক্তি দেয় যে, ব্যক্তিগত কর্ম এবং বৃহত্তর স্কেল উভয় ইতিহাসই তারকা দ্বারা নির্ধারিত হয়।

রেনেসাঁ এবং প্রারম্ভিক আধুনিক[সম্পাদনা]

রেনেসাঁ পণ্ডিতরা সাধারণত জ্যোতির্বিদ্যা অনুশীলন করেছিল। জেরোলামো কার্ডানো ইংল্যান্ডের রাজা এডওয়ার্ড ৬-এর জন্মপত্রিকা ছাপিয়েছিলেন, যখন ইংল্যান্ডের রাণী এলিজাবেথের ব্যক্তিগত জ্যোতির্বিদ ছিলেন জন ডি । ক্যাথেরিন ডি মেডিসি ১৫৬৬ খ্রিস্টাব্দে মাইকেল নস্ট্রাডামাসকে নিয়োগ করেছিলেন তার স্বামী ফ্রান্সের রাজা হেনরি দ্বিতীয় মৃত্যুর পূর্বাভাস যাচাই করার জন্য তখন তার জ্যোতিষী ছিল লুউস গৌরীস। প্রধান জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা যারা কোর্ট জ্যোতির্বিদ হিসেবে কাজ করতেন তারা ডেনমার্কের রাজকীয় আদালতে ট্যুকো ব্রাহে, হেসবুর্গের জোহানেস কেপলার, মেডিসির গ্যালিলিও গ্যালিলি এবং গিয়ার্ডানো ব্রুনোকে ১৬০০ খ্রিস্টাব্দে রোমে মর্যাদাহানি জন্য পুড়িয়ে মারা হয়েছিল। জ্যোতিষশাস্ত্র এবং জ্যোতির্বিদ্যার মধ্যে পার্থক্য সম্পূর্ণরূপে পরিষ্কার ছিল না। জ্যোতির্বিজ্ঞানের উন্নতি জ্যোতিষশাস্ত্রের নির্ভুলতর উন্নতি করার ইচ্ছা দ্বারা এর অগ্রগতি প্রায়ই অনুপ্রাণিত হয়।

জটিল জ্যোতিষশাস্ত্রীয় গণনাগুলির সাথে ইফিমারাইডস এবং আলমানাক ঔষধ ব্যবহারের মাধ্যমে ফসলের সময় বেছে নেওয়ার জন্য স্বর্গীয় ঘটনা ব্যাখ্যা করা হত, এলিজাবেথীয় ইংল্যান্ডে এই ব্যাবস্হা খুব জনপ্রিয় ছিল। ১৫৯৭ সালে ইংরেজ গণিতবিদ ও চিকিত্সক থমাস হুড একটি নির্দিষ্ট কাগজপত্র তৈরি করেন যা শিক্ষার্থীদের নক্ষত্রপুঞ্জ, মধ্যমার্হ্য এবং বারো জ্যোতির্বিদদের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপনের জন্য ব্যবহার করতে পারতো। হুডের উপকরণগুলিও শিক্ষাক্ষেত্রের জন্য চিত্রিত, রাশিচক্রের চিহ্ন, গ্রহ এবং মানুষের দেহের বিভিন্ন্ অংশ গ্রহ এবং চিহ্ন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় বলে বিশ্বাস করা হত। হুডের উপস্থাপনা উদ্ভাবনী ছিল, তার জ্যোতির্বিদ্যা সংক্রান্ত তথ্যটি মূলত ১৫৫১ সালে জেরার্ড মেরকাটরের জ্যোতির্বিদ্যা ডিস্ক থেকে নেওয়া হয়েছিল, অথবা মেরকাটরের দ্বারা ব্যবহৃত উৎস ছিল ঐটি।

ইংরেজ জ্যোতিষশাস্ত্র সপ্তদশ শতকের শেষ নাগাদ উন্নতির সর্বোচ্চ শিখ পৌঁছেছিল। জ্যোতির্বিদরা ছিলেন তত্ত্ববিদ, গবেষক, এবং সামাজিক প্রকৌশলী, পাশাপাশি তারা সবাইকে ব্যক্তিগত পরামর্শ প্রদান করতেন। অন্যান্য বিষয়ের মধ্যে জ্যোতিষীরা সর্বোত্তম সময়ে যাত্রা বা ফসল সংগ্রহ, শারীরিক বা মানসিক অসুস্থতা জনিত রোগ নির্ণয় এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগের পূর্বাভাস দিতে পারতো । এটি এমন একটি সিস্টেমকে চাপিয়ে দিয়েছিল যা সমস্ত মানুষ, বিশ্ব, মহাবিশ্ব আন্তঃসংযোগ রয়েছে বলে ধারনা করা হত, এবং জ্যোতিষশাস্ত্র ধর্ম, জাদু এবং বিজ্ঞানের সাথে সুস্পষ্টভাবে বিদ্যমান ছিল।

এ্যানলাইটেনমেন্টের সময় এবং পরে[সম্পাদনা]

এ্যানলাইটেনমেন্টের সময় জ্যোতিষশাস্ত্রের জন্য বুদ্ধিবৃত্তিক সহানুভূতি হ্রাস পেয়েছিল । এক ইংরেজ অ্যালমানাক কম্পাইলার, রিচার্ড সন্দার্স, জ্যোতিষশাস্ত্রের অদ্বিতীয়তার উপর একটি অদ্ভুত বক্তৃতা ছাপিয়ে ছিলেন যুগের প্রভাবে প্রভাবিত হয়ে, ফ্রান্সের পিয়ের বেইলের ১৬৯৭ এর ডিকশনারির বর্ণনায় বলা হয়েছিল যে এই বিষয়টি নিখুঁত ছিল। অ্যাংলো-আইরিশ স্যাটায়ারিস্ট জোনাথন সুইফট ওয়িং রাজনৈতিক জ্যোতির্বিদ জন পার্টিজ এর সমালোচনা করেছিলেন ।

জ্যোতিষশাস্ত্র উনিশ শতকের শুরুতে একটি প্রথাগত পুনর্জাগরণের অংশ হিসেবে নতুন যুগের দর্শন পেয়েছিল, যেমন গণমাধ্যমে মতামত প্রকাশের বাহক হিসাবে সংবাদপত্রের জন্মপত্রিকা হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছিল। বিংশ শতকের প্রথম দিকে মনোবিজ্ঞানী কার্ল জং জ্যোতিষশাস্ত্রে কিছু ধারণার উন্নয়ন করেছিলেন যা মনস্তাত্ত্বিক জ্যোতিষশাস্ত্রের বিকাশে নেতৃত্ব দিয়েছিল।

নীতি ও অনুশীলন[সম্পাদনা]

এডভোকেটরা জ্যোতিষশাস্ত্রকে প্রতীকী ভাষা, শিল্পকলা, বিজ্ঞান এবং ভবিষ্যৎবাণীর একটি পদ্ধতি হিসাবে নির্ধারণ করেছে। যদিও বেশিরভাগ সাংস্কৃতিক জ্যোতিষশাস্ত্র ব্যবস্থা প্রাচীন দর্শনের সাধারণ শিকড়কে শেয়ার করে যা একে অপরকে প্রভাবিত করে, তবে অনেকগুলির ব্যবহার পদ্ধতি পশ্চিমের লোকদের থেকে আলাদা। হিন্দু জ্যোতিষশাস্ত্র ("ভারতীয় জ্যোতিষশাস্ত্র" নামেও পরিচিত এবং আধুনিক সময়ে "বৈদিক জ্যোতিষশাস্ত্র" হিসাবে পরিচিত) এবং চীনা জ্যোতিষশাস্ত্র উভয়ই বিশ্বের সাংস্কৃতিক ইতিহাসকে প্রভাবিত করেছে।

পশ্চিমা বিশ্ব পাশ্চাত্য জ্যোতিষশাস্ত্র ভবিষ্যদ্বাণী সংক্রান্ত একটি ফর্ম যা একটি সঠিক মুহূর্তের জন্য একটি জন্মপত্রিকা নির্মাণের উপর ভিত্তি করে গড়ে ওঠেছে , যেমন একজন ব্যক্তির জন্ম হিসাবে। এটি গ্রীষ্মমন্ডলীয় রাশিচক্র ব্যবহার করে যা সমানুপাতিক বিন্দুগুলির সাথে সংযুক্ত।

পশ্চিমা জ্যোতিষশাস্ত্র মূলত সূর্য, চাঁদ এবং গ্রহগুলির মতো স্বর্গীয় সংস্থাগুলোর আপেক্ষিক অবস্থানের উপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠিত হয়, যা রাশিচক্রের চিহ্নগুলির মাধ্যমে তাদের আন্দোলন দ্বারা বিশ্লেষণ করে (মহাকর্ষের বারোটি স্থানিক বিভাগ) এবং তাদের দিক দিয়ে (জ্যামিতিক কোণগুলির উপর ভিত্তি করে) ) একে অপরের সাথে তুলনা করা হয় । তাদেরকে ঘরগুলিতে তাদের অবস্থান (আকাশের বারোটি স্থানিক বিভাগ) দ্বারাও বিবেচনা করা হয়। জ্যোতিষশাস্ত্রের পশ্চিমা জনপ্রিয় মিডিয়ার আধুনিক প্রতিনিধিত্ব সাধারণত সূর্যের চিহ্ন সংক্রান্ত জ্যোতিষশাস্ত্র কম ব্যবহার করে যা শুধুমাত্র একজন ব্যক্তির জন্মের সাথে সূর্যের রাশিচক্রের চিহ্নকে বিবেচনা করে যা মোট তালিকার মাত্র ১/২ প্রতিনিধিত্ব করে।

জন্মপত্রিকা দৃশ্যত নির্বাচিত ইভেন্ট সময় এবং স্থান জন্য সম্পর্ক সেট প্রকাশ করে। এই সম্পর্কগুলি সাত গ্রহের মধ্যে হয় যা​​যুদ্ধ এবং প্রেমের প্রবণতা ইঙ্গিত করে ; রাশিচক্রের বারোটি লক্ষণ আছে এবং বারোটি ঘর প্রতিটি গ্রহের একটি নির্দিষ্ট সাইন বহন করে এবং নির্বাচিত সময়ে একটি বিশেষ ঘর থাকে তাদেরকে নির্বাচিত স্থান থেকে দেখা যায়, তারা মূলত দুই ধরনের সম্পর্ক তৈরি করে। তৃতীয় ধরনের দৃষ্টিভঙ্গি প্রতিটি গ্রহের জন্য প্রতিটি গ্রহের, উদাহরণস্বরূপ দুটি গ্রহের মধ্যে ১২০° ব্যবধান ('ট্রেনে') হলে তাদের মধ্যে ভাল সম্পর্ক রয়েছে বলে ধারণা করা হয়, তবে ৯০° ব্যবধানে ('বর্গ') হলে মনে করা হয় তাদের মধ্যে বৈপ্লবিক সম্পর্ক রয়েছে । একসাথে মধ্যে এই সম্পর্ক এবং তাদের ব্যাখ্যানুসারে "... স্বর্গের ভাষা শিক্ষিত পুরুষদের সাথে কথা বলা বুঝায়।"

টারোট ভবিষ্যদ্বাণীর সঙ্গে জ্যোতিষশাস্ত্র পশ্চিমা বিশিষ্টতাগুলির অধ্যয়নের অন্যতম বিষয় । জাদুকরি বিশ্বাসের সিস্টেম শুধুমাত্র পশ্চিমা বিশিষ্টতাবাদীদের এবং হেম্যাটিকস্টদের প্রভাবিত করেনি, যেমন উইকিকা বিশ্বাসের সিস্টেম পাশ্চাত্য ইসোটেরিক ঐতিহ্য দ্বারা প্রভাবিত হয়েছে । তানিয়া লুহ্রমান বলেছেন যে, "সকল যাদুকর জ্যোতিষশাস্ত্র সম্পর্কে কিছু জানেন" এবং জাদুকরদের দ্বারা জ্যোতিষশাস্ত্র অধ্যয়নের একটি উদাহরণ হিসাবে গ্রহ দ্বারা আয়োজিত স্টারহোকের দ্য স্পাইরাল ডান্স-এর বর্ণচ্যুতির একটি সারণির কথা বলা যায়।

হিন্দু জ্যোতিষশাস্ত্র[সম্পাদনা]

বৈদিক জ্যোতিষের যে পরিবর্ধন, প্রসারণ ও সংযোজন ভারতীয় উপমহাদেশে ঘটেছে মুলতঃ তাই হিন্দু জ্যোতিষশাস্ত্র হিসাবে পরিচিত হয়। পরবর্তীকালে গ্রীক প্রভাব হিন্দু জ্যোতিষের উপর বিশেষভাবে পরিলক্ষিত হয়। গ্রীক প্রভাবের পুর্বে হিন্দু জ্যোতিষ মুলতঃ নক্ষত্রভিত্তিক ছিল। গ্রীক প্রভাবে রাশিচক্রভিত্তিক জ্যোতিষ বিচার গুরুত্ব পেতে শুরু করে। তৎসত্ত্বেও অয়নাংশের ব্যবহার হিন্দু জ্যোতিষের এক বিশেষত্ব যা গ্রীক জ্যোতিষে অনুপস্থিত ছিল।[২] ভারতীয় কৌশলগুলির সাথে ব্যাবিলনের কিছু কৌশল সংযোজিত হতে পারে।

হিন্দু জ্যোতিষের বিভিন্ন শাখা আছে। এই শাখাগুলির নাম অনেকক্ষেত্রে প্রবর্তকের নাম নামানুসারে হয়েছে। পরাশর, জৈমিনি, নাড়ী, কৃষ্ণমূর্তি পদ্ধতি এবং লালকিতাব বহুব্যবহৃত কিছু পদ্ধতি। এর মধ্যে পরাশর পদ্ধতি প্রাচীন ঋষি পরাশর, জৈমিনি পদ্ধতি ঋষি জৈমিনি, এবং কৃষ্ণমূর্তি পদ্ধতি বিখ্যাত জ্যোতিষী কে এস কৃষ্ণমূর্তির (১৯০৮-১৯৭২) নামানুসারে নামকরণকৃত। নাড়ীজ্যোতিষ বহু ঋষির দ্বারা প্রণীত। অবশ্য ঋষি অগস্ত্য ছিলেন এর মূখ্য প্রণেতা। পারস্য দেশে লালকিতাবের সৃষ্টি কিন্তু এর ভিত্তি হিন্দু জ্যোতিষ। এটি পাঁচটি বইয়ের সংগ্রহ। এর প্রণেতার নাম নিশ্চিতরুপে জানা যায় না। এছাড়াও সামুদ্রিক জ্যোতিষ, জ্যোতিষের এক শাখা যা শারীরিক চিহ্নবিচার করে ভবিষ্যদ্বানী করতে ব্যবহৃত হয়। এটিরও কোন একক প্রণেতা নেই। হস্তরেখাবিদ্যা বা হস্তসামুদ্রিক বিদ্যা এরই একটি প্রশাখা।

চীনা এবং ইস্ট-এশিয়ান জ্যোতিষশাস্ত্র[সম্পাদনা]

চীনা দর্শনের সঙ্গে চীনা জ্যোতিষশাস্ত্রের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে (তিনটি ঘনিষ্ঠ সম্পর্কযুক্ত তত্ত্ব: স্বর্গ, পৃথিবী এবং মানুষ) এবং কিছু ধারণা ব্যবহার করে, যেমন- যিন এবং ইয়াং, পাঁচটি ধাপ, ১০টি সিলিসশিয়াল শাখা, ১২টি পৃথিবী সংক্রান্ত শাখা এবং শিসেন (時辰 একটি ধর্মীয় উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা সময় নিয়ন্ত্রণের ফর্ম)। চীনা জ্যোতিষশাস্ত্রের প্রাথমিক ব্যবহার মূলত রাজনৈতিক জ্যোতিষশাস্ত্র, অস্বাভাবিক ঘটনা পর্যবেক্ষণ, ঘটনাগুলির সনাক্তকরণ এবং ঘটনাবলী ও সিদ্ধান্তের জন্য শুভদিনের নির্বাচনকে সীমিত করে রেখেছিল।

পশ্চিম এশিয়া এবং ইউরোপের রাশিচক্রের নক্ষত্রপুঞ্জ ব্যবহার করা হয়নি; পরিবর্তে আকাশকে তিনটি পরিবেষ্টনে, যেমন- (三 垣 সান ইয়ুয়ান) এবং আটাইশ ম্যানসন (二十八宿 èrshíbā xiù) বারো সি (十二次) বিভক্ত করা হয়েছিল। বারোটি পশু লক্ষণের চীনা রাশিচক্রটি বারোটি ভিন্ন ধরনের ব্যক্তিত্বের প্রতিনিধিত্ব করে। এটি বছরের পরিক্রমণ, চন্দ্র মাস, এবং দিনের দুই ঘণ্টা (shichen) উপর ভিত্তি করে তৈরি করে করা হয়েছে । রাশিচক্র ঐতিহ্যগতভাবে ইঁদুরের চিহ্নের মাধ্যমে শুরু হয় তারপর ১১টি অন্যান্য প্রাণীদের মাধ্যমে চক্রাকারে অগ্রসর হয়: ষাঁড়, বাঘ, খরগোশ, ড্রাগন, স্নেক, ঘোড়া, ছাগল, বানর, কুক্কুট, কুকুর এবং হাঁস। একজনের জন্মদিন, জন্ম ঋতু এবং জন্ম ঘণ্টা, যেমন জিপিং এবং জি ওয়েই ডু শু (সরলীকৃত চীনা: 紫微斗数; ঐতিহ্যগত চীনা: 紫微斗數; পিনয়িন: ঝুয়েদুশু) এর উপর ভিত্তি করে ভাগ্য ও ভাগ্যের পূর্বাভাসের জটিল পদ্ধতি এখনও আছে যা আধুনিক দিনের চীনা জ্যোতিষশাস্ত্রে নিয়মিত ব্যবহার করা হয়। তারা সরাসরি পর্যবেক্ষণের উপর নির্ভর করে না। [101]

কোরিয়ান রাশিচক্র চীনা থেকে অভিন্ন। ভিয়েতনামি রাশিচক্র অন্য প্রজাতির ব্যতীত চীনা রাশিচক্রের প্রায় অনুরূপ তবে তারা ষাঁড়ের পরিবর্তে ওয়াটার বাফেলো এবং চতুর্থ প্রাণীটি হল খরগোশের পরিবর্তে বিড়াল ব্যবহার করে। ১৮৭৩ সাল থেকে জাপানীরা গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ১লা জানুয়ারিকে নতুন বছরের শুরু হিসাবে পালন করে আসতেছে ।

ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গি[সম্পাদনা]

প্রাচীন[সম্পাদনা]

সেইন্ট অগাস্টিন (৩৫৪-৪৩০) বিশ্বাস করতেন যে জ্যোতিষশাস্ত্রের নিয়ন্ত্রকতা মানুষের স্বাধীন ইচ্ছার এবং দায়িত্বের সাথে খৃস্টান ধর্মতত্ত্বের বিরোধিতা আছে এবং ঈশ্বর মন্দতার কারণ হয় না । কিন্তু তিনি তাঁর বিরোধিতাকে দার্শনিকতার উপর ভিত্তি দান করেছিলেন, ব্যর্থতার কথা উল্লেখ করে জ্যোতির্বিজ্ঞানকে ব্যাখ্যা করার কথা বলেছেন যাকে একই সময়ে কল্পনা করা যায় এবং প্রায় একই সময়ে জন্মগ্রহণ করে যদিও তারা ভিন্নভাবে আচরণ করে।

মধ্যযুগীয়[সম্পাদনা]

মধ্যযুগীয় মুসলিম জ্যোতির্বিদরা যেমন- আল-ফারাবি (আলফাররাবিয়াস), ইবনে আল-হায়থাম (আলহাজেন) এবং আভিসিনা জ্যোতির্বিদ্যা নিয়ে সমালোচনা করেছিলেন । তারা বলেছিলেন যে জ্যোতিষীদের পদ্ধতিগুলি ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গির সাথে বিরোধী সম্পন্ন । ইসলামী পণ্ডিতরা পরামর্শ দেন যে, ঈশ্বরের ইচ্ছা জানা যায় এবং আগাম পূর্বাভাস দেয়া যেতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, আভিসিনার 'জ্যোতিষশাস্ত্রের বিরুদ্ধে রেফারেন্স', রিসাল্লা ফী ইবটাল আকম আল-নূজুম, জ্যোতিষশাস্ত্রের অনুশীলন নিয়ে যুক্তি দেন যেখানে তিনি এই নীতিটিকে সমর্থন করেন, যেমন গ্রহগুলি ঐশ্বরিক কাজের এজেন্ট হিসাবে কাজ করতে পারে। আভিসিনা বিবেচনা করেন যে গ্রহের আন্দোলন পৃথিবীর উপর একটি নির্ধারিত পদ্ধতিতে জীবনকে প্রভাবিত করতে পারে, কিন্তু তারার সঠিক প্রভাব নির্ধারণের সম্ভাবনা সম্পর্কে তিনি সন্দিহান। মূলত, আভিসিনা জ্যোতিষশাস্ত্রের মূল অস্তিত্বকে অস্বীকার করেনি, কিন্তু আমাদের এটিকে বুঝার ক্ষমতাকে অস্বীকার করেছিলেন, যেমন এটি থেকে সুনির্দিষ্ট এবং বৈশ্বিক ভবিষ্যদ্বাণী করা যেতে পারে। ইবনে কাইয়িম আল-জাওজিয়া (১২৯২-১৩৫০) তাঁর মিফ্টা দার আল-সাকাদাহেও জ্যোতির্বিজ্ঞানে শারীরিক আর্গুমেন্ট ব্যবহার করে বিচারিক জ্যোতিষের অনুশীলন সম্পর্কে প্রশ্ন উত্থাপন করেছিলেন। তিনি স্বীকার করেন যে তারাগুলি গ্রহের চেয়ে অনেক বড় এবং যুক্তি দেখান যে:

এবং যদি আপনারা জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা এর উত্তর দেন যে এই দূরত্ব এবং ছোটো হওয়ার কারণে তাদের প্রভাব অপ্রতিরোধ্য হয়, তাহলে কেন আপনারা বুধের মত ক্ষুদ্রতম গ্রহের উপর বড় প্রভাব কিভাবে দাবি করেন ? কেন আপনারা আল-রা ও আল-ধানবের উপর প্রভাব দিয়েছেন, যা হল দুটি কাল্পনিক পয়েন্ট [ঊর্ধ্বগামী এবং নিম্নগামী নড]? ইবনে কাইয়িম আল-জাওজিয়া

আধুনিক[সম্পাদনা]

ক্যাথলিক চার্চের ক্যাথিসিজম জ্যোতিষশাস্ত্র সহ ভবিষ্যদ্বাণী মেনে চলে যা আধুনিক ক্যাথলিক বিশ্বাসের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় যেমন মুক্ত ইচ্ছা:

সব ধরনের ভবিষ্যদ্বাণী প্রত্যাখ্যান করা হবে: শয়তান বা দুষ্টদের আশ্রয় গ্রহণ করা, মৃত বা অন্যান্য চর্চার মাধ্যমে ভবিষ্যতকে "উন্মোচন করা" । রাশিচক্রের পরামর্শ গ্রহণ করা, জ্যোতিষশাস্ত্র, হাত দেখানো, ভাগ্যের ব্যাখ্যা দেয়া , কৈশোরের ঘটনা, এবং মাধ্যমগুলির সব সময় অবলম্বন , ইতিহাস, এবং শেষ বিশ্লেষণ করা , অন্যান্য মানুষের মধ্যে ক্ষমতা লুকিয়ে রাখার ইচ্ছা পোষণ করা । তারা সম্মান, শ্রদ্ধা এবং ভালবাসার ভয়কে সমালোচিত করে যে আমরা কেবল ঈশ্বরের কাছে ঋণী।

- ক্যাথলিক চার্চের ক্যাথিসিজম

বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণ এবং সমালোচনা[সম্পাদনা]

বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায় জ্যোতিষশাস্ত্রকে প্রত্যাখ্যান করেছে কারণ এটি মহাবিশ্বের বর্ণনা দেওয়ার বা ব্যাখ্যা করার ক্ষমতা রাখেনা, একে তারা ছদ্মবিজ্ঞান হিসাবে বিবেচনা করে। ১৩৫০ সালে জ্যোতিষশাস্ত্রের উপর বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা পরিচালিত হয়েছে এবং জ্যোতিষশাস্ত্রীয় ঐতিহ্যের মধ্যে বর্ণিত কোনও প্রাঙ্গণ বা কাঙ্ক্ষিত প্রভাবকে সমর্থন করার মত কোন প্রমাণ পাওয়া যায় নি । এমন কোন প্রস্তাবিত প্রক্রিয়া নেই যার দ্বারা গ্রহ ও গ্রহের অবস্থান এবং গতিসম্পন্ন মানুষ এবং পৃথিবীর ঘটনাগুলিকে প্রভাবিত করতে পারে, তাছাড়া তারা জীববিদ্যা এবং পদার্থবিজ্ঞানের মৌলিক দিকগুলি পূরণ করেনা: যারা জ্যোতিষশাস্ত্রে বিশ্বাস রাখে তারা এভাবেই "... এভাবেই বিশ্বাস করে যদিও তাদের বিশ্বাসের জন্য কোনও বৈধ বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই এবং প্রকৃতপক্ষে তা শক্তিশালী প্রমাণের বিপরীত । "

নিশ্চিতকরণ পক্ষপাত জ্ঞানীয় পক্ষপাতের একটি ফর্ম, একটি মনস্তাত্ত্বিক কারণ যা জ্যোতিষশাস্ত্রে বিশ্বাস করাতে ভূমিকা রাখে। জ্যোতির্বিদ্যা বিশ্বাসী ঐরকম ভবিষ্যদ্বাণীগুলোকে মনে রাখে যা সত্য হতে পারে, এবং যা ভ্রান্তি ঘটিয়েছে তারা তা মনে রাখবেন না। আরেকটি পৃথক নিশ্চিতকরণ পক্ষপাতের ফর্মটিও ভূমিকা পালন করে, যেখানে বিশ্বাসীরা প্রায়ই এমন বার্তাগুলির মধ্যে পার্থক্য করতে ব্যর্থ হয় যা বিশেষ ক্ষমতা প্রদর্শন করে না। এইভাবে দুটি স্বতন্ত্র প্রমাণ রয়েছে যার মধ্যে রয়েছে নিম্নমানের পক্ষপাত সহ জ্যোতিষশাস্ত্রের বিশ্বাসের সাথে এগুলোকে অধ্যয়ন করা হয়।

সীমানির্দেশক[সম্পাদনা]

জালিয়াতির মানদণ্ডের অধীনে বিজ্ঞানের দার্শনিক কার্ল পপার প্রথম জ্যোতিষশাস্ত্রকে একটি ছদ্মবিজ্ঞান হিসাবে প্রস্তাব করেছেন । পপার জ্যোতিষশাস্ত্রকে "ছদ্ম-অভিজ্ঞতাগত" হিসেবে বিবেচনা করেন "এটি পর্যবেক্ষণ ও গবেষণার জন্য আবেদন করে" কিন্তু "তবুও বৈজ্ঞানিক মান পর্যন্ত আসেনি।" বৈজ্ঞানিক অনুষদের বিপরীতে, জ্যোতিষশাস্ত্র পরীক্ষার মাধ্যমে জালিয়াতির প্রমাণ করার কোন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেনি।

পপারের বিপরীতে, দার্শনিক থমাস কোহেন যুক্তি দেন যে এর জালিয়াতির কোন অভাব ছিল না যা জ্যোতিষশাস্ত্রকে বিজ্ঞানসম্মত না বলে ধারণা করা হয় বরং জ্যোতিষশাস্ত্রের প্রক্রিয়া ও ধারণা অ-প্রযোজ্য ছিল। কোহেন মনে করেছিলেন, যদিও জ্যোতিষ-শাস্ত্রবিদরা ঐতিহাসিকভাবে ভবিষ্যদ্বাণীগুলি করেছিলেন কিন্তু ব্যর্থ হয়েছিল, এটি নিজেই নিজেকে অবৈজ্ঞানিক বানায়নি বা জ্যোতিষীরা একটি জন্মপত্রিকা তৈরির দাবি করে তারর ব্যর্থতা ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করেননি । বরং, কোহেনের চোখে, জ্যোতিষশাস্ত্র বিজ্ঞান নয় কারণ এটি মধ্যযুগীয় ঔষধের তুলনায় সবসময়ই বেশি; তারা সুপরিচিত দুর্বলতাগুলির সাথে প্রত্যক্ষভাবে প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রের নিয়ম এবং নির্দেশাবলী অনুসরণ করেছিল, কিন্তু তারা কোন গবেষণা করে নি, কারণ ক্ষেত্রগুলি গবেষণার যোগ্য ছিলনা, এবং " তাদের কোনও সমস্যা সমাধান করার কোন জামেলা ছিলনা এবং কোন বিজ্ঞান ছিলনা অনুশীলন করা জন্য "। একজন জ্যোতির্বিজ্ঞান ব্যর্থতার জন্য সঠিক হতে পারে, তবে একজন জ্যোতিষী তা পারে না। একজন জ্যোতিষী কেবল ব্যর্থতা ব্যাখ্যা করতে পারে কিন্তু অর্থপূর্ণভাবে জ্যোতিষশাস্ত্রের অনুমানকে পুনর্বিবেচনা করতে পারে না। যেমন, কোহেনের মতে যদিও নক্ষত্ররা মানুষের জীবনধারার পথকে প্রভাবিত করতে পারে তবুও জ্যোতিষশাস্ত্র বৈজ্ঞানিক নয়।

দার্শনিক পল থাগার্ড বলছেন যে জ্যোতিষশাস্ত্রটি এই অর্থে প্রতারণা হিসাবে বিবেচিত হবে না যতক্ষণ না এটি একটি উত্তরাধিকারী দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়। ভবিষ্যদ্বাণীমূলক আচরণের ক্ষেত্রে মনোবিজ্ঞানকে বিকল্প হিসাবে ধরা যেতে পারে। থাগার্ড এর মতে বিজ্ঞানকে ছদ্মবিজ্ঞানে বিভাজন করার আরেকটি নির্ণায়ক হল যে শিল্পের বিষয়গুলোকে অবশ্যই অগ্রগতি সম্পন্ন হতে হবে এবং গবেষক সম্প্রদায়কে চেষ্টা করা উচিত বর্তমান তত্ত্বকে বিকল্পগুলির সাথে তুলনা করার, এবং "নিশ্চিতকরণ এবং অনিশ্চিতকরণে বিষয়ে বিবেচ্য নয়।" এখানে নতুন ঘটনা ব্যাখ্যা করার এবং বিদ্যমান সমস্যার সমাধান হিসাবে অগ্রগতিটি সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে, তবে জ্যোতিষশাস্ত্র শুধুমাত্র সামান্য পরিবর্তনের সাথে অগ্রগতিতে ব্যর্থ হয়েছে প্রায় ২০০০ বছর। থাগার্ড এর মতে জ্যোতিষীরা যারা সাধারণ বিজ্ঞানের সাথে কাজ করে তারা বিশ্বাস করে যে জ্যোতিষশাস্ত্রের ভিত্তিগুলোর সবই প্রতিষ্ঠিত যদিও "অনেক সমস্যাই অমীমাংসিত" এবং উন্নততর বিকল্প তত্ত্ব হিসাবে মনোবিজ্ঞানের উপর তিনি জোর দিয়েছেন । এই কারণগুলির জন্য থাগার্ড জ্যোতিষশাস্ত্রকে ছদ্মবিজ্ঞান হিসাবে মনে করেন।

কার্যকারিতা[সম্পাদনা]

জ্যোতিষশাস্ত্র কোন নিয়ন্ত্রিত গবেষণায় তার কার্যকারিতা প্রদর্শন করেনি এবং তার কোন বৈজ্ঞানিক বৈধতা নেই। নিয়ন্ত্রিত অবস্থার প্রেক্ষিতে একটি ভ্রান্ত পূর্বাভাস দেয়া হয়েছিল এবং ঐটি মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছিল। একটি বিখ্যাত গবেষণায় ২৮ জন জ্যোতিষী অন্তর্ভুক্ত ছিলেন যাদেরকে ক্যালিফোর্নিয়া সাইকোলজিক্যাল ইনভেন্টরি (সিপিআই) দ্বারা উৎপন্ন মনস্তাত্ত্বিক প্রোফাইলগুলিতে একশত জন্মবার্ষিকী চার্টের সাথে মিলাতে প্রশ্ন করা হয়েছিল। এই গবেষণায় ব্যবহৃত ডাবল-অন্ধ পরীক্ষামূলক প্রোটোকলটি পদার্থবিদদের একটি গ্রুপ এবং জ্যোতির্বিদদের একটি দল দ্বারা মনোনীত হয়েছিল, যারা গিওোকোম্মিক রিসার্চের ন্যাশনাল কাউন্সিলের দ্বারা মনোনীত, যারা পরীক্ষাগারকে পরামর্শ দিয়েছিল যে পরীক্ষাটি যথাযথ ছিল কিনা তা যেন নিশ্চিত করে : এবং পরীক্ষায় উত্তীর্ণ জ্যোতিষশাস্ত্রের কেন্দ্রীয় প্রস্তাবটি যেন সার্থক হতে সাহায্য করে। পরীক্ষার জন্য ২৮ জন জ্যোতিষীদের মধ্যে ২৬ জনকে বেছে নিয়েছিল (পরবর্তীতে আরও দুটি স্বেচ্ছাসেবী)। ১৯৮৫ সালে প্রকৃতিতে প্রকাশিত গবেষণায় দেখা গেছে যে, জন্মগত জ্যোতিষশাস্ত্রের উপর ভিত্তি করে ভবিষ্যদ্বাণী সুযোগের চেয়ে ভাল ছিল না এবং পরীক্ষাটি "... পরিষ্কারভাবে জ্যোতিষশাস্ত্রগত অনুমানকে প্রত্যাখ্যান করেছিল"।

১৯৫৫ সালে জ্যোতিষবিদ এবং মনোবিজ্ঞানী মাইকেল গাকুইলিন বলেছিলেন যে যদিও তিনি জ্যোতিষশাস্ত্রের জ্যোডিকাল লক্ষণ এবং গ্রহের মধ্যে প্রত্যক্ষ প্রমাণ খুঁজে পেতে ব্যর্থ হয়েছেন, তিনি কিছু গ্রহের দৈনিক অবস্থানের মধ্যে ইতিবাচক পারস্পরিক সম্পর্ক খুঁজে পাননি যা ঐতিহ্যগতভাবে যে জ্যোতিষশাস্ত্রের সাথে সম্পর্কযুক্ত সেই গ্রহগুলির কথা বলা হত। গৌকুইলিনের সেরা আবিষ্কার হল মঙ্গলের অবস্থানের উপর ভিত্তি করে সফল অ্যাথলেটিকদের নৃতাত্ত্বিক চার্টটি যা মঙ্গলের প্রভাব হিসাবে পরিচিত হয়ে ওঠেছিল। সাত ফরাসি বিজ্ঞানী দ্বারা পরিচালিত একটি গবেষণায় দাবির প্রতিলিপি বের করার চেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু পরিসংখ্যানগত কোন প্রমাণ পাওয়া যায় নি । তারা করার অভিযোগে, গৌকুইলিনের এর অংশ উপর পক্ষপাতের অভিযোগ করেছিলেন যে তিনি তাদের গবেষণা থেকে নাম যোগ বা মুছে ফেলার জন্য প্রয়াস চালিয়েছিলেন ।

জিওফ্রে ডিন বলেছেন যে গুকুইলিনের গবেষণার সাথে কোনও সমস্যা ছাড়াই পিতা-মাতার জন্ম তারিখগুলির আত্ম-রিপোর্টিংয়ের কারণে প্রভাবটি হতে পারে। এই পরামর্শটি হল যে, বাবা-মায়ের একটি ছোট বিষয়ে জন্মগত পরিবর্তনগুলি হয়তো কোনও প্রাসঙ্গিক পেশার জন্য ভাল জ্যোতিষ শাস্ত্রের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে পারে। নমুনা গ্রুপ একটি সময় থেকে নেওয়া হয়েছিল যেখানে জ্যোতিষশাস্ত্রে বিশ্বাস আরও সাধারণ ছিল। গৌকুইলিন আরও সাম্প্রতিক জনসংখ্যার মধ্যে মঙ্গলের প্রভাব খুঁজে পেতে ব্যর্থ হয়েছেন যেখানে একজন নার্স বা ডাক্তার জন্ম তথ্য রেকর্ড করেছিলেন। জ্যোতিষশাস্ত্র অনিয়মিত অবস্থার অধীনে জন্মের সংখ্যাও কম ছিল যা প্রমাণ করে যে বাবা-মা তাদের বিশ্বাসের জন্য তারিখ ও সময় বেছে নেয়।

প্রক্রিয়া এবং সঙ্গতির অভাব[সম্পাদনা]

জ্যোতিষশাস্ত্রের বৈধতা পরীক্ষা করা কঠিন হতে পারে কারণ জ্যোতিষবিদদের মধ্যে জ্যোতিষশাস্ত্র কী বা এটি কী ভবিষ্যদ্বাণী করতে পারে এই ব্যাপারে কোনও ঐক্য নেই । অধিকাংশ পেশাদার জ্যোতিষীদের ভবিষ্যতের পূর্বাভাস দিতে বা ব্যক্তির ব্যক্তিত্ব ও জীবনকে বর্ণনা করার জন্য অর্থ প্রদান করতে হয়, কিন্তু সর্বাধিক পঞ্জিকাগুলি কেবল অস্পষ্ট বিবৃতি প্রদান করে যা প্রায় যে কারো ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা যেতে পারে।

অনেক জ্যোতিষশাস্ত্রবিদ দাবি করেন যে জ্যোতিষশাস্ত্র বিজ্ঞানসম্মত, কেউ কেউ ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিজম এবং মাধ্যাকর্ষণের মত প্রচলিত কার্যকরী এজেন্টদের কথা প্রস্তাব করেছেন। উদাহরণস্বরূপ, বিজ্ঞানীরা এই পদ্ধতিগুলিকে অকল্পনীয় বলে প্রত্যাখ্যান করেছেন, উদাহরণস্বরূপ, মহাকর্ষীয় ক্ষেত্রটি যখন পৃথিবী থেকে বড় বা দূরবর্তী গ্রহের মত যেমন বৃহস্পতি সাধারণ গৃহস্থালি যন্ত্রপাতির দ্বারা মাপা হয়।

পশ্চিমা জ্যোতিষশাস্ত্র টলেমীর আলমাগেস্ট থেকে পৃথিবীর আহ্নিক গতি, মেষরাশির প্রথম দিক যার মধ্য দিয়ে জ্যোতিশাস্ত্রের বছর শুরু হয় ধারাবাহিকভাবে তারা পটভূমির বিরুদ্ধে যায়। গ্রীষ্মমন্ডলীয় রাশিচক্রের সাথে নক্ষত্রের কোন সম্পর্ক নেই এবং যতদিন না কোনও দাবী করা হয় যে নক্ষত্রপুঞ্জগুলি সংশ্লিষ্ট সংকেতগুলির সাথে সম্পর্ক রয়েছে এবং জ্যোতিষশাস্ত্রবিদরা এই ধারণাকে এড়ানো থেকে বিরত রাখে যে আহ্নিক গতি আপাতদৃষ্টিতে নক্ষত্রপুঞ্জে চলে আসে। চরপাক এবং ব্রচ গ্রীষ্মমন্ডলীয় রাশিচক্রের উপর ভিত্তি করে জ্যোতিষশাস্ত্র সম্পর্কে বলেছেন যে"... খালি বাক্সে যা কিছু করার কিছুই নেই এবং তারা কোনও ধারাবাহিকতা বা নক্ষত্রের সাথে সম্পর্কযুক্ত নয়।" একমাত্র গ্রীষ্মমন্ডলীয় রাশিচক্র ব্যবহার করা হয় একই জ্যোতিষী দ্বারা যা সূর্যের যুগের সূত্রের সাথে সঙ্গতিহীন এবং বায়ুসংক্রান্ত বিন্দুটি কুম্ভরাশিদের নক্ষত্রে প্রবেশ করে তার উপর নির্ভর করে।

জ্যোতিষীরা সাধারণত জ্যোতির্বিজ্ঞানের ব্যাপারে ভাল জ্ঞান রাখেন না এবং প্রায়ই মৌলিক নীতিগুলি অনুসরণ করেন না -যেমন- আহ্নিক গতির প্রভাব যা সময়ের সাথে সূর্যের অবস্থান পরিবর্তন করে। তারা এলিজাবেথ টিসিয়ারের উদাহরণে মন্তব্য করেছেন, যিনি দাবি করেছিলেন যে, "প্রতি বছর একই তারিখে সূর্য একই জায়গায় আকাশে উদিত হয়", কারণ একই জন্মদিনে দুইজন মানুষ জন্মগ্রহণ করতে পারে যদিও তাদের মধ্যে বছর নিয়ে অনেক ব্যবধান থাকতে পারে তবে তারা একই গ্রহের প্রভাবের অধীন হওয়া উচিত বলে তিনি মনে করেন। চরপাক এবং ব্রচ লক্ষণীয় যে, "দুই বছরের মধ্যে কোন নির্দিষ্ট তারিখে পৃথিবীর অবস্থানের মধ্যে প্রায় বিশ হাজার মাইলের পার্থক্য আছে", এবং এইভাবে তারা জ্যোতিষশাস্ত্র অনুযায়ী একই প্রভাবের অধীন করা উচিত নয়। প্রায় ৪০ বছর ধরে ৭৮০,০০০ মাইলেরও বেশি পার্থক্য থাকবে।

সাংস্কৃতিক প্রভাব[সম্পাদনা]

পশ্চিমা রাজনীতি ও সমাজ পশ্চিমে রাজনৈতিক নেতাদের কখনও কখনও জ্যোতির্বিদদের পরামর্শ নিতে দেখা গেছে। উদাহরণস্বরূপ, ব্রিটেনের গোয়েন্দা সংস্থা এমআই৫ একজন জ্যোতিষী হিসেবে লুইস ডে ওয়াওলকে নিয়োগ দিয়েছিল, তিনি দাবি করেন যে, অ্যাডলফ হিটলার তার কর্মের সময় জ্যোতিষশাস্ত্র ব্যবহার করেছিলেন। যুদ্ধক্ষেত্র ছিল "... জানতে চাইতো হিটলারের নিজের জ্যোতিষীরা প্রতি সপ্তাহে তাকে কি বলবে।" বস্তুত, ওয়াওল এর ভবিষ্যদ্বাণী এতটাই অস্পষ্ট ছিল যে তাকে শীঘ্রই "সম্পূর্ণ চারলাটান" এবং পরে প্রমাণ দেখিয়েছেন যে হিটলার জ্যোতিষশাস্ত্রকে "সম্পূর্ণ নোংরাবাদী" বলে মনে করতেন। জন হিনকেনের দ্বারা মার্কিন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যানকে হত্যার চেষ্টা করার পর প্রথম নারী ন্যান্সি রিগ্যান জ্যোতিষী জোয়ান কুইগেলিকে গোপনে হোয়াইট হাউসের জ্যোতিষী হিসেবে কাজ করার জন্য নিয়োগ করেছিলেন। যাইহোক, ২০০৭ সালে কুইগলের ভূমিকাটি শেষ হয়ে গিয়েছিল যখন সাবেক প্রধান স্টাফ ডোনাল্ড রিগ্যানের স্মৃতিকথায় এটি প্রকাশ পেয়েছিল।

১৯৬০-এর দশকের শেষের দিকে জ্যোতিষশাস্ত্রের প্রতি ভাল আগ্রহ ছিল। সমাজতত্ত্ববিদ মার্সেলো ট্র্রজী "জ্যোতিষ-বিশ্বাসিদের" জড়িত থাকার তিনটি স্তরের কথা বলেছিলেন, বৈজ্ঞানিক পুনর্বিবেচনার মুখে তার পুনর্জাগরিত অজনপ্রিয়তাকে দায়ী করেছিলেন। তিনি দেখতে পেয়েছিলেন যে, অধিকাংশ জ্যোতিষ-বিশ্বাসীরা এই দাবি করেননি যে এটি ছিল একটি ভবিষ্যদ্বাণীপূর্ণ শক্তিশালী বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা। এর পরিবর্তে, যারা জ্যোতিষশাস্ত্রের 'মেকানিক্স' সম্পর্কে কোন কিছুই জানেনা তারা সংবাদপত্রের রাশিচক্র কলামগুলি পড়ে এবং "দুশ্চিন্তার ব্যবস্থাপনা " থেকে উপকৃত হতে পারেনা, এটি "একটি জ্ঞানীয় বিশ্বাস-ব্যবস্থা যা বিজ্ঞানকে অতিক্রম করে" । যারা দ্বিতীয় পর্যায়ে ছিল সাধারণত তাদের জন্মপত্রিকাগুলি ঢোকানো হয়েছিল এবং উপদেশ ও ভবিষ্যদ্বাণীগুলি চাওয়া হয়েছিল। তারা প্রথম স্তরের তুলনায় অনেক অল্পবয়স্ক ছিল যারা জ্যোতিষশাস্ত্রের ভাষা এবং সুসংগঠিত এবং একচেটিয়া গোষ্ঠীর অন্তর্গত হওয়ার ক্ষমতা সম্পর্কে জ্ঞান থেকে উপকৃত হতে পারে। তৃতীয় স্তরের যারা বেশি জড়িত ছিল এবং সাধারণত নিজেদের জন্য রাশিচক্র ব্যবহার করেছিল । জ্যোতিষশাস্ত্র এই ক্ষুদ্র সংখ্যালঘু জ্যোতিষশাস্ত্র-বিশ্বাসীদেরকে মহাবিশ্বের অর্থপূর্ণ দৃষ্টিভঙ্গি এবং তাদের স্থান সম্পর্কে একটি বোধগম্যতা দিয়েছিলেন। এই তৃতীয় দলটি জ্যোতিষশাস্ত্রটিকে একটি পবিত্র ছাদ হিসেবে গম্ভীরভাবে গ্রহণ করেছিল, অন্য দুটি গ্রুপ একে খেলনা এবং অপ্রাসঙ্গিক বিষয় হিসাবে নিয়েছিল।

জন্মরাশি[সম্পাদনা]

প্রতিটি শাস্ত্রের মতো জ্যোতিষশাস্ত্রেরও কিছু একক আছে। জন্মরাশি সেই এককগুলির একটি।পৃথিবীকে কেন্দ্র করে চন্দ্রের আবর্তন পথকে ৩৬০ ডিগ্রি সমমানের একটি বৃত্ত আকারে এঁকে ১২ টি অংশে বিভক্ত করলে প্রায় ৩০ ডিগ্রী সমমানের যে বৃত্তচাপ পাওয়া যায় তার প্রত‌্যেকটিকে এক একটি রাশি বলা হয়। বাংলায় বারোটি রাশির প্রচলিত নামগুলি হল ১) মেষরাশি ২) বৃষরাশি ৩) মিথুনরাশি ৪) কর্কটরাশি ৫) সিংহরাশি ৬) কন্যারাশি ৭) তুলারাশি ৮) বৃশ্চিকরাশি ৯) ধনুরাশি ১০) মকররাশি ১১) কুম্ভরাশি ১২) মীনরাশি। শিশুর জন্মের স্থানীয় সময়ে চন্দ্র যে রাশিতে থাকে সে রাশিকে শিশুর জন্মরাশি বলে। বর্ষপঞ্জিতে চন্দ্রের অবস্থান উল্লেখ থাকে। বর্তমানে পঞ্চাঙ্গ বিষয়ক জ্যোতিষশাস্ত্র সফটওয়্যার এবং বিভিন্ন ওয়েবসাইটে জন্মতারিখ ও সময় দিয়ে চন্দ্রের অবস্থান জানা যায়। যেমন ১৯৭৮ ইংরেজী সালের ৭ নভেম্বর বৃহস্পতিবার রাত ২টা ৩০ মিনিটে (সফটওয়্যারে ৮ নভেম্বর ২:৩০ পি.এম. দিতে হবে) চন্দ্র তুলারাশিতে ছিল তাই জন্মগ্রহণকারীর রাশি হল তুলারাশি।[৪] চন্দ্রভিত্তিক এই রাশিকে চন্দ্ররাশিও বলা হয়ে থাকে।

এই রাশিগুলি আবার কিছু নক্ষত্র (প্রকৃতপক্ষে নক্ষত্রপূঞ্জ) নিয়ে গঠিত। মহাকাশে এই নক্ষত্রগুলির অবস্থান দূরবীণের সাহায্যে সহজেই চিহ্নিত করা যায়। পৃথিবীর চারিদিকে মহাকাশকে পূর্বদিগন্ত, মধ্যগগন এবং পশ্চিমদিগন্তের সংযোগকারী বৃত্তাকারে কল্পনা করলে প্রতিটি নক্ষত্র মহাকাশে ১৩ ডিগ্রি ২০ মিনিট বৃত্তচাপ পরিমাণ অংশ নির্দেশ করে। এক একটি নক্ষত্র পরিমান বৃত্তচাপকে চারটি সমান অংশে ভাগ করলে এক একটি ভাগকে পদ বা চরণ বলে। প্রতিটি পদ তাই ৩ ডিগ্রি ২০ মিনিট পরিমান বৃত্তচাপ নির্দেশ করে। প্রতিটি রাশি ৯ টি নক্ষত্রপদ পরিমান বৃত্তচাপ নির্দেশ করে যা ৩০ ডিগ্রির সমান। মেষ রাশি, অশ্বিনী ও ভরণী নক্ষত্র এবং কৃত্তিকা নক্ষত্রের ১ম পদ নিয়ে গঠিত। পরবর্তি রাশি বৃষ, কৃত্তিকা নক্ষত্রের অবশিষ্ট ৩টি পদ, রোহিনী নক্ষত্র এবং মৃগশিরা নক্ষত্রের প্রথম ২ টি পদ নিয়ে গঠিত। এই রাশি, নক্ষত্র এবং নক্ষত্রপদগুলি তাই মহাকাশের মানচিত্রে এক একটি স্থাননির্দেশক।

পাশ্চাত্য এবং ভারতীয় জ্যোতিষের মধ্যে কিছু মৌলিক পার্থক্য রয়েছে। পাশ্চাত্য জ্যোতিষ সূর্যভিত্তিক। পাশ্চাত্য জ্যোতিষে সাধারণভাবে সূর্য্য জন্মসময়ে যে রাশিতে অবস্থান করে জাতকের সেই রাশি বলে ধরা হয়। সূর্য্যের এই অবস্থান নির্ণয়েও ভারতীয় জ্যোতিষের সঙ্গে পদ্ধতিগত পার্থক্য আছে যে বিষয় একটু পরবর্তি অনুচ্ছেদে আলোচিত হয়েছে। আলোচনার সুবিধার্থে ধরে নেওয়া যাক ২১ মার্চ থেকে ২০ এপ্রিল পর্যন্ত সূর্য্যের পাশ্চাত্যমতে মেষরাশিতে সঞ্চার হয়। তবে ২১শে মার্চ থেকে ২০ এপ্রিল পর্যন্ত যাদের জন্ম তাদের রাশি পাশ্চাত্যমতে হয় মেষ। বোঝার সুবিধার্থে সুর্য্যভিত্তিক রাশিকে সূর্য্যরাশিও বলা হয়ে থাকে।

পাশ্চাত্য হিসাবে ২২শে মার্চ, ভারতবর্ষের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা শহরে ভোর ৬টায় জন্ম হলে জাতকের সূর্য্যরাশি হবে মেষ, অথচ ভারতীয় মতে ঐ জাতকের সূর্য্যরাশি হবে মীন। এই পার্থক্যের রহস্য লুকিয়ে আছে অয়নাংশে।[৩] পাশ্চাত্য মতে রাশিচক্রের শুরুতে সূর্য্যের আপেক্ষিক সঞ্চার মহাবিষুব বিন্দুতে হয়। এই দিনটি ২১শে মার্চ বলে ধরা হয়। এই রাশিচক্র সায়ন রাশিচক্র বলে পরিচিত। বাস্তবে পৃথিবী নিজ অক্ষের চারিদিকে লাটিমের মত ঘোরার সময় পৃথিবীর অক্ষ শকুর মত ঘুরতে থাকে। এই ঘূর্ণন প্রায় ২৬০০০ বছরে একবার সম্পূর্ণ হয়। এই ঘূর্ণনের ফলে মহাবিষুব বিন্দু প্রতি বছর ৫১ সেকেন্ড পশ্চিম দিকে সরে যায়। জ্যোতির্বিজ্ঞানের ভাষায় একে অয়নচলন বলে। ভারতীয় জ্যোতিষে ব্যবহৃত নিরায়ন রাশিচক্র শুরু হয় চিত্রা নক্ষত্রের ১৮০ ডিগ্রি বিপরীতে রাশিচক্রের উপর অবস্থিত স্থির বিন্দু থেকে। মহাবিষুব বিন্দু ও নিরায়ন রশিচক্রের আরম্ভের কৌণিক দূরত্বকে অয়নাংশ বলে।

জ্যোতিষ গণনায় ভারতীয় পদ্ধতিতে চন্দ্রকে বেশি প্রাধান্য দেয়া হয়। চন্দ্র এক রাশি থেকে অন্য রাশিতে অবস্থান পরিবর্তন করে আড়াই দিনে। এভাবে চন্দ্র এক মাসের মধ্যে সৌরপথের বারোটি চিহ্ন বা রাশিই অতিক্রম করে। ভারতীয় জ্যোতিষে ২৭টি নক্ষত্রপূঞ্জকেও বিবেচনা করা হয়। জ্যোতিষী কারও কোষ্ঠী নির্ণয়ে তার জন্মচিহ্ন (চন্দ্রচিহ্ন) এবং জন্মনক্ষত্র উভয়ই বিবেচনা করেন।[৫]

জন্মলগ্ন[সম্পাদনা]

সাধারণভাবে, জন্মকালে পূর্বদিগন্তে যে রাশির যত অংশ উদয় হয় সেই রাশির তত অংশ জাতকের জন্মলগ্ন ধরা হয়ে থাকে। উদাহরণস্বরুপ, যদি জন্মকালে ধনুরাশি ৫ ডিগ্রি ২০ মিনিট উদয় হয়ে থাকে তবে জাতকের জন্মলগ্ন হবে ধনু। এই প্রকারে প্রতিদিনে জন্মসময়ের ভিত্তিতে মেষ, বৃষ, মিথুন ইত্যাদি ১২ প্রকারের লগ্ন হয়ে থাকে। জন্মলগ্নের ভিত্তিতে ১২ টি ভাবের আরম্ভ, মধ্য ও শেষ বিচার করা হয়ে থাকে। ভাগ্যফল গণনায় এই ভাবগুলিই মানুষের জীবনের গতি-প্রকৃতি নির্ধারণ করতে সাহায্য করে।

শুভাশুভত্ব[সম্পাদনা]

রবি মঙ্গল শনি রাহু ও কেতু সর্বদা পাপ ফল দিয়ে থাকেন।কৃষ্ণাষ্টমী হতে শুক্লাসপ্তমী পর্যন্ত ক্ষীণ চন্দ্রও পাপ ফল প্রদান করেন।বুধ পাপ গ্রহযুক্ত হলে পাপ অন্যথায় শুভ গ্রহ বলে বিবেচিত হবে।বৃহস্পতি ও শুক্র সর্বদাই শুভফল দিয়ে থাকেন।সাধারণত পাপগ্রহ যে ঘরে বা ভাবে থাকেন সেই ভাবের অশুভ এবং শুভ গ্রহ যে ভাবে থাকেন সেই ভাবের শুভ হয়।দশমে ও একাদশে যে গ্রহই থাকুন শুভফল প্রদান করেন। ষষ্ঠস্থ অর্থাৎ শত্রুভাবস্থ শুভগ্রহ শত্রু বৃদ্ধি করেন।অনুরুপভাবে শত্রু ভাবস্থ পাপ গ্রহ ভাবের অশুভ করায় অর্থাৎ শত্রুর অশুভ করায় কার্য্যতপক্ষে জাতকেরই শুভ করেন।তৃতীয় অর্থাৎ ভাতৃভাবস্থ শুভ গ্রহ জাতকের পক্ষে অশুভ ফলপ্রদ।কিন্তু ভাতৃ পক্ষে শুভ। লগ্ন চতুর্থ সপ্তম ও দশম রাশির নাম কেন্দ্র। লগ্ন নবম ও পঞ্চম রাশির নাম ত্রিকোণ।কেন্দ্রত্ব ও কোণত্ব উভয়ের বিচার ক্ষেত্রে লগ্নের কেন্দ্রত্বই প্রধান বলে বিবেচিত।কেন্দ্রস্থ শুভ গ্রহ বিশেষ শুভ ফল এবং কেন্দ্রস্থ পাপগ্রহ বিশেষ ভাবে অশুভ ফল প্রদান করেন। ষষ্ঠ অষ্টম ও দ্বাদশ স্থানের নামান্তর দুঃস্থান।দুঃস্থানে যত কম গ্রহ অবস্থান করেন ততই ভালো।

জন্মপত্রিকা[সম্পাদনা]

কোষ্ঠী জন্মপত্রিকা। এতে নবজাতকের জন্মসময়ে গ্রহ-নক্ষত্রের অবস্থান ও সঞ্চরণ অনুযায়ী তার সমগ্র জীবনের শুভাশুভ নির্ণয় করা হয়। এ জন্য জন্মসময়টি সঠিকভাবে নির্ণীত হওয়া প্রয়োজন, তা না হলে কোষ্ঠী গণনা সঠিক হয় না। প্রাচীনকালে বিশেষ পদ্ধতিতে এ জন্মসময় সূক্ষ্মভাবে নির্ণয় করা হতো।[৬]

বারোটি ভাব[সম্পাদনা]

কোষ্ঠী অনুযায়ী কারও ভবিষ্যৎ গণনার সময় তার জীবনের বিভিন্ন ঘটনা বারোটি ভাগে ভাগ করা হয়, যার নাম ‘ভাব’। বারোটি ভাব হচ্ছে তনু (শরীর), ধন, সহজ (সহোদর), বন্ধু (এবং মাতা), পুত্র (এবং বিদ্যা), রিপু (এবং রোগ), জায়া (বা স্বামী), নিধন (মৃত্যু), ধর্ম (এবং ভাগ্য), কর্ম (এবং পিতা), আয় ও ব্যয়। যে রাশিতে লগ্ন অবস্থিত সেখান থেকে তনুর বিচার শুরু হয়, তারপর পর্যায়ক্রমে অন্যান্য ভাব গণনা করা হয়।[৭]

পঞ্জিকা[সম্পাদনা]

পঞ্জিকা বছরের প্রতিদিনের তারিখ, তিথি, শুভাশুভ ক্ষণ, লগ্ন, যোগ, রাশিফল, বিভিন্ন পর্বদিন ইত্যাদি সংবলিত গ্রন্থ। একে পঞ্জী বা পাঁজিও বলা হয়। প্রাচীন সংস্কৃত সাহিত্যে একে বলা হয়েছে ‘পঞ্চাঙ্গ’। ভারতের অন্যান্য অঞ্চলেও এটি এই নামে পরিচিত। এর কারণ এতে বার, তিথি, নক্ষত্র, যোগ ও করণ প্রধানত এই পাঁচটি অঙ্গ থাকে। বাংলায় অবশ্য এটি পঞ্জিকা নামেই সুপরিচিত। [৮]

যোটক বিচার[সম্পাদনা]

বিবাহের পূর্বে বর ও কন্যা পরস্পেরর জন্মরাশ্যাদি নিয়ে যে শুভাশুভ বিচার করা হয় তাহাকে যোটক বিচার বলা হয়। সে যোটক বিচার আট প্রকারঃ বর্ণকুট, বশ্যকুট, তারাকুট, যোনিকুট, গ্রহমৈত্রীকুট, গণমৈত্রীকুট, রাশি কুট, ত্রীনাড়ীকুট। jo [৯]

প্রতিকার[সম্পাদনা]

মানুষের কর্মই মানুষের ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করে। স্বাভাবিকভাবেই মানুষ সুকর্মের সুফল ভোগ করতে চেয়েছে আর দুষ্কর্মের কুফল এড়াতে চেয়েছে। অনভিপ্রেত বর্তমান আর ভবিষ্যৎ পরিবর্তনের উপায়কেই প্রতিকার বলে।

তবে সব রকমের ভবিষ্যৎ পরিবর্তন করা যায় না। কি ধরণের ভবিষ্যৎ পরিবর্তন করা যায় আর কি ধরণের ভবিষ্যৎ পরিবর্তন করা যায় না সেটা বলতে গেলে কী ধরণের কর্ম থেকে সেই ভবিষ্যৎ লেখা হয়েছে তা আলোচনা প্রয়োজন।

সঞ্চয়ের কালভেদে কর্ম চার প্রকার - প্রারব্ধ, সঞ্চিত, ক্রিয়মান এবং আগম কর্ম। সমস্ত পূর্ব জন্মের কর্ম হল প্রারব্ধ কর্ম। ইহজন্মের যে কর্ম এই জীবদ্দশাতেই ভোগ করা যায় তা ক্রীয়মান কর্ম। ইহজন্মের যে কর্ম ভোগের পূর্বেই মৃত্যু হয় তা হল সঞ্চিত কর্ম। প্রারব্ধ ও সঞ্চিত কর্ম ভবিষ্যৎ জন্মের যে কর্ম নির্দেশ করে তাই আগম কর্ম। প্রতিকার ক্রিয়মান কর্মের উপর প্রভাব বিস্তার করে ভবিষ্যৎ পরিবর্তনের চেষ্টা করে থাকে।

কর্ম আবার ফলের নিশ্চয়তাভেদে তিন প্রকার। দৃঢ় কর্ম, অদৃঢ় কর্ম এবং দৃঢ়-অদৃঢ় কর্ম। দৃঢ় কর্মের ফল প্রায় অপরিবর্তনীয়। অদৃঢ় কর্মের ফল প্রতিকার এবং চেষ্টার দ্বারা অথবা শুধুমাত্র চেষ্টার দ্বারা সহজেই পরিবর্তনীয়। দৃঢ়-অদৃঢ় কর্মের ফল নিষ্ঠা, অধ্যবসায় এবং প্রতিকারের দ্বারা কিছুটা পরিবর্তনীয়।

আধ্যাত্মিক, কার্মিক, ঔষধীক পদ্ধতিতে এবং রত্নধারণের মাধ্যমে প্রতিকার বিধান করা হয়ে থাকে। মন্ত্রজপ, যন্ত্রস্থাপনা, তন্ত্রসাধনা, পূজা ও দান ইত্যাদি আধ্যাত্মিক প্রতিকারের পথ। পূণ্যকর্ম, তপ, ত্যাগ, সাম্যভাব অবলম্বন ইত্যাদি হল কার্মিক প্রতিকার। ভেষজ, ধাতব ও রাসায়নিক প্রতিকার হল ঔষধীক প্রতিকারের উদাহরণ। জ্যোতিষীগণ প্রতিকারের জন্য সাধারণতঃ আধ্যাত্মিক, কার্মিক প্রতিকার এবং উদ্ভিদমূল, ধাতু ও রত্নধারণের পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

হস্তরেখাবিদ্যা[সম্পাদনা]

হস্তরেখাবিদ্যা হাত ও হাতের রেখা বিশ্লেষণের মাধ্যমে কারও মানসিক অবস্থা এবং ভবিষ্যৎ জীবনের শুভাশুভ নির্ধারণ করার বিদ্যা। প্রাচীন ব্যাবিলন ও কালদিয়া ( Chaldea) অঞ্চলে এ বিদ্যার শুরু বলে মনে করা হয় এবং সেখান থেকে তা সমগ্র পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়ে। [১০]

ভারতীয় জ্যোতিষ শাস্ত্রের গুরুত্ব যে কতখানি , আজকের যুগে সারা বিশ্বের মানুষ তা জানতে পেরেছেন। মানুষের করতল এবং তার ভেতরের রেখাসমূহ দেখে – তার ভূত – ভবিষ্যৎ বর্তমান বেশ সহজেই বলা যায় । হাজার হাজার বছরেরও পূর্ব থেকে ভারতে এই জ্যোতিষ – বিদ্যা ও সামুদ্রিক বিদ্যা চলে আসছে । তারপর কালক্রমে যত দিন যেতে থাকে, ততই এই বিদ্যা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়তে থাকে। এক্ষেত্রে বলা যায় যে, প্রাতঃস্মরণীয় জ্যোতিষী বরাহমিহিরেরও আগে এই শাস্ত্রের প্রচলন । তারপর বিভিন্ন মনীষী এই বিষয় নিয়ে বহু গ্রন্থ রচনা করেছেন । তাহলে দেখা যাচ্ছে যে, সারা পৃথিবীর মধ্য জ্যোতিষচর্চ্চা , সামুদ্রিক বিচার অর্থাৎ হস্তরেখা বিচার প্রভৃতি সর্বপ্রথম শুরু হয় ভারতবর্ষে । তারপর ভারত থেকে আরব-বণিকদের মাধ্যমে এই বিদ্যা আরবে চড়িয়ে পড়ে । তারপর মিশরে পৌঁছায় এবং অনেক উন্নত হয় । ক্রমে মিশর থেকে গ্রীস, রোম এবং অন্যান্য দেশ গুলিতে এই শাস্ত্র ছড়িয়ে পড়ে ।

বাড়তি পঠন[সম্পাদনা]

জ্যোতিষ বনাম বিজ্ঞান[সম্পাদনা]

  • অলৌকিক নয় লৌকিক (৩য় খণ্ড), প্রবীর ঘোষ।
  • বিজ্ঞান জ্যোতিষ সমাজ, উৎস, মানুষ সংকলন।
  • রাশিফল বিশ্বাস করি না নিবন্ধ, মো. আ. জব্বার; মহাকাশ বার্তা, নভেম্বর ১৯৯৩ সংখ্যা।
  1. বন্দ্যোপাধ্যায়, হরিচরণ (১৯৬৬)। বঙ্গীয় শব্দকোষ, প্রথম খন্ড। রবীন্দ্রভবন, ৩৫ ফিরোজশাহ রোড, নতুন দিল্লী ১১০ ০০১: সাহিত্য একাদেমি। পৃষ্ঠা ৯৫৭। আইএসবিএন 81-260-0077-5 
  2. জ্যোতিষশাস্ত্র, জ্যোতির্বিজ্ঞান শব্দকোষ, ফারসীম মান্নান মোহাম্মদী, পৃষ্ঠা ২০
  3. কসমস, কার্ল সেগান
  4. ফলিত জ্যোতিষ, শ্রীহরিহর মজুমদার, জ্যোতিঃশাস্ত্রী, বি.এল. (কলি), এ.সি. আই. (লণ্ডন),পৃষ্ঠা ২২
  5. http://bn.banglapedia.org/index.php?title=জ্যোতিষ
  6. http://bn.banglapedia.org/index.php?title=কোষ্ঠী
  7. http://www.rajeshshori.com/দ্বাদশ-ভাব-থেকে-কি-কি-বিচার-হয়
  8. http://bn.banglapedia.org/index.php?title=পঞ্জিকা
  9. http://www.ebangladictionary.org/রাজযোটক/
  10. http://bn.banglapedia.org/index.php?title=হস্তরেখাবিদ্যা