জে. পি. মরগান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জন পিয়ারপন্ট মরগান
JohnPierpontMorgan.png
জন্ম(১৮৩৭-০৪-১৭)১৭ এপ্রিল ১৮৩৭
মৃত্যুমার্চ ৩১, ১৯১৩(1913-03-31) (বয়স ৭৫)
সমাধিসিডার হিল সিমেটারী
হার্টফোর্ড, কানেক্টিকাট, ইউ এস
যেখানের শিক্ষার্থীইউনিভার্সিটি অফ গোটিনজেন
পেশাপুঁজিপতি, ব্যাংকার, শিল্প সংগাহক
পরিচিতির কারণপ্রতিষ্ঠাতা- জে পি মরগান এন্ড কোম্পানি
সংগঠক- "মানি ট্রাস্ট" যাদের নিয়ন্ত্রন স্বার্থ অর্জন করেছিলেন- ইউ এস স্টীল, জেনারেল ইলেক্ট্রিক, ইন্টারন্যাশনাল মার্কেন্টাইল মেরিন, ইন্টারন্যাশনাল হার্ভেস্টার, এ টি এন্ড টি, এইত্না লাইফ ইনসিউরেন্স এবং ২১টি রেলপথ
বোর্ড সদস্যনর্দার্ন প্যাসিফিক রেলওয়ে, নিউ হেভেন রেলপথ, প্যানসেলভেনিয়া, পুলম্যান কার কোম্পানি, ওয়েস্টার্ন ইউনিয়স, নিউইয়র্ক সেন্ট্রাল রেল-রোড, আলবানি ও সাসকুয়েহান্না রেলপথ, এ্যাটনা, জেনারেল ইলেক্ট্রিক এবং ইউ এস স্টীল
দাম্পত্য সঙ্গীএ্যামেলিয়া স্টারগেস (বি. ১৮৬১; মৃ. ১৮৬২)
ফ্রান্সেস লুইসে ট্রেসি (বি. ১৮৬৫)
সন্তানলিসা পিয়ারপন্ট মরগান
জন পিয়ারপন্ট মরগান জুনিয়র
জুলিয়েট মরগান
আন্নে মরগান
পিতা-মাতাজুলিয়াস স্পেনসার মরগান
জুলিয়েন্ট পিয়ারপন্ড
স্বাক্ষর
CAB 1918 Morgan John Pierpont signature.png

জন পিয়ারপন্ট মরগান সিনিয়র (এপ্রিল ১৭, ১৮৩৭ - মার্চ ৩১, ১৯১৩)[১] একজন আমেরিকান পুঁজিপতি এবং ব্যাংকার ছিলেন যিনি গিলডেড যুগে ওয়াল স্ট্রিট এ কর্পোরেট পুঁজিদের মাঝে আধিপত্য বিস্তার করেছিলেন। জে পি মরগান অ্যান্ড কোং এর মত ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসাবে, তিনি ১৯ শতকের শেষের দিকে এবং ২০ শতকের গোড়ার দিকে শিল্প একীভূতকরণে কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করেছিলেন।

১৮৯২ সালে, মরগ্যান এডিসন জেনারেল ইলেক্ট্রিক এবং থমসন-হাউস্টন ইলেকট্রিক কোম্পানির সংযুক্ত করে গঠন করেন জেনারেল ইলেক্ট্রিক । তিনি ইউনাইটেট স্ট্যাটস স্টীল কর্পোরেশন, ইন্টারন্যাশনাল হারভেস্টার এবং এটিএন্ডটি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। বিংশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে মরগানের ক্যারিয়ারের উচ্চতায়, তিনি এবং তার অংশীদারদের অনেক বড় কর্পোরেশনে আর্থিক বিনিয়োগ ছিল এবং দেশের উচ্চ ফিনান্স এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস সদস্যদের উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ছিল। তিনি ১৯০৭ সালে আতঙ্ক সৃষ্টি করে এমন ব্যাংকিং জোটকে থামিয়ে দিয়েছিলেন। তিনি প্রগতিশীল যুগের শীর্ষস্থানীয় অর্থ যোগানদাতা ছিলেন এবং দক্ষতা ও আধুনিকায়নের প্রতি তার উত্সর্গ আমেরিকান ব্যবসায়ীদেরকে সহায়তা করেছিল। অ্যাড্রিয়ান ওয়াল্ড্রিজ মরগানকে আমেরিকার "সর্বশ্রেষ্ঠ ব্যাংকার" হিসাবে চিহ্নিত করেছিলেন।[২]

মরগান ৭৫ বছর বয়সে ১৯১৩ সালে ইতালির রোমে ঘুমের মধ্যে মৃত্যুবরণ করেন এবং তার ব্যবসা পুত্র, পিয়ারপন্ট মরগান জুনিয়রের কাছে রেখে যান। জীবনীকার রন চের্নো তার অনুমান করেছিলেন মোট সম্পত্তির পরিমান ছিল মাত্র ১১৮ মিলিয়ন ডলার (যার মধ্যে প্রায় ৫০ মিলিয়ন ডলার ছিল তার বিশাল শিল্প সংগ্রহের জন্য), এটা এমন এক সম্পদ যা জন ডি রকফেলারকে বলেতে বাধ্য করেছিল: "এবং মনে করি, তিনি এমনকি ধনী ব্যক্তিও ছিলেন না।"[৩]

পরিচ্ছেদসমূহ

শৈশব এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

মরগান কানেক্টিকাটের হার্টফোর্ডে প্রভাবশালী মরগান পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন এবং সেখানেই বেড়ে ওঠেন। তিনি জুনিয়াস স্পেনসার মরগান (১৮১৩ - ১৮৯০) এবং জুলিয়েট পিয়ারপন্ট (১৮১৬ -১৮৮৪) এর পুত্র ছিলেন।[৪][৫] মর্গানের মা চেয়েছিলেন মর্গানের পরিচিতি, তার পিতার পরিকল্পনাও ছিল তেমনি। ১৮৪৮ সালের শুরুর দিকে, পিয়ারপন্ট হার্টফোর্ড পাবলিক স্কুলে এবং তারপরে চ্যাশায়ার, কানেক্টিকাটের (বর্তমানে চ্যাশায়ার একাডেমি নামে পরিচিত) এপিস্কোপাল একাডেমিতে স্থানান্তরিত হন। ১৮৫১ সালের সেপ্টেম্বরে, মরগান বোস্টনের দি ইংলিশ হাই স্কুলের প্রবেশিকা পরীক্ষায় পাস করেছিলেন, যেটি যুব পুরুষদের বাণিজ্যে ক্যারিয়ার গড়ার জন্য গণিতে বিশেষজ্ঞ ছিল। ১৮৫২ সালের এপ্রিলে অসুস্থ হয়ে পড়েন। বাতজ্বরের ব্যথায় তিনি হাঁটতে পারতেন না, এবং জুনিয়াস তাকে সুস্থ্য হতে এজোরেস পাঠান।[৬] তিনি সেখানে প্রায় একবছর কাটিয়েছেন, তারপরে পড়াশুনা শুরু করতে বোস্টনের ইংলিশ হাই স্কুলে ফিরে আসেন। তিনি স্নাতক হওয়ার পরে, তার বাবা তাকে লা ট্যুর-ডি-পিলজের সুইস গ্রামের একটি স্কুল বেলেরিভ পাঠিয়েছিলেন, যেখানে তিনি ফরাসি ভাষায় সাবলীল দক্ষতা অর্জন করেছিলেন। তার বাবা তার জার্মান উন্নতির জন্য তাকে গৌটিনজেন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রেরণ করেছিলেন। তিনি ছয় মাসের মধ্যে জার্মানের একটি পাসযোগ্য স্তরে যান এবং শিল্প ইতিহাসের একটি ডিগ্রি অর্জন করেন, তারপরে তার আনুষ্ঠানিক শিক্ষা সমাপ্ত করে উইসবাডেন হয়ে লন্ডনে ফিরে আসেন।[৭]

পেশা[সম্পাদনা]

প্রথম বছর এবং জীবন[সম্পাদনা]

জন পিয়ারপন্ট মরগান

১৮৫৭ সালে মর্গান মার্চেন্ড ব্যাংকিং এর প্লিবডি, মর্গান এন্ড কোং এর লন্ডন শাখায় আসেন, এটা ছিল তার বাবা ও জর্জ প্লিবডির একটা অংশীদারি ব্যাংকিং ফার্ম যেটা তারা তিন বছর আগে শুরু করেছিলেন। তিনি আমেরিকায় আসেন ১৮৫৮ সালে শ্যারম্যান এন্ড কোং এর ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান ডানকান-এ, যা ছিল আমেরিকায় জর্জ প্লিবডি এন্ড কোং এর প্রতিনিধিত্বকারী প্রতিষ্ঠান। মরগান আমেরিকান সিভিল ওয়ার যুদ্ধের সময় হল কার্বাইন এফেয়ার নামে একটা ঘটনা, তিনি একজন আর্মি আর্সেনালের কাছ থেকে ৫০০০ রাইফেল কিনেছিলেন প্রতিটি ৩.২ ডলার দামে, পরে সেই রাইফেল তিনি একজন ফিল্ড জেনারেলের কাছে প্রতিটি ২২ ডলারে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছিল।[৮][৯][১০][১১] যুদ্ধে তিনি তার অংশগ্রহণের পরিবর্তে ৩০০ ডলার দিয়ে যুদ্ধ এড়িয়ে গিয়েছিলেন।[৮] ১৮৬০ সাল থেকে ১৮৬৪ সাল পর্যন্ত জে পিয়ারপন্ট মরগান অ্যান্ড কোম্পানির এজেন্ট হয় তিনি নিউইয়র্কে তার বাবার ফার্মের কাজ করেছিলেন, যার নাম পরে পরিবর্তন করে করা হয়েছিল "জে এস মরগান অ্যান্ড কো"। ১৮৬৪ - ১৮৭২ সাল তিনি ডাবনি, মরগান এবং কোং নামে একটা ফার্মের সদস্য ছিলেন। ১৮৭১ সালে, তিনি ফিলাডেলফিয়ার ড্রেক্সেলের সাথে অংশীদার হয়ে নিউইয়র্কে ড্রেক্সেল, মরগান অ্যান্ড কোম্পানি নামে একটি ফার্ম করেন। সেই সময় অ্যান্টনি জে ড্রেসেল জুনিয়াস মরগানের অনুরোধে পিয়ারপন্টের পরামর্শদাতা হন।[১২]

জেপি মরগান অ্যান্ড কোম্পানি[সম্পাদনা]

অ্যান্টনি ড্রেক্সেলের মৃত্যুর পরে, ফার্মটি ১৮৯৫ সালে "জেপি মরগান অ্যান্ড কোম্পানী" নাম ধারন করে এবং ফিলাডেলফিয়ার ড্রেক্সেল অ্যান্ড কোম্পানি, প্যারিসের মরগান, হারজেস এবং কোম্পানি; এবং লন্ডনের জে.এস. মরগান অ্যান্ড কোম্পানির (১৯১০ সালের মরগান, গ্রেনফেল অ্যান্ড কোম্পানি) সাথে ঘনিষ্ঠতা সম্পর্ক বজায় রাখে। ১৯০০ সালের মধ্যে, এটি বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী ব্যাংকিং হাউস হয়ে উঠে, বিশেষত পুনর্গঠন এবং একীকরণের দিকে মনোনিবেশ করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

জে পি মরগান

মর্গান ও তার অংশীদাররা যেমন জর্জ ডাব্লু পারকিন্স সবসময় এমন দায়িত্বে দৃঢ়ভাবে থেকেছেন।[১৩] ঝামেলাযুক্ত ব্যবসাগুলিকে পুনর্গঠন করার প্রক্রিয়াটি "মরগানাইজেশন" নামে পরিচিতি লাভ করে।[১৪] মরগান ব্যবসায়ের কাঠামো এবং পরিচালনা প্রক্রিয়া গুলিকে পুনরায় ঢেলে সাজাতেন আর তাদেরকে লাভজনক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতেন। একজন ব্যাংকার এবং পুঁজিপতি হিসাবে তার খ্যাতি তার ব্যবসায়গুলিতে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করেছিল।[১৫]

রেলপথ[সম্পাদনা]

মরগানের ক্ষমতায় আরোহণে প্রারম্ভে তার মনোযোগ ছিল রেলপথ গুলোতে, আমেরিকার সবচেয়ে বড় ব্যবসায়িক উদ্যোগ।[১৬] তিনি ১৮৬৯ সালে জে গোল্ড এবং জিম ফিস্কের কাছ থেকে অ্যালবানি এবং সুসকাহান্না রেলপথের নিয়ন্ত্রণ অর্জন করেছিলেন, তিনি সিন্ডিকেটের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন যা জে কুকের সরকারী অর্থায়নের সুযোগ-সুবিধাগুলি ভেঙে দিয়েছিল এবং শীঘ্রই পুনর্গঠন এবং একীকরণের মাধ্যমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সমস্ত অংশে রেলপথ সাম্রাজ্যের বিকাশ ও অর্থায়নে গভীরভাবে জড়িত হয়ে পড়েছিল । তিনি ইউরোপে প্রচুর পরিমাণে অর্থ সংগ্রহ করেছিলেন কিন্তু কেবল তহবিল পরিচালনা করার পরিবর্তে তিনি রেলপথগুলিকে পুনর্গঠিত করতে এবং আরও বেশি দক্ষতা অর্জনে সহায়তা করেছিলেন। তিনি জল্পনা-কল্পনার লাভে আগ্রহী অনুমানকারীদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলেন এবং একীভূত পরিবহন ব্যবস্থার স্বপ্নদষ্টা ছিলেন। মরগান ১৮৮৩ সালে উইলিয়াম এইচ ভ্যান্ডারবিল্টের নিউইয়র্ক সেন্ট্রাল হোল্ডিংয়ের একটি বড় অংশ সফলভাবে বিপণন করেছিলেন। ১৮৮৫ সালে তিনি নিউইয়র্ক, ওয়েস্ট শোর এবং বাফেলো রেলপথ পুনর্গঠিত করেন এবং নিউইয়র্ক সেন্ট্রাল এর কাছে ইজারা দিয়েছিলেন।[১৭] ১৮৮৬ সালে তিনি ফিলাডেলফিয়া এবং রিডিং পুনর্গঠিত করেন এবং ১৮৮৮ সালে চেসাপেক ও ওহিওকে পুনর্গঠিত করেন। কংগ্রেস ১৮৮৭ সালে আন্তঃরাষ্ট্রীয় বাণিজ্য আইন পাস করার পরে, মরগান ১৮৮৯ এবং ১৮৯০ সালে রেলপথের রাষ্ট্রপতিদের একত্রিত করে যাতে তারা নতুন আইন অনুসরণ করতে এবং "পাবলিক, যুক্তিসঙ্গত, অভিন্ন ও স্থিতিশীল হার পায়"-এর রক্ষণাবেক্ষণ চুক্তি সম্পাদনে সহায়তা করে। সম্মেলনগুলি এই ধরণের প্রথম ছিল এবং প্রতিদ্বন্দ্বী লাইনের মধ্যে আগ্রহের একটি সম্প্রদায় তৈরি করে বিশ শতকের গোড়ার দিকে দুর্দান্ত একীকরণের পথ সুগম হয়েছিল। এছাড়াও, জে পি মরগান অ্যান্ড কোম্পানি ১৮৬৯ থেকে ১৮৯৯ সালের মধ্যে প্রচুর রেলপথ পুনর্গঠিত করেছিল। তিনি বিশেষত নিউ ইয়র্ক সিটির স্ট্রিট রেলপথে অর্থায়ন করেছিলেন। [১৮]

জে পি মরগানের রঙিন ছবি

১৯০৪ সালে একটি বড় রাজনৈতিক পরাজয় এসেছিল। নর্দার্ন প্যাসিফিক রেলওয়ে দেউলিয়া হয়ে যায় ১৮৯৩ এর দুর্দান্ত হতাশায় । একটি জটিল আর্থিক যুদ্ধ রেলপথ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে, কারণ দেউলিয়া বন্ড হোল্ডারদের নিশ্চিহ্ন করে দেয় এবং এটি ঋণমুক্ত হয়েছিল। মরগানের নিউইয়র্কের পুঁজিপতি ইএইচ হরিম্যান এবং সেন্ট পল, এমএন রেলপথ নির্মাতা জেমস জে হিলকে নিয়ে একটি সমঝোতা করেন। ১৯০১ সালে ব্যয়বহুল প্রতিযোগিতা কমিয়ে, তারা মধ্য পশ্চিম অঞ্চলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তিনটি রেলপথ, উত্তর প্যাসিফিক রেলপথ, গ্রেট নর্দার্ন রেলওয়ে এবং শিকাগো, বার্লিংটন এবং কুইন্সি রেলপথের একত্রীকরণ করে নর্দান সিকিউরিটিজ কোম্পানি তৈরি করেছিল। একীকরণকারীরা রাষ্ট্রপতি থিওডোর রুজভেল্টের অপ্রত্যাশিত বিরোধীতায় ধাক্কা খায়। তিনি ছিলেন এক উদ্যমী অবিশ্বাসী হঠারক, যিনি দেখেছিলেন বড় একত্রিকরনে ক্রেতাদের মন্দ হচ্ছিল ১৮৯০ সালের শেরম্যান অ্যান্টিস্ট্রাস্ট অ্যাক্টের অধীনে, যা এর আগে খুব কমই প্রয়োগ করা হয়েছিল। ১৯০২ সালে রুজভেল্ট তার বিচার বিভাগকে এটাকে ভেঙে দেওয়ার নির্দেশ দেন। ১৯০৪ সালে সুপ্রিম কোর্ট নর্দার্ন সিকিউরিটি কোম্পানি ভেঙে দেয় এবং রেলপথগুলি আলাদা, প্রতিযোগিতামূলক পথে যেতে দেয়। মরগান এই প্রকল্পে অর্থ হারায় নি, তবে তার শক্তিমান রাজনৈতিক খ্যাতি হারায়। [১৯]

ট্রেজারি সোনা[সম্পাদনা]

জে পি মরগান তার আগের বছরগুলিতে

১৮৯৩ সালের ভয়ের কারনে ফেডারেল ট্রেজারি প্রায় সোনাশূন্য হয়ে গিয়েছিল। মরগান তার ইউরোপীয় ব্যাংকগুলির কাছ থেকে ফেডারেল সরকারের পক্ষে স্বর্ণ কেনার পরিকল্পনা করেছিল তবে সংকট কাটিয়ে উঠতে সরাসরি জনসাধারনের কাছে বন্ড বিক্রি করার পরিকল্পনা করায় তা প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল। মরগান নিশ্চিত যে এ জাতীয় পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য পর্যাপ্ত সময় নেই, তিনি দাবি করেছিলেন এবং গ্রোভার ক্লিভল্যান্ডের সাথে একটি বৈঠকে তিনি দাবি করেছিলেন যে তারা কিছু না করলে সরকার খেলাপি হতে পারে। মরগান একটি পুরানো গৃহযুদ্ধ আইন ব্যবহার করার পরিকল্পনা নিয়ে আসে যা মরগান এবং রথসচিল্ডদের সরাসরি মার্কিন ট্রেজারিতে সোনা বিক্রি করতে দেয়, ৩.৫ মিলিয়ন আউন্স,[২০] ৩০ বছরের বন্ড ইস্যুর বিনিময়ে ট্রেজারি মজুত পুনরুদ্ধার হয়।[২১] এই পর্বটি ট্রেজারি বাঁচিয়েছিল কিন্তু ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সাথে ক্লিভল্যান্ডের একটা দ্বন্দ তৈরী হয় যা পরে ১৮৯৬ সালের নির্বাচনে একটা ইস্যুতে পরিণত হয়েছিল। মরগান এবং ওয়াল স্ট্রিট ব্যাংকাররা রিপাবলিকান উইলিয়াম ম্যাককিনলেকে প্রচুর পরিমাণে অনুদান দিয়েছিলেন, যিনি ১৮৯৬ সালে নির্বাচিত হন এবং ১৯০০ সালে পুনঃ নির্বাচিত হন। [২২]

ইস্পাত[সম্পাদনা]

জে পি মরগান-হলডেইন-মেকেঞ্জি

১৮৯০ সালে তার পিতার মৃত্যুর পরে, মরগান জে এস মরগান অ্যান্ড কোং -এর নিয়ন্ত্রণ নেন (যার নাম মরগান, গ্রেনফেল এ্যান্ড কোম্পানি নামকরণ করা হয়েছিল ১৯১০ সালে)। মরগান ১৯০০ সালে কার্নেগি কোং-এর সভাপতি চার্লস এম শোয়াব এবং ব্যবসায়ী অ্যান্ড্রু কার্নেগির সাথে আলোচনা শুরু করেন। লক্ষ্য ছিল কার্নেগির ইস্পাত ব্যবসা কেনা এবং এটিকে আরও কয়েকটি ইস্পাত, কয়লা, খনি ও শিপিং সংস্থার সাথে একীভূত করা। ফেডারেল ইস্পাত সংস্থা গঠনের জন্য অর্থায়ন করার পরে, শেষ পর্যন্ত তিনি এটিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ইস্পাত কর্পোরেশন গঠনের জন্য কার্নেগি স্টিল কোম্পানি এবং উইলিয়াম এডেনবারনের মালিকানাধীন আরও কয়েকটি ইস্পাত ও লোহা ব্যবসার (একীভূত ইস্পাত এবং ওয়্যার সংস্থা সহ) সাথে একীভূত করেন। ১৯০১ সালে ইউএস স্টিল বিশ্বের প্রথম বিলিয়ন ডলারের সংস্থা ছিল, যার অনুমোদিত মূলধন ছিল ১.৪ বিলিয়ন ডলার, যা অন্য যে কোনও শিল্প প্রতিষ্ঠানের চেয়ে অনেক বড় এবং বৃহত্তম রেলপথের সাথে আকারের তুলনীয়।

ইউএস স্টিলের লক্ষ্য বৃহত্তর অর্থনীতি অর্জন, পরিবহন ব্যয় হ্রাস করা, পণ্যের লাইন সম্প্রসারণ করা এবং বিতরণ উন্নত করা। [২৩] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে বিশ্বব্যাপী যুক্তরাজ্য এবং জার্মানির সাথে প্রতিযোগিতা করার সুযোগ দেওয়ারও পরিকল্পনা করা হয়েছিল। শোয়াব এবং অন্যান্যরা দাবি করেছেন যে ইউএস স্টিলের আকার সংস্থাটিকে আন্তর্জাতিক বাজারের (" বিশ্বায়ন ") আরও আগ্রাসী এবং কার্যকর হতে দেবে। [২৩] ইউএস স্টিলকে সমালোচকরা একচেটিয়া হিসাবে বিবেচনা করত, কারণ ব্যবসাটি কেবল ইস্পাতই নয়, সেতু, জাহাজ, রেলপথ ও রেলগাড়ি, তার, পেরেকসহ অন্যান্য বেশ কয়েকটি পণ্য নির্মাণের চেষ্টা করছিল। ইউএস স্টিলের মাধ্যমে, মরগান ইস্পাত বাজারের দুই-তৃতীয়াংশ দখল করে নিয়েছিল, এবং শোয়াবের বিশ্বাস ছিল যে সংস্থাটি শীঘ্রই ৭৫ শতাংশ বাজারের অংশীদারিত্ব অর্জন করবে। [২৩] যাইহোক, ১৯০১ এর পরে 'বাজারের শেয়ার পড়ে যায়। শোয়াব ১৯০৩ সালে মার্কিন স্টীল থেকে পদত্যাগ করে বেথলেহেম স্টীল গঠন করে, যা দ্বিতীয় বৃহত্তম মার্কিন ইস্পাত উৎপাদক হয়ে উঠে।

শ্রম নীতি একটি বিতর্কিত বিষয় ছিল। ইউএস স্টিল শ্রমিক ইউনিয়ন ছিল না, এবং শোয়াবের নেতৃত্বে অভিজ্ঞ ইস্পাত উত্পাদকরা ইউনিয়নপন্থী, "সমস্যা সৃষ্টিকারীদের" চিহ্নিত করে তাদের নির্মূল করার জন্য আক্রমণাত্মক কৌশল অবলম্বন করতে চেয়েছিলেন। যে সকল আইনজীবী এবং ব্যাংকাররা এই সংহতকরণের ব্যবস্থা করেছিলেন - বিশেষত মরগান এবং সিইও এলবার্ট গ্যারি - তারা দীর্ঘ পরিসরের মুনাফা, স্থিতিশীলতা, ভাল জনসংযোগ এবং ঝামেলা এড়ানোর বিষয়ে আরও বেশি সজাগ ছিলেন। ব্যাংকারদের দৃষ্টিভঙ্গ সাধারণত পরাজিত হয় এবং ফলাফলটি ছিল "পিতৃতান্ত্রিক" শ্রম নীতি। (ইউএস স্টিলে শেষ পর্যন্ত ১৯৩০ এর দশকের শেষের দিকে ইউনিয়ন করা হয়েছিল।)[২৪]

১৯০৭ এর আতঙ্ক[সম্পাদনা]

'১৯০৭ এর আতঙ্ক' একটি আর্থিক সঙ্কট যা আমেরিকান অর্থনীতিকে প্রায় পঙ্গু করে তুলেছিল। নিউইয়র্কের প্রধান ব্যাংকগুলি দেউলিয়ার পথে ছিল এবং মরগান সঙ্কট সমাধানে সহায়তা না করার আগ পর্যন্ত তাদের উদ্ধার করার কোনও ব্যবস্থা ছিল না।[২৫][২৬] ট্রেজারি সেক্রেটারি জর্জ বি কর্টিলিও নিউ ইয়র্কের ব্যাংকগুলিতে জমা দেওয়ার জন্য $ ৩৫ মিলিয়ন ডলার ফেডারাল অর্থ বরাদ্দ করেছিলেন। [২৭] তারপরে মরগান তার নিউ ইয়র্কের প্রাসাদে দেশটির শীর্ষস্থানীয় অর্থদাতাদের সাথে সাক্ষাত করেছিলেন, যেখানে তিনি সংকট মোকাবিলার জন্য তাদের পরিকল্পনা তৈরি করতে বাধ্য করেছিলেন। কেন্দ্রীয় সিটি ব্যাংকের সভাপতি জেমস স্টিলম্যানও কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করেছিলেন। মরগান ব্যাংক ও ট্রাস্টের নির্বাহীদের একটি দল গঠন করেছিল যা ব্যাংকগুলির মধ্যে অর্থ পুনর্নির্দেশ করে, আরও আন্তর্জাতিক ঋণ সুরক্ষিত করে, এবং তলানি থেকে স্টককে একটা স্বাস্থ্যকর কর্পোরেশনে ফিরিয়ে এনেছিল। [২৫]

মুর ও শ্লে-এর ব্রোকারেজ ফার্ম সম্পর্কে একটি সূক্ষ্ম রাজনৈতিক ইস্যু ছিল, যে টেনেসি কয়লা, আয়রন এবং রেলপথ কোম্পানির স্টকের একটি অনুমানের পুলে গভীরভাবে জড়িত ছিল। ওয়াল স্ট্রিট ব্যাংকগুলির কাছে ঋণের জন্য মোর এবং শ্লে টেনেসি কয়লা এবং আয়রনের (টিসিআই) $ ৩ মিলিয়ন ডলারের বেশি শেয়ারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। মুর এবং শ্লে যদি ব্যর্থ হয় তবে আরও একশত ব্যর্থতা অনুসরণ করতে পারে এবং তারপরে সমস্ত ওয়াল স্ট্রিট টুকরো টুকরো হয়ে যেতে পারে। মরগান সিদ্ধান্ত নিলেন তাদের মুর এবং শ্লেকে বাঁচাতে হবে। টিসিআই ইউএস স্টিলের অন্যতম প্রধান প্রতিযোগী ছিল এবং এর মূল্যবান আয়রন এবং কয়লার মজুদ ছিল। মরগান ইউএস স্টিলকে নিয়ন্ত্রণ করেছিল এবং সে সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে মুর এবং শ্লে থেকে এটি টিসিআই স্টক কিনতে হবে। ইউএস স্টিলের প্রধান এলবার্ট গ্যারি একমত পোষণ করেছেন, তবে তিনি উদ্বিগ্ন ছিলেন যে অবিশ্বাস সংক্রান্ত প্রভাব থাকতে পারে যা ইউএস স্টিলের জন্য মারাত্মক হতে পারে। মরগান গ্যারিকে পাঠান প্রেসিডেন্ট থিওডোর রুজভেল্টের সাথে এ ব্যাপারে কথা বলতে, যিনি এই চুক্তির জন্য আইনী দায়মুক্তির প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ইউএস স্টিল এরপরে টিসিআই মজুদের জন্য $ ৩০ মিলিয়ন ডলার প্রদান করে মুর এবং শ্লে বাঁচিয়েছিলেন। ঘোষণার তাত্ক্ষণিক প্রভাব ছিল; নভেম্বর ৭, ১৯০৭ এর মধ্যে আতঙ্ক শেষ হয়ে গিয়েছিল।[২৫]

এমনটি আর কখনও ঘটতে দেওয়া যাবে না এবং ভবিষ্যতে এমন সংকটে আর একটি মরগান হওয়ার সম্ভাবনা নেই, ১৯১৩ সালে সিনেটর নেলসন অ্যালড্রিচের নেতৃত্বে ব্যাংকিং এবং রাজনৈতিক নেতারা একটি পরিকল্পনা তৈরি করেছিলেন যার ফলস্বরূপ ফেডারেল রিজার্ভ সিস্টেম তৈরি হয়েছিল ১৯১৩ সালে।[২৮]

ব্যাংকিংয়ের সমালোচকরা[সম্পাদনা]

জেপি মরগান, ১৯০৩ সালে এডওয়ার্ড স্টিচেন দ্বারা ছবি তোলা

প্রগতিশীল যুগে রক্ষণশীলরা মরগানকে তার নাগরিক দায়িত্ব, জাতীয় অর্থনীতির সুদৃঢ়করণ এবং চারুকলা ও ধর্মের প্রতি তার নিষ্ঠার জন্য প্রশংসা করলেও বামপন্থীরা তাকে প্রত্যাখ্যানিত ব্যবস্থার অন্যতম কেন্দ্রীয় ব্যক্তিত্ব হিসাবে দেখেছিল। [২৯] ধর্ম এবং উচ্চ সংস্কৃতির প্রতি দৃঢ় প্রতিশ্রুতি সহ আর্থিক গুরত্বের দিক দিয়ে মরগান রক্ষণশীলতার নতুন সংজ্ঞা দিয়েছিল। [৩০]

১৮৯৫ সালের সংকটে ফেডারেল সরকারের কাছে তার সোনার ঋণের শর্তের জন্য ব্যাংকিংয়ের শত্রুরা মরগানকে আক্রমণ করেছিল এবং লেখক আপটন সিনক্লেয়ারকে সাথে নিয়ে তারা ১৯০৭ এর আতঙ্কের আর্থিক সমাধানের জন্য তাকে আক্রমণ করেছিল। তারা নিউ ইয়র্ক, নিউ হ্যাভেন এবং হার্টফোর্ড রেলপথের আর্থিক দুরবস্থার জন্য তাকে দায়ী করার চেষ্টা করেছিল। ডিসেম্বর ১৯১২ সালে, মরগান হাউস ব্যাংকিং এবং মুদ্রা কমিটির উপকমিটি পুজো কমিটির সামনে সাক্ষ্য দেন। কমিটি শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে স্বল্প সংখ্যক আর্থিক নেতারা অনেক শিল্পের উপর যথেষ্ট নিয়ন্ত্রণ ব্যবহার করছেন। জে পি মরগান এন্ড কোং এর অংশীদার এবং প্রথম জাতীয় এবং জাতীয় সিটি ব্যাংকের পরিচালকরা ২২.২৪৫ বিলিয়ন ডলার সামগ্রিক সম্পদ নিয়ন্ত্রিত করেছেন। যাকে মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি, লুই ব্র্যান্ডেইস পরে মিসিসিপি নদীর পশ্চিমে বাইশটি রাজ্যের সমস্ত সম্পত্তি মূল্যের সাথে তুলনা করেছিলেন।[৩১]

অসফল উদ্যোগ[সম্পাদনা]

বেশ কয়েকটি ব্যর্থতাই প্রমাণ করে মরগান সর্বদা ভাল বিনিয়োগ করেননি।

নিকোলা টেসলা[সম্পাদনা]

১৯০০ সালে, আবিষ্কারক নিকোলা টেসলা মরগানকে বিশ্বাস করেছিলেন যে তিনি একটি ট্রান্স-আটলান্টিক ওয়্যারলেস যোগাযোগ ব্যবস্থা তৈরি করতে পারবেন (অবশেষে ওয়ার্ডেনক্লেফ এ বসানো হয়েছে) যা গুগলিয়েলমো মার্কনি দ্বারা প্রদর্শিত স্বল্প পরিসরের রেডিও তরঙ্গ-ভিত্তিক ওয়্যারলেস টেলিগ্রাফ সিস্টেমকে ছাড়িয়ে যাবে। মরগান টেসলাকে সিস্টেমটি তৈরি করতে $ ১৫০,০০০ ডলার (২০১৮ সাল অনুযায়ী ৪,৫১৭,৪০০ ডলার দিতে সম্মত হন) দিতে সম্মত হন পেটেন্টের ৫১% এর বিনিময়ে। চুক্তি স্বাক্ষর হওয়ার সাথে সাথেই টেসলা স্থিতিশীল ওয়্যারলেস পাওয়ার ট্রান্সমিশন সম্পর্কে তার ধারণাগুলি অন্তর্ভুক্ত করে সুবিধাটি আরো বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন, যেটা আরও প্রতিযোগিতামূলক সিস্টেম হবে বলে তিনি মনে করেছিলেন।[৩২] টেসলার পরিবর্তনগুলি বিবেচনা করে অতিরিক্ত অর্থের জন্য অনুরোধ করেছিলেন, কিন্তু মরগান চুক্তি ভঙ্গ করে এবং পরিবর্তনগুলির জন্য তহবিল দিতে অস্বীকার করেছিলেন। অতিরিক্ত বিনিয়োগের মূলধন না থাকায় ওয়ার্ডেনস্লিফের প্রকল্পটি ১৯০৬ সালে পরিত্যক্ত হয় এবং এটি কখনও কার্যকর হয় নি। [৩২][৩৩]

লন্ডন পাতাল রাস্তা[সম্পাদনা]

১৯০২ সালে মরগান একটি বিরল ব্যবসায়িক পরাজয়ের মুখোমুখি হন যখন তিনি লন্ডন আন্ডারগ্রাউন্ড মাঠে প্রবেশের চেষ্টা করেছিলেন। ট্রানজিট ম্যাগনেট চার্লস টাইসন ইয়ার্কস পিকারডিলি, সিটি এবং নর্থ ইস্ট লন্ডন রেলপথ নির্মাণের জন্য সংসদীয় কর্তৃত্ব অর্জনের জন্য মরগানের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়, এটি একটি পাতাল লাইন যা ইয়র্কস দ্বারা নিয়ন্ত্রিত "টিউব" লাইনগুলির সাথে প্রতিযোগিতা করবে। মরগান ইয়ার্কসের অভ্যুত্থানকে "সর্বশ্রেষ্ঠ বর্ণবাদ এবং ষড়যন্ত্র" বলে অভিহিত করেছিলেন। [৩৪]

আন্তর্জাতিক মার্কেন্টাইল মেরিন[সম্পাদনা]

১৯০২ সালে, 'জে পি মরগান অ্যান্ড কোং' একটি আটলান্টিক শিপিং সংস্থা 'ইন্টারন্যাশনাল মার্কেন্টাইল মেরিন কোম্পানি' (আইএমএমসি) গঠনের জন্য অর্থায়ন করেছিল, যা শিপিং বাণিজ্যের একচেটিয়াকরণের প্রচেষ্টায় বেশ কয়েকটি বড় আমেরিকান এবং ব্রিটিশ লাইন গ্রহণ করেছিল। আইএমএমসি হোল্ডিং সংস্থা যাদের অধীনস্থ অপারেটিং সাবসিডিয়ারি আছে এমন কর্পোরেশনগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করেছিল। মরগান রেলপথের সাথে চুক্তিভিত্তিক ব্যবস্থার মাধ্যমে ট্রান্সঅ্যাটল্যান্টিক শিপিংয়ের উপর আধিপত্য বিস্তার করার আশাবাদী ছিলেন, তবে সমুদ্র পরিবহণের নির্ধারিত প্রকৃতি, আমেরিকান অবিশ্বাস আইন এবং ব্রিটিশ সরকারের সাথে চুক্তির কারণে এটি অসম্ভব প্রমাণিত হয়েছিল। আইএমএমসির অন্যতম সহায়ক হ'ল হোয়াইট স্টার লাইন, যার মালিকানা ছিল আরএমএস টাইটানিকের । ১৯১২ সালে মরগানের মৃত্যুর এক বছর আগে বিখ্যাত জাহাজটির ডুবে যাওয়া আইএমএমসির জন্য একটি বিরাট আর্থিক বিপর্যয় ছিল, যা ১৯১৫ সালে দেউলিয়া সুরক্ষার জন্য আবেদন করতে বাধ্য হয়েছিল। আর্থিক রেকর্ডগুলির বিশ্লেষণে দেখা যায় যে আইএমএমসি অতিরিক্ত বিকাশ লাভ করেছিল এবং অপর্যাপ্ত নগদ প্রবাহে ভুগছিল যার ফলে এটি বন্ড সুদের অর্থ প্রদানের ক্ষেত্রে খেলাপি হয়ে যায়। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ দ্বারা সেই যাত্রায় রক্ষা পেয়েছিল, তবে আইএমএমসি শেষে 'ইউনাইটেড স্ট্যাটস লাইন্স' নাম নিয়ে পুনরায় আবির্ভুত হয়েছিল, সেটাও ১৯৮৬ সালে দেউলিয়া হয়ে যাওয়া।[৩৫][৩৬]

মরগান কর্পোরেশন[সম্পাদনা]

১৮৯০ থেকে ১৯১৩ সাল পর্যন্ত, ৪২টি বড় বড় কর্পোরেশনগুলি সংগঠিত হয়েছিল বা তাদের সিকিওরিটিগুলি জেপি মরগান অ্যান্ড কোম্পানির দ্বারা সম্পূর্ণ বা কিছু অংশে ''লিখিত আওতাভুক্ত'' হয়েছিল।[৩৭]

শিল্পজাতগুলি[সম্পাদনা]

রেলপথ[সম্পাদনা]

পরের বছরগুলো[সম্পাদনা]

১৮৯০ সালে পিতার মৃত্যুর পরে মরগান জেএস মরগান অ্যান্ড কোং (১৯১০ সালে মরগান, গ্রেনফেল এন্ড কোম্পানির নাম পরিবর্তন করে) এর নিয়ন্ত্রণ লাভ করে। ১৯৩০ সালে মরগান কার্নেগি কোং-এর সভাপতি চার্লস এম শোয়াব এবং ব্যবসায়ী অ্যান্ড্রু কার্নেগির সাথে আলোচনা শুরু করেছিলেন যাতে তিনি কার্নেগির ব্যবসা সহ বেশ কয়েকটি ইস্পাত ও লোহা ব্যবসা একত্রীকরণের মাধ্যমে ইউনাইটেড স্ট্যাটস স্টীল কর্পোরেশন গঠন করতে পারেন।[২৩] কার্নেগি ব্যবসাটি মরগানকে ৪৮০ মিলিয়ন ডলারে বিক্রয় করতে রাজি হয়েছিল।[২৩][৩৮] আইনজীবী এবং কোন লিখিত ছাড়াই এই চুক্তিটি স্থগিত হয়েছিল। ১৯০১ সালের জানুয়ারির মাঝামাঝি সময়ে শিল্প একীকরণের সংবাদ পত্র-পত্রিকা গুলিতে আসে। ইউএস স্টিল সেই বছরের শেষদিকে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং বিশ্বের প্রথম বিলিয়ন ডলারের সংস্থা হয়েছিল যার অনুমোদিত মূলধন ছিল $১.৪ বিলিয়ন।[৩৯]

মরগান নিউ ইয়র্ক সিটির ইউনিয়ন ক্লাবের সদস্য ছিলেন। তার বন্ধু, এরি রেলপথের প্রেসিডেন্ট জন কিং যখন 'ব্ল্যাক-বল্ড' হয়ে পড়েছিল, তখন মরগান পদত্যাগ করেছিলেন এবং নিউইয়র্কের মেট্রোপলিটন ক্লাবকে সংগঠিত করেছিলেন।[৪০] তিনি ৬০নং সড়কের ৫নং এভিনিউ-এ ১২৫,০০০ ডলার দামের জমিটি দান করেছিলেন এবং 'স্ট্যানফোর্ড হোয়াইট'কে আদেশ দিয়েছেন যে "... আমাকে ভদ্রলোকদের জন্য একটি ক্লাব বানিয়ে দাও, ব্যয় ভুলে যাও ..."[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] তিনি রাজাকে সনদের সদস্য হিসাবে আমন্ত্রিত করেছিলেন এবং ১৮৯১ থেকে ১৯০০ সাল পর্যন্ত ক্লাবের প্রেসিডেন্ট হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। [৪১]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

বিবাহ এবং সন্তানাদি[সম্পাদনা]

১৮৬১ সালে, মরগান আমিলিয়া স্টার্জ (ডাকনাম ''মিমি'') কে (১৮৩৫ - ১৮৬২) বিয়ে করেন। পরের বছর তিনি মারা যান। তিনি ফ্যানি নামে পরিচিত, ফ্রান্সেস লুইসা ট্রেসিকে (১৮৪২ - ১৯২৪) বিয়ে করেছিলেন, ৩১ মে ১৮৬৫ সালে। তাদের চারটি সন্তান ছিল।

চেহারা[সম্পাদনা]

নিজের রোসাসিয়া সম্পর্কে আত্মসচেতন, মরগান ছবি তোলা ঘৃণা করতেন।

মরগান প্রায়শই লোকদের উপর প্রচণ্ড শারীরিক হেনস্তা করতেন; এক ব্যক্তি মরগানের সাথে সাক্ষাত করে এসে বলেন "মনে হয়েছে যেন কোনও প্রবল বাতাস বয়ে গেল।" [৪৩] মরগান শারীরিকভাবে বিশাল কাঁধ, ভেদকারী চোখ এবং একটি বড় বেগুনি নাক (দীর্ঘস্থায়ী ত্বকের রোগ রোসেসিয়া কারণে) ছিল।[৪৪] তিনি প্রচারকে অপছন্দ করতেন এবং ছবি তোলাকে ঘৃণা করতেন; তার রোসেশিয়া সম্পর্কে তার আত্মচেতনার ফলস্বরূপ, তার সমস্ত পেশাদার প্রতিকৃতি পুনরায় হাত দেওয়া হত।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] তার বিকৃত নাকটি রাইনোফাইমা নামক একটি রোগের কারণে হয়েছিল যা রোসেসিয়ার ফলে হতে পারে। গর্ত, ফাটল, ক্ষুদ্র উৎগতাংশ, লোবুলেশনস এবং প্যাডনসুলেশন নাকের আরো বিকৃতি ঘটায়। এই অবস্থাটি অপরিশোধিত কৌতুককে অনুপ্রাণিত করে "জনি মরগানের অনুনাসিক অঙ্গগুলির মধ্যে বেগুনি রঙ রয়েছে।" [৪৫] সার্জনরা মরগানের জীবদ্দশায় সেবেসিয়াস টিস্যুগুলির বৃদ্ধি দূর করতে পারতেন, তবে ছোটবেলায় তিনি খিঁচুনিতে আক্রান্ত হয়েছিলেন এবং মরগানের জামাই হারবার্ট এল সাটারলি অনুমান করেছিলেন যে তিনি তার নাকের জন্য অস্ত্রোপচার করতে পারেননি কারণ তিনি ভয় পেতেন যে খিঁচুনি না আবার ফিরে আসে।[৪৬] তার সামাজিক ও পেশাদার আত্মবিশ্বাস এতটাই প্রতিষ্ঠিত ছিল যে তার এই সমস্যা তার মর্যাদা ক্ষুন্ন করতে পারে নাই। দেখে মনে হত যে তিনি দেখা করতে আসা লোকদের সাথে সরাসরি এবং কদর্যতার কারনে ছোট না হয়েই কথা বলতেন তার চরিত্রের বলে।[৪৭]

মরগান প্রতিদিন কয়েক ডজন সিগার ধূমপান করতেন এবং পর্যবেক্ষকরা এই বড় হাভানা সিগারকে হারকিউলিস ক্লাব নামে অভিহিত করত। [৪৮]

ধর্ম[সম্পাদনা]

মরগান এপিসকোপাল চার্চের আজীবন সদস্য ছিলেন এবং ১৮৯০ সালের মধ্যে এর অন্যতম প্রভাবশালী নেতা হয়ে উঠে ছিলেন। [৪৯] তিনি ম্যানহাটনের এপিস্কোপাল প্রাইভেট মেম্বার ক্লাব চার্চ ক্লাব অফ নিউইয়র্ক -এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন।[৫০] ১৯১০ সালে, এপিসকোপাল চার্চের জেনারেল কনভেনশন তাদের চারপাশের "বিশ্বাস ও শৃঙ্খলা " পার্থক্য নিরসনের জন্য গির্জার একটি বিশ্ব সম্মেলন বাস্তবায়নের জন্য বিশপ চার্লস ব্রেন্টের প্রস্তাবিত একটি কমিশন প্রতিষ্ঠা করে। মরগান এই জাতীয় সম্মেলনের প্রস্তাব শুনে এতটাই মুগ্ধ হয়েছিলেন যে কমিশনের কাজের জন্য তিনি $ ১০০,০০০ অবদান রেখেছিলেন। [৫১]

বাড়ী[সম্পাদনা]

২২৯, ২২৫ এবং ২১৯ ম্যাডিসন অ্যাভিনিউয়ের রাস্তাটি প্রশস্ত হওয়ার আগে প্রথম দিকের দৃশ্য (তৈরী-১৮৫৫)

২১৯ ম্যাডিসন অ্যাভিনিউতে তার বাড়িটি মূলত জন জে ফেল্পস দ্বারা ১৮৫৩ সালে নির্মিত হয়েছিল এবং মরগান ১৮৮২ সালে এটি কিনেছিল। [৫২] এটি নিউইয়র্কের বৈদ্যুতিকভাবে আলোকিত প্রথম ব্যক্তিগত বাসভবনে পরিণত হয়েছিল। নতুন প্রযুক্তির প্রতি তার আগ্রহ ছিল তাই তিনি ১৮৭৮ সালে টমাস আলভা এডিসনের এডিসন ইলেকট্রিক ইলুমিনেটিং কোম্পানি-তে অর্থায়ন করেছিলেন। [৫৩] ১২ ই এপ্রিল, ১৮৯৪ সালে জুলিয়েট মরগান এবং উইলিয়াম পাইয়ারসন হ্যামিল্টনের বিবাহ উপলক্ষ্যে আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এক হাজার মানুষের উপস্থিত ছিল, যেখানে তাদের মরগানের একটি প্রিয় ঘড়ি দেওয়া হয়েছিল। মরগানের নিউ ইয়র্কের গ্লেন কোভে নিজস্ব মালিকানাধীন একটি দ্বীপ ছিল, যেখানে তাদের একটি গ্রীষ্মকালীন বড় বাড়ি ছিল।

ইয়ট চালনা[সম্পাদনা]

আসল বাষ্প চালিত ইয়ট কোরসায়ার

আগ্রহী ইয়ট বাইচ খেলোয়াড় হিসাবে মরগানের বেশ কয়েকটি বড় ইয়ট ছিল। প্রথম ইয়ট কোরসায়ার, যেটা উইলিয়াম ক্র্যাম্প অ্যান্ড সন্স নির্মাণ করেছিল চার্লসের (১৮৩৭ - ১৮৮৫) জন্য, ২৬ মে ১৮৮০ সালে চালু হয়েছিল। চার্লস জে ওসবর্ন ছিলেন জে গোল্ডের প্রাইভেট ব্যাংকার। মরগান ১৮৮২ সালে এই ইয়ট কিনেছিল। [৫৪] সুপরিচিত উক্তি, "যদি আপনাকে দাম জিজ্ঞাসা করতে হয় তবে আপনি তা সহ্য করতে পারবেন না" সাধারণত ইয়টটি রক্ষণাবেক্ষণের ব্যয় সম্পর্কে একটি প্রশ্নের জবাবে মরগান বলেছিল, যদিও গল্পটি অসমর্থিত। [৫৫] ১৯৩০ সালে বাথ আয়রন ওয়ার্কসে ছেলে, জে পি মরগান জুনিয়রকে তার ইয়ট কোরসায়ার চতুর্থ উদ্বোধন প্রসঙ্গে অনুরূপ কিংবদন্তি উক্তি করেছিলেন, এটাও অসমর্থিত সূত্রে পাওয়া।

আরএমএস টাইটানিক, এর প্রথম সমুদ্রযাত্রায় মরগানের ভ্রমন নির্ধারিত ছিল, তবে শেষ মুহুর্তে বাতিল হয়ে যায়, ফ্রান্সের আইস-লেস-বাইনসের একটি রিসোর্টে থেকে যাওয়ার কারনে। [৫৬] হোয়াইট স্টার লাইন যে টাইটানিক পরিচালনা করতো সেটা ছিল মরগানের আন্তর্জাতিক মার্কেন্টাইল মেরিন কোম্পানি (আইএমএমসি)র অংশ, এবং মরগানকে জাহাজটিতে তার নিজস্ব ব্যক্তিগত স্যুট এবং প্রমোদ ডেক ছিল। টাইটানিকের ডুবে যাওয়ার প্রতিক্রিয়ায় মরগান মূলত বলেছিলেন, "আর্থিক ক্ষয়ক্ষতি জীবনে কিছু নয়। এটি জীবনের ক্ষতি যেটা গণনা করা যায়। এটি ভয়াবহ মৃত্যু।" [৫৭]

সংগ্রাহক[সম্পাদনা]

পত্রিকায় জে পি মরগানের সংগৃহিত রত্ন

মরগান বই, ছবি, চিত্রকর্ম, ঘড়ি এবং অন্যান্য শিল্প সামগ্রীর একটি উল্লেখযোগ্য সংগ্রাহক ছিলেন, অনেক মেট্রোপলিটন মিউজিয়াম অফ আর্ট কে ধার দেওয়া হয়েছিল (যার প্রেসিডেন্ট ছিলেন মরগান), অনেক সংগ্রহ ছিল তার লন্ডনের বাড়ীতে এবং নিউইয়র্ক সিটির ম্যাডিসন অ্যাভিনিউয়ের কাছে ৩৬নং রোডের বাড়িতে এবং তার ব্যক্তিগত গ্রন্থাগারে ছিল। তার পুত্র জে পি মরগান জুনিয়র ১৯২৪ সালে পিয়েরপন্ট মরগান লাইব্রেরিকে বাবার স্মৃতিসৌধ হিসাবে একটি পাবলিক প্রতিষ্ঠান বানিয়েছিলেন এবং তার বাবার বেসরকারী গ্রন্থাগারিক বেলিয়ে দা কোস্টা গ্রিন কে প্রথম পরিচালক হিসাবে রেখেছিলেন। [৫৮] মরগানের পোট্রেট পেরুভিয়ান কার্লোস বাকা-ফ্লোর এবং সুইস-বংশোদ্ভূত আমেরিকান অ্যাডল্ফ মুলার-ইউরি সহ অনেক শিল্পী আঁকেন, তিনি তার প্রিয় নাতি মাবেল স্যাটারলির সাথে মরগানের একটি ডাবল প্রতিকৃতিও আঁকেন যেটা কয়েক বছর ধরে চিত্র ফলকে দাঁড়িয়ে ছিল কিন্তু এখন অদৃশ্য হয়ে গেছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

হিতকারী[সম্পাদনা]

মরগান আমেরিকান মিউজিয়াম অফ ন্যাচারাল হিস্ট্রি, মেট্রোপলিটন মিউজিয়াম অফ আর্ট, হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় এর গ্রাটন স্কুল (বিশেষত এর মেডিকেল স্কুল), ট্রিনিটি কলেজ, নিউইয়র্ক শহরের লাইং ইন হাসপাতাল এবং নিউইয়র্কের ট্রেড স্কুলের দাতা ও পৃষ্ঠপোষক ছিলেন।

রত্ন সংগ্রহকারী[সম্পাদনা]

মরগান সংগ্রহ থেকে মার্কিন রত্নপাথর

শতাব্দীর শেষে, মরগান আমেরিকার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ রত্ন সংগ্রহকারী হয়ে উঠেছিলেন এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ রত্ন সংগ্রাহক হিসাবে তিনি ১০০০ এরও বেশি রত্নপাথর একত্রিত করেছিল। টিফানি অ্যান্ড কোং তাদের রত্নবিশারত জর্জ ফ্রেডেরিক কুঞ্জের অধীনে মর্গানের সংগ্রহ একত্রিত করা হয়েছিল। সংগ্রহটি প্যারিসের বিশ্ব মেলায় ১৮৮৯ সালে প্রদর্শিত হয়েছিল। প্রদর্শনীটি দুটি স্বর্ণ পুরষ্কার জিতেছিল এবং গুরুত্বপূর্ণ পণ্ডিত, জহুরি এবং সাধারণ মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল। [৫৯]

জর্জ ফ্রেডেরিক কুঞ্জ প্যারিসে ১৯০০ সালে তার দ্বিতীয় ও আরো সুন্দর প্রদর্শনীর আয়োজন করেছিলেন। এই সংগ্রহগুলি নিউইয়র্কের আমেরিকান মিউজিয়াম অফ ন্যাচারাল হিস্ট্রি জাদুঘরে দান করা হয়েছে, সেখানে ঐগুলি মরগান-টিফানি এবং মরগান-বেমেন্ট সংগ্রহ হিসাবে পরিচিত। [৬০] ১৯১১ সালে কুঞ্জ নতুন পাওয়া এক রত্নের নামকরন করেছিলেন মরগানাইট, তার শ্রেষ্ঠ গ্রাহক মরগানের নামে।

ফটোগ্রাফি[সম্পাদনা]

মরগার ফটোগ্রাফার অ্যাডওয়ার্ড এস কার্টিসের পৃষ্ঠপোষক ছিলেন, তিনি ভারতীয় আমেরিকানদের উপর একটি সিরিজ তৈরির জন্য ১৯০৬ সালে কার্টিসকে $ ৭৫০০০ ডলার দিয়েছিলেন। [৬১] কার্টিস অবশেষে দ্য নর্থ আমেরিকান ইন্ডিয়ান নামে ২০ খণ্ডের এ কাজ প্রকাশ করেছিলেন। [৬২] কার্টিস একটি চলচ্চিত্রও তৈরি করেছিলেন, দ্য ল্যান্ড অব দ্য হেড হান্টার্স (১৯১৪), যা ১৯৭৪ সালে পুনরুদ্ধার করা হয়েছিল এবং ইন দ্যা ল্যান্ড অফ দ্যা ওয়ার ক্যানোস হিসাবে পুনরায় প্রকাশ করা হয়েছিল। কার্টিস ১৯১১ সালের ম্যাজিক লণ্ঠনের স্লাইড শো দ্য ইন্ডিয়ান পিকচার অপেরা-র জন্য বিখ্যাত ছিল, যাতে সে তার ছবি ও সুরকার হেনরি এফ গিলবার্টের সুর ও সংগীত ব্যবহার করেছিলেন। [৬৩]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

জেপি মরগান গ্রন্থাগার ও আর্ট মিউজিয়াম

মরগান তার ৭৬ তম জন্মদিনে ১৯৩১ সালের ৩১ শে মার্চ বিদেশ ভ্রমণে থাকা অবস্থায় ইতালির রোমের গ্র্যান্ড হোটেলে ঘুমন্ত অবস্থায় মারা যান। ওয়াল স্ট্রিটের পতাকাগুলি অর্ধনমিত ছিল, এবং সাধারণত রাষ্ট্রপ্রধানদের জন্য সংরক্ষিত সম্মান, স্টক মার্কেট দুই ঘন্টা বন্ধ ছিল যখন তার মৃতদেহটি নিউ ইয়র্ক সিটি দিয়ে যায়। [৬৪] নিউইয়র্ক সিটিতে পৌঁছানোর প্রথম রাতে তার মরদেহ তার বাড়িতে এবং সংলগ্ন গ্রন্থাগারে শুইয়ে রাখা হয়েছিল। তাকে তার জন্মস্থান হার্টফোর্ড, কানেকটিকাটের সিডার হিল কবরস্থানে সমাহিত করা হয়েছে। তার ছেলে জন পিয়ারপন্ট "জ্যাক" মরগান জুনিয়র ব্যাংকিং ব্যবসার উত্তরাধিকার হন। [৬৫] তিনি তার ম্যানসন এবং বৃহৎ বইয়ের সংগ্রহটি নিউইয়র্কের মরগান লাইব্রেরি এবং সংগ্রহশালায় দান করেন।

তার সমস্ত সম্পত্তির মূল্য ছিল ৬৮.৩ মিলিয়ন ডলার ($ ১.৩৯ বিলিয়ন ডলার বর্তমান সিপিআই অনুযায়ী বা ২৫.২ বিলিয়ন ডলার জিডিপি অংশীদারের উপর ভিত্তি করে), যার মধ্যে প্রায় ৩০ মিলিয়ন ডলার ছিল নিউইয়র্ক এবং ফিলাডেলফিয়ার ব্যাংকগুলিতে। তার শিল্প সংগ্রহের আনুমানিক মূল্য ধরা হয়েছিল $ ৫০ মিলিয়ন ডলার। [৬৬]

উত্তরাধিকার[সম্পাদনা]

তার ছেলে জেপি মরগান জুনিয়র তার বাবার মৃত্যুর পরে এই ব্যবসাটি গ্রহণ করেছিলেন, তবে প্রভাবশালী হতে পারেন নি। ১৯৩৩ সালের গ্লাস-স্টিগাল অ্যাক্ট দ্বারা "হাউস অফ মরগান" তিনটি সত্তা হয়ে উঠেছিল: জে পি মরগান অ্যান্ড কোং, যা পরবর্তীকালে মরগান গ্যারান্টি ট্রাস্টে ; মর্গান স্ট্যানলি, তার নাতি হেনরি স্টুরগিস মরগান দ্বারা গঠিত একটি বিনিয়োগ ঘর; আর লন্ডনের মরগান গ্রেনফেল, একটি বিদেশী সিকিউরিটিজ হাউস।

তার সম্মানে রত্ন পাথর মরগানাইটের নামকরণ করা হয়েছিল। [৬৭]

ক্রেগস্টোন নির্ভরতা, ক্রাগস্টোন (হাইল্যান্ডস, নিউ ইয়র্ক) এ মরগানের এস্টেটের সাথে সম্পর্কিত, যা ১৯৮৮ সালে ন্যাশনাল রেজিস্টার অফ হিস্টোরিক প্লেসেসের তালিকাভুক্ত হয়েছিল। [৬৮]

জনপ্রিয় সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "J.P. Morgan"Encyclopædia Britannica 
  2. Adrian Wooldridge (সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৬)। "The alphabet of success"The Economist। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৬ 
  3. [১]
  4. Witzel, Morgan (২০০৩)। Fifty Key Figures in Management। Routledge। পৃষ্ঠা 207। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৫ 
  5. J.P. Morgan's Way। Pearson Education। ২০১০। পৃষ্ঠা 2। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৫ 
  6. Vincent P. Carosso; Rose C. Carosso (জানুয়ারি ১, ১৯৮৭)। The Morgans: Private International Bankers, 1854-1913। Harvard University Press। পৃষ্ঠা 31–32। আইএসবিএন 978-0-674-58729-8 
  7. "JP Morgan biography – One of the most influential bankers in history"। Financial-inspiration.com। মার্চ ৩১, ১৯১৩। অক্টোবর ১৬, ২০০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ৭, ২০১৩ 
  8. Zinn, Howard। A People's History of the United States। পৃষ্ঠা 255। আইএসবিএন 978-0060937317 
  9. Wasson, R. Gordon (১৯৪৩)। The Hall Carbine Affair: a study in contemporary folklore। Pandick Press। 
  10. Josephson, Matthew (১৯৯৫)। The Robber Barons। Harcourt, Brace & Co.। পৃষ্ঠা 61ff। আইএসবিএন 9780156767903 
  11. Morris, Charles (২০০৬)। The Tycoons। Holt Paperbacks। পৃষ্ঠা 337। আইএসবিএন 978-0805081343 
  12. Rottenberg, Dan (২০০৬)। The Man Who Made Wall Street: Anthony J. Drexel and the Rise of Modern Finance। University of Pennsylvania Press। পৃষ্ঠা 98। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৫ 
  13. Garraty, (1960).
  14. Timmons, Heather (নভেম্বর ১৮, ২০০২)।  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  15. "Morganization: How Bankrupt Railroads were Reorganized"। মার্চ ১৪, ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৫, ২০০৭ 
  16. Jean Strouse, Morgan: American Financier (1999) pp 223-62.
  17. Albro Martin, Albro. "Crisis of Rugged Individualism: The West Shore-South Pennsylvania Railroad Affair, 1880-1885." Pennsylvania Magazine of History and Biography 93.2 (1969): 218-243. online
  18. Vincent P. Carosso, The Morgans: Private International Bankers, 1854-1913 (1987) pp 219-69, 352-96.
  19. Carosso, The Morgans: Private International Bankers, 1854-1913 (1987) pp 478-79, 529-30; Strouse, pp 418-33, 515.
  20. The value of the gold would have been approximately $72 million at the official price of $20.67 per ounce at the time. "Historical Gold Prices – 1833 to Present"; National Mining Association; retrieved December 22, 2011.
  21. "J.P. Morgan: Biography"Biography.com। A&E Television Networks, LLC। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ৮, ২০১৫ 
  22. Gordon, John Steele (Winter 2010). ওয়েব্যাক মেশিনে "The Golden Touch" (জুলাই ২, ২০১০ তারিখে আর্কাইভকৃত), American Heritage.com; retrieved December 22, 2011; archived from the original on July 10, 2010.
  23. Krass, Peter (মে ২০০১)। "He Did It! (creation of U.S. Steel by J.P. Morgan)"। Across the Board (Professional Collection)। 
  24. Garraty, John A. (১৯৬০)। "The United States Steel Corporation Versus Labor: the Early Years": 3–38। doi:10.1080/00236566008583839 
  25. Carosso, The Morgans pp. 528–48
  26. Robert F. Bruner and Sean D. Carr (eds.), The Panic of 1907: Lessons Learned from the Market's Perfect Storm (2007)
  27. Fridson, Martin S. (১৯৯৮)। It Was a Very Good Year: Extraordinary Moments in Stock Market History। John Wiley & Sons। পৃষ্ঠা 6। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৫ 
  28. Note: The episode politically embarrassed Roosevelt for years; Garraty; 1960; chapter 11.
  29. Jean Strouse, Morgan: American Financier (1999).
  30. Charles R. Morris, The Tycoons: How Andrew Carnegie, John D. Rockefeller, Jay Gould, and J. P. Morgan Invented the American Supereconomy (2006).
  31. Brandeis (1995[1914]), ch. 2
  32. Seifer, Marc J. (২০০৬)। "Nikola Tesla: The Lost Wizard" 
  33. Cheney, Margaret (২০০১)। Tesla: Man Out of Time। Simon & Schuster। পৃষ্ঠা 203–208। আইএসবিএন 0-7432-1536-2 
  34. Franch, John (২০০৬)। Robber Baron: The Life of Charles Tyson Yerkes। University of Illinois Press। পৃষ্ঠা 298। আইএসবিএন 0-252-03099-0 
  35. Clark, John J.; Clark, Margaret T. (১৯৯৭)। "The International Mercantile Marine Company: A Financial Analysis": 137–154। 
  36. Steven H. Gittelman, J. P. Morgan and the Transportation Kings: The Titanic and Other Disasters (Lanham: University Press of America, 2012).
  37. Meyer Weinberg, ed. America's Economic Heritage (1983) 2: 350.[আইএসবিএন অনুপস্থিত]
  38. Andrew Carnegie's Legacy. carnegie.org. Retrieved August 20, 2014.
  39. J. P. Morgan; October 31, 2009; Microsoft Encarta Online Encyclopedia; 2006; .
  40. "The Epic of Rockefeller Center"। TODAY.com। সেপ্টেম্বর ৩০, ২০০৩। মে ২৮, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ৭, ২০১৩ 
  41. The Philanthropy Hall of Fame, J.P. Morgan
  42. J. Pierpont Morgan, Satterlee, Herbert L., New York: The Macmillan Company, 1939.
  43. John Pierpont Morgan and the American Corporation, Biography of America.
  44. "findagrave.com" 
  45. Kennedy, David M., and Lizabeth Cohen; The American Pageant; Houghton Mifflin Company: Boston, 2006. p. 541.
  46. Strouse, Jean (২০০০)। Morgan, American Financier। Perennial। পৃষ্ঠা 265। আইএসবিএন 978-0-06-095589-2 
  47. Strouse, Morgan: American Financier pp. 265–66.
  48. Chernow (2001).
  49. The Episcopalians, Hein, David and Gardiner H. Shattuck Jr., Westport: Praeger, 2005.
  50. "History"The Church Club of New York 
  51. Heather A. Warren, Religion in America: Theologians of a New World Order: Rheinhold Niebuhr and the Christian Realists, 1920-1948 (Oxford University Press, 1997), 16.
  52. "J. P. Morgan Home, 219 Madison Avenue"Digital Culture of Metropolitan New York। Digital Culture of Metropolitan New York is a service of the Metropolitan New York Library Council। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ১৫, ২০১৫ 
  53. Chernow (2001) Chapter 4.
  54. "Yacht Corsair"। Spirit of the Times। ২৯ মে ১৮৮০। ১৮ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জুলাই ২০১৮ 
  55. Business Education World, Vol. 42। Gregg Publishing Company। ১৯৬১। পৃষ্ঠা 32। 
  56. Chernow (2001) Chapter 8.
  57. Daugherty, Greg (মার্চ ২০১২)। "Seven Famous People who missed the Titanic"Smithsonian Magazine। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ১৫, ২০১২ 
  58. Auchincloss (1990).
  59. Morgan and His Gem Collection; George Frederick Kunz: Gems and Precious Stones of North America, New York, 1890, accessed online February 20, 2007.
  60. Morgan and His Gem Collections; donations to AMNH; in George Frederick Kunz: History of Gems Found in North Carolina, Raleigh, 1907, accessed online February 20, 2007.
  61. "Biography"Edward S. Curtis। Flury & Company। পৃষ্ঠা 4। আগস্ট ৭, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৭, ২০১২ 
  62. "The North American Indian" 
  63. "The Indian Picture Opera—A Vanishing Race"। মার্চ ১১, ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  64. Modern Marvels episode "The Stock Exchange" originally aired on October 12, 1997.
  65. "Cedar Hill Cemetery"। আগস্ট ২৭, ২০০৬। আগস্ট ২৭, ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  66. Chernow (2001) ch 8.
  67. Morganite, International Colored Gemstone Association, accessed online January 22, 2007.
  68. কর্মী (২০০৯-০৩-১৩)। "জাতীয় নিবন্ধন তথ্য পদ্ধতি"ঐতিহাসিক স্থানসমূহের জাতীয় নিবন্ধনজাতীয় পার্ক পরিষেবা 
  69. Carr, Caleb (১৯৯৪)। The Alienist। Random House। 
  70. Doctorow, E. L. (১৯৭৫)। Ragtime। Random House। 
  71. Drachman, Steven S. (২০১১)। The Ghosts of Watt O'Hugh। পৃষ্ঠা 2, 17–28, 33–34, 70–81, 151–159, 195। আইএসবিএন 9780578085906 
  72. Moore, Graham (২০১৬)। The Last Days of Night। Random House। 
  73. "Citizen Kane (1941)"। Filmsite.org। মে ১, ১৯৪১। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ৭, ২০১৩ 
  74. Turpin, Zachary। "Interview: Phil Orbanes, Monopoly Expert (Part Two)"। Book of Odds। মে ২, ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১২ 
  75. "The Men Who Built America > The History Channel Club"। সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১২। সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  76. Cass Canfield, The incredible Pierpont Morgan: financier and art collector, Harper & Row – 1974, page 125
  77. David A. Jasen, A Century of American Popular Music, Routledge, October 15, 2013, page 142

আরও পড়া[সম্পাদনা]

জীবনী[সম্পাদনা]

বিশেষায়িত পড়াশোনা[সম্পাদনা]

  • Brandeis, Louis D. Other People's Money and How the Bankers Use It. Ed. Melvin I. Urofsky. (1995). আইএসবিএন ০-৩১২-১০৩১৪-X
  • Carosso, Vincent P. Investment Banking in America: A History Harvard University Press (1970)
  • De Long, Bradford. "Did JP Morgan's Men Add Value?: An Economist's Perspective on Financial Capitalism," in Peter Temin, ed., Inside the Business Enterprise: Historical Perspectives on the Use of Information (1991) pp. 205–36; shows firms with a Morgan partner on their board had higher stock prices (relative to book value) than their competitors
  • Forbes, John Douglas. J. P. Morgan Jr. 1867–1943 (1981). 262 pp. biography of his son
  • Fraser, Steve. Every Man a Speculator: A History of Wall Street in American Life HarperCollins (2005)
  • Garraty, John A. Right-Hand Man: The Life of George W. Perkins. (1960) আইএসবিএন ৯৭৮-০-৩১৩-২০১৮৬-৮; Perkins was a top aide 1900–1910
  • Garraty, John A. "The United States Steel Corporation Versus Labor: The Early Years," Labor History 1960 1(1): 3–38
  • Geisst; Charles R. Wall Street: A History from Its Beginnings to the Fall of Enron. Oxford University Press. 2004.
  • Giedeman, Daniel C. "J. P. Morgan, the Clayton Antitrust Act, and Industrial Finance-Constraints in the Early Twentieth Century", Essays in Economic and Business History, 2004 22: 111–126
  • Hannah, Leslie. "J. P. Morgan in London and New York before 1914," Business History Review 85 (Spring 2011) 113–50
  • Keys, C.M. (জানুয়ারি ১৯০৮)। "The Builders I: The House of Morgan"The World's Work। খণ্ড 15 নং 2। পৃষ্ঠা 9779–9704। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১০, ২০০৯ 
  • Moody, John. The Masters of Capital: A Chronicle of Wall Street (1921)
  • Rottenberg, Dan. The Man Who Made Wall Street. University of Pennsylvania Press.

বাহ্যিক লিঙ্কগুলি[সম্পাদনা]

  • The Morgan Library and Museum, 225 Madison Ave, New York, NY 10016
  • The American Experience—J.P. Morgan
  • উইকিসংকলনে পাঠ্য:
    • "Morgan, John Pierpont"। ব্রিটিশ বিশ্বকোষ (১১তম সংস্করণ)। ১৯১১। [[বিষয়শ্রেণী:উইকিসংকলনের তথ্যসূত্রসহ ১৯১১ সালের এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা থেকে উইকিপিডিয়া নিবন্ধসমূহে একটি উদ্ধৃতি একত্রিত করা হয়েছে]]
    • "Morgan, John Pierpont"। New International Encyclopedia। ১৯০৫। 


সাংস্কৃতিক কার্যালয়
পূর্বসূরী
Frederic W. Rhinelander
Metropolitam Museum of Art by Simon Fieldhouse.jpg
President of the Metropolitan Museum of Art

1904-1913
উত্তরসূরী
Robert W. DeForest