জেল পলায়ন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মার্কিন মার্শালরা পালিয়ে যাওয়া রোধে বন্দী পরিবহন পর্যবেক্ষণ করছে

একটি জেল পলায়ন (আরো বলা হয় আবক্ষ, পালানো, জেল থেকে পালানো, বা জেল বিরতি) হল অনানুষ্ঠানিক বা অবৈধ উপায়ে কোন কয়েদী কর্তৃক কারাগার বা জেল থেকে পালানো। সাধারণত, যখন এটি ঘটে তখন কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে তাদের পুনর্বার গ্রেপ্তার এবং তাদের মূল কারাগারে আবার ফিরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়। কারাগার থেকে পালানোও কিছু দেশে অপরাধমূলক কাজ, যেমন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়া, এবং এটির ফলে কয়েদীর কারাগারের শাস্তির সময়কালের সাথে আরো সময় যুক্ত হওয়ার খুব সম্ভাবনা রয়েছে, পাশাপাশি কয়েদীকে আরো বাড়ানো সুরক্ষার আওতায় রাখা হয়।

অনেক কারাগারে সুরক্ষা বৈশিষ্ট্য যেমন মোশন সেন্সর, সিসিটিভি, বন্ধ জানালা, উঁচু দেয়াল, কাঁটাতার (বা কিছু দেশে ক্ষুর তার) এবং বৈদ্যুতিক পরিবেষ্টনী ব্যবহার করা হয় কয়েদীদের পালানো রোধ করতে।

পদ্ধতি[সম্পাদনা]

১৯৪৫ সালের মার্চ মাসে লিম্বুর্গের মার্কিন পাবলিক শিবির থেকে ১,২০০ মার্কিন সেনা পালিয়েছে

সময়ের সাথে সাথে কারাগার থেকে পালাতে অসংখ্য পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়েছে। বহু পলায়ন সফলভাবে কয়েদীদের দ্বারা পরিচালিত হয়েছে যেগুলো তাদের নিজস্ব আবিষ্কৃত পদ্ধতি। ভবিষ্যতে একইরকমভাবে পালিয়ে যাওয়া রোধ করার জন্য কারাগার থেকে পালানোর মতো দুর্বলতা বা পথগুলি প্রায়শই বিশ্বজুড়ে অসংখ্য কারাগারে সংশোধন করা হয়। এটি কয়েদীদের নতুন উপায় সন্ধান করতে পরিচালিত করে।

যেহেতু কয়েদীদের সাধারণত প্রচুর সময় থাকে যেখানে তারা কিছুই করছে না, তাই এগুলি তাদের চিন্তাভাবনা করার জন্য প্রচুর সময় দেয় যা তাদের পরিকল্পনা তৈরি করতে এবং পালানোর উপায়গুলি বের করার সুযোগ দেয়।

নিম্নলিখিত পন্থাগুলি যা সাধারণত পালানো বন্দীদের দ্বারা ব্যবহৃত হয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে, এগুলির সংমিশ্রণও ব্যবহার করা হয়।[১]

সেল পলায়ন[সম্পাদনা]

কিছু বন্দীদের মাঝে মাঝে তাদের সেল থেকে বের করার অনুমতি দেওয়া হয়, অন্যরা বেশিরভাগ সময় তাদের সেলে আবদ্ধ থাকে, বিশেষত যারা নির্জন কারাবাসে বন্দি রয়েছে। অনেক কয়েদী যাদের সেলে রাখা হয় তারা অবশ্যই সেল থেকে বের হওয়ার উপায় খুঁজে। এমনকি যাদের মাঝে মাঝে তাদের সেল থেকে বাইরে বেরিয়ে আসার অনুমতি রয়েছে তাদেরও এই পরিকল্পনা থাকে।

দরজা, জানালা, আলো, বায়ুচলাচল ব্যবস্থা, দেয়াল ভেঙে বা ভূগর্ভস্থ টানেল দিয়ে সেল থেকে পলায়নের ঘটনা ঘটে থাকে।

কিছু কয়েদী তাদের কক্ষ বা সেলের তালা বাছাই করে, তাদের সেলের চাবি তৈরি করে, দরজা বা জানালাগুলির বার কেটে, দেয়াল খোদাই করে বা ফাটল ভেঙে পালিয়ে যায়।

সংবরণ অনুপ্রবেশ[সম্পাদনা]

কারাগারের শারীরিক সংবরণ ভেঙে বা স্খলনের মাধমে, যার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে সেলটি নিজেই বা আশেপাশের কমপ্লেক্স সহ। পদ্ধতির মধ্যে রয়েছে ঘর বা প্রাঙ্গণ দেয়াল ধ্বংস করা, আঁটসাঁট জায়গাগুলির মধ্য দিয়ে সঙ্কুচিত হওয়া, বা বন্ধ-সীমানা এলাকায় প্রবেশ করা। কয়েদীরা প্রায়শই সাদাসিধা সরঞ্জাম, চোরাচালান সামগ্রী বা অন্যান্য নিষিদ্ধ পণ্য দিয়ে তাদের সামনের সংবরণগুলিকে বিনষ্ট করে। বেশিরভাগ কারাগারের বাইরের দিক এক বা একাধিক বেড়া দ্বারা ঘেরা থাকে, প্রায়শই যেগুলোর শীর্ষে থাকে কাঁটা তারের বা রেজার তার। পলায়নের সময় বেড়াগুলি বেয়ে উঠতে হয় বা বেড়াগুলির মধ্যে দিয়ে ছিদ্র করে বের হতে হয়। এই বেড়াগুলি টাওয়ার থেকে এক বা একাধিক রক্ষী দ্বারাও পর্যবেক্ষণ করা হয়, তবে যখন রক্ষীটি সরে যায়, অন্ধকারে দেখতে না পারা যায় বা চাকরিরত অবস্থায় ঘুমোয় তখন কয়েদীরা বেড়াটি পেরিয়ে যায়। বেড়ার বাইরে প্রায়শই একটি বাহনে অফিসার কর্তৃক পরিচালিত একটি পেরিমিটার প্যাট্রোল বা টহল থাকে, যা প্রতিরক্ষার চূড়ান্ত লাইন হিসাবে দাঁড়ায়। পালানো কয়েদীরা টহলরত অফিসারের অতিক্রমের সময়ের অধ্যয়ন করে বা অন্যদিকে না আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করে বা রাতের অন্ধকার ব্যবহার করে পলায়ন করে।

একটি বিরল পদ্ধতি যা অনেক সময়ে ব্যবহার করা হয় সেগুলির মধ্যে রয়েছে কারাগারের নিচের টানেলটি যেটি কারাগারের বাইরে প্রস্থান করে সেটি খনন করে পলায়ন।

শারীরিক বল[সম্পাদনা]

ভোঁতা অস্ত্র দিয়ে রক্ষীদের আক্রমণ করা, সাদাসিধা অস্ত্র, চোরাচালান অস্ত্র, বা নাগালে থাকা রক্ষীদের কাছ থেকে অস্ত্র চুরি।

কিছু পলায়নে এক বা একাধিক কয়েদী পুরো ইউনিট বা কারাগারের বিভাগ গ্রহণ, রক্ষীদের কর্তৃত্ব, সুবিধার জন্য ব্যবহার করতে অস্ত্র বা অন্যান্য বস্তু চুরি জড়িত থাকে।

ছলচাতুরি[সম্পাদনা]

প্রতারণার সাথে জড়িত থাকতে পারে এক বা একাধিক প্রহরীকে বিশ্বাস করানো যে কয়েদী বৈধ কারণে কারাগারের মাঠ ছাড়ার জন্য অনুমোদিত, বা কয়েদীর শ্রমিক বা বেসামরিক ব্যক্তি হিসাবে ছদ্মবেশ ধারন করা যারা সন্দেহের সৃষ্টি না করেই কারাগারের মাঠ থেকে বেরিয়ে যেতে পারে, বা প্রহরীদের বিভ্রান্ত করার জন্য একটি কৌশলের সৃষ্টি।

কিছু পলায়নে, কয়েদিরা তাদের কক্ষে বা সেলে রয়েছে বলে রক্ষীদের বিশ্বাস করাতে অস্থায়ী ডামি (পুতুল) তৈরি করে, সাধারণত বিছানায়, যখন তারা কাছাকাছি থাকে নাহ। যেহুুতু কয়েদীরা পালানোর সময় এটি তাদের বিছানায় রেখে যায় এতে করে যখন রক্ষীরা রাতে কয়েদীদের মাথা গণনা করে তখন তারা সহজেই বোকা বনে যায়, সকালে আসল ঘটনা উদঘাটনের আগে পর্যন্ত কয়েদীরা পলায়নে অধিক সময় পায়। এই জাতীয় ডামিগুলি সাধারণত বেশ অসূক্ষ্ম ভাবেই নির্মিত হয়, প্রায়শই বন্দি বা অন্যের চুল, জুতা এবং ভেতরে ভর্তির জন্য বিবিধ পদার্থ ব্যবহার করে, একটি কম্বলের নীচে লুকানো থাকে যাতে একটি দেহের উপস্থিত থাকার চেহারা দেওয়া যায়।

দুর্বলতার সুযোগ[সম্পাদনা]

জেলখানার সুরক্ষায় ছিদ্র খুঁজে পাওয়া এবং সেগুলির সুবিধা গ্রহণ করা। এর মধ্যে নিরাপত্তা বিষয়ক উপেক্ষিত বিষয়ের সন্ধান পাওয়া, বা নীতি বা পদ্ধতি অনুসরণ করেনা এমন প্রহরী, বা অন্যথায় তারা কাজ সঠিকভাবে করছে না ফলে এর সুযোগ নেওয়াও অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

দুর্নীতি[সম্পাদনা]

কারাগারের কর্মীদের পক্ষ থেকে উদ্দেশ্যমূলক অন্যায়ের সুযোগ গ্রহণ করা। এর মধ্যে স্টাফদের দ্বারা পাচার হওয়া অস্ত্র বা অন্যান্য চোরা চালানের ব্যবহারও অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে বা যারা সেই বন্দীর স্বাধীনতায় বিশ্বাসী এবং স্বেচ্ছায় সহায়তা করে এমন কর্মীদের কাছ থেকে সহায়তা গ্রহণ করতে পারে।

ফিরে যাওয়ার ব্যর্থতা[সম্পাদনা]

কিছু কম সুরক্ষিত বন্দীদের সাময়িকভাবে কারাগার ছেড়ে যাওয়ার সুযোগ দেওয়া হয় এই সম্মানের ভিত্তিতে যে তারা আববার ফিরে আসবে। এর মধ্যে যারা জেলের বাইরে কাজ করতে যায় বা সাময়িক ছুটিতে সময়ে সময়ে বাইরে যাওয়ার অনুমতিও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।।

বাইরে থেকে অব্যাহতি[সম্পাদনা]

হেফাজতে থাকাকালীন সুবিধার ভিত্তিতে পপাালানোব্রেকিং। কয়েদিদের প্রায়শই কাজের দায়িত্বের জন্য, জেলসমূহে স্থানান্তরিত করতে, আদালতের শুনানিতে অংশ নেওয়া, হাসপাতালে ভর্তি এবং চিকিত্সা অ্যাপয়েন্টমেন্টের জন্য এবং অন্যান্য কারণে স্থানান্তর করা হয়।

বাইরের সাহায্য[সম্পাদনা]

কারাগারের দেয়ালের বাইরে সহকর্মীর কাছ থেকে সহায়তা পাওয়া, যারা কয়েদির প্রবেশের পরে কারাগারে তাকে দেখতে আসে, দর্শনার্থী হিসাবে নিষেধাজ্ঞা পন্য চোরাচালান করে, হেলিকপ্টার ব্যবহার সহ অন্যান্য পদ্ধতি। যখন নিষিদ্ধ জিনিসটি চোরাচালান করা হয়, এটি হয় বাইরে থেকে পাঠঠানো বা বাইরে থেকে বেড়ার উপর দিয়ে নিক্ষেপ করা হতে পারে, বন্দিকে উপহার হিসাবে দেওয়া কোন বৈধ জিনিসে লুকানো থাকতে পারে, বা অতীত দুর্নীতিবাজ নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের মাধ্যমে। কিছু ক্ষেত্রে জেলের কর্মীরা নিজেরাই চোরাচালানের উত্স।

দ্বীপ কারাগার থেকে পালানো[সম্পাদনা]

একটি দ্বীপ কারাগার থেকে পালিয়ে খোলা জমিতে আসতে জল পারাপারের বিষয়টি পলাতক কয়েদির জন্য একটি চ্যালেঞ্জ। এটি একটি অস্থায়ী ভেলা নির্মাণের মাধ্যমে বা নৌকার মালিকের বাইরের সহায়তা গ্রহণের মাধ্যমে করা যেতে পারে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Beam, Christopher (এপ্রিল ২৫, ২০১১)। "The Great Escapes"। Slate। ২০১৩-০৯-২৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৯-০৪