জেলা ও দায়রা জজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Government Seal of Bangladesh.svg
বাংলাদেশ সরকারের সীল
জেলা ও দায়রা জজ
সম্বোধনরীতিমাননীয়, বিজ্ঞ
সংক্ষেপেজেলা জজ, ডিস্ট্রিক্ট জজ
এর সদস্যবাংলাদেশের বিচার বিভাগ
যার কাছে জবাবদিহি করেবাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট, আইন মন্ত্রণালয়
আসনজেলা সদর দপ্তর
নিয়োগকর্তাবাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি
মেয়াদকাল৩ বছর
গঠনের দলিলবাংলাদেশের সংবিধান
গঠন১৯৭২
ডেপুটিঅতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ

জেলা ও দায়রা জজ বাংলাদেশের জেলার প্রধান বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা। তিনি একাধারে জজ কোর্টের অধিকর্তা, জেলার বিচার বিভাগীয়[১] কর্মকর্তাদের প্রধান, জেলার দেওয়ানি ও ফৌজদারি আদালতের[২] কর্ণধার, জেলার বিচার বিভাগের[৩] প্রধান এবং জাস্টিস অব পিস বা শান্তি রক্ষাকারী বিচারপতি।[৪][৫]

জেলা ও দায়রা জজ হচ্ছেন জেলার সর্বোচ্চ কর্মকর্তা। তিনি জেলাতে একমাত্র গ্রেড-১ অফিসার।[৬] ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্স অনুসারে জেলা ও দায়রা জজের পদমর্যাদা সচিব এর সমান।[৭][৮] জেলা ও দায়রা জজ পদে ৫ বছরের বেশি সময় ধরে দায়িত্বরত বিচারক সিনিয়র সচিব পদমর্যাদার।[৯] তিনি বাংলাদেশের জেলার প্রধান এবং চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় প্রধান কোর অফিসার।

জেলা ও দায়রা জজের রয়েছে আপীল এখতিয়ার।[১০] তিনি জেলার চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সহ প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেটদের এবং জেলা প্রশাসক ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটদের আপীল কর্তৃপক্ষ (Appellate authority)। তিনি পদাধিকার বলে জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির সভাপতি যাতে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, সিভিল সার্জন সদস্য। ফৌজদারি কার্যবিধির ২৫ ধারার বিধান মোতাবেক জেলা ও দায়রা জজ এবং চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট পদাধিকার বলে নিজ অধিক্ষেত্রের মধ্যে জাস্টিস অব পিস বা শান্তি রক্ষাকারী বিচারপতি হিসেবে শান্তিশৃঙ্খলা বজায় ও আইনের শাসন সমুন্নত রাখার নিমিত্ত ত্বরিত সিদ্ধান্ত ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য দায়িত্ব ও ক্ষমতাপ্রাপ্ত। জেলা ও দায়রা জজ এবং চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জেলাতে রাষ্ট্রপতি[১১]প্রধান বিচারপতির[১২] সাথে যোগাযোগের ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।

জেলা ও দায়রা জজকে সংক্ষেপে জেলা জজ নামে অভিহিত করা হয়। তবে জেলা জজ শব্দটি District and Session Judge শব্দের বঙ্গানুবাদ নয়, বরং দুটো আলাদা পরিচিতিকে নির্দেশ করে। বর্তমান বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থায়[১৩] জেলা জজ শব্দটির সর্বব্যাপী প্রয়োগ সুপ্রতিষ্ঠিত ভাবে লক্ষ করা যায়। বিশেষত সরকারি দপ্তরে বাংলা ভাষার ব্যবহার বাধ্যতামূলকভাবে গৃহীত হওয়ার কারণে কেবলমাত্র District Judge এর কাজের ক্ষেত্রেই নয়, Session Judge এর সামগ্রিক কাজের ক্ষেত্রে একক বাংলা প্রতিশব্দ হিসেবে জেলা জজ এর ব্যবহার প্রায়োগিক ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত।[১৪] বাংলাদেশের পদমর্যাদা ক্রমে অনুযায়ী জেলা ও দায়রা জজের অবস্থান ১৬ নম্বরে।[১৫][১৬]

এখতিয়ার ও ক্ষমতা[সম্পাদনা]

জেলা ও দায়রা জজ যখন ফৌজদারি এখতিয়ার প্রয়োগ করেন তখন তিনি দায়রা জজ এবং যখন দেওয়ানি এখতিয়ার প্রয়োগ করেন তখন তিনি জেলা জজ হিসেবে অভিহিত হন।

ফৌজদারি এখতিয়ার: দায়রা জজ আদালত মৃত্যুদণ্ড ও যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সহ আইনে উল্লেখিত সকল প্রকারের দন্ড প্রদান করতে পারেন।

দেওয়ানি এখতিয়ার: জেলা জজ আদালতের রিভিশন এখতিয়ার হচ্ছে দেওয়ানী বিষয়বস্তুর আপীল যার মূল্যমান সর্বোচ্চ ৫ কোটি টাকা।

জেলা ও দায়রা জজ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটঅতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সহ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটদের আদেশের আপীল ও রিভিশন শোনেন। জেলা প্রশাসক বা অতিরিক্ত ‌‌‌‌‌‌জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ভ্রাম্যমাণ আদালত সংক্রান্ত কোনো আদেশ প্রদান করলে মোবাইল কোর্ট আইন, ২০০৯ এর বিধান অনুযায়ী তার আপীল কর্তৃপক্ষ হলেন সরাসরি জেলা ও দায়রা জজ।[১৭][১৮][১৯]

নিয়োগ[সম্পাদনা]

জেলা ও দায়রা জজ বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিসের[২০] প্রথম গ্রেডের কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে নিয়োগ দেওয়া হয়। বাংলাদেশের সংবিধানের[২১] ১১৫ ও ১৩৩ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি জেলা ও দায়রা জজ নিয়োগ দিয়ে থাকেন।[২২] আইন মন্ত্রণালয়[২৩][২৪] সুপ্রীম কোর্টের সাথে পরামর্শক্রমে জেলা ও দায়রা জজদের পদায়ন ও বদলি করে থাকে।[২৫]

পদমর্যাদা[সম্পাদনা]

২০১৬ সালের ১০ নভেম্বর বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট এর আপীল বিভাগ ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্স বা বাংলাদেশের পদমর্যাদা ক্রম মামলার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করে যাতে জেলা ও দায়রা জজকে ১৬ নম্বর ক্রমিকে রাখা হয়।[২৬]

জাস্টিস অব পিস[সম্পাদনা]

ফৌজদারি কার্যবিধির ২৫ ধারার বিধান মোতাবেক জেলা ও দায়রা জজ পদাধিকার বলে নিজ অধিক্ষেত্রের মধ্যে জাস্টিস অব পিস বা শান্তি রক্ষাকারী বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।[২৭]

বিচার বিভাগীয় সম্মেলন[সম্পাদনা]

জেলা ও দায়রা জজের সভাপতিত্বে ত্রৈমাসিক বিচার বিভাগীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় যেখানে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ, অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, সিভিল সার্জন, নির্বাহী প্রকৌশলী (গণপূর্ত), র‍্যাব এর কোম্পানি কমান্ডার, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, সরকারি কৌঁসুলি (জিপি), পাবলিক প্রসিকিউটর (জিপি) সহ জেলার সকল গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তাগণ উপস্থিত থাকেন।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "বিচার বিভাগ জনগণের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছে" 
  2. "বিচার বিভাগের ইতিবৃত্ত" 
  3. "বিচার বিভাগ" 
  4. "ফৌজদারি কার্যবিধি" 
  5. "বিচার বিভাগ প্রভাবমুক্ত" 
  6. "দশ পদের পদমর্যাদা পরিবর্তন" 
  7. "জেলা জজের পদমর্যাদা সচিব ও চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের পদমর্যাদা সচিব মর্যাদাসম্পন্ন কর্মকর্তাদের সমান" 
  8. "পদমর্যাদার ক্রম রিটের সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ" 
  9. "ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্স রিটের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ" 
  10. "বাংলাদেশের আদালতসমূহ"। ২০১৫-০৯-২৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৭-০৭ 
  11. "বিচার বিভাগ মানুষের শেষ আশ্রয়স্থল" 
  12. "নতুন প্রধান বিচারপতি হলেন হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী" 
  13. "বাংলাদেশের বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীন ও প্রভাবমুক্ত" 
  14. "বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থা" 
  15. "জেলা ও দায়রা জজের পদমর্যাদা এখন ৮ ধাপ ওপরে" 
  16. "জেলা ও দায়রা জজের পদমর্যাদা ১৬ তে উন্নীত" 
  17. "দন্ডবিধি, ১৮৬০" 
  18. "দেওয়ানি কার্যবিধি" 
  19. "বিচার বিভাগীয় বাতায়ন" 
  20. "ন্যায়বিচার মানুষের প্রাপ্য" 
  21. "বাংলাদেশের সংবিধান" 
  22. "বাংলাদেশের সংবিধানে বিচার বিভাগ" 
  23. "বিচার বিভাগের সমস্যা সমাধানে কার্পণ্য করবে না সরকার" 
  24. "বিচার বিভাগকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেবে সরকার" 
  25. "গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান" 
  26. "পদমর্যাদার ক্রম মামলায় সর্বোচ্চ আদালতের রায় প্রকাশ" 
  27. "বিচার বিভাগ পৃথকীকরণ" 

বহিসংযোগ[সম্পাদনা]