জেজে স্মিথ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জেজে স্মিথ
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামজোহানেস জনাথান স্মিথ
জন্ম (1995-11-10) ১০ নভেম্বর ১৯৯৫ (বয়স ২৫)
কীতমানশুপ, নামিবিয়া
ব্যাটিংয়ের ধরনডান-হাতি
বোলিংয়ের ধরনবাম-হাতি মিডিয়াম ফাস্ট
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ২৩)
২৭ এপ্রিল ২০১৯ বনাম ওমান
শেষ ওডিআই২৩ সেপ্টেম্বর 2019 বনাম পাপুয়া নিউ গিনি
টি২০আই অভিষেক
(ক্যাপ ১০)
২০ মে ২০১৯ বনাম ঘানা
শেষ টি২০আই২৩ অক্টোবর ২০১৯ বনাম বারমুডা
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা ওডিআই টি২০আই এফসি লিস্ট এ
ম্যাচ সংখ্যা ৪১ ৬৭
রানের সংখ্যা ২৯ ১৬ ১,১০০ ১,০২৮
ব্যাটিং গড় ২৯.০০ ১৬.০০ ১৮.৩৩ ২৫.৭০
১০০/৫০ ০/০ ০/০ ০/৩ ১/২
সর্বোচ্চ রান ২৯ ১৬ ৭৭ ১২০
বল করেছে ৩০ ২৪ ৪৭৬০ ৩০৯৭
উইকেট ৮২ ৭২
বোলিং গড় ৭.০০ - ৩২.৪৩ ৩৩.৯৪
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৩/২১ - ৫/২৯ ৫/৬৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/০ ০/০ ১৩/০ ২৫/০
উৎস: Cricinfo, ২৩ অক্টোবর ২০১৯

জোহানেস জোনাথন "জেজে" স্মিথ (জন্ম: ১০ নভেম্বর ১৯৯৫) একজন নামিবিয়ান ক্রিকেটার যিনি ফেব্রুয়ারিতে ২০১২ সালে ১৬ বছর বয়সে নামিবিয়ার জাতীয় দলের হয়ে সিনিয়র ক্রিকেটে অভিষেক করেছিলেন।

প্রাথমিক কর্মজীবন[সম্পাদনা]

কেতিমানশুপের এ বাঁহাতি ফাস্ট বোলার স্মিথ ২০১১-১২ মৌসুমে নামিবিয়ার অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে ক্রিকেট ক্যারিয়ারের অভিষেক ঘটান। ২০১১ সালের ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত সেই মৌসুমের খায়া মাজোলা সপ্তাহে নামিবিয়ার হয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার অনূর্ধ্ব-১৯ দলের সাথে তিনি পাঁচটি ম্যাচ খেলেছিলেন।[১] মৌসুমের শেষ দিকে ২০১২ সালের ফেব্রুয়ারিতে নামিবিয়ার সিনিয়র দলের হয়ে সে তার প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক করে। দক্ষিণ আফ্রিকার তিন দিনের প্রাদেশিক প্রতিযোগিতায় মুজাহিদ বেহারদিয়েনের পশ্চিম প্রদেশের বিপক্ষে অভিষেকের সময় তিনি একটি উইকেট নিয়েছিলেন।[২] পরের মৌসুমে স্মিথ আবারও পশ্চিম প্রদেশের বিপক্ষে আরো একটি প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ খেলে।[৩] তিনি আবার খায়া মাজোলা সপ্তাহে অনূর্ধ্ব-১৯ দলে ফিরে আসেন এবং নামিবিয়ার হয়ে কেবল ব্রডেল ওয়েসেলসের পিছনে সাতটি উইকেট নিয়েছিলেন। টুর্নামেন্টে তাঁর বারোটি মেইডেন ওভার নিয়ে ছিলেন সর্বোচ্চ তৃতীয়, যেখানে প্রথম ও দ্বিতীয় ছিলেন যথাক্রেমকোয়াজুলু-নাটালের কাইল সিমন্ডস (১৭) এবং ইস্টার্নসের ভিনসেন্ট মুর (১৪)।[৪]

২০১৩ সালের মে মাসে উগান্ডায় অনুষ্ঠিত আইসিসি আফ্রিকা অনূর্ধ্ব -১৯ চ্যাম্পিয়নশিপে স্মিত বারো উইকেট নিয়েছিল, যেখানে কেনিয়ার পরমবীর সিংয়ের পরেই ছিল তার স্থান।[৫] আট ওভারে ১৭ রান দিয়ে একটি হ্যাট্রিকসহ মোট ৪টি উইকেট নিয়ে নামিবিয়াকে ৫২ রানে পরাজিত করলে, তাকে প্লেয়ার অব দ্যা ফাইনাল নির্বাচিত করা হয় এবং ফলশ্রুতিতে নামিবিয়া ২০১৪ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের জন্য যোগ্যতা অর্জন করে নেয়।[৬] ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে সংযুক্ত আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে খেলে এবং তার অনূর্ধ্ব-১৯ একদিনের আন্তর্জাতিক (ওয়ানডে) ক্রিকেটে অভিষেক করেছিলেন।[৭] টুর্নামেন্টে নামিবিয়ার ছয় ম্যাচেই তিনি নামিবিয়ার হয়ে ৮ উইকেট লাভ করেন যা ব্রাডেল ওয়েসেলস (১৪) এর পরেই তার স্থান পেয়েছিলেন।[৮] সাধারণত মরিয়াস ডেলপোর্ট বা কোবাস ব্র্যান্ডের যে কোনও একটি দিয়ে বোলিংয়ের উদ্বোধন, তার সেরা পরিসংখ্যান, ৩/৫৫, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এসেছিল।[৯]

আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

অনূর্ধ্ব-১৯ দলে খেলার বাইরেও স্মিথ দক্ষিণ আফ্রিকার ঘরোয়া টুর্নামেন্ট এবং আন্তর্জাতিক উভয় প্রতিযোগিতায় নামিবিয়ার সিনিয়র দলের হয়ে নিয়মিত খেলে আসছে, ২০১৩ ইন্টারকন্টিনেন্টাল কাপ এবং ২০১১-১৩ আইসিসি বিশ্ব ক্রিকেট লীগ চ্যাম্পিয়নশীপ, ২০১৩ আইসিসি বিশ্ব টুয়েন্টি২০ বাছাইপর্ব এবং ২০১৪ ক্রিকেট বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে তার গুরুত্বপূর্ণ অবদান ছিল।[৩][১০][১১] নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ২০১৪ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে কেনিয়ার বিপক্ষে, লুইস ক্লায়জিংয়ের সাথে উদ্বোধন করে দশ ওভারের ২৩/৩ উইকেট নেয়ায় এবং কেনিয়া তাদের ৫০ ওভারে ১৮৬/৮-এ রোখে দেয়। নামিবিয়ার ইনিংসে নবম ব্যাটিং অর্ডারে যখন তিনি খেলতে আসেন তখন নামিবিয়ার স্কোর ছিল ১৪৪/৭। পরে সারেল বার্গার আউট হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত ২২ বলে ৩৩ রান করে অপরাজিত থাকেন। খেলায় নামিবিয়া ২ উইকেটে জয় লাভ করে এবং তাকে ম্যান অফ দ্য ম্যাচ নির্বাচিত করা হয়।[১২]

২০১৮ জানুয়ারিতে, ২০১৮ আইসিসি ওয়ার্ল্ড ক্রিকেট লীগ দ্বিতীয় বিভাগ টুর্নামেন্টের জন্য নামিবিয়ার স্কোয়াডে তাঁর নাম ছিল।[১৩] আগস্ট ২০১৮ এ, ২০১৮ আফ্রিকা টি-টোয়েন্টি কাপের জন্য নামিবিয়ার স্কোয়াডে তাঁর নাম ছিল।[১৪]

২০১৯ সালের মার্চ মাসে, ২০১৮ আইসিসি বিশ্ব ক্রিকেট লীগ দ্বিতীয় বিভাগ প্রতিযোগিতার জন্য তাকে নামিবিয়ার স্কোয়াডে রাখা হয়।[১৫] নামিবিয়া উক্ত প্রতিযোগিতায় শীর্ষ চারে অবস্থান করায় একদিনের আন্তর্জাতিক (ওডিআই) মর্যাদা পেয়ে যায়।[১৬] টুর্নামেন্টের ফাইনালে ওমানের বিপক্ষে ২ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে নামিবিয়ার হয়ে ওডিআই ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে স্মিতের।[১৭] প্রতিযোগিতার সমাপ্তির পরে, স্মিথকে টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল।[১৮]

২০১৯ সালের মে মাসে উগান্ডায় অনুষ্ঠিত আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আফ্রিকা বাছাইপর্বের টুর্নামেন্টের আঞ্চলিক ফাইনালের জন্য নামিবিয়ার স্কোয়াডে তাকে নাম দেওয়া হয়েছিল।[১৯][২০] তিনি ঘানা বিপরীতে ২০ মে ২০১৯ সালে টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নামিবিয়া হয়ে অভিষেক করেন।[২১]

২০১৯ সালের জুনে, তাকে ২০১৯ গ্লোবাল টি২০ কানাডা টুর্নামেন্টে ভ্যাঙ্কুবার নাইটস ফ্র্যাঞ্চাইজি দলের হয়ে খেলতে নির্বাচিত করা হয়েছিল। [২২] এটি করতে গিয়ে তিনি নামিবিয়ার প্রথম ক্রিকেটার হিসাবে আন্তর্জাতিক টি২০ ফ্র্যাঞ্চাইজের হয়ে খেলতে স্বাক্ষর করেন।[২৩] একই মাসের শেষের দিকে, তিনি ২০১৯-২০ আন্তর্জাতিক মৌসুমের আগে ক্রিকেট নামিবিয়ার ঘোষিত এলিট মেনস স্কোয়াডের পঁচিশজন ক্রিকেটারের মধ্যে তিনিও ছিলেন একজন।[২৪][২৫] ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে সংযুক্ত আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের টুর্নামেন্টের জন্য নামিবিয়ার স্কোয়াডে তার নাম দেওয়া হয়েছিল।[২৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Miscellaneous matches played by Johannes Smit (54) – CricketArchive. Retrieved 7 February 2015.
  2. Western Province v Namibia, CSA Provincial Three-Day Competition 2011/12 – CricketArchive. Retrieved 7 February 2015.
  3. First-class matches played by Johannes Smit (11) – CricketArchive. Retrieved 7 February 2015.
  4. Bowling in Coca-Cola Khaya Majola Week 2012/13 – CricketArchive. Retrieved 7 February 2015.
  5. Bowling in ICC Africa Division One Champion 2013 (ordered by wickets) – CricketArchive. Retrieved 7 February 2015.
  6. Kenya Under-19s v Namibia Under-19s, ICC Africa Under-19 Division One Championship 2013 (Final) – CricketArchive. Retrieved 7 February 2015.
  7. Under-19 ODI matches played by Johannes Smit (6) – CricketArchive. Retrieved 7 February 2015.
  8. Bowling for Namibia under-19s, ICC Under-19 World Cup 2013/14 – CricketArchive. Retrieved 7 February 2015.
  9. Australia Under-19s v Namibia Under-19s, ICC Under-19 World Cup 2013/14 (Group B) – CricketArchive. Retrieved 7 February 2015.
  10. List A matches played by Johannes Smit (18) – CricketArchive. Retrieved 7 February 2015.
  11. Twenty20 matches played by Johannes Smit (9) – CricketArchive. Retrieved 7 February 2015.
  12. Kenya v Namibia, ICC World Cup Qualifier 2013/14 (Group B) – CricketArchive. Retrieved 7 February 2015.
  13. "Six teams vying for the final two spots in ICC Cricket World Cup Qualifier 2018"International Cricket Council। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ 
  14. "Cricket Namibia to compete in T20 Africa Cup"The Namibian। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০১৮ 
  15. "The Squad Participating In The ICC World League 2 Tournament"Cricket Namibia। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০১৯ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  16. "Papua New Guinea secure top-four finish on dramatic final day"International Cricket Council। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০১৯ 
  17. "Final, ICC World Cricket League Division Two at Windhoek, Apr 27 2019"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০১৯ 
  18. "Namibia crowned ICC World Cricket League Division 2 champions with victory over Oman"International Cricket Council। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০১৯ 
  19. "Namibia squad revealed for ICC T20 World Cup Africa finals"Xinhua News (Africa)। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মে ২০১৯ 
  20. "African men in Uganda for T20 showdown"International Cricket Council। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মে ২০১৯ 
  21. "5th Match, ICC Men's T20 World Cup Africa Region Final at Kampala, May 20 2019"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০ মে ২০১৯ 
  22. "Global T20 draft streamed live"Canada Cricket Online। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুন ২০১৯ 
  23. "Smit makes cricketing history"The Namibian। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১৯ 
  24. "Breaking News – Announcement of the 2019–2020 National Elite Training Squad"Cricket Namibia। ১৭ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১৯ 
  25. "Elite cricket training squad announced"Erongo। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১৯ 
  26. "ICC Men's T20 World Cup Qualifier Send Off"Cricket Namibia। ২ অক্টোবর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ অক্টোবর ২০১৯ 

বাহ্যিক লিঙ্কগুলি[সম্পাদনা]